ঢাকা ১০:৩৯ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২২, ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম :




তিন হাজার ভোটারের মাঝে ভোট পড়েছে ৪১!

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৯:২৬:৪৬ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৮ মার্চ ২০১৯ ১৬ বার পড়া হয়েছে

মৌলভীবাজার প্রতিনিধি; মৌলভীবাজার পৌর শহরের কাশিনাথ আলাউদ্দিন স্কুল অ্যান্ড কলেজ কেন্দ্রে মোট ভোটারের সংখ্যা ২ হাজার ৯৯৭ জন। ওই কেন্দ্রের ৯টি বুথে ভোট পড়েছে মাত্র হয়েছে ৪১টি। সোমবার বিকাল সাড়ে ৪টায় কেন্দ্রের দায়িত্বে থাকা প্রিসাইডিং অফিসার নীলাদ্রি শেখর দাস এমনটি নিশ্চিত করেন।

তিনি জানান, ১ নম্বর বুথে ৪ জন, ২ নম্বর বুথে ৫ জন, ৩ নম্বর বুথে ২ জন, ৪ নম্বর বুথে ৬ জন, ৫ নম্বর বুথে ৭ জন, ৬ নম্বর বুথে ৩ জন, ৭ নম্বর বুথে ৪ জন ও ৮ নম্বর বুথে ১০ জন ভোটার ভোট দেন। কিন্তু ৯ নম্বর বুথে একটিও ভোট পড়েনি।

জানা গেছে, বিগত নির্বাচনগুলোতে ওই কেন্দ্রে ২ হাজারের ওপরে ভোট পড়ত। কিন্তু এবার ভোট দিতে কেন্দ্রে আসেননি ভোটাররা।

একাধিক ভোটারের সঙ্গে কথা বললে তারা জানান, বিএনপি নির্বাচনে অংশগ্রহণ না করায় ভোট নিয়ে তেমন আগ্রহ নেই তাদের।

ওই উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন নৌকার প্রার্থী মো. কামাল হোসেন। যার কারণে ভোট প্রয়োগে অনেকটা নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে বলে মনে করছেন ভোটার।

প্রিসাইডিং অফিসার নীলাদ্রি শেখর দাস বলেন, কেন্দ্রের সবাই নারী ভোটার। নারীদের ভোটে আগ্রহ না থাকায় এমনটা হয়েছে।

এর মধ্যে ১টি বুথে সারা দিনে কোনো ভোট পড়েনি। সোমবার বিকাল সাড়ে ৪টায় কেন্দ্রের দায়িত্বে থাকা প্রিসাইডিং অফিসার নীলাদ্রি শেখর দাস এমনটি নিশ্চিত করেন। তবে ওই সেন্টারের ৯টি বুথে ২ হাজার ৯৯৭ জন ভোটারের মধ্যে সর্বমোট ৪১ জন ভোটার তাদের ভোট অধিকার প্রয়োগ করেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :




তিন হাজার ভোটারের মাঝে ভোট পড়েছে ৪১!

আপডেট সময় : ০৯:২৬:৪৬ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৮ মার্চ ২০১৯

মৌলভীবাজার প্রতিনিধি; মৌলভীবাজার পৌর শহরের কাশিনাথ আলাউদ্দিন স্কুল অ্যান্ড কলেজ কেন্দ্রে মোট ভোটারের সংখ্যা ২ হাজার ৯৯৭ জন। ওই কেন্দ্রের ৯টি বুথে ভোট পড়েছে মাত্র হয়েছে ৪১টি। সোমবার বিকাল সাড়ে ৪টায় কেন্দ্রের দায়িত্বে থাকা প্রিসাইডিং অফিসার নীলাদ্রি শেখর দাস এমনটি নিশ্চিত করেন।

তিনি জানান, ১ নম্বর বুথে ৪ জন, ২ নম্বর বুথে ৫ জন, ৩ নম্বর বুথে ২ জন, ৪ নম্বর বুথে ৬ জন, ৫ নম্বর বুথে ৭ জন, ৬ নম্বর বুথে ৩ জন, ৭ নম্বর বুথে ৪ জন ও ৮ নম্বর বুথে ১০ জন ভোটার ভোট দেন। কিন্তু ৯ নম্বর বুথে একটিও ভোট পড়েনি।

জানা গেছে, বিগত নির্বাচনগুলোতে ওই কেন্দ্রে ২ হাজারের ওপরে ভোট পড়ত। কিন্তু এবার ভোট দিতে কেন্দ্রে আসেননি ভোটাররা।

একাধিক ভোটারের সঙ্গে কথা বললে তারা জানান, বিএনপি নির্বাচনে অংশগ্রহণ না করায় ভোট নিয়ে তেমন আগ্রহ নেই তাদের।

ওই উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন নৌকার প্রার্থী মো. কামাল হোসেন। যার কারণে ভোট প্রয়োগে অনেকটা নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে বলে মনে করছেন ভোটার।

প্রিসাইডিং অফিসার নীলাদ্রি শেখর দাস বলেন, কেন্দ্রের সবাই নারী ভোটার। নারীদের ভোটে আগ্রহ না থাকায় এমনটা হয়েছে।

এর মধ্যে ১টি বুথে সারা দিনে কোনো ভোট পড়েনি। সোমবার বিকাল সাড়ে ৪টায় কেন্দ্রের দায়িত্বে থাকা প্রিসাইডিং অফিসার নীলাদ্রি শেখর দাস এমনটি নিশ্চিত করেন। তবে ওই সেন্টারের ৯টি বুথে ২ হাজার ৯৯৭ জন ভোটারের মধ্যে সর্বমোট ৪১ জন ভোটার তাদের ভোট অধিকার প্রয়োগ করেন।