ঢাকা ০৫:৫১ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২২, ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম :




এবার প্রথম হয়েও পুলিশে চাকরি হলো না খুলনার মীমের

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ১০:৪৭:৫৬ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ১২ ডিসেম্বর ২০২১ ১০ বার পড়া হয়েছে

নিজস্ব প্রতিবেদক;  পুলিশে ট্রেইনি রিক্রুট কনস্টেবল পদে সাধারণ নারী কোটায় মেধা তালিকায় প্রথম হয়েও জেলায় জমি না থাকায় এবার পুলিশে চাকরি পাচ্ছেন না খুলনার মীম আক্তার। শনিবার (১১ ডিসেম্বর) দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে খুলনা পুলিশ সুপার কার্যালয় থেকে তাকে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে, খুলনায় স্থায়ী ঠিকানা না থাকায় চাকরিটি দেওয়া সম্ভব হচ্ছে না।

মীম আক্তার খুলনার সোনাডাঙ্গা থানার ৩ নম্বর আবাসিক এলাকার ১ নম্বর রোডের ডা. বাবর আলীর বাড়ির ভাড়াটিয়া। মিমের বাবা মো. রবিউল ইসলাম খুলনার বয়রা ক্রস রোডে ভাড়ায় ছোট্ট একটি দোকান নিয়ে লেপ-তোশকের ব্যবসা করেন। দোকানটির নাম বেডিং হাউস।

মীম আক্তার বলেন, পুলিশে ট্রেইনি রিক্রুট কনস্টেবল পদে সাধারণ নারী কোটায় আবেদনের পর ২৫ অক্টোবর খুলনা শিরোমনি পুলিশ লাইন্সে শারীরিক যোগ্যতা যাচাই হয়। ২৫, ২৬ ও ২৭ অক্টোবর তিন দিন ধরে চলা শারীরিক যোগ্যতা যাচাইয়ে আমি উত্তীর্ণ হই। এরপর ২৮ তারিখে লিখিত পরীক্ষা হয় খুলনা সরকারি মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে। এতে উত্তীর্ণ হই। এরপর মনস্তাত্ত্বিক ও মৌখিক পরীক্ষাতেও উত্তীর্ণ হই। ফলাফলে জানতে পারি আমি মেধা তালিকায় প্রথম হয়েছি।

তিনি আরও বলেন, এরপর খুলনা জেলা পুলিশ লাইন্সে সাধারণ মেডিকেল পরীক্ষা হয়। সেখানেও উত্তীর্ণ হয়েছি। তারপর ১২ নভেম্বর রাতে ঢাকায় নিয়ে যাওয়া হয় রাজারবাগ পুলিশ লাইন্স হাসপাতালে। সেখানে ১৩ নভেম্বর সকালে মেডিকেল পরীক্ষা হয়। তারপর বাড়িতে ফিরে আসি। সেখা থেকে বলা হয়েছিল, পরবর্তীতে ফলাফল জানানো হবে। এরপর পুলিশ ভেরিফিকেশন শুরু হয়। সোনাডাঙ্গা থানা, পুলিশ ফাঁড়ি ও সিটিএসবি থেকে বাড়িতে তদন্তে আসে। তাদের কাছে ভূমিহীন সার্টিফিকেট জমা দিয়েছি।

তারা বলেছিলেন, ৫ ডিসেম্বর আমাকে জানাবেন। ফোন দিয়ে ৭ তারিখে জেলা পুলিশ লাইন্সে ফিঙ্গার প্রিন্টের জন্য ডাকা হয়। সেখানে পাঁচ আঙুলের ছাপ দিয়ে এসেছিলাম। সেখান থেকে বলেছিল, পরে জানিয়ে দেওয়া হবে। এরপর থেকে আর কিছুই জানায়নি।

মীম বলেন, যারা ফিঙ্গার দিয়ে এসেছিল তাদেরকে ফোন দিয়ে চাকরির বিষয়টি নিশ্চিত করেছে। কিন্তু আমাকে কিছু না জানানোর কারণে আমি শুক্রবার (১০ ডিসেম্বর) জেলা পুলিশ লাইন্সে গিয়েছিলাম। তারা কিছুই জানেন না জানিয়ে এসপি স্যারের সঙ্গে কথা বলতে বলেন। এরপর শনিবার (১১ ডিসেম্বর) খুলনা পুলিশ সুপার কার্যালয়ে গিয়েছি। পুলিশ সুপার স্যারকে পাইনি। ২-৩ ঘণ্টা অপেক্ষার পর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার তানভির আহম্মেদ স্যারের সঙ্গে দেখা হয়েছে। স্যার বলেছেন, তোমার সব ঠিক আছে। তবে স্থায়ী ঠিকানা না থাকায় তোমার চাকরিটা আমরা দিতে পারছি না। কাঁদতে কাঁদতে বাড়ি ফিরে এসেছি। ভূমিহীন বলে আমার চাকরি হবে না। আমার জন্ম খুলনায়। জন্মসনদ খুলনা সিটি করপোরেশনের।

মীম আক্তারের বাবা রবিউল ইসলাম ঢাকা পোস্টকে বলেন, গত ১৭ মাস ধরে এই বাবর আলীর বাড়িতে ভাড়াটিয়া হিসেবে বসবাস করছি। ১৯৮৮ সাল থেকে এই রোডের আশপাশে বিভিন্নস্থানে ভাড়াটিয়া হিসেবে বসবাস করে আসছি। গত ৩২ বছর ধরে পরিবার নিয়ে রয়েছি এখানে। মেয়ের জন্ম খুলনাতে। এখানে আমার নিজস্ব কোনো জমি নেই। এছাড়া আমার গ্রামের বাড়িতেও আমার নামে কোনো জমি নেই। পৈতৃক বাড়ি বাগেরহাট জেলার চিতলমারি থানার বড়বাড়িয়া গ্রামে। বাবা আব্দুল লতিফ শেখ এখনো জীবিত আছেন। ভিটেবাড়ির জমিটুকুও আমার বাবার নামে রয়েছে। আমার নামে জমি নেই। এখন জমি নেই ভূমিহীন বলে আমার মেয়ের চাকরিটা হচ্ছে না।

তিনি বলেন, মেয়ের কনস্টেবল পদে চাকরির জন্য ভেরিফিকেশনের জন্য পুলিশ এসেছিল। তাদেরকে আমি সব ঘটনা খুলে বলেছি। তারপর তারা বলে গেছেন, স্থায়ী ঠিকানা বা জমি না থাকলে আপনার মেয়ের চাকরিটা সম্ভবত হবে না।

খুলনার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার তানভীর আহম্মেদ বলেন, মেয়েটা সব দিক দিয়েই পারফেক্ট। মেধা তালিকায় প্রথম হয়েছে। তবুও পুলিশের রুলসের কারণে আমরা তাকে নিতে পারছি না। ঘটনাটি বরিশাল জেলার আছপিয়ার ঘটনার মতই। আমরা তাকে নিতে চাই তবে নিয়মের কারণে আটকে গেছি। তাকে নিয়োগ পেতে হলে জেলার স্থায়ী বাসিন্দা হতে হবে। জন্ম এখানে হলে বা জন্মসনদ এখানে থাকলেই হবে না। তার স্থায়ী ঠিকানা লাগবে। সেটি মীমের নেই। বাগেরহাটে তার চাচা, বাবা ও মামাদের কিছুটা জমি রয়েছে। সে যদি বাগেরহাট জেলা থেকে আবেদন করতো তবে সেটি ঠিক ছিল।

তিনি বলেন, মীম আক্তারকে বাদ দিয়ে আমাদের যে ভালো হচ্ছে তা নয়। কেননা সে প্রথম হয়েছে। সব দিক দিয়েই যোগ্যতা রয়েছে। তবে আইনের বাইরে আমরা কিছু করতে পারি না। এখন সরকার যদি আইন পরিবর্তন বা সংশোধন করে তবেই একমাত্র সুযোগ রয়েছে। এছাড়া আমাদের কিছু করার নেই।

খুলনার পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মাহবুব হাসান ঢাকা পোস্টকে বলেন, আমরাতো ভালো প্রার্থীকে চাই। চান্স পাওয়ার ৭/৮টি ধাপ রয়েছে। এসব ধাপে যে কোনো মুহূর্তে যে কেউ ডিসচার্জ হয়ে যায়। ট্রেনিংয়ে যাওয়া পর্যন্ত যে কোনো মুহূর্তে যে কেউ বাদ পড়তে পারে। এখন চান্স পাওয়াটা আপেক্ষিক বিষয়। প্রার্থী (মীম) স্থায়ী ঠিকানা দিয়েছে খুলনার। কিন্তু আমরা দেখলাম সেখানে তার কোনো ঠিকানা নেই। সেক্ষেত্রে সে তথ্য গোপন করেছে। আমরা যেটা পেয়েছি, সেটা হচ্ছে তার বাগেরহাটের ঠিকানা। তাহলে কেন সে বাগেরহাট থেকে আবেদন করেনি।

পুলিশ সুপার বলেন, সব কিছুর পরও মেডিকেলে সে (মীম) ফিট হয়নি। মেডিকেলে বিভিন্ন ধরনের টেস্ট হয়। আমাদের মেডিকেল বোর্ড রয়েছে, সেখান থেকে আমরা ফাইনাল ওপেনিয়ন যেটা পেয়েছি, সেখানে সে ফিট নয় বলে জানানো হয়েছে। শেষ কথা হচ্ছে একজন ভালো প্রার্থীর জন্য আমরাও বেশ চেষ্টা করি। ভালো প্রার্থী আমরা কেন নিব না।

এর আগে বরিশালে পুলিশে ট্রেইনি রিক্রুট কনস্টেবল (টিআরসি) পদে নিয়োগ পরীক্ষায় পাস করার পর মেধা তালিকায় পঞ্চম হয়েও স্থায়ী ঠিকানার অভাবে হিজলা উপজেলার আছপিয়া ইসলাম কাজলের চাকরি হয়নি। এ নিয়ে গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশিত হলে মেয়েটির পরিবারকে আশ্রয়ণ প্রকল্পের আওতায় ঘর ও জমি প্রদানের নির্দেশনা দেন প্রধানমন্ত্রী। তবে এখনো আছপিয়ার পুলিশে চাকরি পাওয়া নিয়ে জটিলতা রয়েই গেছে। তার পৈতৃক বাড়ি ভোলার চরফ্যাশন উপজেলায়।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :




error: Content is protected !!

এবার প্রথম হয়েও পুলিশে চাকরি হলো না খুলনার মীমের

আপডেট সময় : ১০:৪৭:৫৬ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ১২ ডিসেম্বর ২০২১

নিজস্ব প্রতিবেদক;  পুলিশে ট্রেইনি রিক্রুট কনস্টেবল পদে সাধারণ নারী কোটায় মেধা তালিকায় প্রথম হয়েও জেলায় জমি না থাকায় এবার পুলিশে চাকরি পাচ্ছেন না খুলনার মীম আক্তার। শনিবার (১১ ডিসেম্বর) দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে খুলনা পুলিশ সুপার কার্যালয় থেকে তাকে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে, খুলনায় স্থায়ী ঠিকানা না থাকায় চাকরিটি দেওয়া সম্ভব হচ্ছে না।

মীম আক্তার খুলনার সোনাডাঙ্গা থানার ৩ নম্বর আবাসিক এলাকার ১ নম্বর রোডের ডা. বাবর আলীর বাড়ির ভাড়াটিয়া। মিমের বাবা মো. রবিউল ইসলাম খুলনার বয়রা ক্রস রোডে ভাড়ায় ছোট্ট একটি দোকান নিয়ে লেপ-তোশকের ব্যবসা করেন। দোকানটির নাম বেডিং হাউস।

মীম আক্তার বলেন, পুলিশে ট্রেইনি রিক্রুট কনস্টেবল পদে সাধারণ নারী কোটায় আবেদনের পর ২৫ অক্টোবর খুলনা শিরোমনি পুলিশ লাইন্সে শারীরিক যোগ্যতা যাচাই হয়। ২৫, ২৬ ও ২৭ অক্টোবর তিন দিন ধরে চলা শারীরিক যোগ্যতা যাচাইয়ে আমি উত্তীর্ণ হই। এরপর ২৮ তারিখে লিখিত পরীক্ষা হয় খুলনা সরকারি মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে। এতে উত্তীর্ণ হই। এরপর মনস্তাত্ত্বিক ও মৌখিক পরীক্ষাতেও উত্তীর্ণ হই। ফলাফলে জানতে পারি আমি মেধা তালিকায় প্রথম হয়েছি।

তিনি আরও বলেন, এরপর খুলনা জেলা পুলিশ লাইন্সে সাধারণ মেডিকেল পরীক্ষা হয়। সেখানেও উত্তীর্ণ হয়েছি। তারপর ১২ নভেম্বর রাতে ঢাকায় নিয়ে যাওয়া হয় রাজারবাগ পুলিশ লাইন্স হাসপাতালে। সেখানে ১৩ নভেম্বর সকালে মেডিকেল পরীক্ষা হয়। তারপর বাড়িতে ফিরে আসি। সেখা থেকে বলা হয়েছিল, পরবর্তীতে ফলাফল জানানো হবে। এরপর পুলিশ ভেরিফিকেশন শুরু হয়। সোনাডাঙ্গা থানা, পুলিশ ফাঁড়ি ও সিটিএসবি থেকে বাড়িতে তদন্তে আসে। তাদের কাছে ভূমিহীন সার্টিফিকেট জমা দিয়েছি।

তারা বলেছিলেন, ৫ ডিসেম্বর আমাকে জানাবেন। ফোন দিয়ে ৭ তারিখে জেলা পুলিশ লাইন্সে ফিঙ্গার প্রিন্টের জন্য ডাকা হয়। সেখানে পাঁচ আঙুলের ছাপ দিয়ে এসেছিলাম। সেখান থেকে বলেছিল, পরে জানিয়ে দেওয়া হবে। এরপর থেকে আর কিছুই জানায়নি।

মীম বলেন, যারা ফিঙ্গার দিয়ে এসেছিল তাদেরকে ফোন দিয়ে চাকরির বিষয়টি নিশ্চিত করেছে। কিন্তু আমাকে কিছু না জানানোর কারণে আমি শুক্রবার (১০ ডিসেম্বর) জেলা পুলিশ লাইন্সে গিয়েছিলাম। তারা কিছুই জানেন না জানিয়ে এসপি স্যারের সঙ্গে কথা বলতে বলেন। এরপর শনিবার (১১ ডিসেম্বর) খুলনা পুলিশ সুপার কার্যালয়ে গিয়েছি। পুলিশ সুপার স্যারকে পাইনি। ২-৩ ঘণ্টা অপেক্ষার পর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার তানভির আহম্মেদ স্যারের সঙ্গে দেখা হয়েছে। স্যার বলেছেন, তোমার সব ঠিক আছে। তবে স্থায়ী ঠিকানা না থাকায় তোমার চাকরিটা আমরা দিতে পারছি না। কাঁদতে কাঁদতে বাড়ি ফিরে এসেছি। ভূমিহীন বলে আমার চাকরি হবে না। আমার জন্ম খুলনায়। জন্মসনদ খুলনা সিটি করপোরেশনের।

মীম আক্তারের বাবা রবিউল ইসলাম ঢাকা পোস্টকে বলেন, গত ১৭ মাস ধরে এই বাবর আলীর বাড়িতে ভাড়াটিয়া হিসেবে বসবাস করছি। ১৯৮৮ সাল থেকে এই রোডের আশপাশে বিভিন্নস্থানে ভাড়াটিয়া হিসেবে বসবাস করে আসছি। গত ৩২ বছর ধরে পরিবার নিয়ে রয়েছি এখানে। মেয়ের জন্ম খুলনাতে। এখানে আমার নিজস্ব কোনো জমি নেই। এছাড়া আমার গ্রামের বাড়িতেও আমার নামে কোনো জমি নেই। পৈতৃক বাড়ি বাগেরহাট জেলার চিতলমারি থানার বড়বাড়িয়া গ্রামে। বাবা আব্দুল লতিফ শেখ এখনো জীবিত আছেন। ভিটেবাড়ির জমিটুকুও আমার বাবার নামে রয়েছে। আমার নামে জমি নেই। এখন জমি নেই ভূমিহীন বলে আমার মেয়ের চাকরিটা হচ্ছে না।

তিনি বলেন, মেয়ের কনস্টেবল পদে চাকরির জন্য ভেরিফিকেশনের জন্য পুলিশ এসেছিল। তাদেরকে আমি সব ঘটনা খুলে বলেছি। তারপর তারা বলে গেছেন, স্থায়ী ঠিকানা বা জমি না থাকলে আপনার মেয়ের চাকরিটা সম্ভবত হবে না।

খুলনার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার তানভীর আহম্মেদ বলেন, মেয়েটা সব দিক দিয়েই পারফেক্ট। মেধা তালিকায় প্রথম হয়েছে। তবুও পুলিশের রুলসের কারণে আমরা তাকে নিতে পারছি না। ঘটনাটি বরিশাল জেলার আছপিয়ার ঘটনার মতই। আমরা তাকে নিতে চাই তবে নিয়মের কারণে আটকে গেছি। তাকে নিয়োগ পেতে হলে জেলার স্থায়ী বাসিন্দা হতে হবে। জন্ম এখানে হলে বা জন্মসনদ এখানে থাকলেই হবে না। তার স্থায়ী ঠিকানা লাগবে। সেটি মীমের নেই। বাগেরহাটে তার চাচা, বাবা ও মামাদের কিছুটা জমি রয়েছে। সে যদি বাগেরহাট জেলা থেকে আবেদন করতো তবে সেটি ঠিক ছিল।

তিনি বলেন, মীম আক্তারকে বাদ দিয়ে আমাদের যে ভালো হচ্ছে তা নয়। কেননা সে প্রথম হয়েছে। সব দিক দিয়েই যোগ্যতা রয়েছে। তবে আইনের বাইরে আমরা কিছু করতে পারি না। এখন সরকার যদি আইন পরিবর্তন বা সংশোধন করে তবেই একমাত্র সুযোগ রয়েছে। এছাড়া আমাদের কিছু করার নেই।

খুলনার পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মাহবুব হাসান ঢাকা পোস্টকে বলেন, আমরাতো ভালো প্রার্থীকে চাই। চান্স পাওয়ার ৭/৮টি ধাপ রয়েছে। এসব ধাপে যে কোনো মুহূর্তে যে কেউ ডিসচার্জ হয়ে যায়। ট্রেনিংয়ে যাওয়া পর্যন্ত যে কোনো মুহূর্তে যে কেউ বাদ পড়তে পারে। এখন চান্স পাওয়াটা আপেক্ষিক বিষয়। প্রার্থী (মীম) স্থায়ী ঠিকানা দিয়েছে খুলনার। কিন্তু আমরা দেখলাম সেখানে তার কোনো ঠিকানা নেই। সেক্ষেত্রে সে তথ্য গোপন করেছে। আমরা যেটা পেয়েছি, সেটা হচ্ছে তার বাগেরহাটের ঠিকানা। তাহলে কেন সে বাগেরহাট থেকে আবেদন করেনি।

পুলিশ সুপার বলেন, সব কিছুর পরও মেডিকেলে সে (মীম) ফিট হয়নি। মেডিকেলে বিভিন্ন ধরনের টেস্ট হয়। আমাদের মেডিকেল বোর্ড রয়েছে, সেখান থেকে আমরা ফাইনাল ওপেনিয়ন যেটা পেয়েছি, সেখানে সে ফিট নয় বলে জানানো হয়েছে। শেষ কথা হচ্ছে একজন ভালো প্রার্থীর জন্য আমরাও বেশ চেষ্টা করি। ভালো প্রার্থী আমরা কেন নিব না।

এর আগে বরিশালে পুলিশে ট্রেইনি রিক্রুট কনস্টেবল (টিআরসি) পদে নিয়োগ পরীক্ষায় পাস করার পর মেধা তালিকায় পঞ্চম হয়েও স্থায়ী ঠিকানার অভাবে হিজলা উপজেলার আছপিয়া ইসলাম কাজলের চাকরি হয়নি। এ নিয়ে গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশিত হলে মেয়েটির পরিবারকে আশ্রয়ণ প্রকল্পের আওতায় ঘর ও জমি প্রদানের নির্দেশনা দেন প্রধানমন্ত্রী। তবে এখনো আছপিয়ার পুলিশে চাকরি পাওয়া নিয়ে জটিলতা রয়েই গেছে। তার পৈতৃক বাড়ি ভোলার চরফ্যাশন উপজেলায়।