ঢাকা ০৩:৫৯ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৭ জুলাই ২০২৪, ২ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম :
Logo আবাসিক হল ছাড়ছে শাবি শিক্ষার্থীরা Logo নিরাপত্তার স্বার্থে শাবি শিক্ষার্থীদের আইডিকার্ড সাথে রাখার আহবান বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের Logo জনস্বাস্থ্যের প্রধান সাধুর যত অসাধু কর্ম: দুর্নীতি ও অর্থ পাচারের অভিযোগ! Logo বিআইডব্লিউটিএ বন্দর শাখা যুগ্ম পরিচালক আলমগীরের দুর্নীতি ও ঘুষ বাণিজ্য  Logo রাজশাহীতে এটিএন বাংলার সাংবাদিক সুজাউদ্দিন ছোটনকে হয়রানিমূলক মামলায় বএিমইউজরে নিন্দা ও প্রতিবাদ Logo শিক্ষার্থীদের তথ্য প্রযুক্তিতে দক্ষ হয়ে স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ায় অবদান রাখতে হবেঃ ড. তৌফিক রহমান চৌধুরী Logo ‘কানামাছি শিশুসাহিত্য পুরস্কার ২০২৪’ পেলেন লেখক Logo মধ্যরাতে শাবি ছাত্রলীগের ‘ তুমি কে, আমি কে- বাঙ্গালী, বাঙ্গালী’ শ্লোগানে উত্তাল ক্যাম্পাস Logo আম নিয়ে কষ্টগাঁথা Logo ঘুমান্ত বিবেক মাতাল আবেগ’ – আকাশমণি




ফায়ার সার্ভিসের ডিডি জসিমের দূর্নীতি যেন লাগামহীন ঘোড়া: ব্যবস্থা গ্রহণের উদাসীন কর্তৃপক্ষ!

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০২:০৪:৩৯ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৫ অক্টোবর ২০২৩ ২০৪ বার পড়া হয়েছে

বিশেষ প্রতিবেদক: ফায়ার সার্ভিস এন্ড সিভিল ডিফেন্সের প্রশাসন অর্থ বিভাগের উপ পরিচালক জসীমউদ্দীনের দুর্নীতি যেন লাগামহীন ঘোড়া। যা থামানো সাধ্য নেই কারো। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নীরবতাই তার প্রমাণ। অফিস সহায়ক নারীকে যৌন হয়রানি চট্টগ্রাম বিভাগের অগ্নিকাণ্ডের তদন্ত প্রতিবেদ থেকে শুরু করে ঘুষ দুর্নীতি নারী কেলেঙ্কারি সহ সীমাহীন দুর্নীতির অভিযোগ মাথায় নিয়েও বহাল তবিয়তে চেয়ার আকড়ে রেখেছেন তিনি। তাকে বাঁচাতে তৎপর ফায়ার সার্ভিস অধিদপ্তরের কর্মকর্তাদের একটি শক্তিশালী সিন্ডিকেট। সীমাহীন দুর্নীতি অনিয়ম ও নারী কেলেঙ্কারীর অভিযোগের বিষয়ে সম্প্রতি অসংখ্য দৈনিক ও অনলাইন পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশিত হওয়ার পরেও টনক নড়ছে না কর্তৃপক্ষের।

তার বিরুদ্ধে একাধিক সংবাদ প্রচার করা হলেও অদৃশ্য শক্তির বলে বহাল তবিয়তে রয়েছেন জসিম উদ্দিন। এসব অভিযোগ আমলে নিয়ে ব্যবস্থা গ্রহণ তো দূরের কথা জসিমের বিরুদ্ধে কোন তদন্ত কমিটিও গঠন করা হয়নি।

সূত্র জানায়, উপ-পরিচালক জসিম উদ্দিন এর বিরুদ্ধে অধীনস্থ নারী কর্মচারীকে যৌন হয়রানি ও আত্মহত্যার প্ররোচনার অভিযোগের পাশাপাশি তার চাকরি জীবনে দুর্নীতি ও অনিয়মের অসংখ্য অভিযোগ নিয়ে একাধিক জাতীয় সংবাদমাধ্যমের সংবাদ প্রচার করা হয়েছে। এসব সংবাদে তার দুর্নীতি ও অনিয়মের ভয়ংকর চিত্র ফুটে উঠলেও ফায়ার সার্ভিস কর্তৃপক্ষ তার বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থাই গ্রহণ করেনি বলে জানা গেছে। এমনকি সামান্য তদন্ত কমিটি গঠনের প্রয়োজনীয়তা মনে করেনি তারা।

ফায়ার সার্ভিসের একাধিক কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে তাদের হতাশা প্রকাশ করে সংবাদমাধ্যমকে জানান, জসিমের দুর্নীতি অনিয়ম ও নারি কেলেঙ্কারীর এমন চিত্র প্রকাশ হওয়া ফায়ার সার্ভিস এর মত একটি গৌরব উজ্জ্বল বাহিনী কলঙ্কিত হওয়ার শামিল। তার বিরুদ্ধে কোন প্রকার ব্যবস্থা না নেওয়ায় এসব কর্মকর্তারা তাদের ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে ফায়ার সার্ভিসের একটি নির্ভরযোগ্য সূত্র জানায়, চট্টগ্রাম বিভাগের সকল অগ্নিকাণ্ডের বিষয় তদন্ত প্রতিবেদনে জসিমের হস্তক্ষেপ রয়েছে এবং এসব প্রতিবেদনে ক্ষতিগ্রস্তদের নিকট থেকে মোটা অংকের অর্থ দাবি করা হয় এমন অসংখ্য তথ্য প্রমাণ উঠে এসেছে। ওই সব ক্ষতিগ্রস্তরা যদি দাবিকৃত ঘুষ প্রদানে ব্যর্থ হয় তবে প্রতিপক্ষের কাছ থেকে মোটা অংকের টাকা নিয়ে মনগড়া রিপোর্ট প্রদানের একাধিক অভিযোগ রয়েছে।

এছাড়াও জসিম উদ্দিন প্রশাসন ও অর্থ বিভাগের উপ-পরিচালক হওয়ার পর থেকে বেশ কয়েকজন কথিত রাজনৈতিবীদ ও গোয়েন্দা বাহিনীর পরিচয়ধারী ব্যক্তির সখ্যতায় বিভিন্ন ধরনের দূর্নীতি করে আসছেন। ওইসব ব্যক্তিরা জসিমের বিভিন্ন সুবিধার বিষয় দপ্তরের কর্তৃপক্ষকেও হুমকি ধামকি দেন বলে বিশ্বস্ত সূত্রে জানা গেছে। দুর্নীতি ও অনিয়মের মাধ্যমে কোটি কোটি টাকার মালিক বনে যাওয়া উপ পরিচালক জসিম উদ্দিন তার শ্বশুরবাড়ি এলাকায় সম্পদের পাহাড় করেছেন, এছাড়াও চট্টগ্রামে তার ছোট ভাইয়ের আমদানি ও রপ্তানির ব্যবসায় মোটা অংকের মূলধন যোগান দিয়েছেন বলে জানা গেছে।

অধীনস্থ ওই নারী কর্মচারীকে বছরের পর বছর যৌন হয়রানির অভিযোগের ঘটনায় সম্প্রতি ডিডি জসিম কর্তৃক ভুক্তভোগী নারী ও তার স্বামীকে বিভিন্ন ভাবে চাপ প্রয়োগ করে যাচ্ছেন বলে জানা গেছে। ওই নারীর স্বামী মাহবুবকে হেডকোয়ার্টারে তলব করে প্রশাসনের অর্থ বিভাগ, পরে তাকে বিভিন্ন রকম ভয়-ভীতি প্রদর্শনের মাধ্যমে জসিম তার ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সহায়তায় মুচলেকা দিতে বাধ্য করে। এই উপ-পরিচালকের নারী কেলেঙ্কারি ও দূর্নীতির বিষয়টা নিয়ে অধিদপ্তরের ভেতরে বেশ চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। বিষয়টি ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করে তার পক্ষে কাজ করছে অধিদপ্তরের কর্মকর্তাদের একটি সিন্ডিকেট।

সূত্র আরও জানায়, ভুক্তভোগী ওই নারীর স্বামীকে কয়েকদিন আগে সদর দপ্তরে ডেকে পরিচালক ওয়াহিদুর ইসলামের মধ্যস্থতায় একটি মুচলেকা দিতে বাধ্য করা হয়েছে। বিষয়টি নিয়ে ভুক্তভোগী নারীর স্বামী আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছেন বলে জানা গেছে। রাখা মুচলেকার মাধ্যমে নিজেকে বাঁচানোর চেষ্টা করছেন তিনি।

সূত্র আরও জানায়, জসিমের ভাই মেহেদি চট্টগ্রাম বন্দরে আমদানি ও রপ্তানি বাণিজ্যের সাথে জড়িত। জসিমের অবৈধ অপর্জিত অর্থের বড় অংশ তার ভাইয়ের ব্যবসায় মূলধন খাটিয়েছেন তিনি। ওই ব্যবসার আড়ালে বিদেশে হুন্ডির মাধ্যমে অর্থ পাচার করা বলেও জানা যায়।

যৌন হয়রানি ঘুষ – দুর্নীতি ও আত্মহত্যা প্ররোচনার মত গুরুতর অভিযোগ উঠার পরেও কর্তৃপক্ষের উদাসীনতার কারণে জসীমউদ্দীনের বিরুদ্ধে কোন প্রকার ব্যবস্থা না নেওয়ায় অধিদপ্তরের অনেকেই তাদের হতাশার কথা জানিয়েছেন।

উল্লেখ্য, যৌন হয়রানীর অভিযোগ করা ওই নারীকে মানসিক যন্ত্রণার মাধ্যমে আত্মহত্যার প্ররোচনা করেছেন জসিম উদ্দীন। ভুক্তভোগী নারী সুইটি বলেন, জসিম স্যারের অত্যাচার সইতে না পেরে আমি আত্মহত্যা করার সিদ্ধান্ত নেই এবং মহাপরিচালক স্যারের বরাবর জসিমের বিরুদ্ধে একটি অভিযোগ লিখে তৎকালীন মিরপুর ট্রেনিং সেন্টারের প্রিন্সিপাল সালেহ উদ্দিন স্যারের নিকট জমা দেয় কিন্তু আমার দেয়া ওই লিখিত অভিযোগটি প্রিন্সিপাল স্যার জসিমকে বাঁচানোর উদ্দেশ্যে গায়েব করে ফেলেন যা অধিদপ্তরে প্রেরন করেন নাই।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে ফায়ার সার্ভিসের একজন কর্মকর্তা জানায়, ডিডি জসিম উদ্দিন ফায়ার সার্ভিসের নিয়োগ ও বদলি বাণিজ্যের মাধ্যমে কোটি কোটি টাকার আয়ের বহির্ভূত সম্পদ গড়েছেন। একজন নারী কর্মচারী কে যৌন হয়রানির মাধ্যমে ফায়ার সার্ভিসের মত সেবা প্রদানকারী একটি সুশৃঙ্খল বাহিনীকে কলুষিত করেছেন তিনি। এমন ঘৃণিত অপরাধের বিষয় তদন্ত সাপেক্ষে কঠিন শাস্তির ব্যবস্থা করা না হলে এই বাহিনীর শৃঙ্খলায় বিঘ্নিত হবে।

ডিডি জসীমউদ্দীনের বিরুদ্ধে এমনসব ঘৃণিত অপরাধ থাকার পরেও কেন ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে না এমন প্রশ্নের খোঁজ খবর রে বেরিয়ে আসতে পারে আরো ভয়ংকর অপরাধের চিত্র।

বিষয়ে ডিরেক্টর এডমিন ( প্রশাসন অর্থ) মোহাম্মদ ওয়াহিদুল ইসলাম এর বক্তব্য জানতে তার দুটি মুঠোফোন নাম্বারে ফোন করা হলে তিনি রিসিভ করেননি।

এসব অভিযোগের বিষয়ে ডিডি জসীমউদ্দীনের বক্তব্য জানতে তার মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগ করলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

Loading

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :




ফায়ার সার্ভিসের ডিডি জসিমের দূর্নীতি যেন লাগামহীন ঘোড়া: ব্যবস্থা গ্রহণের উদাসীন কর্তৃপক্ষ!

আপডেট সময় : ০২:০৪:৩৯ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৫ অক্টোবর ২০২৩

বিশেষ প্রতিবেদক: ফায়ার সার্ভিস এন্ড সিভিল ডিফেন্সের প্রশাসন অর্থ বিভাগের উপ পরিচালক জসীমউদ্দীনের দুর্নীতি যেন লাগামহীন ঘোড়া। যা থামানো সাধ্য নেই কারো। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নীরবতাই তার প্রমাণ। অফিস সহায়ক নারীকে যৌন হয়রানি চট্টগ্রাম বিভাগের অগ্নিকাণ্ডের তদন্ত প্রতিবেদ থেকে শুরু করে ঘুষ দুর্নীতি নারী কেলেঙ্কারি সহ সীমাহীন দুর্নীতির অভিযোগ মাথায় নিয়েও বহাল তবিয়তে চেয়ার আকড়ে রেখেছেন তিনি। তাকে বাঁচাতে তৎপর ফায়ার সার্ভিস অধিদপ্তরের কর্মকর্তাদের একটি শক্তিশালী সিন্ডিকেট। সীমাহীন দুর্নীতি অনিয়ম ও নারী কেলেঙ্কারীর অভিযোগের বিষয়ে সম্প্রতি অসংখ্য দৈনিক ও অনলাইন পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশিত হওয়ার পরেও টনক নড়ছে না কর্তৃপক্ষের।

তার বিরুদ্ধে একাধিক সংবাদ প্রচার করা হলেও অদৃশ্য শক্তির বলে বহাল তবিয়তে রয়েছেন জসিম উদ্দিন। এসব অভিযোগ আমলে নিয়ে ব্যবস্থা গ্রহণ তো দূরের কথা জসিমের বিরুদ্ধে কোন তদন্ত কমিটিও গঠন করা হয়নি।

সূত্র জানায়, উপ-পরিচালক জসিম উদ্দিন এর বিরুদ্ধে অধীনস্থ নারী কর্মচারীকে যৌন হয়রানি ও আত্মহত্যার প্ররোচনার অভিযোগের পাশাপাশি তার চাকরি জীবনে দুর্নীতি ও অনিয়মের অসংখ্য অভিযোগ নিয়ে একাধিক জাতীয় সংবাদমাধ্যমের সংবাদ প্রচার করা হয়েছে। এসব সংবাদে তার দুর্নীতি ও অনিয়মের ভয়ংকর চিত্র ফুটে উঠলেও ফায়ার সার্ভিস কর্তৃপক্ষ তার বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থাই গ্রহণ করেনি বলে জানা গেছে। এমনকি সামান্য তদন্ত কমিটি গঠনের প্রয়োজনীয়তা মনে করেনি তারা।

ফায়ার সার্ভিসের একাধিক কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে তাদের হতাশা প্রকাশ করে সংবাদমাধ্যমকে জানান, জসিমের দুর্নীতি অনিয়ম ও নারি কেলেঙ্কারীর এমন চিত্র প্রকাশ হওয়া ফায়ার সার্ভিস এর মত একটি গৌরব উজ্জ্বল বাহিনী কলঙ্কিত হওয়ার শামিল। তার বিরুদ্ধে কোন প্রকার ব্যবস্থা না নেওয়ায় এসব কর্মকর্তারা তাদের ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে ফায়ার সার্ভিসের একটি নির্ভরযোগ্য সূত্র জানায়, চট্টগ্রাম বিভাগের সকল অগ্নিকাণ্ডের বিষয় তদন্ত প্রতিবেদনে জসিমের হস্তক্ষেপ রয়েছে এবং এসব প্রতিবেদনে ক্ষতিগ্রস্তদের নিকট থেকে মোটা অংকের অর্থ দাবি করা হয় এমন অসংখ্য তথ্য প্রমাণ উঠে এসেছে। ওই সব ক্ষতিগ্রস্তরা যদি দাবিকৃত ঘুষ প্রদানে ব্যর্থ হয় তবে প্রতিপক্ষের কাছ থেকে মোটা অংকের টাকা নিয়ে মনগড়া রিপোর্ট প্রদানের একাধিক অভিযোগ রয়েছে।

এছাড়াও জসিম উদ্দিন প্রশাসন ও অর্থ বিভাগের উপ-পরিচালক হওয়ার পর থেকে বেশ কয়েকজন কথিত রাজনৈতিবীদ ও গোয়েন্দা বাহিনীর পরিচয়ধারী ব্যক্তির সখ্যতায় বিভিন্ন ধরনের দূর্নীতি করে আসছেন। ওইসব ব্যক্তিরা জসিমের বিভিন্ন সুবিধার বিষয় দপ্তরের কর্তৃপক্ষকেও হুমকি ধামকি দেন বলে বিশ্বস্ত সূত্রে জানা গেছে। দুর্নীতি ও অনিয়মের মাধ্যমে কোটি কোটি টাকার মালিক বনে যাওয়া উপ পরিচালক জসিম উদ্দিন তার শ্বশুরবাড়ি এলাকায় সম্পদের পাহাড় করেছেন, এছাড়াও চট্টগ্রামে তার ছোট ভাইয়ের আমদানি ও রপ্তানির ব্যবসায় মোটা অংকের মূলধন যোগান দিয়েছেন বলে জানা গেছে।

অধীনস্থ ওই নারী কর্মচারীকে বছরের পর বছর যৌন হয়রানির অভিযোগের ঘটনায় সম্প্রতি ডিডি জসিম কর্তৃক ভুক্তভোগী নারী ও তার স্বামীকে বিভিন্ন ভাবে চাপ প্রয়োগ করে যাচ্ছেন বলে জানা গেছে। ওই নারীর স্বামী মাহবুবকে হেডকোয়ার্টারে তলব করে প্রশাসনের অর্থ বিভাগ, পরে তাকে বিভিন্ন রকম ভয়-ভীতি প্রদর্শনের মাধ্যমে জসিম তার ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সহায়তায় মুচলেকা দিতে বাধ্য করে। এই উপ-পরিচালকের নারী কেলেঙ্কারি ও দূর্নীতির বিষয়টা নিয়ে অধিদপ্তরের ভেতরে বেশ চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। বিষয়টি ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করে তার পক্ষে কাজ করছে অধিদপ্তরের কর্মকর্তাদের একটি সিন্ডিকেট।

সূত্র আরও জানায়, ভুক্তভোগী ওই নারীর স্বামীকে কয়েকদিন আগে সদর দপ্তরে ডেকে পরিচালক ওয়াহিদুর ইসলামের মধ্যস্থতায় একটি মুচলেকা দিতে বাধ্য করা হয়েছে। বিষয়টি নিয়ে ভুক্তভোগী নারীর স্বামী আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছেন বলে জানা গেছে। রাখা মুচলেকার মাধ্যমে নিজেকে বাঁচানোর চেষ্টা করছেন তিনি।

সূত্র আরও জানায়, জসিমের ভাই মেহেদি চট্টগ্রাম বন্দরে আমদানি ও রপ্তানি বাণিজ্যের সাথে জড়িত। জসিমের অবৈধ অপর্জিত অর্থের বড় অংশ তার ভাইয়ের ব্যবসায় মূলধন খাটিয়েছেন তিনি। ওই ব্যবসার আড়ালে বিদেশে হুন্ডির মাধ্যমে অর্থ পাচার করা বলেও জানা যায়।

যৌন হয়রানি ঘুষ – দুর্নীতি ও আত্মহত্যা প্ররোচনার মত গুরুতর অভিযোগ উঠার পরেও কর্তৃপক্ষের উদাসীনতার কারণে জসীমউদ্দীনের বিরুদ্ধে কোন প্রকার ব্যবস্থা না নেওয়ায় অধিদপ্তরের অনেকেই তাদের হতাশার কথা জানিয়েছেন।

উল্লেখ্য, যৌন হয়রানীর অভিযোগ করা ওই নারীকে মানসিক যন্ত্রণার মাধ্যমে আত্মহত্যার প্ররোচনা করেছেন জসিম উদ্দীন। ভুক্তভোগী নারী সুইটি বলেন, জসিম স্যারের অত্যাচার সইতে না পেরে আমি আত্মহত্যা করার সিদ্ধান্ত নেই এবং মহাপরিচালক স্যারের বরাবর জসিমের বিরুদ্ধে একটি অভিযোগ লিখে তৎকালীন মিরপুর ট্রেনিং সেন্টারের প্রিন্সিপাল সালেহ উদ্দিন স্যারের নিকট জমা দেয় কিন্তু আমার দেয়া ওই লিখিত অভিযোগটি প্রিন্সিপাল স্যার জসিমকে বাঁচানোর উদ্দেশ্যে গায়েব করে ফেলেন যা অধিদপ্তরে প্রেরন করেন নাই।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে ফায়ার সার্ভিসের একজন কর্মকর্তা জানায়, ডিডি জসিম উদ্দিন ফায়ার সার্ভিসের নিয়োগ ও বদলি বাণিজ্যের মাধ্যমে কোটি কোটি টাকার আয়ের বহির্ভূত সম্পদ গড়েছেন। একজন নারী কর্মচারী কে যৌন হয়রানির মাধ্যমে ফায়ার সার্ভিসের মত সেবা প্রদানকারী একটি সুশৃঙ্খল বাহিনীকে কলুষিত করেছেন তিনি। এমন ঘৃণিত অপরাধের বিষয় তদন্ত সাপেক্ষে কঠিন শাস্তির ব্যবস্থা করা না হলে এই বাহিনীর শৃঙ্খলায় বিঘ্নিত হবে।

ডিডি জসীমউদ্দীনের বিরুদ্ধে এমনসব ঘৃণিত অপরাধ থাকার পরেও কেন ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে না এমন প্রশ্নের খোঁজ খবর রে বেরিয়ে আসতে পারে আরো ভয়ংকর অপরাধের চিত্র।

বিষয়ে ডিরেক্টর এডমিন ( প্রশাসন অর্থ) মোহাম্মদ ওয়াহিদুল ইসলাম এর বক্তব্য জানতে তার দুটি মুঠোফোন নাম্বারে ফোন করা হলে তিনি রিসিভ করেননি।

এসব অভিযোগের বিষয়ে ডিডি জসীমউদ্দীনের বক্তব্য জানতে তার মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগ করলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

Loading