ঢাকা ০১:৫৫ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪, ৩ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম :
Logo জবিতে আজীবন ছাত্ররাজনীতি নিষিদ্ধ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ Logo শাবিতে হল প্রশাসনকে ভয়-ভীতি দেখিয়ে নোটিসে জোর পূর্বক সাইন আদায় Logo এবার সামনে আসছে ছাত্রলীগ কর্তৃক আন্দোলনকারীদের মারধরের আরো ঘটনা Logo আবাসিক হল ছাড়ছে শাবি শিক্ষার্থীরা Logo নিরাপত্তার স্বার্থে শাবি শিক্ষার্থীদের আইডিকার্ড সাথে রাখার আহবান বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের Logo জনস্বাস্থ্যের প্রধান সাধুর যত অসাধু কর্ম: দুর্নীতি ও অর্থ পাচারের অভিযোগ! Logo বিআইডব্লিউটিএ বন্দর শাখা যুগ্ম পরিচালক আলমগীরের দুর্নীতি ও ঘুষ বাণিজ্য  Logo রাজশাহীতে এটিএন বাংলার সাংবাদিক সুজাউদ্দিন ছোটনকে হয়রানিমূলক মামলায় বএিমইউজরে নিন্দা ও প্রতিবাদ Logo শিক্ষার্থীদের তথ্য প্রযুক্তিতে দক্ষ হয়ে স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ায় অবদান রাখতে হবেঃ ড. তৌফিক রহমান চৌধুরী Logo ‘কানামাছি শিশুসাহিত্য পুরস্কার ২০২৪’ পেলেন লেখক




রাজধানীর প্রায় ৮০ ভাগ হোটেলেই মৃত মুরগী বিক্রি !

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ১১:১৫:৫৯ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০১৯ ১২৮ বার পড়া হয়েছে

সকালের সংবাদ প্রতিবেদক;

হোটেলে মরা মুরগী? শুনেই যেন শরীর ঘিনঘিন করছে! কি ভয়ানক ব্যাপার? শুনতে অদ্ভুত আর ঘৃণ্য মনে হলেও ঘটনাটি কিন্ত শতভাগ সত্য! নানা সময়ে রাজধানীর বিভিন্ন হোটেল-রেষ্টুরেন্টে সকলেই কমবেশি খাবার খেয়ে অভ্যস্ত। সম্প্রতি সারাদেশেই চলমান রয়েছে খাদ্যে ভেজাল বিরোধী অভিযান। ঠিক তখনই এক অনুসন্ধানে বেড়িয়ে এলো রোমহর্ষক ব্যপারটি।

রাজধানীর ৮০ ভাগ হোটেল রেষ্টুরেন্টেই মরা মুরগী বিক্রির পাশাপাশি অভিজাত শপিংমল গুলোতেও ফ্রিজিং প্রক্রিয়ায় বিক্রি হচ্ছে এই মৃত মুরগী। হাত ঘুরে রাজধানীর বিভিন্ন মুখরোচক ফাস্ট ফুডের দোকান গুলোতেও পৌছে যাচ্ছে কম দামে। শহরের বিভিন্ন মেসবাড়িতেও একটি সংঘবদ্ধ প্রতারকচক্রের মাধ্যমে পৌছে যাচ্ছে এই মরা মুরগী।

কাওরানবাজার, মোহাম্মদপুর, কাপ্তানবাজারসহ বিভিন্ন বাজারে দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে প্রতিদিন কয়েক লাখ মুরগী আসে। নানা রোগব্যাধি, পরিবহণ এবং নিয়ন্ত্রণহীন তাপমাত্রার কারণে প্রতিদিনই মারা যায় কয়েক হাজার মুরগী। মৃত মুরগিগুলো ফেলে দেয়ার কথা থাকলেও সেগুলো ফেলে না দিয়ে গোপনে কমদামে বিভিন্ন মেসবাড়ি, ফাস্টফুডের দোকান, অভিজাত শপিংমল, হোটেল রেষ্টুরেন্টে সাপ্লাই দিয়ে আসছে একটি ভয়ানক সিন্ডিকেট।

একটি সূত্রে জানা গেছে, প্রতিদিন এক একটি দোকানে গড়ে ৫টি করে মুরগী মারা গেলে শুধুমাত্র কাওরানবাজারেই প্রতিদিন মারা যায় প্রায় ৪০০ থেকে ৫০০ মুরগী। রাজধানীর সব বাজার মিলিয়ে এই মৃত মুরগীর পরিমাণ দাঁড়ায় কয়েক হাজারে।

কিন্ত কোথায় যায় এই মৃত মুরগীগুলো? ডাস্টবিনগুলোতে ফেলার কথা থাকলেও সেখানে একটি মৃত মুরগীর চিহ্নমাত্র মিললো না। ডাষ্টবিন তদারককারিদের ভাষ্যমতে, এখানে কোনো মরা মুরগী আসে না। আসে শুধুমাত্র মরা মুরগির পা-চামড়া।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, বাজার থেকে সংগ্রহ করা মৃত মুরগীগুলোর একাংশ বিভিন্ন মৎস্য খামারে মাছের খাবার হিসেবে ব্যবহৃত হলেও এর বেশিরভাগই ব্যবহার হচ্ছে রাজধানীর বেশ কিছু অভিজাত ফাস্ট ফুড,শপিংমল ও হোটেল-রেষ্টুরেন্টে। ফাস্ট ফুড ও রেস্টুরেন্টের চিকেন গ্রিল এবং শর্মা খাওয়ার আগে অতিরিক্ত শক্ত, অতিরিক্ত ঝাঁল, জিরার ঘ্রাণ এবং হাড়ের ভিতরে মজ্জগুলো কালো। এগুলো লক্ষ্য করলেই বোঝা যাবে খাওয়ানো হচ্ছে মৃত মুরগী।

রাজধানীর কাওরানবাজার। প্রতিরাতেই এই বাজার দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে আসা কাঁচামালের বিকিকিনি চলে গভীর রাত থেকে ভোর পর্যন্ত। রাত আনুমানিক সাড়ে তিনটা থেকে চারটা। হঠাৎ চোখে পড়লো, মূল বাজার সংলগ্ন সড়কে দূর-দূরান্ত থেকে মুরগী নিয়ে আসা গাড়ি থেকে মুরগী নামিয়ে নিয়ে যাওয়ার পর পড়ে থাকা মৃত মুরগীগুলো সংগ্রহ করছে এক যুবক। কৌতুহল নিয়ে এগিয়ে গিয়ে এসব মৃত মুরগী কোথায় ফেলা হয় জানতে চাইলে যুবকের চোখে-মুখে কেমন যেন আতংকের ছাপ পরিলক্ষিত হলো। তোতলা মুখে হকচকিয়ে যাওয়া যুবকের মুখে অস্পষ্ট উত্তর, এগুলো ডাষ্টবিনে ফেলা হবে। আর পরিচ্ছন্নতাকর্মী এসে নিয়ে যাবে। প্রতিদিন প্রায় ২০-৩০টি মুরগী ডাষ্টবিনে ফেলা হয়। চলো তো দেখি, কোন ডাস্টবিনে মরা মুরগী ফেলা হয়? এমন জোরদাবি করে কিছু বুঝে উঠতে না উঠতেই হাতের কয়েকটি মরা মুরগী সেখানে ফেলেই ভোঁ-দৌড় যুবকের।

রাজধানীর অপর একটি বাজারের চিত্রে দেখা গেছে, মৃত মুরগীর সন্ধানে ঘুরছে দুই-তিনজন লোক। এগিয়ে গেলো একটি মুরগীর দোকানে। বিষয়টি বুঝতে তাদের পিছু পিছু অগত্যা যদি কিছু মেলে?

ঝুঁড়ি থেকে মুরগী বের করে বিক্রি করছে এক যুবক। জীবিত মুরগীর দাম যেখানে দেড়’শ টাকা, সেখানে এই মুরগীর দাম শুনলেই বোঝা যায় জীবিত নাকি মৃত মুরগী। তারা ৮০ টাকা দরে প্রায় শতকেজি মুরগী কিনে নিয়ে একটি ভ্যানে চাপিয়ে রওয়ানা দিতেই জিজ্ঞেস করলাম, ভাই এই মরগীগুলো কি কাজে লাগবে? কিন্ত কোন সদুত্তর না দিয়েই ভ্যানগাড়িটি ঠেলে স্থান ত্যাগ করলেন তারা।

চোখে পড়লো নোংরা বৎসলা মধ্যবয়সী হতদরিদ্র মৃত মুরগী সংগ্রহকারি এক নারী। তবে এই মরা মুরগী দিয়ে কি করেন? তাকে জিজ্ঞেস করতেই অবলীলায় বললো, কাকা এগুলো নিয়ে বিক্রি করি। মানুষ এগুলো খায় ১০ টাকা ২০ টাকা ভাগা দিয়ে বিক্রি করি। তাছাড়া মাঝে মধ্যে কিছু লোকজন এসে কিনে নিয়ে যায়। তারা হোটেলে এগুলো রান্না করে বিক্রি করে।

বিশেষজ্ঞ মহলের দাবি, ধর্মীয়ভাবে কোন মৃত পশু-পাখির মাংস খাওয়া সম্পুর্ন হারাম। মরা মুরগীর মাংস মানবদেহের জন্য বিরাট ক্ষতিকর। এ মুরগীগুলো সাধারণত নানা রোগে আক্রান্ত হয়েই মারা যায়। এই মৃত মুরগীর মাংসে মারাত্মক রোগজীবাণু থাকে। ফলে এই মৃত মুরগীর খেলে নানা রোগব্যাধি হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :




রাজধানীর প্রায় ৮০ ভাগ হোটেলেই মৃত মুরগী বিক্রি !

আপডেট সময় : ১১:১৫:৫৯ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০১৯

সকালের সংবাদ প্রতিবেদক;

হোটেলে মরা মুরগী? শুনেই যেন শরীর ঘিনঘিন করছে! কি ভয়ানক ব্যাপার? শুনতে অদ্ভুত আর ঘৃণ্য মনে হলেও ঘটনাটি কিন্ত শতভাগ সত্য! নানা সময়ে রাজধানীর বিভিন্ন হোটেল-রেষ্টুরেন্টে সকলেই কমবেশি খাবার খেয়ে অভ্যস্ত। সম্প্রতি সারাদেশেই চলমান রয়েছে খাদ্যে ভেজাল বিরোধী অভিযান। ঠিক তখনই এক অনুসন্ধানে বেড়িয়ে এলো রোমহর্ষক ব্যপারটি।

রাজধানীর ৮০ ভাগ হোটেল রেষ্টুরেন্টেই মরা মুরগী বিক্রির পাশাপাশি অভিজাত শপিংমল গুলোতেও ফ্রিজিং প্রক্রিয়ায় বিক্রি হচ্ছে এই মৃত মুরগী। হাত ঘুরে রাজধানীর বিভিন্ন মুখরোচক ফাস্ট ফুডের দোকান গুলোতেও পৌছে যাচ্ছে কম দামে। শহরের বিভিন্ন মেসবাড়িতেও একটি সংঘবদ্ধ প্রতারকচক্রের মাধ্যমে পৌছে যাচ্ছে এই মরা মুরগী।

কাওরানবাজার, মোহাম্মদপুর, কাপ্তানবাজারসহ বিভিন্ন বাজারে দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে প্রতিদিন কয়েক লাখ মুরগী আসে। নানা রোগব্যাধি, পরিবহণ এবং নিয়ন্ত্রণহীন তাপমাত্রার কারণে প্রতিদিনই মারা যায় কয়েক হাজার মুরগী। মৃত মুরগিগুলো ফেলে দেয়ার কথা থাকলেও সেগুলো ফেলে না দিয়ে গোপনে কমদামে বিভিন্ন মেসবাড়ি, ফাস্টফুডের দোকান, অভিজাত শপিংমল, হোটেল রেষ্টুরেন্টে সাপ্লাই দিয়ে আসছে একটি ভয়ানক সিন্ডিকেট।

একটি সূত্রে জানা গেছে, প্রতিদিন এক একটি দোকানে গড়ে ৫টি করে মুরগী মারা গেলে শুধুমাত্র কাওরানবাজারেই প্রতিদিন মারা যায় প্রায় ৪০০ থেকে ৫০০ মুরগী। রাজধানীর সব বাজার মিলিয়ে এই মৃত মুরগীর পরিমাণ দাঁড়ায় কয়েক হাজারে।

কিন্ত কোথায় যায় এই মৃত মুরগীগুলো? ডাস্টবিনগুলোতে ফেলার কথা থাকলেও সেখানে একটি মৃত মুরগীর চিহ্নমাত্র মিললো না। ডাষ্টবিন তদারককারিদের ভাষ্যমতে, এখানে কোনো মরা মুরগী আসে না। আসে শুধুমাত্র মরা মুরগির পা-চামড়া।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, বাজার থেকে সংগ্রহ করা মৃত মুরগীগুলোর একাংশ বিভিন্ন মৎস্য খামারে মাছের খাবার হিসেবে ব্যবহৃত হলেও এর বেশিরভাগই ব্যবহার হচ্ছে রাজধানীর বেশ কিছু অভিজাত ফাস্ট ফুড,শপিংমল ও হোটেল-রেষ্টুরেন্টে। ফাস্ট ফুড ও রেস্টুরেন্টের চিকেন গ্রিল এবং শর্মা খাওয়ার আগে অতিরিক্ত শক্ত, অতিরিক্ত ঝাঁল, জিরার ঘ্রাণ এবং হাড়ের ভিতরে মজ্জগুলো কালো। এগুলো লক্ষ্য করলেই বোঝা যাবে খাওয়ানো হচ্ছে মৃত মুরগী।

রাজধানীর কাওরানবাজার। প্রতিরাতেই এই বাজার দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে আসা কাঁচামালের বিকিকিনি চলে গভীর রাত থেকে ভোর পর্যন্ত। রাত আনুমানিক সাড়ে তিনটা থেকে চারটা। হঠাৎ চোখে পড়লো, মূল বাজার সংলগ্ন সড়কে দূর-দূরান্ত থেকে মুরগী নিয়ে আসা গাড়ি থেকে মুরগী নামিয়ে নিয়ে যাওয়ার পর পড়ে থাকা মৃত মুরগীগুলো সংগ্রহ করছে এক যুবক। কৌতুহল নিয়ে এগিয়ে গিয়ে এসব মৃত মুরগী কোথায় ফেলা হয় জানতে চাইলে যুবকের চোখে-মুখে কেমন যেন আতংকের ছাপ পরিলক্ষিত হলো। তোতলা মুখে হকচকিয়ে যাওয়া যুবকের মুখে অস্পষ্ট উত্তর, এগুলো ডাষ্টবিনে ফেলা হবে। আর পরিচ্ছন্নতাকর্মী এসে নিয়ে যাবে। প্রতিদিন প্রায় ২০-৩০টি মুরগী ডাষ্টবিনে ফেলা হয়। চলো তো দেখি, কোন ডাস্টবিনে মরা মুরগী ফেলা হয়? এমন জোরদাবি করে কিছু বুঝে উঠতে না উঠতেই হাতের কয়েকটি মরা মুরগী সেখানে ফেলেই ভোঁ-দৌড় যুবকের।

রাজধানীর অপর একটি বাজারের চিত্রে দেখা গেছে, মৃত মুরগীর সন্ধানে ঘুরছে দুই-তিনজন লোক। এগিয়ে গেলো একটি মুরগীর দোকানে। বিষয়টি বুঝতে তাদের পিছু পিছু অগত্যা যদি কিছু মেলে?

ঝুঁড়ি থেকে মুরগী বের করে বিক্রি করছে এক যুবক। জীবিত মুরগীর দাম যেখানে দেড়’শ টাকা, সেখানে এই মুরগীর দাম শুনলেই বোঝা যায় জীবিত নাকি মৃত মুরগী। তারা ৮০ টাকা দরে প্রায় শতকেজি মুরগী কিনে নিয়ে একটি ভ্যানে চাপিয়ে রওয়ানা দিতেই জিজ্ঞেস করলাম, ভাই এই মরগীগুলো কি কাজে লাগবে? কিন্ত কোন সদুত্তর না দিয়েই ভ্যানগাড়িটি ঠেলে স্থান ত্যাগ করলেন তারা।

চোখে পড়লো নোংরা বৎসলা মধ্যবয়সী হতদরিদ্র মৃত মুরগী সংগ্রহকারি এক নারী। তবে এই মরা মুরগী দিয়ে কি করেন? তাকে জিজ্ঞেস করতেই অবলীলায় বললো, কাকা এগুলো নিয়ে বিক্রি করি। মানুষ এগুলো খায় ১০ টাকা ২০ টাকা ভাগা দিয়ে বিক্রি করি। তাছাড়া মাঝে মধ্যে কিছু লোকজন এসে কিনে নিয়ে যায়। তারা হোটেলে এগুলো রান্না করে বিক্রি করে।

বিশেষজ্ঞ মহলের দাবি, ধর্মীয়ভাবে কোন মৃত পশু-পাখির মাংস খাওয়া সম্পুর্ন হারাম। মরা মুরগীর মাংস মানবদেহের জন্য বিরাট ক্ষতিকর। এ মুরগীগুলো সাধারণত নানা রোগে আক্রান্ত হয়েই মারা যায়। এই মৃত মুরগীর মাংসে মারাত্মক রোগজীবাণু থাকে। ফলে এই মৃত মুরগীর খেলে নানা রোগব্যাধি হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।