ঢাকা ০৪:১২ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২১ জুন ২০২৪, ৬ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম :




দূর্নীতির পিরিতের আঠায় আটকে গেছে ফায়ার সার্ভিসের উচ্চমান সহকারী তৈয়ব!

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ১২:৫০:২৩ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ১৫ ডিসেম্বর ২০২৩ ২২১ বার পড়া হয়েছে

নিজস্ব প্রতিবেদক:

“পিরিতি কাঁঠালের আঠা, ও আঠা লাগলে পরে ছাড়বে না” ভালোবাসার এই জনপ্রিয় গানের মতই যেন একই জায়গায় আঠার মত কয়েক যুগ কাটিয়ে দিতে চাচ্ছেন তিনি। এমনই নাছোড় বান্দা ফায়ার সার্ভিসের উচ্চমান সহকারী মোঃ তৈইবুর রহমান। সদর দপ্তরের ওয়্যারহাউস শাখায় একই পদে এতই মধু যে, বদলির অর্ডার হওয়ার প্রায় ৩ মাস না যাওযার টালবাহানা করছেন তিনি। পরে অবশ্য যেতে বাধ্য হলেও বর্তমান কর্মস্থলে যাওয়ার সময় সহকর্মীদের ঘোষণা দিয়েছেন দুই মাসের মধ্যে আবারো ফেরত আসবেন তিনি। দুর্নীতির সিন্ডিকেট যাতে ভেঙে না যায় সেজন্য তার ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ তাকে এতদিন আকড়ে রেখেছিলেন তাকে এমন কথা ফায়ার সার্ভিসের ভিতরে বেশ চাউর রয়েছে বলে সোনা যাচ্ছে।

সীমাহীন দুর্নীতি ও অনিয়মের মাধ্যমে অর্থের লিপ্সা যেন পেয়ে বসেছে তাকে। তাই ফায়ার সার্ভিসের সদর দপ্তরে ওয়্যারহাউস শাখায় দীর্ঘ এক যুগেরও বেশি সময় ধরে আঠার মত লেগে ছিলেন এই দূর্নীতিবাজ তৈয়বুর। দীর্ঘ সময় ধরে এই শাখার সকল দুর্নীতি ও অনিয়মের সাথেও শক্ত আঠার মত জড়িত ছিলেন তিনি।

ওয়্যারহাউস শাখার সীমাহীন দুর্নীতির সহযোগী হওয়ার সুবাদে রাজধানী ঢাকার উত্তরা এলাকার করিমেরবাগ জামে মসজিদ এর দক্ষিণ পার্শ্বে, করিমেরবাগ, কাঁচকুড়ায় বহুতল বিলাসবহুল বাড়ি, নগদ অর্থ ও দেশের বাড়ীতে অঢেল সম্পদের মালিক তিনি।

উল্লেখ্য, সম্প্রতি সকাল সংবাদের এক অনুসন্ধানী প্রতিবেদনে তৈয়বুর সহ ওয়্যারহাউস শাখার ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের দুর্নীতির সিন্ডিকেট নিয়ে একটি সংবাদ প্রকাশিত হয়েছিল। তৈয়বুর রহমানের বদলির আদেশের প্রায় তিন মাস পেরিয়ে গেলেও তিনি বর্তমান তার বর্তমান কর্মস্থলে ছেড়ে না যাওয়ার যে টালবাহানা করেছেন এবং এই শাখায় আবার ফিরে আসার যে আল্টিমেটাম দিয়েছেন তাতে উক্ত শাখায় দুর্নীতি অনিয়মের যে মিষ্ট মধু রয়েছে সেটা দিনের আলোর মত স্পষ্ট হয়েছে।

একজন উচ্চমান সহকারীর পদে থেকে এক যুগেরও বেশি সময় ধরে যে কর্মস্থলে রয়েছেন বদলির আদেশ পাওয়ার পরে প্রায় ৩ মাসেও সেই কর্মস্থল ত্যাগ না করায় ফায়ার সার্ভিসের অধিকাংশ কর্মকর্তা কর্মচারীদের মাঝে ব্যাপক কৌতূহল ও প্রশ্নের সৃষ্টি হয়েছে। অনেকের কৌতূহল কি মধু আছে ওই শাখায়? কত কামাই আছে ওই শাখায়?

Loading

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :




দূর্নীতির পিরিতের আঠায় আটকে গেছে ফায়ার সার্ভিসের উচ্চমান সহকারী তৈয়ব!

আপডেট সময় : ১২:৫০:২৩ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ১৫ ডিসেম্বর ২০২৩

নিজস্ব প্রতিবেদক:

“পিরিতি কাঁঠালের আঠা, ও আঠা লাগলে পরে ছাড়বে না” ভালোবাসার এই জনপ্রিয় গানের মতই যেন একই জায়গায় আঠার মত কয়েক যুগ কাটিয়ে দিতে চাচ্ছেন তিনি। এমনই নাছোড় বান্দা ফায়ার সার্ভিসের উচ্চমান সহকারী মোঃ তৈইবুর রহমান। সদর দপ্তরের ওয়্যারহাউস শাখায় একই পদে এতই মধু যে, বদলির অর্ডার হওয়ার প্রায় ৩ মাস না যাওযার টালবাহানা করছেন তিনি। পরে অবশ্য যেতে বাধ্য হলেও বর্তমান কর্মস্থলে যাওয়ার সময় সহকর্মীদের ঘোষণা দিয়েছেন দুই মাসের মধ্যে আবারো ফেরত আসবেন তিনি। দুর্নীতির সিন্ডিকেট যাতে ভেঙে না যায় সেজন্য তার ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ তাকে এতদিন আকড়ে রেখেছিলেন তাকে এমন কথা ফায়ার সার্ভিসের ভিতরে বেশ চাউর রয়েছে বলে সোনা যাচ্ছে।

সীমাহীন দুর্নীতি ও অনিয়মের মাধ্যমে অর্থের লিপ্সা যেন পেয়ে বসেছে তাকে। তাই ফায়ার সার্ভিসের সদর দপ্তরে ওয়্যারহাউস শাখায় দীর্ঘ এক যুগেরও বেশি সময় ধরে আঠার মত লেগে ছিলেন এই দূর্নীতিবাজ তৈয়বুর। দীর্ঘ সময় ধরে এই শাখার সকল দুর্নীতি ও অনিয়মের সাথেও শক্ত আঠার মত জড়িত ছিলেন তিনি।

ওয়্যারহাউস শাখার সীমাহীন দুর্নীতির সহযোগী হওয়ার সুবাদে রাজধানী ঢাকার উত্তরা এলাকার করিমেরবাগ জামে মসজিদ এর দক্ষিণ পার্শ্বে, করিমেরবাগ, কাঁচকুড়ায় বহুতল বিলাসবহুল বাড়ি, নগদ অর্থ ও দেশের বাড়ীতে অঢেল সম্পদের মালিক তিনি।

উল্লেখ্য, সম্প্রতি সকাল সংবাদের এক অনুসন্ধানী প্রতিবেদনে তৈয়বুর সহ ওয়্যারহাউস শাখার ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের দুর্নীতির সিন্ডিকেট নিয়ে একটি সংবাদ প্রকাশিত হয়েছিল। তৈয়বুর রহমানের বদলির আদেশের প্রায় তিন মাস পেরিয়ে গেলেও তিনি বর্তমান তার বর্তমান কর্মস্থলে ছেড়ে না যাওয়ার যে টালবাহানা করেছেন এবং এই শাখায় আবার ফিরে আসার যে আল্টিমেটাম দিয়েছেন তাতে উক্ত শাখায় দুর্নীতি অনিয়মের যে মিষ্ট মধু রয়েছে সেটা দিনের আলোর মত স্পষ্ট হয়েছে।

একজন উচ্চমান সহকারীর পদে থেকে এক যুগেরও বেশি সময় ধরে যে কর্মস্থলে রয়েছেন বদলির আদেশ পাওয়ার পরে প্রায় ৩ মাসেও সেই কর্মস্থল ত্যাগ না করায় ফায়ার সার্ভিসের অধিকাংশ কর্মকর্তা কর্মচারীদের মাঝে ব্যাপক কৌতূহল ও প্রশ্নের সৃষ্টি হয়েছে। অনেকের কৌতূহল কি মধু আছে ওই শাখায়? কত কামাই আছে ওই শাখায়?

Loading