ঢাকা ১১:২৭ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০২৪, ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম :
Logo রূপালী ব্যাংকের ডিজিএম কর্তৃক সহকর্মী নারীকে যৌন হয়রানি: ধামাচাপা দিতে মরিয়া তদন্ত কমিটি Logo প্রতিবন্ধী ভাতার টাকা হাতিয়ে বহাল তবিয়তে মাদারীপুরের দুই সহকারী সমাজসেবা অফিসারl Logo যমুনা লাইফের গ্রাহক প্রতারণায় ‘জড়িতরা’ কে কোথায় Logo ঢাকাস্থ ভোলা সাংবাদিক ফোরামের সভাপতি আহসান কামরুল, সম্পাদক জিয়াউর রহমান Logo টাটা মটরস বাংলাদেশে উদ্বোধন করলো টাটা যোদ্ধা Logo আশা শিক্ষা কর্মসূচী কর্তৃক অভিভাবক মতবিনিময় সভা Logo গণপূর্ত প্রধান প্রকৌশলীর গাড়ি চাপায় পিষ্ট সহকারী প্রকৌশলী -উত্তাল গণপূর্ত Logo শাবিপ্রবির বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের উদ্যোগে বৃক্ষরোপণ Logo সওজের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী নাহিনুরের সীমাহীন সম্পদ ও অনিয়ম -পর্ব-০১ Logo তামাক সেবনের আলাদা কক্ষ বানালেন গণপূর্তের নির্বাহী প্রকৌশলী: রয়েছে দুর্নীতির পাহাড়সম অভিযোগ!




জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ১১তম সিরিজ জয় বাংলাদেশের

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৮:২১:১৩ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ৪ মার্চ ২০২০ ১১৫ বার পড়া হয়েছে

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ১১তম সিরিজ জয় বাংলাদেশের

ক্রীড়া প্রতিবেদক, সিলেট থেকে| তীয় ম্যাচে একতরফা জিতেতে পারেনি বাংলাদেশ, যেমনটা হয়েছিল সিরিজের প্রথম ম্যাচে। শেষদিকে উত্তেজনা ছড়িয়ে হেরেছে সফরকারীরা। এ নিয়ে বাংলাদেশ ২৫টা সিরিজ জিতল, জিম্বাবুয়ের বিপক্ষেই যা ১১তম।
তিন ম্যাচ সিরিজের প্রথম ওয়ানডেতে ১৬৯ রানের রেকর্ড গড়া জয়ের পর আজ চার রানে জিতে এক ম্যাচ হাতে রেখেই সিরিজ নিজেদের করে নিয়েছে মাশরাফীরা।
দুপুরের টস জিতে গত ম্যাচের মতো আজও ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন টাইগার অধিনায়ক। ব্যাট করতে নেমে শুরুর দশ ওভারে ২ উইকেট হারায় বাংলাদেশ। আগের ম্যাচে শতক হাঁকানো লিটন দাস আজ রান আউট হয়ে ফেরেন ৯ রানে। নাজমুল হাসান শান্ত আর তামিমের মধ্যে ভুল বোঝাবুঝিতে মাত্র ৬ রানে রান আউট হয়ে ফেরেন শান্তও।
বাকি পথ তামিম পাড়ি দেন মুশফিক, মাহমুদউল্লাহদের নিয়ে। দীর্ঘ সময় ধরে রান খরায় ভোগা তামিম তুলে নেন ক্যারিয়ারের ১২তম শতক। এই শতকে পূর্ণ হয় ওয়ানডে ক্রিকেটে তার ৭ হাজার রান (২০৬ ম্যাচ)।
এর আগে ২০০৯ সালে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে করা ১৫৪ রানও টপকে যান তামিম। ১৩৬ বলে ১৫৮ রান করে ফেরেন কার্ল মুম্বার বলে ক্যাচ দিয়ে।
তামিমের সঙ্গে মুশফিক তুলে নেন অর্ধশতক। ৫৫ রান করে সাজঘরে ফেরেন ক্যাচ আউট হয়ে। মাহমুদউল্লাহ করেন ৪১ আর শেষদিকে মোহাম্মদ মিঠুনের অপরাজিত ৩২ (১৮) রানে ভর করে ৮ উইকেটে ৩২২ রান করে বাংলাদেশ।
সফরকারীদের হয়ে ২টি করে উইকেট নেন কার্ল মুম্বা ও ডোনাল্ড তিরিপানো, ১টি করে উইকেট নেন কার্লটন টিশুমা আর ওয়েসলে মাধভেরে।
স্বাগতিকদের দেয়া পাহাড়সম লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে ইনিংসের চতুর্থ ওভারে শফিউলের শিকার হোন রেগিস চাকাবা। ব্রেন্ডন টেইলরও খেলতে পারেননি বড় ইনিংস। ১১ রান করে বিদায় নেন মেহেদী হাসান মিরাজের থ্রোতে রান আউট হয়ে।
প্রথম ম্যাচে খেলতে না পারা সফরকারী অধিনায়ক শন উইলিয়ামসও হোন ব্যর্থ। মিরাজের বলে এলবিডব্লু হয়ে ফেরেন ১৪ রান করে।
জিম্বাবুয়ের এমন ব্যাটিং বিপর্যয়ের মাঝেও ওপেনার তিনাশে কামুনহুকাওয়ামে খেলেন ৭০ বলে ৫১ রানের ইনিংস। তাকে বোল্ড করে ফেরান তাইজুল ইসলাম।
মাত্রই অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ খেলে আসা ওয়েসলে মাধভেরে শাসন করেন টাইগার বোলারদের। ৪৯ বলে তিন চার, দুই ছয়ে ৫১ রান করে ফেরেন সাজঘরে।
টপ অর্ডারের ব্যর্থতার পর মিডল অর্ডারে সিকান্দার রাজার ঝড়ো ইনিংস জয়ের স্বপ্ন দেখালেও মাশরাফী বিন মোর্ত্তজার বলে ৬৬ রানের মাথায় ক্যাচ দিয়ে ফেরেন সাজঘরে।
শেষদিকে টিনোটেন্ডা মুতমবদজি ও ডোনাল্ড তিরিপানোর জুটি চেপে বসে টাইগার বোলারদের উপর। শেষ ওভার পর্যন্ত জয়ের আশা জাগিয়েছে এই জুটি।
আল আমীনের করা শেষ ওভারে জিততে হলে জিম্বাবুয়ের লাগত ২০ রান। প্রথম বলে সিঙ্গেল রান, পরের বলে ওয়াইড দেয়ার পর তৃতীয় বলে অফে ছয় হাঁকাতে গিয়ে মুতবদজি ক্যাচ দেন লিটন দাসের হাতে। মুতমবদজি-তিরিপানোর জুটি ভাঙে ৮০ রানে।
পরের দুই বলে তিরিপানোর টানা দুই ছয়ে মোড় ঘুরে যায়। ম্যাচের শেষ বলে জিততে হলে লাগত ছয়। কিন্তু পারেনি এই ডান হাতি ব্যাটসম্যান। চার রানের জয়ে হাফ ছেড়ে বাঁচল বাংলাদেশ।
বাংলাদেশের পক্ষে ৩ উইকেট নেন তাইজুল, ১টি করে উইকেট নেন মাশরাফী, শফিউল, মিরাজ ও আল-আমীন।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :




জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ১১তম সিরিজ জয় বাংলাদেশের

আপডেট সময় : ০৮:২১:১৩ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ৪ মার্চ ২০২০

ক্রীড়া প্রতিবেদক, সিলেট থেকে| তীয় ম্যাচে একতরফা জিতেতে পারেনি বাংলাদেশ, যেমনটা হয়েছিল সিরিজের প্রথম ম্যাচে। শেষদিকে উত্তেজনা ছড়িয়ে হেরেছে সফরকারীরা। এ নিয়ে বাংলাদেশ ২৫টা সিরিজ জিতল, জিম্বাবুয়ের বিপক্ষেই যা ১১তম।
তিন ম্যাচ সিরিজের প্রথম ওয়ানডেতে ১৬৯ রানের রেকর্ড গড়া জয়ের পর আজ চার রানে জিতে এক ম্যাচ হাতে রেখেই সিরিজ নিজেদের করে নিয়েছে মাশরাফীরা।
দুপুরের টস জিতে গত ম্যাচের মতো আজও ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন টাইগার অধিনায়ক। ব্যাট করতে নেমে শুরুর দশ ওভারে ২ উইকেট হারায় বাংলাদেশ। আগের ম্যাচে শতক হাঁকানো লিটন দাস আজ রান আউট হয়ে ফেরেন ৯ রানে। নাজমুল হাসান শান্ত আর তামিমের মধ্যে ভুল বোঝাবুঝিতে মাত্র ৬ রানে রান আউট হয়ে ফেরেন শান্তও।
বাকি পথ তামিম পাড়ি দেন মুশফিক, মাহমুদউল্লাহদের নিয়ে। দীর্ঘ সময় ধরে রান খরায় ভোগা তামিম তুলে নেন ক্যারিয়ারের ১২তম শতক। এই শতকে পূর্ণ হয় ওয়ানডে ক্রিকেটে তার ৭ হাজার রান (২০৬ ম্যাচ)।
এর আগে ২০০৯ সালে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে করা ১৫৪ রানও টপকে যান তামিম। ১৩৬ বলে ১৫৮ রান করে ফেরেন কার্ল মুম্বার বলে ক্যাচ দিয়ে।
তামিমের সঙ্গে মুশফিক তুলে নেন অর্ধশতক। ৫৫ রান করে সাজঘরে ফেরেন ক্যাচ আউট হয়ে। মাহমুদউল্লাহ করেন ৪১ আর শেষদিকে মোহাম্মদ মিঠুনের অপরাজিত ৩২ (১৮) রানে ভর করে ৮ উইকেটে ৩২২ রান করে বাংলাদেশ।
সফরকারীদের হয়ে ২টি করে উইকেট নেন কার্ল মুম্বা ও ডোনাল্ড তিরিপানো, ১টি করে উইকেট নেন কার্লটন টিশুমা আর ওয়েসলে মাধভেরে।
স্বাগতিকদের দেয়া পাহাড়সম লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে ইনিংসের চতুর্থ ওভারে শফিউলের শিকার হোন রেগিস চাকাবা। ব্রেন্ডন টেইলরও খেলতে পারেননি বড় ইনিংস। ১১ রান করে বিদায় নেন মেহেদী হাসান মিরাজের থ্রোতে রান আউট হয়ে।
প্রথম ম্যাচে খেলতে না পারা সফরকারী অধিনায়ক শন উইলিয়ামসও হোন ব্যর্থ। মিরাজের বলে এলবিডব্লু হয়ে ফেরেন ১৪ রান করে।
জিম্বাবুয়ের এমন ব্যাটিং বিপর্যয়ের মাঝেও ওপেনার তিনাশে কামুনহুকাওয়ামে খেলেন ৭০ বলে ৫১ রানের ইনিংস। তাকে বোল্ড করে ফেরান তাইজুল ইসলাম।
মাত্রই অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ খেলে আসা ওয়েসলে মাধভেরে শাসন করেন টাইগার বোলারদের। ৪৯ বলে তিন চার, দুই ছয়ে ৫১ রান করে ফেরেন সাজঘরে।
টপ অর্ডারের ব্যর্থতার পর মিডল অর্ডারে সিকান্দার রাজার ঝড়ো ইনিংস জয়ের স্বপ্ন দেখালেও মাশরাফী বিন মোর্ত্তজার বলে ৬৬ রানের মাথায় ক্যাচ দিয়ে ফেরেন সাজঘরে।
শেষদিকে টিনোটেন্ডা মুতমবদজি ও ডোনাল্ড তিরিপানোর জুটি চেপে বসে টাইগার বোলারদের উপর। শেষ ওভার পর্যন্ত জয়ের আশা জাগিয়েছে এই জুটি।
আল আমীনের করা শেষ ওভারে জিততে হলে জিম্বাবুয়ের লাগত ২০ রান। প্রথম বলে সিঙ্গেল রান, পরের বলে ওয়াইড দেয়ার পর তৃতীয় বলে অফে ছয় হাঁকাতে গিয়ে মুতবদজি ক্যাচ দেন লিটন দাসের হাতে। মুতমবদজি-তিরিপানোর জুটি ভাঙে ৮০ রানে।
পরের দুই বলে তিরিপানোর টানা দুই ছয়ে মোড় ঘুরে যায়। ম্যাচের শেষ বলে জিততে হলে লাগত ছয়। কিন্তু পারেনি এই ডান হাতি ব্যাটসম্যান। চার রানের জয়ে হাফ ছেড়ে বাঁচল বাংলাদেশ।
বাংলাদেশের পক্ষে ৩ উইকেট নেন তাইজুল, ১টি করে উইকেট নেন মাশরাফী, শফিউল, মিরাজ ও আল-আমীন।