ঢাকা ০৩:৪৫ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৭ জুলাই ২০২৪, ২ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম :
Logo আবাসিক হল ছাড়ছে শাবি শিক্ষার্থীরা Logo নিরাপত্তার স্বার্থে শাবি শিক্ষার্থীদের আইডিকার্ড সাথে রাখার আহবান বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের Logo জনস্বাস্থ্যের প্রধান সাধুর যত অসাধু কর্ম: দুর্নীতি ও অর্থ পাচারের অভিযোগ! Logo বিআইডব্লিউটিএ বন্দর শাখা যুগ্ম পরিচালক আলমগীরের দুর্নীতি ও ঘুষ বাণিজ্য  Logo রাজশাহীতে এটিএন বাংলার সাংবাদিক সুজাউদ্দিন ছোটনকে হয়রানিমূলক মামলায় বএিমইউজরে নিন্দা ও প্রতিবাদ Logo শিক্ষার্থীদের তথ্য প্রযুক্তিতে দক্ষ হয়ে স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ায় অবদান রাখতে হবেঃ ড. তৌফিক রহমান চৌধুরী Logo ‘কানামাছি শিশুসাহিত্য পুরস্কার ২০২৪’ পেলেন লেখক Logo মধ্যরাতে শাবি ছাত্রলীগের ‘ তুমি কে, আমি কে- বাঙ্গালী, বাঙ্গালী’ শ্লোগানে উত্তাল ক্যাম্পাস Logo আম নিয়ে কষ্টগাঁথা Logo ঘুমান্ত বিবেক মাতাল আবেগ’ – আকাশমণি




ডাকাত সর্দারের ‘রক্ষা কবজ’ সাংবাদিকতার কার্ড!

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ১০:২৪:৪৮ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৭ জুন ২০১৯ ৯১ বার পড়া হয়েছে

জেলা প্রতিনিধি  নারায়ণগঞ্জ: 

পুলিশসহ সবার চোখ ফাঁকি দিতে ‘রক্ষা কবজ’ একটি কার্ড নিয়ে সাংবাদিকতা হিসেবে পেশা বেছে নেয় আন্তঃজেলা ডাকাত দলের সক্রিয় সদস্য ও সর্দার মো. হোসেন আলী (৩২)। ডাকাতি করার আগে অভিনব কৌশল হিসেবে গলায় আইডি কার্ড ঝুঁলিয়ে ক্যামেরা হাতে বিভিন্ন এলাকা ঘুরে খোঁজ নিতেন- কোথায় কোন বাড়িতে ডাকাতি করলে ভালো টাকা-পয়সা ও স্বর্ণালঙ্কার পাওয়া যাবে।

বৃহস্পতিবার সোনারগাঁ উপজেলার একটি ডাকাতি মামলার তদন্ত করতে গিয়ে বারদী এলাকায় অভিযান চালিয়ে দৈনিক দেশ পত্রিকার ফটো সাংবাদিক পরিচয় দানকারী ডাকাত হোসেন আলীকে গ্রেফতারের পর এমন ভয়ঙ্কর তথ্য পায় পুলিশ।

গ্রেফতার হোসেন আলী রূপগঞ্জ উপজেলার বরফা আঁটিপাড়া এলাকার মৃত সিদ্দিকের ছেলে।

সোনারগাঁ থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আবুল কালাম আজাদ জানান, গত ১৫ জুন গভীর রাতে সোনারগাঁ উপজেলার শম্ভুপুরা ইউনিয়নের ভিটিকান্দি গ্রামের মনজুর হাজির বাড়ির গেটের তালা কেটে ভেতরে ঢুকে বাড়ির সদস্যদের হাত-পা বেঁধে ডাকাতি করে তারা। এসময় ওই বাড়ি থেকে নগদ টাকা ও স্বর্ণালঙ্কার লুটে নেয় ডাকাতরা। এ ঘটনায় সোনারগাঁ থানার একটি ডাকাতি মামলা করা হয়। পরে প্রযুক্তির সাহায্যে অবস্থান নিশ্চিত হয়ে গতকাল বুধবার (২৬ জুন) পাঁচ ডাকাতকে গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতারদের আদালতে পাঠানো হলে তারা সবাই সোনারগাঁ উপজেলার শম্ভুপুরা ভিটিকান্দি গ্রামের মনজুর হাজির বাড়িতে ডাকাতির কথা স্বীকার করে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়। এসময় কথিত সাংবাদিক হোসেন আলী তাদের দলের সর্দার বলে জানায় তারা।

পরবর্তীতে বৃহস্পতিবার (২৭ জুন) রাতে সোনারগাঁ উপজেলার বারদী এলাকায় অভিযান চালিয়ে ডাকাত হোসেন আলীকে গ্রেফতার করা হয়। পরে তাকে নিয়ে অভিযান পরিচালনা করে সাংবাদিক পেশার আইডি কার্ড, ডাকাতি করা মালামাল, নগদ টাকা ও মোবাইল সেট উদ্ধার করা হয়।

জিজ্ঞাসাবাদে ডাকাত হোসেন জানায়, তার বিরুদ্ধে ইতোপূর্বে আরও তিনটি ডাকাতি মামলা রয়েছে। তার দলের সদস্যরা ডাকাতি করে যে মালামাল পায় তার অর্ধেক ভাগ সে একাই পায়, বাকি অর্ধেক অন্যরা ভাগ করে নেয়।

ডাকাত হোসেন পুলিশকে জানায়, হোসেন আলী সাংবাদিক হওয়ার কারণ একটাই লোকজন যাতে আমাকে অপরাধী না ভাবে। সে জন্যই দৈনিক দেশ পত্রিকায় সাংবাদিক হিসেবে নিয়োগ পাওয়ার জন্য প্রথম বিশ হাজার টাকা দেই কর্তৃপক্ষকে এবং পরবর্তীতে প্রতি মাসে ৬ হাজার টাকা এবং দৈনিক দেশ পত্রিকার সাংবাদিক হিসেবে নবায়নের জন্য ৫ হাজার টাকা দিতে হয়।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :




ডাকাত সর্দারের ‘রক্ষা কবজ’ সাংবাদিকতার কার্ড!

আপডেট সময় : ১০:২৪:৪৮ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৭ জুন ২০১৯

জেলা প্রতিনিধি  নারায়ণগঞ্জ: 

পুলিশসহ সবার চোখ ফাঁকি দিতে ‘রক্ষা কবজ’ একটি কার্ড নিয়ে সাংবাদিকতা হিসেবে পেশা বেছে নেয় আন্তঃজেলা ডাকাত দলের সক্রিয় সদস্য ও সর্দার মো. হোসেন আলী (৩২)। ডাকাতি করার আগে অভিনব কৌশল হিসেবে গলায় আইডি কার্ড ঝুঁলিয়ে ক্যামেরা হাতে বিভিন্ন এলাকা ঘুরে খোঁজ নিতেন- কোথায় কোন বাড়িতে ডাকাতি করলে ভালো টাকা-পয়সা ও স্বর্ণালঙ্কার পাওয়া যাবে।

বৃহস্পতিবার সোনারগাঁ উপজেলার একটি ডাকাতি মামলার তদন্ত করতে গিয়ে বারদী এলাকায় অভিযান চালিয়ে দৈনিক দেশ পত্রিকার ফটো সাংবাদিক পরিচয় দানকারী ডাকাত হোসেন আলীকে গ্রেফতারের পর এমন ভয়ঙ্কর তথ্য পায় পুলিশ।

গ্রেফতার হোসেন আলী রূপগঞ্জ উপজেলার বরফা আঁটিপাড়া এলাকার মৃত সিদ্দিকের ছেলে।

সোনারগাঁ থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আবুল কালাম আজাদ জানান, গত ১৫ জুন গভীর রাতে সোনারগাঁ উপজেলার শম্ভুপুরা ইউনিয়নের ভিটিকান্দি গ্রামের মনজুর হাজির বাড়ির গেটের তালা কেটে ভেতরে ঢুকে বাড়ির সদস্যদের হাত-পা বেঁধে ডাকাতি করে তারা। এসময় ওই বাড়ি থেকে নগদ টাকা ও স্বর্ণালঙ্কার লুটে নেয় ডাকাতরা। এ ঘটনায় সোনারগাঁ থানার একটি ডাকাতি মামলা করা হয়। পরে প্রযুক্তির সাহায্যে অবস্থান নিশ্চিত হয়ে গতকাল বুধবার (২৬ জুন) পাঁচ ডাকাতকে গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতারদের আদালতে পাঠানো হলে তারা সবাই সোনারগাঁ উপজেলার শম্ভুপুরা ভিটিকান্দি গ্রামের মনজুর হাজির বাড়িতে ডাকাতির কথা স্বীকার করে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়। এসময় কথিত সাংবাদিক হোসেন আলী তাদের দলের সর্দার বলে জানায় তারা।

পরবর্তীতে বৃহস্পতিবার (২৭ জুন) রাতে সোনারগাঁ উপজেলার বারদী এলাকায় অভিযান চালিয়ে ডাকাত হোসেন আলীকে গ্রেফতার করা হয়। পরে তাকে নিয়ে অভিযান পরিচালনা করে সাংবাদিক পেশার আইডি কার্ড, ডাকাতি করা মালামাল, নগদ টাকা ও মোবাইল সেট উদ্ধার করা হয়।

জিজ্ঞাসাবাদে ডাকাত হোসেন জানায়, তার বিরুদ্ধে ইতোপূর্বে আরও তিনটি ডাকাতি মামলা রয়েছে। তার দলের সদস্যরা ডাকাতি করে যে মালামাল পায় তার অর্ধেক ভাগ সে একাই পায়, বাকি অর্ধেক অন্যরা ভাগ করে নেয়।

ডাকাত হোসেন পুলিশকে জানায়, হোসেন আলী সাংবাদিক হওয়ার কারণ একটাই লোকজন যাতে আমাকে অপরাধী না ভাবে। সে জন্যই দৈনিক দেশ পত্রিকায় সাংবাদিক হিসেবে নিয়োগ পাওয়ার জন্য প্রথম বিশ হাজার টাকা দেই কর্তৃপক্ষকে এবং পরবর্তীতে প্রতি মাসে ৬ হাজার টাকা এবং দৈনিক দেশ পত্রিকার সাংবাদিক হিসেবে নবায়নের জন্য ৫ হাজার টাকা দিতে হয়।