• ২৩শে এপ্রিল ২০২১ খ্রিস্টাব্দ , ১০ই বৈশাখ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

বরিশাল সাব-রেজিস্ট্রার অফিসে দুর্নীতির হাট : ঘুষের টাকা লেনদেন হয় প্রকাশ্যে

সকালের সংবাদ ডেস্ক;
প্রকাশিত জুন ১৪, ২০১৯, ০০:১২ পূর্বাহ্ণ
বরিশাল সাব-রেজিস্ট্রার অফিসে দুর্নীতির হাট : ঘুষের টাকা লেনদেন হয় প্রকাশ্যে

সকালের সংবাদ;

বরিশাল সাব-রেজিস্টার অফিসে ব্যাপক দুর্নীতি আর অনিয়মের মধ্য দিয়ে দলিল সম্পাদন হচ্ছে প্রকাশ্যে ঘুষের টাকার লেনদেন। এ অফিসে এসে প্রতিনিয়ত হয়রানির শিকার হতে হচ্ছে বলে একাধিক অভিযোগ সাধারন মানুষের।

সরেজমিন প্রদর্শন ও অনুসন্ধানে দেখা গেছে প্রতিটি টেবিলে টাকা দিতে হচ্ছে। টাকা না দিলে কাগজপত্রের ভুল ত্রুটি দেখিয়ে দলিল সম্পাদন না করে ফেরৎ দেয়া হচ্ছে।

বরিশাল সদর সাব রেজিষ্টার অফিসে প্রথমে দলিল দেখাতে হয় অফিস সহকারী একে এম ইব্রাহিম খলিলুল্লাহকে। তাকে প্রতি দলিল বাবদ এক হাজার দুইশত নগদ টাকা দিতে হয়। তার টেবিলের ঘুষের টাকা দিতে হয় ১নং মোহরার নাদিরা সুলতানাকে। এখানে টাকা না দিলে পরবর্তী টেবিলে যাবেনা। এভাবে অনেক টেবিল পার হয়ে সাব -রেজিষ্টারের টেবিলে দলিল সম্পাদনের জন্য উল্থাপিত হয়। বরিশালের সাব-রেজিস্টার রফিকুল ইসলাম যোগদান করার পর থেকে প্রতিনিয়ত জমির ক্রয়-বিক্রেতাদের হয়রানি করছে। সে সঙ্গে নানাবিদ অনিয়ম ও দুর্নীতিতে ছেয়ে গেছে অফিসটি। অভিযোগ রয়েছে প্রতি দলিল সম্পাদনে প্রতি লাখে ১ হাজার থেকে ১৫ শত টাকা সাব-রেজিস্ট্রারকে ঘুষ দিতে হয়। দলিল লেখকরা ঘুষের টাকা দিতে রাজি না হলে সাব-রেজিস্ট্রার কাগজের ভুলত্রুটি দেখিয়ে দলিল সম্পাদন না করে ফিরিয়ে দিলে দলিল লেখকরা ও ক্রেতা-বিক্রেতারা উভয় সংকটে পরে যান।
সরকারি নীতিমালা অনুযায়ী সকাল ৯টায় অফিসে উপস্থিত হওয়ার কথা থাকলেও তিনি অফিসে আসেন বেলা ১১টায়। সময় মত অফিসে না এসে সাধারন ক্রেতা-বিক্রেতাদের কাছ থেকে অতিরিক্ত ফি এর আসায় বেলা ১১টায় অফিস করেন। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক দলিল লেখক সমিতির একাধিক নেতারা জানান সাব-রেজিস্ট্রার রফিকুল ইসলাম কাগজপত্র সঠিক চান আবার ঘুষ ও চান। দলিল লেখকরা এ সব অনিয়ম ও দূর্নীতি প্রতিবাদ করতে গিয়ে সাব-রেজিস্ট্রারের রোষানলে পরেন। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এই অফিসের এক কর্মকর্তা জানান,সঠিকভাবে কাজ করলে জমি রেজিস্ট্রি খরচ অনেক কমে য়ায়। সেই সঙ্গে কমে যাবে দুর্নীতি।

এ বিষয়ে সাব-রেজিস্ট্রার অফিসের অফিস সহকারী একে এম ইব্রাহিম খলিলুল্লাহ বলেন, আমি কোন টাকা নেই না। ১নং মোহরার নাদিরা সুলতানা বলেন,আমি টাকা নেইনা। সম্প্রতি প্রকাশ্যে ঘুষ লেনদেনের একটি ভিডিও এ প্রতিনিধির হাতে আসলে তাতে দেখা গেছে,নাদিরা সুলতানা প্রথমে ঘুষের টাকা নিয়ে পরে টেবিলের নিচ দিয়ে অফিস সহকারী একে এম ইব্রাহিমকে দেয়া হচ্ছে। তিনি টাকা নিয়ে প্যান্টের পকেটে রেখে দিচ্ছেন। প্রকাশ্যে টাকা নেয়ার ভিডিওর বিষয়টি তাদের নজরে আনা হলে সংবাদটি প্রকাশ না করার জন্য তদবির করেন। এ ব্যাপারে সাব -রেজিষ্টার রফিকুল ইসলামের মুঠোফোনে কল হলে তিনি রিসিভ করেন নি। প্রকাশ্যে ঘুষ লেনদেনের ভিডিওটি এ প্রতিনিধির হাতে সংরক্ষিত রয়েছে।

  • ফজর
  • যোহর
  • আছর
  • মাগরিব
  • এশা
  • সূর্যোদয়
  • ৪:১৭
  • ১২:০১
  • ৪:৩০
  • ৬:২৬
  • ৭:৪৩
  • ৫:৩৩