ঢাকা ০৭:৪৭ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম :
Logo এমপি আনার খুন: রহস্যময় রূপে শীর্ষ দুই ব্যবসায়ী Logo রূপালী ব্যাংকের ডিজিএম কর্তৃক সহকর্মী নারীকে যৌন হয়রানি: ধামাচাপা দিতে মরিয়া তদন্ত কমিটি Logo প্রতিবন্ধী ভাতার টাকা হাতিয়ে বহাল তবিয়তে মাদারীপুরের দুই সহকারী সমাজসেবা অফিসারl Logo যমুনা লাইফের গ্রাহক প্রতারণায় ‘জড়িতরা’ কে কোথায় Logo ঢাকাস্থ ভোলা সাংবাদিক ফোরামের সভাপতি আহসান কামরুল, সম্পাদক জিয়াউর রহমান Logo টাটা মটরস বাংলাদেশে উদ্বোধন করলো টাটা যোদ্ধা Logo আশা শিক্ষা কর্মসূচী কর্তৃক অভিভাবক মতবিনিময় সভা Logo গণপূর্ত প্রধান প্রকৌশলীর গাড়ি চাপায় পিষ্ট সহকারী প্রকৌশলী -উত্তাল গণপূর্ত Logo শাবিপ্রবির বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের উদ্যোগে বৃক্ষরোপণ Logo সওজের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী নাহিনুরের সীমাহীন সম্পদ ও অনিয়ম -পর্ব-০১




আ’লীগের দুই গ্রুপের সংর্ঘষে উপজেলা চেয়ারম্যান আহত

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ১২:৪৮:৫৭ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২ মে ২০১৯ ৭৫ বার পড়া হয়েছে

বিরামপুর (দিনাজপুর) প্রতিনিধি;

দিনাজপুরের নবাবগঞ্জে নদী খনন করাকে কেন্দ্র করে দুই পক্ষের সংঘর্ষে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. আতাউর রহমানসহ অন্তত ১০ জন আহত হয়েছেন।

বুধবার বিকালে উপজেলার ৮নং মাহমুদপুর ইউনিয়নের মোগরপাড়া নামক স্থানে এ ঘটনা ঘটে। প্রতক্ষদর্শীরা জানান- গত মঙ্গলবার উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. আতাউর রহমান বাংলাদেশের ৬৪ জেলায় জেলার অভ্যন্তরস্থ ছোট নদী খাল এবং জলাশয় পুনঃখনন শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় মাইলা নামক নদীর পুনঃখনন কাজের উদ্বোধন করেন।

বুধবার বিকালে ছাত্রলীগ ও যুবলীগের কয়েকজন কর্মী ঐ নদীর মোগরপাড়া নামক স্থানে গিয়ে খনন কাজে বাধা সৃষ্টি করলে সেখানে থাকা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের ছেলে শাফিউল ইসলাম পিলুর সঙ্গে বাতবিতণ্ডা হয়।

খবর পেয়ে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সেখানে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করার চেষ্টা করলে ছাত্রলীগ ও যুবলীগের কর্মীরা তার ওপর অতর্কিত হামলা চালায়। এতে উভয় পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষে উপজেলা চেয়ারম্যান ও তার দুই ছেলে ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহেল আজিম সোহাগ ও সাকিউল ইসলাম পিলুসহ উভয় পক্ষের অন্তত ১০ জন আহত হন।

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে গেলে উপজেলা চেয়ারম্যান আত্মরক্ষার্থে তার সঙ্গে থাকা আগ্নেয়অস্ত্র দিয়ে গুলি ছুড়লে ছাত্রলীগ ও যুবলীগের কর্মীরা ছদ্রভঙ্গ হয়ে পালিয়ে যায়।

পরে উপজেলা চেয়ারম্যান সমর্থকরা ছাত্রলীগ ও যুবলীগের কর্মীদের কয়েকটি মোটরসাইকেল ভাঙচুর করে বলে স্থানীয়রা জানান। খবর পেয়ে থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

এ বিষয়ে নবাবগঞ্জ থানার ওসি সুব্রত কুমার সরকার বলেন, এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত কোনো অভিযোগ পাই নাই। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মশিউর রহমান বলেন, ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি, বর্তমানে পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :




আ’লীগের দুই গ্রুপের সংর্ঘষে উপজেলা চেয়ারম্যান আহত

আপডেট সময় : ১২:৪৮:৫৭ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২ মে ২০১৯

বিরামপুর (দিনাজপুর) প্রতিনিধি;

দিনাজপুরের নবাবগঞ্জে নদী খনন করাকে কেন্দ্র করে দুই পক্ষের সংঘর্ষে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. আতাউর রহমানসহ অন্তত ১০ জন আহত হয়েছেন।

বুধবার বিকালে উপজেলার ৮নং মাহমুদপুর ইউনিয়নের মোগরপাড়া নামক স্থানে এ ঘটনা ঘটে। প্রতক্ষদর্শীরা জানান- গত মঙ্গলবার উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. আতাউর রহমান বাংলাদেশের ৬৪ জেলায় জেলার অভ্যন্তরস্থ ছোট নদী খাল এবং জলাশয় পুনঃখনন শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় মাইলা নামক নদীর পুনঃখনন কাজের উদ্বোধন করেন।

বুধবার বিকালে ছাত্রলীগ ও যুবলীগের কয়েকজন কর্মী ঐ নদীর মোগরপাড়া নামক স্থানে গিয়ে খনন কাজে বাধা সৃষ্টি করলে সেখানে থাকা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের ছেলে শাফিউল ইসলাম পিলুর সঙ্গে বাতবিতণ্ডা হয়।

খবর পেয়ে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সেখানে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করার চেষ্টা করলে ছাত্রলীগ ও যুবলীগের কর্মীরা তার ওপর অতর্কিত হামলা চালায়। এতে উভয় পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষে উপজেলা চেয়ারম্যান ও তার দুই ছেলে ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহেল আজিম সোহাগ ও সাকিউল ইসলাম পিলুসহ উভয় পক্ষের অন্তত ১০ জন আহত হন।

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে গেলে উপজেলা চেয়ারম্যান আত্মরক্ষার্থে তার সঙ্গে থাকা আগ্নেয়অস্ত্র দিয়ে গুলি ছুড়লে ছাত্রলীগ ও যুবলীগের কর্মীরা ছদ্রভঙ্গ হয়ে পালিয়ে যায়।

পরে উপজেলা চেয়ারম্যান সমর্থকরা ছাত্রলীগ ও যুবলীগের কর্মীদের কয়েকটি মোটরসাইকেল ভাঙচুর করে বলে স্থানীয়রা জানান। খবর পেয়ে থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

এ বিষয়ে নবাবগঞ্জ থানার ওসি সুব্রত কুমার সরকার বলেন, এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত কোনো অভিযোগ পাই নাই। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মশিউর রহমান বলেন, ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি, বর্তমানে পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে।