ঢাকা ০৯:৩১ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৩ জুন ২০২৪, ৯ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ




স্কুলে প্রেম ঠেকাতে ৬ দিনের বদলে ৩ দিন ক্লাস!

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ১১:৫৩:৩৫ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ৩ জুলাই ২০১৯ ১১০ বার পড়া হয়েছে

আন্তর্জাতিক ডেস্ক;
ছাত্রছাত্রীরা স্কুলের মধ্যে প্রেম করছে, ক্লাসে কাগজের টুকরো দেয়া-নেয়া চলছে, মেয়েদের কমন রুমের সামনে ছাত্রদের লাইন থাকছে, স্কুলের মধ্যে হাতে হাত ধরে হেঁটে যাওয়াও দৃশ্যও নিয়মিত চোখে পড়ছে। অভিযোগ রয়েছে এসবের ফলে পড়াশোনা উঠেছে শিকেয়। আর তাই ছাত্র-ছাত্রীদের আলাদা করে ক্লাস করানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে স্কুল কর্তৃপক্ষ। ঘটনা পশ্চিমবঙ্গের মালদহের একটি স্কুলের।

বুলবুলচণ্ডী গিরিজাসুন্দরী বিদ্যামন্দির কর্তৃপক্ষের এমন সিদ্ধান্তে বিতর্ক শুরু হয়েছে। কর্তৃপক্ষ বলছে, ছাত্রছাত্রীদের কিছু আচরণের জেরেই এ সিদ্ধান্ত। কিন্তু স্কুলের ছাত্রছাত্রী ও অভিভাবকদের একাংশের মধ্যে প্রশ্ন উঠেছে, আচরণ যেমনই হোক না কেন, এমন সিদ্ধান্ত কি স্কুল কর্তৃপক্ষ নিতে পারেন? একই প্রশ্ন তুলেছেন এলাকার বিশিষ্টেরাও।

ওই স্কুলের স্কুলের এক শিক্ষিকা বলছেন, নিষেধ করলে ক্লাসের মধ্যে বিড়াল-কুকুরের ডাক ডাকে। এর প্রভাব নিচু ক্লাসের ছাত্রদের উপরেও পড়ছে। ছাত্রদের ক্লাস সাসপেন্ড থেকে শুরু করে অভিভাবকদের ডেকেও নালিশ জানানো হয়েছে, কিছুতেই কিছু হয়নি।

ফলে ছাত্রছাত্রীদের আলাদা দিনে ক্লাসের ব্যবস্থা করেছে স্কুল। ছাত্রীদের অনেকে বলছে, কিছু ছাত্র স্কুলের মধ্যে উত্ত্যক্ত করত। স্কুল কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্তে আমরা খুশি। পাশাপাশি তাদের প্রশ্ন, সপ্তাহে ৩ দিন ক্লাস হলে পাঠ্যক্রম শেষ হবে? ’ জবাবে শিক্ষকদের তরফ থেকে বলা হচ্ছে, বাড়তি ক্লাস নিয়ে পাঠ্যক্রম শেষ করা হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :




স্কুলে প্রেম ঠেকাতে ৬ দিনের বদলে ৩ দিন ক্লাস!

আপডেট সময় : ১১:৫৩:৩৫ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ৩ জুলাই ২০১৯

আন্তর্জাতিক ডেস্ক;
ছাত্রছাত্রীরা স্কুলের মধ্যে প্রেম করছে, ক্লাসে কাগজের টুকরো দেয়া-নেয়া চলছে, মেয়েদের কমন রুমের সামনে ছাত্রদের লাইন থাকছে, স্কুলের মধ্যে হাতে হাত ধরে হেঁটে যাওয়াও দৃশ্যও নিয়মিত চোখে পড়ছে। অভিযোগ রয়েছে এসবের ফলে পড়াশোনা উঠেছে শিকেয়। আর তাই ছাত্র-ছাত্রীদের আলাদা করে ক্লাস করানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে স্কুল কর্তৃপক্ষ। ঘটনা পশ্চিমবঙ্গের মালদহের একটি স্কুলের।

বুলবুলচণ্ডী গিরিজাসুন্দরী বিদ্যামন্দির কর্তৃপক্ষের এমন সিদ্ধান্তে বিতর্ক শুরু হয়েছে। কর্তৃপক্ষ বলছে, ছাত্রছাত্রীদের কিছু আচরণের জেরেই এ সিদ্ধান্ত। কিন্তু স্কুলের ছাত্রছাত্রী ও অভিভাবকদের একাংশের মধ্যে প্রশ্ন উঠেছে, আচরণ যেমনই হোক না কেন, এমন সিদ্ধান্ত কি স্কুল কর্তৃপক্ষ নিতে পারেন? একই প্রশ্ন তুলেছেন এলাকার বিশিষ্টেরাও।

ওই স্কুলের স্কুলের এক শিক্ষিকা বলছেন, নিষেধ করলে ক্লাসের মধ্যে বিড়াল-কুকুরের ডাক ডাকে। এর প্রভাব নিচু ক্লাসের ছাত্রদের উপরেও পড়ছে। ছাত্রদের ক্লাস সাসপেন্ড থেকে শুরু করে অভিভাবকদের ডেকেও নালিশ জানানো হয়েছে, কিছুতেই কিছু হয়নি।

ফলে ছাত্রছাত্রীদের আলাদা দিনে ক্লাসের ব্যবস্থা করেছে স্কুল। ছাত্রীদের অনেকে বলছে, কিছু ছাত্র স্কুলের মধ্যে উত্ত্যক্ত করত। স্কুল কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্তে আমরা খুশি। পাশাপাশি তাদের প্রশ্ন, সপ্তাহে ৩ দিন ক্লাস হলে পাঠ্যক্রম শেষ হবে? ’ জবাবে শিক্ষকদের তরফ থেকে বলা হচ্ছে, বাড়তি ক্লাস নিয়ে পাঠ্যক্রম শেষ করা হবে।