ঢাকা ০৩:১৮ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ০৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ২৫ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম :
Logo মির্জাগঞ্জ এলজিইডি প্রকৌশলী আশিকুরের ঘুস-দুর্নীতি! Logo দ্রব্যমূল্যের ক্রমাগত ঊর্ধ্বগতি ; বিপাকে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা Logo পরিবেশের জন্য ই-বর্জ্য হুমকি স্বরূপ ; তা উত্তরণের উপায় Logo বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় বাংলাদেশ Logo ঐতিহ্যবাহী সোহরাওয়ার্দী কলেজ সাংবাদিক সমিতির কমিটি গঠন Logo চেয়ারম্যানের আহ্লাদে বেপরোয়া বিআইডব্লিউটিএ‘র কর্মচারি পান্না বিশ্বাস! Logo রাজউকে বদলী ও পদায়নে ভয়ংকর দুর্নীতি ফাঁস: নেপথ্য নায়ক প্রধান প্রকৌশলী  Logo কুবির শেখ হাসিনা হলের গ্যাস লিক, আতঙ্কে শিক্ষার্থীরা Logo ইন্টার্ন চিকিৎসকের হাত-পা ভেঙে দিলেন সহকর্মীরা Logo ঐতিহ্যবাহী শহীদ সোহরাওয়ার্দী কলেজে অফিসার্স কাউন্সিল নির্বাচন অনুষ্ঠিত 




বাগমারায় পক্ষপাতী প্রশাসন, দাবি বিএনপির

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ১২:৫৩:২৭ অপরাহ্ন, বুধবার, ১২ ডিসেম্বর ২০১৮ ৩৫ বার পড়া হয়েছে

 

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ রাজশাহী-৪ (বাগমারা) আসনে প্রশাসনের বিরুদ্ধে পক্ষপাতিত্বের অভিযোগ এনেছেন বিএনপির প্রার্থী আবু হেনা। মঙ্গলবার বিকেলে বাগমারা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে এই অভিযোগ করেন তিনি। বিএনপি নেতাকর্মীদের গ্রেফতার ও প্রচারণায় বাধা দেয়ারও অভিযোগ আনেন আবু হেনা।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে বিএনপির এই প্রার্থী অভিযোগ করে বলেন, প্রচারণায় গিয়ে পদে পদে বাধা পাচ্ছেন ধানের শীষের কর্মী-সমর্থকরা। নৌকা প্রতীকের ক্যাডার বাহিনী মোটরসাইকেল শোডাউন দিয়ে বিভিন্ন এলাকায় ধানের শীষের নির্বাচানী কার্যালয় হানা দিচ্ছে। তারা ধানের শীষের প্রচারণায় বাধা সৃষ্টি ও পোস্টার ছিড়ে ফেলছে।

তিনি বলেন, বাধা দেয়ায় হামলার শিকার হচ্ছেন ধানের শীষের কর্মীরা। উপজেলার হাটখুঁজিপুর বাজারে প্রকাশ্যে ধানের শীষের কর্মী আসরাফ হোসেন (২৬) ও সোহেল রানাকে (২৫) পিটিয়ে হাত ভেঙে দিয়েছে আওয়ামী লীগ। আহতরা রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

এ নিয়ে থানা পুলিশ ও জেলা পুলিশকে অভিযোগ দিলেও ব্যবস্থা নেয়নি তারা। উল্টো রাতের অন্ধকারে নৌকা প্রতীকের কর্মীদের নিয়ে গোপন বৈঠক করেছে পুলিশ। নৌকার প্রার্থীর নির্দেশে বিএনপি নেতাকর্মীদের গ্রেফতার করে গায়েবি মামলায় জড়িয়ে দিচ্ছে পুলিশ।

আবু হেনা আরও অভিযোগ করেন, নৌকা প্রতীকের প্রার্থী ও তার কর্মী-সমর্থকদের এমন কর্মকাণ্ড নির্বাচনী আচরণবিধির লঙ্ঘন। এ নিয়ে তিনি সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জাকিউল ইসলামকেও অভিযোগ দেয়া হয়েছে। তিনি এসব অভিযোগ আমলে নেননি। ফলে দিন দিন আরও বেপরোয়া হয়ে উঠছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ।

নির্বাচনী এলাকায় লেবেল প্লেইং ফিল্ড নেই বলেও অভিযোগ করেন সাবেক এই এমপি। একই সাথে জনগণকে সাথে নিয়ে এই ষড়যন্ত্র মোকাবেলারও ঘোষণা দেন।

সংবাদ সম্মেলনে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- উপজেলা বিএনপির সভাপতি ডিএম জিয়াউর রহমান জিয়া, সাধারণ সম্পাদক আব্দুস সোবহান, ভবানীগঞ্জ পৌর বিএনপির সভাপতি আবদুর রাজ্জাক প্রামানিক, উপজেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ইউসুফ আলী, যুগ্ম সম্পাদক সরদার হুজুর আলী, পৌর বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক জয়নাল আবেদীন, যুবদলের নেতা আফজাল হোসেন, ছাত্রদল নেতা আবু হেনা রিপন প্রমুখ।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :




বাগমারায় পক্ষপাতী প্রশাসন, দাবি বিএনপির

আপডেট সময় : ১২:৫৩:২৭ অপরাহ্ন, বুধবার, ১২ ডিসেম্বর ২০১৮

 

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ রাজশাহী-৪ (বাগমারা) আসনে প্রশাসনের বিরুদ্ধে পক্ষপাতিত্বের অভিযোগ এনেছেন বিএনপির প্রার্থী আবু হেনা। মঙ্গলবার বিকেলে বাগমারা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে এই অভিযোগ করেন তিনি। বিএনপি নেতাকর্মীদের গ্রেফতার ও প্রচারণায় বাধা দেয়ারও অভিযোগ আনেন আবু হেনা।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে বিএনপির এই প্রার্থী অভিযোগ করে বলেন, প্রচারণায় গিয়ে পদে পদে বাধা পাচ্ছেন ধানের শীষের কর্মী-সমর্থকরা। নৌকা প্রতীকের ক্যাডার বাহিনী মোটরসাইকেল শোডাউন দিয়ে বিভিন্ন এলাকায় ধানের শীষের নির্বাচানী কার্যালয় হানা দিচ্ছে। তারা ধানের শীষের প্রচারণায় বাধা সৃষ্টি ও পোস্টার ছিড়ে ফেলছে।

তিনি বলেন, বাধা দেয়ায় হামলার শিকার হচ্ছেন ধানের শীষের কর্মীরা। উপজেলার হাটখুঁজিপুর বাজারে প্রকাশ্যে ধানের শীষের কর্মী আসরাফ হোসেন (২৬) ও সোহেল রানাকে (২৫) পিটিয়ে হাত ভেঙে দিয়েছে আওয়ামী লীগ। আহতরা রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

এ নিয়ে থানা পুলিশ ও জেলা পুলিশকে অভিযোগ দিলেও ব্যবস্থা নেয়নি তারা। উল্টো রাতের অন্ধকারে নৌকা প্রতীকের কর্মীদের নিয়ে গোপন বৈঠক করেছে পুলিশ। নৌকার প্রার্থীর নির্দেশে বিএনপি নেতাকর্মীদের গ্রেফতার করে গায়েবি মামলায় জড়িয়ে দিচ্ছে পুলিশ।

আবু হেনা আরও অভিযোগ করেন, নৌকা প্রতীকের প্রার্থী ও তার কর্মী-সমর্থকদের এমন কর্মকাণ্ড নির্বাচনী আচরণবিধির লঙ্ঘন। এ নিয়ে তিনি সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জাকিউল ইসলামকেও অভিযোগ দেয়া হয়েছে। তিনি এসব অভিযোগ আমলে নেননি। ফলে দিন দিন আরও বেপরোয়া হয়ে উঠছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ।

নির্বাচনী এলাকায় লেবেল প্লেইং ফিল্ড নেই বলেও অভিযোগ করেন সাবেক এই এমপি। একই সাথে জনগণকে সাথে নিয়ে এই ষড়যন্ত্র মোকাবেলারও ঘোষণা দেন।

সংবাদ সম্মেলনে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- উপজেলা বিএনপির সভাপতি ডিএম জিয়াউর রহমান জিয়া, সাধারণ সম্পাদক আব্দুস সোবহান, ভবানীগঞ্জ পৌর বিএনপির সভাপতি আবদুর রাজ্জাক প্রামানিক, উপজেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ইউসুফ আলী, যুগ্ম সম্পাদক সরদার হুজুর আলী, পৌর বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক জয়নাল আবেদীন, যুবদলের নেতা আফজাল হোসেন, ছাত্রদল নেতা আবু হেনা রিপন প্রমুখ।