করোনায় গরিবের বিপদ

সকালের সংবাদ ডেস্ক;সকালের সংবাদ ডেস্ক;
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ১১:০২ পূর্বাহ্ণ, ৩১ মে ২০২০

অনলাইন ডেস্কঃ বিশ্বের অন্যতম বড় বস্তিকে ঘিরে শুরু হয়েছে করোনা ভাইরাসের বিষয়ে সচেতনতামূলক প্রচারণা৷ তাতে কি কোনো কাজ হবে? বিশ্বের কোনো বস্তির মানুষকে নিয়েই আশার কথা শোনাতে পারছেন না বিশেষজ্ঞরা৷

দক্ষিণ অ্যামেরিকা ও ক্যারিবীয় অঞ্চলে শতকরা ২০ ভাগ মানুষেরই বাস বস্তিতে৷ ওই অঞ্চলে করোনা ভাইরাস এখনো বেশি ছড়ায়নি৷ কিন্তু বিশেষজ্ঞদের আশঙ্কা, একবার ছড়ালে ভয়ংকর হবে পরিস্থিতি৷ খুব স্বল্প আয়ের মানুষেরাই বাস করেন বস্তিতে৷ তাদের প্রায় সবাই অপুষ্টিতে ভুগছে৷ ফলে তাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা খুব কম৷ করোনায় সংক্রমিত হলে বস্তির মানুষের মৃত্যুহার অনেক বেশি হবে বলে সব দেশের সরকারের প্রতি এ বিষয়ে এখন থেকেই সজাগ হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন প্যান আমেরিকান হেলথ অর্গানাইজেশন (পিএএইচও)-এর সহকারী পরিচালক জার্বাস বারবোসা৷

দক্ষিণ অ্যামেরিকার দেশগুলো করোনার বিস্তার রোধ করতে ব্যবস্থা নিতে শুরু করেছে৷ সেনাবাহিনীকে রাস্তায় নামিয়ে দিয়েছে পেরু সরকার৷ কোস্টারিকা আর কলম্বিয়া তাদের সীমান্ত বন্ধ করে দিয়েছে৷

বিশ্বের সবচেয়ে বড় বস্তিগুলোর একটি ব্রাজিলের রোচিনহা৷ সেখানকার মানুষদের নভেল করোনা ভাইরাস সম্পর্কে সচেতন করতে কমিউনিটি রেডিও এবং সোশ্যাল নেটওয়ার্কের মাধ্যমে শুরু হয়েছে প্রচারণা৷

‘সেল্ফ আইসোলেশন’ এবং ‘হোম কোয়ারান্টিন’ কথা দুটো খুব হাস্যকর হয়ে যাচ্ছে বস্তিবাসীদের বেলায়৷ একটি কক্ষে গাদাগাদি করে যেখানে ১৫ থেকে ২০ জন থাকে, সেখানে করোনায় সংক্রমিত হলে একা আলাদা থাকবে কী করে?

সংক্রমিত না হলেও বস্তিবাসীদের জন্য বিপদ এড়ানো কঠিন৷ বস্তিতে যারা থাকেন, তাদের বেশিরভাগই গৃহকর্মী, পরিচ্ছন্নতাকর্মী, নির্মাণ শ্রমিক বা ফেরিওয়ালা৷ করোনার কারণে তাদের অনেকেই এখন কর্মহীন৷ একবেলার খাবার জোগাড় করাই তাদের জন্য কঠিন হয়ে উঠছে৷

বয়স্কদের যেভাবে করোনা থেকে বাঁচাবেন

আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি যাদের বেশিঃ বয়স যাদের ৬৫ বছরের বেশি, করোনায় সংক্রমিত হলে তাদের জীবন বিপন্ন হওয়ার আশঙ্কা সবচেয়ে বেশি থাকে। তবে ডায়াবেটিস, হৃদরোগ বা অন্য কোন জটিল রোগ থাকলে এর চেয়ে কম বয়সিদেরও করোনাভাইরাসে মৃত্যু হতে পারে।

বয়স্কদের পাশে সর্তকতা অবলম্বন জরুরিঃ অনেক দেশে প্রবীণদের অন্তত ১২ সপ্তাহ ঘরে থাকতে বলা হয়েছে। চিকিৎসকদের পরামর্শ, এই সময় প্রবীণদের সঙ্গে দেখা করতে গেলে অন্তত এক মিটার, অর্থাৎ তিন ফুট দূরে থেকে কথা বলতে হবে। চুমু খাওয়া বা আলিঙ্গন করা যাবে না।

হাত ধুয়ে নিতে ভুলবেন নাঃ ঘরের বাইরে গেলে এখন এমনিতেই সবার স্যানিটাইজার বা সাবান দিয়ে ভালো করে হাত ধুয়ে নেয়া উচিত। প্রবীণদের কাছাকাছি গেলেও এই নিয়ম মানতে হবে।

দেখা কম করা ভালোঃ এমনিতে দেখা কম করা ভালো। খুব জরুরি প্রয়োজন ছাড়া দেখা না করে ফোন করে, চিঠি লিখে বা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের সহায়তায় প্রবীণদের খোঁজখবর নেয়া যেতে পারে।

প্রবীণদের যা যা করতে হবেঃ করোনার আতঙ্ক নিয়ে প্রবীণদের পক্ষে একা থাকা খুব কঠিন। সময় কাটাতে তাদের ঘর পরিষ্কার করা নাচা বা বসে বসে করা যায় এমন ব্যায়ামে মন দিতে হবে। এছাড়া সূর্যের আলো আর মুক্ত বাতাস যতটা সম্ভব গায়ে লাগাতে হবে।

আপনার মতামত লিখুন :