ঢাকা ০২:৪১ অপরাহ্ন, রবিবার, ০৩ মার্চ ২০২৪, ২০ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম :
Logo ১৭ মার্চ ও ২৬ মার্চের আহ্বায়কসহ তিনজনকে প্রত্যাহারের আহ্বান কুবি শিক্ষক সমিতির Logo সিলেটে সাইবার ট্রাইব্যুনালে ছাত্রদল ও ছাত্রশিবির সদস্যের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের Logo ড. ইউনূসের মামলা পর্যবেক্ষণ করছে জাতিসংঘ Logo কাভার্ডভ্যান ও অটোরিকশার সংঘর্ষে ছাত্র নিহত, আহত ৩ Logo রাজশাহীতে যুবলীগ কর্মীকে কুপিয়ে হত্যার ঘটনায় গ্রেপ্তার ৫ Logo এবার ঢাবি অধ্যাপক নাদিরের বিরুদ্ধে যৌন নিপীড়নের অভিযোগ  Logo সন্দ্বীপ থানার ওসির পিপিএম পদক লাভ Logo মালয়েশিয়ায় ১৩৪ বাংলাদেশি গ্রেফতার Logo শাবির ছাত্রীহলে ফিঙ্গারপ্রিন্ট স্থাপন, কমবে চুরি ও বহিরাগত প্রবেশ, বাড়বে নিরাপত্তা Logo গণতন্ত্র মঞ্চের কর্মসূচিতে হামলার নিন্দা ১২ দলীয় জোটের




“ভারত ও বাংলাদেশের অংশীদারিত্ব দক্ষিণ এশিয়ার আখ্যানকে নতুন করে লিখবে”

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৯:৩৮:০৮ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৮ অগাস্ট ২০২৩ ১৯৮ বার পড়া হয়েছে

অনিরুদ্ধ পাল, ভারতীয় ব্যুরো চিফ: ১৮ আগস্ট: আজ ভারতের রাজধানী নয়াদিল্লিতে অনুষ্ঠিত হল জি২০ ডিজিটাল ইকোনমি ওয়ার্কিং গ্রুপের চতুর্থ বৈঠক। এই বৈঠকে বাংলাদেশ, দক্ষিণ কোরিয়া, ফ্রান্স এবং তুর্কি’র মন্ত্রী পর্যায়ের প্রতিনিধি দল এবং অন্যান্য সিনিয়র প্রতিনিধিদের সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক বৈঠক করেন কেন্দ্রীয় দক্ষতা উন্নয়ন এবং উদ্যোক্তা এবং ইলেকট্রনিক্স এবং আইটি প্রতিমন্ত্রী রাজীব চন্দ্রশেখর।সেখানে বাংলাদেশের আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলকের সঙ্গে গুরুত্বপূর্ণ বৈঠক হয় চন্দ্রশেখরের। আলোচনার পর মন্ত্রী চন্দ্রশেখর বলেন-“ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে অংশীদারিত্ব দক্ষিণ এশিয়ার আখ্যানকে নতুন করে লিখবে।”
মন্ত্রী চন্দ্রশেখর বাংলাদেশের আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলকের সাথে সাক্ষাত ও মতবিনিময় করেন। আলোচনায় ভারত স্ট্যাক, সাইবার নিরাপত্তা এবং দক্ষতার চারপাশে সম্ভাব্য সহযোগিতার উপর দৃষ্টি নিবদ্ধ করে। বৈঠকের সময় রাজীব চন্দ্রশেখর উল্লেখ করেন, “ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে অংশীদারিত্ব দক্ষিণ এশিয়ার আখ্যানকে নতুন করে লিখবে।”
ভারত সবসময় বাংলাদেশের সাথে তার ঘনিষ্ঠ সম্পর্ককে লালন করেছে এবং একই সাথে বাংলাদেশের উন্নয়ন এজেন্ডায় অবদান রাখার পাশাপাশি এর সাথে সম্পর্ক জোরদার করার জন্য কাজ করেছে। ভারতের ফ্ল্যাগশিপ ‘নেবারহুড ফার্স্ট’ নীতির অধীনে বাংলাদেশ একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশীদার। বাণিজ্য ও বাণিজ্য, বিদ্যুৎ ও জ্বালানি, পরিবহন ও সংযোগ, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি, প্রতিরক্ষা ও নিরাপত্তা, সামুদ্রিক বিষয়, জলবায়ু পরিবর্তন এবং টেকসই উন্নয়নসহ সব ক্ষেত্রেই দুই দেশের সহযোগিতা বিস্তৃত।
উভয় দেশেরই কেবল একটি দৃঢ় দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কই নয় বরং সার্ক (সাউথ এশিয়ান অ্যাসোসিয়েশন ফর রিজিওনাল কো-অপারেশন), বিমসটেক (বে অফ বেঙ্গল মাল্টি-সেক্টরাল টেকনিক্যাল অ্যান্ড ইকোনমিক কোঅপারেশন) এবং আইওআরআরসি (ভারত মহাসাগর) এর মতো বহুপাক্ষিক ফোরামের মাধ্যমে আঞ্চলিক সহযোগিতা প্রক্রিয়ায় নিযুক্ত রয়েছে। রিম অ্যাসোসিয়েশন ফর রিজিওনাল কোঅপারেশন), অন্যদের মধ্যে। এই ফোরামগুলিতে, উভয় দেশ এই অঞ্চলে আঞ্চলিক নিরাপত্তা, সংযোগ এবং অবকাঠামো উন্নয়নের মতো বিষয়গুলির সাথে সম্পর্কিত একটি অভিন্ন দৃষ্টিভঙ্গি ভাগ করে নেয়।
তবে এদিনের বৈঠকে মন্ত্রী চন্দ্রশেখর ফ্রান্সের ডিজিটাল বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের রাষ্ট্রদূত হেনরি ভার্ডিয়ারের সাথেও দ্বিপাক্ষিক বৈঠক করেন। এছাড়াও বৈঠক করেন তুর্কির শিল্প ও প্রযুক্তি মন্ত্রী মেহমেত ফাতিহ কাসির, দক্ষিণ কোরিয়ার বিজ্ঞান ও আইসিটি মন্ত্রকের উপমন্ত্রী ডাঃ জিন-বে হং-এর সাথেও।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :




“ভারত ও বাংলাদেশের অংশীদারিত্ব দক্ষিণ এশিয়ার আখ্যানকে নতুন করে লিখবে”

আপডেট সময় : ০৯:৩৮:০৮ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৮ অগাস্ট ২০২৩

অনিরুদ্ধ পাল, ভারতীয় ব্যুরো চিফ: ১৮ আগস্ট: আজ ভারতের রাজধানী নয়াদিল্লিতে অনুষ্ঠিত হল জি২০ ডিজিটাল ইকোনমি ওয়ার্কিং গ্রুপের চতুর্থ বৈঠক। এই বৈঠকে বাংলাদেশ, দক্ষিণ কোরিয়া, ফ্রান্স এবং তুর্কি’র মন্ত্রী পর্যায়ের প্রতিনিধি দল এবং অন্যান্য সিনিয়র প্রতিনিধিদের সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক বৈঠক করেন কেন্দ্রীয় দক্ষতা উন্নয়ন এবং উদ্যোক্তা এবং ইলেকট্রনিক্স এবং আইটি প্রতিমন্ত্রী রাজীব চন্দ্রশেখর।সেখানে বাংলাদেশের আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলকের সঙ্গে গুরুত্বপূর্ণ বৈঠক হয় চন্দ্রশেখরের। আলোচনার পর মন্ত্রী চন্দ্রশেখর বলেন-“ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে অংশীদারিত্ব দক্ষিণ এশিয়ার আখ্যানকে নতুন করে লিখবে।”
মন্ত্রী চন্দ্রশেখর বাংলাদেশের আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলকের সাথে সাক্ষাত ও মতবিনিময় করেন। আলোচনায় ভারত স্ট্যাক, সাইবার নিরাপত্তা এবং দক্ষতার চারপাশে সম্ভাব্য সহযোগিতার উপর দৃষ্টি নিবদ্ধ করে। বৈঠকের সময় রাজীব চন্দ্রশেখর উল্লেখ করেন, “ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে অংশীদারিত্ব দক্ষিণ এশিয়ার আখ্যানকে নতুন করে লিখবে।”
ভারত সবসময় বাংলাদেশের সাথে তার ঘনিষ্ঠ সম্পর্ককে লালন করেছে এবং একই সাথে বাংলাদেশের উন্নয়ন এজেন্ডায় অবদান রাখার পাশাপাশি এর সাথে সম্পর্ক জোরদার করার জন্য কাজ করেছে। ভারতের ফ্ল্যাগশিপ ‘নেবারহুড ফার্স্ট’ নীতির অধীনে বাংলাদেশ একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশীদার। বাণিজ্য ও বাণিজ্য, বিদ্যুৎ ও জ্বালানি, পরিবহন ও সংযোগ, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি, প্রতিরক্ষা ও নিরাপত্তা, সামুদ্রিক বিষয়, জলবায়ু পরিবর্তন এবং টেকসই উন্নয়নসহ সব ক্ষেত্রেই দুই দেশের সহযোগিতা বিস্তৃত।
উভয় দেশেরই কেবল একটি দৃঢ় দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কই নয় বরং সার্ক (সাউথ এশিয়ান অ্যাসোসিয়েশন ফর রিজিওনাল কো-অপারেশন), বিমসটেক (বে অফ বেঙ্গল মাল্টি-সেক্টরাল টেকনিক্যাল অ্যান্ড ইকোনমিক কোঅপারেশন) এবং আইওআরআরসি (ভারত মহাসাগর) এর মতো বহুপাক্ষিক ফোরামের মাধ্যমে আঞ্চলিক সহযোগিতা প্রক্রিয়ায় নিযুক্ত রয়েছে। রিম অ্যাসোসিয়েশন ফর রিজিওনাল কোঅপারেশন), অন্যদের মধ্যে। এই ফোরামগুলিতে, উভয় দেশ এই অঞ্চলে আঞ্চলিক নিরাপত্তা, সংযোগ এবং অবকাঠামো উন্নয়নের মতো বিষয়গুলির সাথে সম্পর্কিত একটি অভিন্ন দৃষ্টিভঙ্গি ভাগ করে নেয়।
তবে এদিনের বৈঠকে মন্ত্রী চন্দ্রশেখর ফ্রান্সের ডিজিটাল বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের রাষ্ট্রদূত হেনরি ভার্ডিয়ারের সাথেও দ্বিপাক্ষিক বৈঠক করেন। এছাড়াও বৈঠক করেন তুর্কির শিল্প ও প্রযুক্তি মন্ত্রী মেহমেত ফাতিহ কাসির, দক্ষিণ কোরিয়ার বিজ্ঞান ও আইসিটি মন্ত্রকের উপমন্ত্রী ডাঃ জিন-বে হং-এর সাথেও।