ঢাকা ০৮:৪৭ অপরাহ্ন, বুধবার, ১২ জুন ২০২৪, ২৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম :




তীব্র গরমেও লিফটে নেই ফ্যান,ভোগান্তিতে শিক্ষার্থীরা

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৭:০৮:৩৪ অপরাহ্ন, বুধবার, ৭ জুন ২০২৩ ১৭৬ বার পড়া হয়েছে

তীব্র গরমেও লিফটে নেই ফ্যান,ভোগান্তিতে শিক্ষার্থীরা

তীব্র গরমে লিফটে ফ্যান চান জবি শিক্ষার্থীরা

জবি প্রতিনিধি:
চলছে তীব্র দাবদাহ৷ এর মধ্যেই চলছে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক ও দাপ্তরিক কার্যক্রম। তবে তীব্র এই গরমে বিশ্ববিদ্যালয়ের নতুন একাডেমিক ভবনের ৩ নং লিফটে ফ্যান না থাকায় বিপাকে পড়েছেন শিক্ষার্থীরা৷ অতি দ্রুত ফ্যান লাগানোর দাবি তাদের।

জানা যায়, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৪তলাবিশিষ্ট নতুন একাডেমিক ভবনে প্রায় ১৫টি বিভাগ, গুরুত্বপূর্ণ দপ্তর ও অন্য ভবনের বিভাগের ক্লাসরুম রয়েছে৷ প্রতিদিন এই ভবনে কয়েক হাজার শিক্ষার্থীর পাশাপাশি শিক্ষক,কর্মকর্তা ও কর্মচারীদেরও যাতায়াত রয়েছে৷ কয়েক হাজার শিক্ষার্থীর বিপরীতে মাত্র তিনটি লিফটি এবং শিক্ষকদের জন্য দুইটি লিফট সচল রয়েছে৷ প্রতিদিন সকাল সাড়ে ৮টা থেকেই লিফটের সামনে দীর্ঘ সারি সৃষ্টি হয় শিক্ষার্থীদের৷ এই গরমে সেই দীর্ঘ সারিই যেন নতুন করে বিড়ম্বনার নাম শিক্ষার্থীদের কাছে৷ লিফটগুলোতে প্রতিবারে ১৫জন শিক্ষার্থী উঠতে পারেন। তবে এই গরমে দীর্ঘ সময় লাইনে দাঁড়িয়েও লিফটে উঠে শান্তি মিলছেনা তাদের৷ লিফটে ফ্যান লাগানো না থাকায় উঠা-নামার সময়টুকুতে ঘেমেই একাকার হয়ে যাচ্ছে শিক্ষার্থীরা। অতি দ্রুত লিফটে ফ্যান লাগানো এবং সেগুলো নিয়মিত তদারকির দাবি জানান শিক্ষার্থীরা।

বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী অঙ্কুর মন্ডল বলেন, বাইরের তীব্র রোদ-গরম। এই গরমে একটু হাঁটলেই শরীর ঘেমে যায়। পরীক্ষা দিতে এসে দেখি লিফটের সামনে অনেক লম্বা সিরিয়াল। অপেক্ষার পর লিফটে উঠার সুযোগ পাই। লিফটে উঠে যেন আরও বেশি ঘেমেছি। কোন ফ্যান নেই লিফটে৷ উদ্ভূত পরিস্থিতিতে লিফটে ফ্যান লাগানো জরুরি।

লিফট দিয়ে ১২তলা থেকে নামা অপর একজন শিক্ষার্থী বলেন, এই গরমে চলাফেরাই কষ্টকর হয়ে গেছে৷ আমরা প্রতিদিন লিফট দিয়ে উঠি বিভাগে কিন্তু ফ্যান নেই লিফটে৷ এটাতে বর্তমান পরিস্থিতিতে আরও ভোগান্তি সৃষ্টি হয়েছে।

এ বিষয়ে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান প্রকৌশলী মো. হেলাল উদ্দিন পাটোয়ারী বলেন, লিফটে ফ্যান নেই এটা আমি অবগত ছিলাম না। দ্রুতই ফ্যান লাগানোর ব্যবস্থা করা হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :




তীব্র গরমেও লিফটে নেই ফ্যান,ভোগান্তিতে শিক্ষার্থীরা

আপডেট সময় : ০৭:০৮:৩৪ অপরাহ্ন, বুধবার, ৭ জুন ২০২৩

তীব্র গরমেও লিফটে নেই ফ্যান,ভোগান্তিতে শিক্ষার্থীরা

তীব্র গরমে লিফটে ফ্যান চান জবি শিক্ষার্থীরা

জবি প্রতিনিধি:
চলছে তীব্র দাবদাহ৷ এর মধ্যেই চলছে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক ও দাপ্তরিক কার্যক্রম। তবে তীব্র এই গরমে বিশ্ববিদ্যালয়ের নতুন একাডেমিক ভবনের ৩ নং লিফটে ফ্যান না থাকায় বিপাকে পড়েছেন শিক্ষার্থীরা৷ অতি দ্রুত ফ্যান লাগানোর দাবি তাদের।

জানা যায়, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৪তলাবিশিষ্ট নতুন একাডেমিক ভবনে প্রায় ১৫টি বিভাগ, গুরুত্বপূর্ণ দপ্তর ও অন্য ভবনের বিভাগের ক্লাসরুম রয়েছে৷ প্রতিদিন এই ভবনে কয়েক হাজার শিক্ষার্থীর পাশাপাশি শিক্ষক,কর্মকর্তা ও কর্মচারীদেরও যাতায়াত রয়েছে৷ কয়েক হাজার শিক্ষার্থীর বিপরীতে মাত্র তিনটি লিফটি এবং শিক্ষকদের জন্য দুইটি লিফট সচল রয়েছে৷ প্রতিদিন সকাল সাড়ে ৮টা থেকেই লিফটের সামনে দীর্ঘ সারি সৃষ্টি হয় শিক্ষার্থীদের৷ এই গরমে সেই দীর্ঘ সারিই যেন নতুন করে বিড়ম্বনার নাম শিক্ষার্থীদের কাছে৷ লিফটগুলোতে প্রতিবারে ১৫জন শিক্ষার্থী উঠতে পারেন। তবে এই গরমে দীর্ঘ সময় লাইনে দাঁড়িয়েও লিফটে উঠে শান্তি মিলছেনা তাদের৷ লিফটে ফ্যান লাগানো না থাকায় উঠা-নামার সময়টুকুতে ঘেমেই একাকার হয়ে যাচ্ছে শিক্ষার্থীরা। অতি দ্রুত লিফটে ফ্যান লাগানো এবং সেগুলো নিয়মিত তদারকির দাবি জানান শিক্ষার্থীরা।

বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী অঙ্কুর মন্ডল বলেন, বাইরের তীব্র রোদ-গরম। এই গরমে একটু হাঁটলেই শরীর ঘেমে যায়। পরীক্ষা দিতে এসে দেখি লিফটের সামনে অনেক লম্বা সিরিয়াল। অপেক্ষার পর লিফটে উঠার সুযোগ পাই। লিফটে উঠে যেন আরও বেশি ঘেমেছি। কোন ফ্যান নেই লিফটে৷ উদ্ভূত পরিস্থিতিতে লিফটে ফ্যান লাগানো জরুরি।

লিফট দিয়ে ১২তলা থেকে নামা অপর একজন শিক্ষার্থী বলেন, এই গরমে চলাফেরাই কষ্টকর হয়ে গেছে৷ আমরা প্রতিদিন লিফট দিয়ে উঠি বিভাগে কিন্তু ফ্যান নেই লিফটে৷ এটাতে বর্তমান পরিস্থিতিতে আরও ভোগান্তি সৃষ্টি হয়েছে।

এ বিষয়ে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান প্রকৌশলী মো. হেলাল উদ্দিন পাটোয়ারী বলেন, লিফটে ফ্যান নেই এটা আমি অবগত ছিলাম না। দ্রুতই ফ্যান লাগানোর ব্যবস্থা করা হবে।