ঢাকা ০৪:১১ অপরাহ্ন, রবিবার, ০৩ মার্চ ২০২৪, ২০ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম :
Logo ১৭ মার্চ ও ২৬ মার্চের আহ্বায়কসহ তিনজনকে প্রত্যাহারের আহ্বান কুবি শিক্ষক সমিতির Logo সিলেটে সাইবার ট্রাইব্যুনালে ছাত্রদল ও ছাত্রশিবির সদস্যের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের Logo ড. ইউনূসের মামলা পর্যবেক্ষণ করছে জাতিসংঘ Logo কাভার্ডভ্যান ও অটোরিকশার সংঘর্ষে ছাত্র নিহত, আহত ৩ Logo রাজশাহীতে যুবলীগ কর্মীকে কুপিয়ে হত্যার ঘটনায় গ্রেপ্তার ৫ Logo এবার ঢাবি অধ্যাপক নাদিরের বিরুদ্ধে যৌন নিপীড়নের অভিযোগ  Logo সন্দ্বীপ থানার ওসির পিপিএম পদক লাভ Logo মালয়েশিয়ায় ১৩৪ বাংলাদেশি গ্রেফতার Logo শাবির ছাত্রীহলে ফিঙ্গারপ্রিন্ট স্থাপন, কমবে চুরি ও বহিরাগত প্রবেশ, বাড়বে নিরাপত্তা Logo গণতন্ত্র মঞ্চের কর্মসূচিতে হামলার নিন্দা ১২ দলীয় জোটের




শরীয়তপুর জেলা মৎস্যজীবী লীগের আহ্বায়ক স্বপনের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির অভিযোগ

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০১:৩২:১৩ অপরাহ্ন, শনিবার, ২ এপ্রিল ২০২২ ১৩৫ বার পড়া হয়েছে

শরীয়তপুর প্রতিনিধি: শরীয়তপুর জেলা আওয়ামী মৎস্যজীবী লীগের আহ্বায়ক এসএম শফিকুল ইসলাম স্বপনের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির অভিযোগ উঠেছে। জাজিরা থানায় কলেজ অধ্যক্ষ মো. দেলোয়ার হোসেনের অভিযোগ দাখিল।

জানাযায়, শরীয়তপুর জেলার জাজিরা উপজেলার ডা. মোসলেম উদ্দিন খান ডিগ্রি কলেজে সাংবাদিক পরিচয়ে জেলা মৎস্যজীবী লীগের আহ্বায়ক শফিকুল ইসলাম স্বপন ও সদস্য মো. বারেক ভূঁইয়া অধ্যক্ষের রুমে প্রবেশ করে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কথা বলেন। এক পর্যায়ে অধ্যক্ষ দেলোয়ার হোসেনের নিকট ১০ হাজার টাকা চাঁদা দাবী করলে স্থানীয় জনরোষে পড়েন তারা। এ ঘটনায় ২২ মার্চ মঙ্গলবার কলেজ অধ্যক্ষ বাদী হয়ে জাজিরা থানায় শফিকুল ইসলাম স্বপন ও মো. বারেক ভূঁইয়াকে আসামী করে অভিযোগ দায়ের করেন।
অভিযোগপত্রে উল্লেখ করেন, ২২ মার্চ মঙ্গলবার আমি আমার অফিসে কাজ করতে ছিলাম। আমার কলেজে অভ্যন্তরীন পরীক্ষা চলছিলো। এমতাবস্থায় বিধি-বিধান লঙ্ঘন করে আমার অনুমতি না নিয়ে দুইজন ১। শফিকুল ইসলাম স্বপন ও ২। বারেক ভূঁইয়া সাংবাদিক দাবী করে অসৎ উদ্দেশ্যে, বে-আইনীভাবে একাডেমীক ভবনে প্রবেশ করে অধ্যক্ষ দেলোয়ার হোসেনকে বিভিন্ন বিভ্রান্তিমূলক প্রশ্ন করেন। চাঁদা দিতে অস্বীকার করলে দেখে নেওয়ারও হুমকি দেন তারা।
এ ব্যাপারে মামলার বাদী ডা. মোসলেম উদ্দিন খান ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ মো. দেলোয়ার হোসেন বলেন, আমি থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছি। পুলিশ বলেছেন আমরা তদন্ত করে অবশ্যই ব্যবস্থা গ্রহণ করবো। আমি সেই অপেক্ষায় আছি।
স্থানীয় কয়েকজন বলেন, সাংবাদিক দুইজন গণধোলাই খাওয়ার পরিস্থিতি হলে তারা নিজেদের শরীয়তপুর জেলা আওয়ামী মৎস্যজীবী লীগের নেতা পরিচয় দিলে আমরা তাদের ছেড়ে দেই। পরবর্তীতে প্রিন্সিপাল স্যার থানায় মামলা করেছে তাদের বিরুদ্ধে। এখন যা হওয়ার আইনেই হবে।
খোঁজ নিয়ে জানাগেছে, বারেক ভূঁইয়া শরীয়তপুরের সাবেক জামাত নেতা ছিলেন।


এ বিষয়ে জানতে জাজিরা থানার অফিসার ইনচার্জকে কল দিয়ে তাকে পাওয়া যায়নি।
বিষয়টি তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেওয়া জরুরী বলে মনে করেন এলাকাবাসি।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :




শরীয়তপুর জেলা মৎস্যজীবী লীগের আহ্বায়ক স্বপনের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির অভিযোগ

আপডেট সময় : ০১:৩২:১৩ অপরাহ্ন, শনিবার, ২ এপ্রিল ২০২২

শরীয়তপুর প্রতিনিধি: শরীয়তপুর জেলা আওয়ামী মৎস্যজীবী লীগের আহ্বায়ক এসএম শফিকুল ইসলাম স্বপনের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির অভিযোগ উঠেছে। জাজিরা থানায় কলেজ অধ্যক্ষ মো. দেলোয়ার হোসেনের অভিযোগ দাখিল।

জানাযায়, শরীয়তপুর জেলার জাজিরা উপজেলার ডা. মোসলেম উদ্দিন খান ডিগ্রি কলেজে সাংবাদিক পরিচয়ে জেলা মৎস্যজীবী লীগের আহ্বায়ক শফিকুল ইসলাম স্বপন ও সদস্য মো. বারেক ভূঁইয়া অধ্যক্ষের রুমে প্রবেশ করে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কথা বলেন। এক পর্যায়ে অধ্যক্ষ দেলোয়ার হোসেনের নিকট ১০ হাজার টাকা চাঁদা দাবী করলে স্থানীয় জনরোষে পড়েন তারা। এ ঘটনায় ২২ মার্চ মঙ্গলবার কলেজ অধ্যক্ষ বাদী হয়ে জাজিরা থানায় শফিকুল ইসলাম স্বপন ও মো. বারেক ভূঁইয়াকে আসামী করে অভিযোগ দায়ের করেন।
অভিযোগপত্রে উল্লেখ করেন, ২২ মার্চ মঙ্গলবার আমি আমার অফিসে কাজ করতে ছিলাম। আমার কলেজে অভ্যন্তরীন পরীক্ষা চলছিলো। এমতাবস্থায় বিধি-বিধান লঙ্ঘন করে আমার অনুমতি না নিয়ে দুইজন ১। শফিকুল ইসলাম স্বপন ও ২। বারেক ভূঁইয়া সাংবাদিক দাবী করে অসৎ উদ্দেশ্যে, বে-আইনীভাবে একাডেমীক ভবনে প্রবেশ করে অধ্যক্ষ দেলোয়ার হোসেনকে বিভিন্ন বিভ্রান্তিমূলক প্রশ্ন করেন। চাঁদা দিতে অস্বীকার করলে দেখে নেওয়ারও হুমকি দেন তারা।
এ ব্যাপারে মামলার বাদী ডা. মোসলেম উদ্দিন খান ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ মো. দেলোয়ার হোসেন বলেন, আমি থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছি। পুলিশ বলেছেন আমরা তদন্ত করে অবশ্যই ব্যবস্থা গ্রহণ করবো। আমি সেই অপেক্ষায় আছি।
স্থানীয় কয়েকজন বলেন, সাংবাদিক দুইজন গণধোলাই খাওয়ার পরিস্থিতি হলে তারা নিজেদের শরীয়তপুর জেলা আওয়ামী মৎস্যজীবী লীগের নেতা পরিচয় দিলে আমরা তাদের ছেড়ে দেই। পরবর্তীতে প্রিন্সিপাল স্যার থানায় মামলা করেছে তাদের বিরুদ্ধে। এখন যা হওয়ার আইনেই হবে।
খোঁজ নিয়ে জানাগেছে, বারেক ভূঁইয়া শরীয়তপুরের সাবেক জামাত নেতা ছিলেন।


এ বিষয়ে জানতে জাজিরা থানার অফিসার ইনচার্জকে কল দিয়ে তাকে পাওয়া যায়নি।
বিষয়টি তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেওয়া জরুরী বলে মনে করেন এলাকাবাসি।