ঢাকা ০৪:০৬ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ৩০ চৈত্র ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম :
Logo সাস্টিয়ান ব্রাহ্মণবাড়িয়া এর ইফতার মাহফিল সম্পন্ন Logo কুবির চট্টগ্রাম স্টুডেন্টস ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশনের ইফতার ও পূর্নমিলনী Logo অধ্যাপক জহীর উদ্দিন আহমেদের মায়ের মৃত্যুতে শাবির মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও মুক্ত চিন্তা চর্চায় ঐক্যবদ্ধ শিক্ষকবৃন্দ পরিষদের শোক প্রকাশ Logo শাবির অধ্যাপক জহীর উদ্দিনের মায়ের মৃত্যুতে উপাচার্যের শোক প্রকাশ Logo বিশ কোটিতে গণপূর্তের প্রধান হওয়ার মিশনে ‘ছাত্রদল ক্যাডার প্রকৌশলী’! Logo দূর্নীতির রাক্ষস ফায়ার সার্ভিসের এডি আনোয়ার! Logo ঝড় ও শিলাবৃষ্টিতে ক্ষতি হওয়া শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়ে অবকাঠামোর সংস্কার শুরু Logo বুয়েটে নিয়মতান্ত্রিক ছাত্র রাজনীতির দাবিতে শাবিপ্রবি ছাত্রলীগের মানববন্ধন Logo কুবি উপাচার্যের বক্তব্যের প্রমাণ দিতে শিক্ষক সমিতির সাত দিনের আল্টিমেটাম Logo কুবি বাংলা বিভাগের অ্যালামনাইদের ইফতার ও দোয়া মাহফিল




যৌতুক না দেয়ায় স্ত্রীর চুল-ভ্রু কেটে মুখ পুড়িয়ে দিলেন স্বামী

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ১১:২২:৪৪ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৯ জানুয়ারী ২০২১ ৬৭ বার পড়া হয়েছে

জেলা প্রতিনিধি;

শ্বশুর যৌতুক না দেয়ায় স্ত্রীকে অচেতন করে চুল কেটে মুখ পুড়িয়ে দিয়েছেন স্বামী আরিফ হোসেন। এ অভিযোগ করেছেন আরিফের নববধূ মিতু খাতুন (১৮)।

গত ২৫ জানুয়ারি পাবনার ঈশ্বরদী উপজেলার পৌর সদরের বাবুপাড়ায় এ ঘটনা ঘটে। বৃহস্পতিবার (২৮ জানুয়ারি) মিতুর বাবা থানায় মামলা দায়ের করেন। এ ঘটনায় আরিফকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

মিতু খাতুন ঈশ্বরদী উপজেলার সাঁড়া ইউনিয়নের আরমবাড়িয়া এলাকার মজিবর রহমানের মেয়ে। অভিযুক্ত স্বামী আরিফ একই উপজেলার পৌর সদরের বাবুপাড়া এলাকার আব্দুল লতিফের ছেলে।

থানায় দায়ের করা অভিযোগের বরাত দিয়ে ঈশ্বরদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি-তদন্ত) অরবিন্দ সরকার জানান, প্রায় দুমাস আগে মিতুর সঙ্গে আরিফের পারিবারিকভাবে বিয়ে হয়। বিয়ের কিছুদিন পরই আরিফ শ্বশুরবাড়ি থেকে এক লাখ যৌতুক এনে দেয়ার জন্য স্ত্রী মিতুর ওপর চাপ দিতে থাকেন। সম্প্রতি বলেন, তার ছোট ভাইকে বিদেশে পাঠানোর জন্য ছয় লাখ টাকা জরুরি ভিত্তিতে দিতে হবে। এতে আরিফের শ্বশুর মজিবর রহমান অপরাগতা প্রকাশ করলে তার মেয়ের ওপর নেমে আসে নির্যাতন।

আহত মিতু খাতুন জানান, ঘটনার দিন (২৫ জানুয়ারি) দুপুরে স্বামী আরিফ তাকে পানির সঙ্গে কৌশলে ঘুমের ওষুধ মিশিয়ে তা পান করান। এতে তিনি ঘুমিয়ে পড়লে প্রথমে তার মাথার চুল ও ভ্রু কেটে দেন আরিফ। এমনকি মুখে বিষাক্ত তরলও স্প্রে করেন। পরে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। খবর পেয়ে মিতুর বাবা-মাসহ স্বজনরা এসে উন্নত চিকিৎসার জন্য চিকিৎসকের পরামর্শে তাকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যান। সেখানে তিন দিন চিকিৎসা শেষে বৃহস্পতিবার বিকেলে বাড়িতে নিয়ে আসা হয় মিতুকে।

মিতুর বাবা মজিবর রহমান জানান, যৌতুকের জন্য তার মেয়েকে হত্যার উদ্দেশ্যে এমন নির্যাতন করা হবে তা তিনি কল্পনাও করতে পারেননি। তিনি বলেন, থানায় অভিযোগ দিয়েছি। পুলিশ খোঁজখবর নিচ্ছে। অভিযুক্ত জামাই আরিফ হোসেনের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন মজিবর রহমান।

ওসি (তদন্ত) অরবিন্দ সরকার জানান, মিতুর মুখে অ্যাসিড নিক্ষেপ করা হয়েছে কি-না, তা তারা নিশ্চিত নন। তবে কী ধরনের তরল পদার্থ দেয়া হয়েছে, তা চিকিৎসকরা ক্লিনিক্যালি পরীক্ষা করে ভালো বলতে পারবেন। তিনি আরও জানান, মিতুর মুখের চামড়া পুড়ে উঠে গেছে।

পাবনার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ঈশ্বরদী সার্কেল) ফিরোজ কবীর জানান, ঘটনার চপার দিন পর বৃহস্পতিবার বিকেলে ঈশ্বরদী থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন মিতুর বাবা। অভিযোগটি গুরুত্বের সঙ্গে নিয়ে প্রাথমিক তদন্তে সত্যতা পাওয়ায় মামলা হিসেবে গ্রহণ করা হয়।

তিনি আরও জানান, অভিযুক্ত স্বামী আরিফকে শুক্রবার (২৯ জানুয়ারি) গ্রেফতার করা হয়। তাকে পাবনা কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :




যৌতুক না দেয়ায় স্ত্রীর চুল-ভ্রু কেটে মুখ পুড়িয়ে দিলেন স্বামী

আপডেট সময় : ১১:২২:৪৪ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৯ জানুয়ারী ২০২১

জেলা প্রতিনিধি;

শ্বশুর যৌতুক না দেয়ায় স্ত্রীকে অচেতন করে চুল কেটে মুখ পুড়িয়ে দিয়েছেন স্বামী আরিফ হোসেন। এ অভিযোগ করেছেন আরিফের নববধূ মিতু খাতুন (১৮)।

গত ২৫ জানুয়ারি পাবনার ঈশ্বরদী উপজেলার পৌর সদরের বাবুপাড়ায় এ ঘটনা ঘটে। বৃহস্পতিবার (২৮ জানুয়ারি) মিতুর বাবা থানায় মামলা দায়ের করেন। এ ঘটনায় আরিফকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

মিতু খাতুন ঈশ্বরদী উপজেলার সাঁড়া ইউনিয়নের আরমবাড়িয়া এলাকার মজিবর রহমানের মেয়ে। অভিযুক্ত স্বামী আরিফ একই উপজেলার পৌর সদরের বাবুপাড়া এলাকার আব্দুল লতিফের ছেলে।

থানায় দায়ের করা অভিযোগের বরাত দিয়ে ঈশ্বরদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি-তদন্ত) অরবিন্দ সরকার জানান, প্রায় দুমাস আগে মিতুর সঙ্গে আরিফের পারিবারিকভাবে বিয়ে হয়। বিয়ের কিছুদিন পরই আরিফ শ্বশুরবাড়ি থেকে এক লাখ যৌতুক এনে দেয়ার জন্য স্ত্রী মিতুর ওপর চাপ দিতে থাকেন। সম্প্রতি বলেন, তার ছোট ভাইকে বিদেশে পাঠানোর জন্য ছয় লাখ টাকা জরুরি ভিত্তিতে দিতে হবে। এতে আরিফের শ্বশুর মজিবর রহমান অপরাগতা প্রকাশ করলে তার মেয়ের ওপর নেমে আসে নির্যাতন।

আহত মিতু খাতুন জানান, ঘটনার দিন (২৫ জানুয়ারি) দুপুরে স্বামী আরিফ তাকে পানির সঙ্গে কৌশলে ঘুমের ওষুধ মিশিয়ে তা পান করান। এতে তিনি ঘুমিয়ে পড়লে প্রথমে তার মাথার চুল ও ভ্রু কেটে দেন আরিফ। এমনকি মুখে বিষাক্ত তরলও স্প্রে করেন। পরে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। খবর পেয়ে মিতুর বাবা-মাসহ স্বজনরা এসে উন্নত চিকিৎসার জন্য চিকিৎসকের পরামর্শে তাকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যান। সেখানে তিন দিন চিকিৎসা শেষে বৃহস্পতিবার বিকেলে বাড়িতে নিয়ে আসা হয় মিতুকে।

মিতুর বাবা মজিবর রহমান জানান, যৌতুকের জন্য তার মেয়েকে হত্যার উদ্দেশ্যে এমন নির্যাতন করা হবে তা তিনি কল্পনাও করতে পারেননি। তিনি বলেন, থানায় অভিযোগ দিয়েছি। পুলিশ খোঁজখবর নিচ্ছে। অভিযুক্ত জামাই আরিফ হোসেনের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন মজিবর রহমান।

ওসি (তদন্ত) অরবিন্দ সরকার জানান, মিতুর মুখে অ্যাসিড নিক্ষেপ করা হয়েছে কি-না, তা তারা নিশ্চিত নন। তবে কী ধরনের তরল পদার্থ দেয়া হয়েছে, তা চিকিৎসকরা ক্লিনিক্যালি পরীক্ষা করে ভালো বলতে পারবেন। তিনি আরও জানান, মিতুর মুখের চামড়া পুড়ে উঠে গেছে।

পাবনার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ঈশ্বরদী সার্কেল) ফিরোজ কবীর জানান, ঘটনার চপার দিন পর বৃহস্পতিবার বিকেলে ঈশ্বরদী থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন মিতুর বাবা। অভিযোগটি গুরুত্বের সঙ্গে নিয়ে প্রাথমিক তদন্তে সত্যতা পাওয়ায় মামলা হিসেবে গ্রহণ করা হয়।

তিনি আরও জানান, অভিযুক্ত স্বামী আরিফকে শুক্রবার (২৯ জানুয়ারি) গ্রেফতার করা হয়। তাকে পাবনা কারাগারে পাঠানো হয়েছে।