ঢাকা ০৮:১৯ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১২ এপ্রিল ২০২৪, ২৯ চৈত্র ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম :
Logo সাস্টিয়ান ব্রাহ্মণবাড়িয়া এর ইফতার মাহফিল সম্পন্ন Logo কুবির চট্টগ্রাম স্টুডেন্টস ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশনের ইফতার ও পূর্নমিলনী Logo অধ্যাপক জহীর উদ্দিন আহমেদের মায়ের মৃত্যুতে শাবির মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও মুক্ত চিন্তা চর্চায় ঐক্যবদ্ধ শিক্ষকবৃন্দ পরিষদের শোক প্রকাশ Logo শাবির অধ্যাপক জহীর উদ্দিনের মায়ের মৃত্যুতে উপাচার্যের শোক প্রকাশ Logo বিশ কোটিতে গণপূর্তের প্রধান হওয়ার মিশনে ‘ছাত্রদল ক্যাডার প্রকৌশলী’! Logo দূর্নীতির রাক্ষস ফায়ার সার্ভিসের এডি আনোয়ার! Logo ঝড় ও শিলাবৃষ্টিতে ক্ষতি হওয়া শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়ে অবকাঠামোর সংস্কার শুরু Logo বুয়েটে নিয়মতান্ত্রিক ছাত্র রাজনীতির দাবিতে শাবিপ্রবি ছাত্রলীগের মানববন্ধন Logo কুবি উপাচার্যের বক্তব্যের প্রমাণ দিতে শিক্ষক সমিতির সাত দিনের আল্টিমেটাম Logo কুবি বাংলা বিভাগের অ্যালামনাইদের ইফতার ও দোয়া মাহফিল




গৃহবধূর শ্লীলতাহানি : থানায় ঢুকে অভিযুক্তকে মারধর

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৯:৪৭:৫৩ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১২ জানুয়ারী ২০২১ ৮৯ বার পড়া হয়েছে

নিজস্ব প্রতিবেদক; বরিশালের উজিরপুর থানায় পুলিশের হেফাজতে থাকা যুবককে মারধর করেছে শ্লীলতাহানির শিকার এক গৃহবধূর স্বজনরা। এ সময় তাদের বাঁধা দিতে গেলে দুই উপরিদশর্ক (এসআই) ও এক সহকারী উপপরিদর্শক মারধরের শিকার হয়েছেন। এ ঘটনায় ৪ জনকে আটক করেছে পুলিশ।

সোমবার (১১ জানুয়ারি) বিকেলে এ ঘটনা ঘটে। আহত পুলিশ সদস্যরা হলেন- উজিরপুর থানার এসআই সুদেব ও এসআই মো. মাহাবুব এবং এএসআই মো. হাসান। তাদেরকে স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

স্থানীয়রা জানান, সোমবার দুপুরে ইচলাদী বাসস্ট্যান্ডে আজিজ ফকিরের মুদি দোকানে আলু কিনতে যান মুন্ডপাশা গ্রামের এক গৃহবধূ। আলুর দাম বেশি চাওয়ায় তার সঙ্গে মুদি দোকানি আজিজ ফকিরের ঝগড়া হয়। এ সময় তাকে ধাক্কা দিয়ে দোকানের সামনে থেকে তাড়িয়ে দেন আজিজ ফকির ও তার ছেলে নোমান ফকির অনিক। ওই গৃহবধূ চলে যাওয়ার সময় নোমান ফকির তাকে অশালীন ভাষায় গালমন্দ করেন। তার বাবার বাড়ি ও শ্বশুর বাড়ি একই গ্রামে। গ্রামে গিয়ে স্বজনদের এ ঘটনা জানান তিনি। এরপর ওউ গৃহবধূর দুই ভাই, স্বামী ও দুই প্রতিবেশীসহ ১২-১৫ জনের একটি দল আজিজ ফকিরের মুদি দোকানে হামলা চালায়। এ সময় অন্য ব্যবসায়ীরা পুলিশকে খবর দিলে নোমান ফকিরকে আটক করে থানায় নিয়ে যাওয়া হয়। পুলিশের পেছনে পেছনে ওই গৃহবধূর ভাই, স্বামী ও প্রতিবেশীসহ ৬-৭ জন থানায় যান। পরে তারা থানায় ঢুকে ফের অনিকের ওপর হামলা চালান। এ সময় এসআই সুদেব ও এসআই মো. মাহাবুব এবং এএসআই মো. হাসান বাধা দিতে গেলে তাদেরকেও মারধর করেন ওই গৃহবধূর স্বজনরা । পরে হামলাকারী ৪ জনকে ধরে থানা হাজতে আটকে রাখে পুলিশ।

উজিরপুর থানা পুলিশের ওসি জিয়াউল আহসান জানান, থানায় ঢুকে আসামিকে মারধরের ঘটনায় ৪ জনকে আটক করা হয়েছে। এছাড়া আরও কয়েকজনকে আসামি করে মামলার প্রক্রিয়া চলছে। অন্যদিকে ওই গৃহবধূকে টানাহেঁচড়া করে শ্লীলতাহানির অভিযোগে নোমান ফকির অনিকের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :




গৃহবধূর শ্লীলতাহানি : থানায় ঢুকে অভিযুক্তকে মারধর

আপডেট সময় : ০৯:৪৭:৫৩ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১২ জানুয়ারী ২০২১

নিজস্ব প্রতিবেদক; বরিশালের উজিরপুর থানায় পুলিশের হেফাজতে থাকা যুবককে মারধর করেছে শ্লীলতাহানির শিকার এক গৃহবধূর স্বজনরা। এ সময় তাদের বাঁধা দিতে গেলে দুই উপরিদশর্ক (এসআই) ও এক সহকারী উপপরিদর্শক মারধরের শিকার হয়েছেন। এ ঘটনায় ৪ জনকে আটক করেছে পুলিশ।

সোমবার (১১ জানুয়ারি) বিকেলে এ ঘটনা ঘটে। আহত পুলিশ সদস্যরা হলেন- উজিরপুর থানার এসআই সুদেব ও এসআই মো. মাহাবুব এবং এএসআই মো. হাসান। তাদেরকে স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

স্থানীয়রা জানান, সোমবার দুপুরে ইচলাদী বাসস্ট্যান্ডে আজিজ ফকিরের মুদি দোকানে আলু কিনতে যান মুন্ডপাশা গ্রামের এক গৃহবধূ। আলুর দাম বেশি চাওয়ায় তার সঙ্গে মুদি দোকানি আজিজ ফকিরের ঝগড়া হয়। এ সময় তাকে ধাক্কা দিয়ে দোকানের সামনে থেকে তাড়িয়ে দেন আজিজ ফকির ও তার ছেলে নোমান ফকির অনিক। ওই গৃহবধূ চলে যাওয়ার সময় নোমান ফকির তাকে অশালীন ভাষায় গালমন্দ করেন। তার বাবার বাড়ি ও শ্বশুর বাড়ি একই গ্রামে। গ্রামে গিয়ে স্বজনদের এ ঘটনা জানান তিনি। এরপর ওউ গৃহবধূর দুই ভাই, স্বামী ও দুই প্রতিবেশীসহ ১২-১৫ জনের একটি দল আজিজ ফকিরের মুদি দোকানে হামলা চালায়। এ সময় অন্য ব্যবসায়ীরা পুলিশকে খবর দিলে নোমান ফকিরকে আটক করে থানায় নিয়ে যাওয়া হয়। পুলিশের পেছনে পেছনে ওই গৃহবধূর ভাই, স্বামী ও প্রতিবেশীসহ ৬-৭ জন থানায় যান। পরে তারা থানায় ঢুকে ফের অনিকের ওপর হামলা চালান। এ সময় এসআই সুদেব ও এসআই মো. মাহাবুব এবং এএসআই মো. হাসান বাধা দিতে গেলে তাদেরকেও মারধর করেন ওই গৃহবধূর স্বজনরা । পরে হামলাকারী ৪ জনকে ধরে থানা হাজতে আটকে রাখে পুলিশ।

উজিরপুর থানা পুলিশের ওসি জিয়াউল আহসান জানান, থানায় ঢুকে আসামিকে মারধরের ঘটনায় ৪ জনকে আটক করা হয়েছে। এছাড়া আরও কয়েকজনকে আসামি করে মামলার প্রক্রিয়া চলছে। অন্যদিকে ওই গৃহবধূকে টানাহেঁচড়া করে শ্লীলতাহানির অভিযোগে নোমান ফকির অনিকের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে।