ঢাকা ০৮:২৯ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১২ এপ্রিল ২০২৪, ২৯ চৈত্র ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম :
Logo সাস্টিয়ান ব্রাহ্মণবাড়িয়া এর ইফতার মাহফিল সম্পন্ন Logo কুবির চট্টগ্রাম স্টুডেন্টস ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশনের ইফতার ও পূর্নমিলনী Logo অধ্যাপক জহীর উদ্দিন আহমেদের মায়ের মৃত্যুতে শাবির মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও মুক্ত চিন্তা চর্চায় ঐক্যবদ্ধ শিক্ষকবৃন্দ পরিষদের শোক প্রকাশ Logo শাবির অধ্যাপক জহীর উদ্দিনের মায়ের মৃত্যুতে উপাচার্যের শোক প্রকাশ Logo বিশ কোটিতে গণপূর্তের প্রধান হওয়ার মিশনে ‘ছাত্রদল ক্যাডার প্রকৌশলী’! Logo দূর্নীতির রাক্ষস ফায়ার সার্ভিসের এডি আনোয়ার! Logo ঝড় ও শিলাবৃষ্টিতে ক্ষতি হওয়া শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়ে অবকাঠামোর সংস্কার শুরু Logo বুয়েটে নিয়মতান্ত্রিক ছাত্র রাজনীতির দাবিতে শাবিপ্রবি ছাত্রলীগের মানববন্ধন Logo কুবি উপাচার্যের বক্তব্যের প্রমাণ দিতে শিক্ষক সমিতির সাত দিনের আল্টিমেটাম Logo কুবি বাংলা বিভাগের অ্যালামনাইদের ইফতার ও দোয়া মাহফিল




গাজীপুরে বনের সংবাদ সংগ্রহে বাধা সাংবাদিকদের প্রাণনাশের হুমকি

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৮:২৮:৪৯ অপরাহ্ন, বুধবার, ৬ জানুয়ারী ২০২১ ৭০ বার পড়া হয়েছে

গাজীপুর প্রতিনিধি:

বন বিভাগে দুর্নীতির অন্ত নেই। গণমাধ্যমে বরাবর-ই বনের দায়িত্বরতদের দুর্নীতির তথ্য উঠে আসলেও দুর্নীতি রোধে নেওয়া হচ্ছে না কোনও উদ্যোগ অথবা ব্যবস্থা। বরং সংবাদ প্রকাশের জেরে গণমাধ্যম কর্মীদের উপর চড়াও হয়ে মিথ্যা ঘটনা সাজিয়ে মামলা দিচ্ছে নিত্যদিন। এছাড়া প্রাণনাশের হুমকি তো আছে-ই।

বুধবার [৬ জানুয়ারি] বেলা সাড়ে টায়
জেলার হোতাপাড়া সংলগ্ন ফু-ওয়াং টাইলস মার্কেটের পূর্ব পাশে সংরক্ষিত বনভূমি দখলের তথ্য পেয়ে ঘটনাস্থলে যায় সংবাদকর্মীরা।

ওই সময় ভূমিদস্যু লোকমানের নেতৃত্বে দখলকারীরা মাটি ভরাটের কাজ চলাকালীন সময়ে আনন্দ টেলিভিশন, যুগান্তর, যায়যায়দিন, আমার সময়, যোগফল, বাংলাদেশ টুডে, স্বাধীন সংবাদ, মুক্ত বলাকা ও বাংলা ভূমি পত্রিকার সংবাদকর্মীদের দেখে তাদের উপর মারাত্মকভাবে ক্ষিপ্ত হয়।

ওই সময় লোকমান তার বাহীনি দিয়ে প্রকাশ্যে বনের জমি দখল করে নিলেও বন বিভাগের দায়িত্বরতরা ছিলো নিরব দর্শক! লোকমান ও তার সহযোগিরা সাংবাদিকদের শাসিয়ে বলেন, ‘যদি কোথাও কোনও সংবাদ প্রকাশ করা হয় তাহলে প্রাণে মেরে ফেলবো’। ওই সময় প্রকাশ্যে প্রাণনাশের হুমকিসহ মিথ্যা মামলা দেওয়ার হুমকিও দেয় তারা।

অনুসন্ধানে জানা যায়, মনিপুর মৌজার এসএ ২৬৪, আরএস ১০০, ১৭১৩ ও খতিয়ান ৫৭৯ দাগের বনের জমি দখলে নেওয়ার চেষ্টা চালায় তারা।

বন বিভাগের দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তাদের অবৈধ সুবিধা দিয়ে, স্থানীয় দালাল ও কতিপয় নামধারী সাংবাদিকদের সহায়তায় বিগত দিনেও দখল বানিজ্য করে আসছিলো এই ভূমিদস্যু লোকমান গয়রহরা।

এসব দখল বানিজ্য সরকারী বিট কর্মকর্তার ঈশারায় হয় বলে অনুসন্ধানে জানা যায়। কিছু সাংবাদিকরা এসব অবৈধ দখল প্রসঙ্গে সংবাদ প্রকাশ করলে তাদের নামে মামলা দিলেও দখলবাজদের নামে কোনও মামলা দিচ্ছে না
বন বিভাগ। বরাবরই সাধারণ নিরীহ মানুষের নামে মিথ্যা মামলা দিয়ে দায়মুক্ত হওয়ার চেষ্টা চালায় বন বিভাগ।

দখল হওয়া বনের জমির বিষয়ে অবগত করা হলে মনিপুর বিট কর্মকর্তা আউয়াল জানান, ‘ডিমারকেশন করে কাজ করছে’। সীমানা পিলারের (এফডি) বাহিরে যে সব জমি দখল করছে সেগুলো কি ডিমারকেশন করা লাগে কি-না ? এমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, ‘বিষয়টি দেখে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে’।

এ ব্যাপারে ঢাকা বন বিভাগের অধীন রাজেন্দ্রপুর রেঞ্জের অতিরিক্ত রেঞ্জ কর্মকর্তা আনিসুল হক জানিয়েছেন, বিষয়টি উপর মহল থেকে আমাকে জানানো হয়েছে, আমি ঘটনাস্থলে যাবো। পরবর্তীতে দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :




গাজীপুরে বনের সংবাদ সংগ্রহে বাধা সাংবাদিকদের প্রাণনাশের হুমকি

আপডেট সময় : ০৮:২৮:৪৯ অপরাহ্ন, বুধবার, ৬ জানুয়ারী ২০২১

গাজীপুর প্রতিনিধি:

বন বিভাগে দুর্নীতির অন্ত নেই। গণমাধ্যমে বরাবর-ই বনের দায়িত্বরতদের দুর্নীতির তথ্য উঠে আসলেও দুর্নীতি রোধে নেওয়া হচ্ছে না কোনও উদ্যোগ অথবা ব্যবস্থা। বরং সংবাদ প্রকাশের জেরে গণমাধ্যম কর্মীদের উপর চড়াও হয়ে মিথ্যা ঘটনা সাজিয়ে মামলা দিচ্ছে নিত্যদিন। এছাড়া প্রাণনাশের হুমকি তো আছে-ই।

বুধবার [৬ জানুয়ারি] বেলা সাড়ে টায়
জেলার হোতাপাড়া সংলগ্ন ফু-ওয়াং টাইলস মার্কেটের পূর্ব পাশে সংরক্ষিত বনভূমি দখলের তথ্য পেয়ে ঘটনাস্থলে যায় সংবাদকর্মীরা।

ওই সময় ভূমিদস্যু লোকমানের নেতৃত্বে দখলকারীরা মাটি ভরাটের কাজ চলাকালীন সময়ে আনন্দ টেলিভিশন, যুগান্তর, যায়যায়দিন, আমার সময়, যোগফল, বাংলাদেশ টুডে, স্বাধীন সংবাদ, মুক্ত বলাকা ও বাংলা ভূমি পত্রিকার সংবাদকর্মীদের দেখে তাদের উপর মারাত্মকভাবে ক্ষিপ্ত হয়।

ওই সময় লোকমান তার বাহীনি দিয়ে প্রকাশ্যে বনের জমি দখল করে নিলেও বন বিভাগের দায়িত্বরতরা ছিলো নিরব দর্শক! লোকমান ও তার সহযোগিরা সাংবাদিকদের শাসিয়ে বলেন, ‘যদি কোথাও কোনও সংবাদ প্রকাশ করা হয় তাহলে প্রাণে মেরে ফেলবো’। ওই সময় প্রকাশ্যে প্রাণনাশের হুমকিসহ মিথ্যা মামলা দেওয়ার হুমকিও দেয় তারা।

অনুসন্ধানে জানা যায়, মনিপুর মৌজার এসএ ২৬৪, আরএস ১০০, ১৭১৩ ও খতিয়ান ৫৭৯ দাগের বনের জমি দখলে নেওয়ার চেষ্টা চালায় তারা।

বন বিভাগের দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তাদের অবৈধ সুবিধা দিয়ে, স্থানীয় দালাল ও কতিপয় নামধারী সাংবাদিকদের সহায়তায় বিগত দিনেও দখল বানিজ্য করে আসছিলো এই ভূমিদস্যু লোকমান গয়রহরা।

এসব দখল বানিজ্য সরকারী বিট কর্মকর্তার ঈশারায় হয় বলে অনুসন্ধানে জানা যায়। কিছু সাংবাদিকরা এসব অবৈধ দখল প্রসঙ্গে সংবাদ প্রকাশ করলে তাদের নামে মামলা দিলেও দখলবাজদের নামে কোনও মামলা দিচ্ছে না
বন বিভাগ। বরাবরই সাধারণ নিরীহ মানুষের নামে মিথ্যা মামলা দিয়ে দায়মুক্ত হওয়ার চেষ্টা চালায় বন বিভাগ।

দখল হওয়া বনের জমির বিষয়ে অবগত করা হলে মনিপুর বিট কর্মকর্তা আউয়াল জানান, ‘ডিমারকেশন করে কাজ করছে’। সীমানা পিলারের (এফডি) বাহিরে যে সব জমি দখল করছে সেগুলো কি ডিমারকেশন করা লাগে কি-না ? এমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, ‘বিষয়টি দেখে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে’।

এ ব্যাপারে ঢাকা বন বিভাগের অধীন রাজেন্দ্রপুর রেঞ্জের অতিরিক্ত রেঞ্জ কর্মকর্তা আনিসুল হক জানিয়েছেন, বিষয়টি উপর মহল থেকে আমাকে জানানো হয়েছে, আমি ঘটনাস্থলে যাবো। পরবর্তীতে দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।