ঢাকা ০৪:৫৯ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ৩০ চৈত্র ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম :
Logo সাস্টিয়ান ব্রাহ্মণবাড়িয়া এর ইফতার মাহফিল সম্পন্ন Logo কুবির চট্টগ্রাম স্টুডেন্টস ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশনের ইফতার ও পূর্নমিলনী Logo অধ্যাপক জহীর উদ্দিন আহমেদের মায়ের মৃত্যুতে শাবির মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও মুক্ত চিন্তা চর্চায় ঐক্যবদ্ধ শিক্ষকবৃন্দ পরিষদের শোক প্রকাশ Logo শাবির অধ্যাপক জহীর উদ্দিনের মায়ের মৃত্যুতে উপাচার্যের শোক প্রকাশ Logo বিশ কোটিতে গণপূর্তের প্রধান হওয়ার মিশনে ‘ছাত্রদল ক্যাডার প্রকৌশলী’! Logo দূর্নীতির রাক্ষস ফায়ার সার্ভিসের এডি আনোয়ার! Logo ঝড় ও শিলাবৃষ্টিতে ক্ষতি হওয়া শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়ে অবকাঠামোর সংস্কার শুরু Logo বুয়েটে নিয়মতান্ত্রিক ছাত্র রাজনীতির দাবিতে শাবিপ্রবি ছাত্রলীগের মানববন্ধন Logo কুবি উপাচার্যের বক্তব্যের প্রমাণ দিতে শিক্ষক সমিতির সাত দিনের আল্টিমেটাম Logo কুবি বাংলা বিভাগের অ্যালামনাইদের ইফতার ও দোয়া মাহফিল




মানবতার পথে প্রতিদিন ১৮ কিলোমিটার বৈঠা বেয়ে ছোটেন এক নারী

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৫:৪১:৪৪ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৪ নভেম্বর ২০২০ ১০৭ বার পড়া হয়েছে

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ

চলমান করোনাভাইরাস মহামারিতে প্রতিদিন ১৮ কিলোমিটার নৌকা চালিয়ে প্রত্যন্ত অঞ্চলের আদিবাসী শিশু ও গর্ভবতী মায়েদের সেবা দিতে তাদের দ্বারপ্রান্তে ছুটে যান রেলু ভাসাভি। তিনি একজন সরকারি স্বাস্থ্যকর্মী। ভারতের মহারাষ্ট্রের নানদুরবার এলাকার এই নারী স্বাস্থ্যকর্মীর কর্তব্যপরায়ণতার গল্প অবাক করার মতো।

রেলু ভাসাভি মূলত মহারাষ্ট্রের নাসিক এলাকার বাসিন্দা। বেড়ে উঠেছেন নারমাদা নদীর তীরে। সেখানেই সাঁতার শেখা। চলতি বছরের এপ্রিল থেকে স্থানীয় দুটি ছোট গ্রামের গর্ভবতী মা ও ছয় বছরের কম বয়সী শিশুদের সেবা দিতে শুরু করেন তিনি। উদ্দেশ্য প্রত্যন্ত অঞ্চলের এসব মা ও শিশু যাতে কিছুতেই যথাযথ স্বাস্থ্যসেবা কিংবা পুষ্টিবঞ্চিত না হয়।

কাজের অংশ হিসেবে তিনি নিয়মিত ওই এলাকার মা ও শিশুদের স্বাস্থ্য, ওজন, বেড়ে ওঠা পর্যবেক্ষণ করে সে অনুযায়ী পরামর্শ দিয়ে থাকেন।

ভারতীয় বার্তা সংস্থা এএনআইকে তিনি বলেন, ‘প্রতিদিন নৌকা বেয়ে এত পথ পাড়ি দেয়া সহজ বিষয় নয়। প্রতিদিন সন্ধ্যায় ঘরে ফেরার পর আমার হাতে ব্যথা হয়। কিন্তু সেজন্য আমার চিন্তা নেই। তার চেয়েও গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো নবজাতক ও তাদের মায়েদের পুষ্টিকর খাবার ও সুস্বাস্থ্য নিশ্চিত করা। কোভিড-১৯ পরিস্থিতির উন্নতি না হওয়া পর্যন্ত আমি ওই ছোট ছোট গ্রামে সেবা দিয়ে যাব।’

চলমান এই মহামারিতে এমন মহৎ উদ্যোগ নিয়ে আদিবাসী সম্প্রদায়ের কাছ থেকে ভালোবাসা ও সুনাম অর্জন করেছেন তিনি।

ইতোমধ্যে রেলুর এই মহতী উদ্যোগের কথা পৌঁছে গেছে মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রীর কানে। মুখ্যমন্ত্রীর পক্ষ থেকে জেলা পরিষদ তার ভূয়সী প্রশংসা করেছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :




মানবতার পথে প্রতিদিন ১৮ কিলোমিটার বৈঠা বেয়ে ছোটেন এক নারী

আপডেট সময় : ০৫:৪১:৪৪ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৪ নভেম্বর ২০২০

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ

চলমান করোনাভাইরাস মহামারিতে প্রতিদিন ১৮ কিলোমিটার নৌকা চালিয়ে প্রত্যন্ত অঞ্চলের আদিবাসী শিশু ও গর্ভবতী মায়েদের সেবা দিতে তাদের দ্বারপ্রান্তে ছুটে যান রেলু ভাসাভি। তিনি একজন সরকারি স্বাস্থ্যকর্মী। ভারতের মহারাষ্ট্রের নানদুরবার এলাকার এই নারী স্বাস্থ্যকর্মীর কর্তব্যপরায়ণতার গল্প অবাক করার মতো।

রেলু ভাসাভি মূলত মহারাষ্ট্রের নাসিক এলাকার বাসিন্দা। বেড়ে উঠেছেন নারমাদা নদীর তীরে। সেখানেই সাঁতার শেখা। চলতি বছরের এপ্রিল থেকে স্থানীয় দুটি ছোট গ্রামের গর্ভবতী মা ও ছয় বছরের কম বয়সী শিশুদের সেবা দিতে শুরু করেন তিনি। উদ্দেশ্য প্রত্যন্ত অঞ্চলের এসব মা ও শিশু যাতে কিছুতেই যথাযথ স্বাস্থ্যসেবা কিংবা পুষ্টিবঞ্চিত না হয়।

কাজের অংশ হিসেবে তিনি নিয়মিত ওই এলাকার মা ও শিশুদের স্বাস্থ্য, ওজন, বেড়ে ওঠা পর্যবেক্ষণ করে সে অনুযায়ী পরামর্শ দিয়ে থাকেন।

ভারতীয় বার্তা সংস্থা এএনআইকে তিনি বলেন, ‘প্রতিদিন নৌকা বেয়ে এত পথ পাড়ি দেয়া সহজ বিষয় নয়। প্রতিদিন সন্ধ্যায় ঘরে ফেরার পর আমার হাতে ব্যথা হয়। কিন্তু সেজন্য আমার চিন্তা নেই। তার চেয়েও গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো নবজাতক ও তাদের মায়েদের পুষ্টিকর খাবার ও সুস্বাস্থ্য নিশ্চিত করা। কোভিড-১৯ পরিস্থিতির উন্নতি না হওয়া পর্যন্ত আমি ওই ছোট ছোট গ্রামে সেবা দিয়ে যাব।’

চলমান এই মহামারিতে এমন মহৎ উদ্যোগ নিয়ে আদিবাসী সম্প্রদায়ের কাছ থেকে ভালোবাসা ও সুনাম অর্জন করেছেন তিনি।

ইতোমধ্যে রেলুর এই মহতী উদ্যোগের কথা পৌঁছে গেছে মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রীর কানে। মুখ্যমন্ত্রীর পক্ষ থেকে জেলা পরিষদ তার ভূয়সী প্রশংসা করেছে।