ঢাকা ০৮:৪৩ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৩ জুন ২০২৪, ৯ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ




করোনায় আক্রান্ত সিলেটের সেই চিকিৎসক মারা গেছেন

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ১১:০৬:০৩ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১৫ এপ্রিল ২০২০ ৬৪ বার পড়া হয়েছে

অনলাইন রিপোর্ট |

সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মেডিসিন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা. মঈন উদ্দীন করোনায় (কোভিড-১৯) আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন। বুধবার (১৫ এপ্রিল) ভোরে রাজধানীর একটি হাসপাতালে তার মৃত্যু হয় (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। মৃত্যুকালে দুই শিশু সন্তান ও স্ত্রীকে রেখে গেছেন তিনি।
পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে কোভিড-১৯ আক্রান্ত হন ডা. মইন। গত ৫ এপ্রিল তার করোনা পজিটিভ আসে। অবস্থায় অবনতি ঘটলে ৭ এপ্রিল তাকে সিলেট নগরীর শহীদ শামসুদ্দিন হাসপাতালে করোনা ইউনিটে আইসোলেশনে রাখা হয়। সেখান থেকে পরবর্তীতে পরিবারের সিদ্বান্ত অনুযায়ী তাকে ঢাকায় স্থানান্তর করা হয়। সবশেষ ঢাকায় কুয়েত বাংলাদেশ মৈত্রী হাসপাতালে তিনি চিকিৎসাধীন ছিলেন।
করোনার বিষয়টি নিশ্চিত হওয়ার পর চিকিৎসকের পরিবারসহ নগরীর হাউজিং এস্টেট এলাকা লকডাউন ঘোষণা করা হয়।
তার মৃত্যুর খবরে সহকর্মী ও শুভান্যুধায়ীদের মধ্যে শোকের ছায়া নেমে আসে। তার অনেক সহকর্মী ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে শোক প্রকাশ করে তাকে করোনাযুদ্ধের শহীদ হিসেবে উল্লেখ করেছেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :




করোনায় আক্রান্ত সিলেটের সেই চিকিৎসক মারা গেছেন

আপডেট সময় : ১১:০৬:০৩ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১৫ এপ্রিল ২০২০

অনলাইন রিপোর্ট |

সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মেডিসিন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা. মঈন উদ্দীন করোনায় (কোভিড-১৯) আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন। বুধবার (১৫ এপ্রিল) ভোরে রাজধানীর একটি হাসপাতালে তার মৃত্যু হয় (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। মৃত্যুকালে দুই শিশু সন্তান ও স্ত্রীকে রেখে গেছেন তিনি।
পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে কোভিড-১৯ আক্রান্ত হন ডা. মইন। গত ৫ এপ্রিল তার করোনা পজিটিভ আসে। অবস্থায় অবনতি ঘটলে ৭ এপ্রিল তাকে সিলেট নগরীর শহীদ শামসুদ্দিন হাসপাতালে করোনা ইউনিটে আইসোলেশনে রাখা হয়। সেখান থেকে পরবর্তীতে পরিবারের সিদ্বান্ত অনুযায়ী তাকে ঢাকায় স্থানান্তর করা হয়। সবশেষ ঢাকায় কুয়েত বাংলাদেশ মৈত্রী হাসপাতালে তিনি চিকিৎসাধীন ছিলেন।
করোনার বিষয়টি নিশ্চিত হওয়ার পর চিকিৎসকের পরিবারসহ নগরীর হাউজিং এস্টেট এলাকা লকডাউন ঘোষণা করা হয়।
তার মৃত্যুর খবরে সহকর্মী ও শুভান্যুধায়ীদের মধ্যে শোকের ছায়া নেমে আসে। তার অনেক সহকর্মী ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে শোক প্রকাশ করে তাকে করোনাযুদ্ধের শহীদ হিসেবে উল্লেখ করেছেন।