ঢাকা ০৯:০২ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০২৪, ১ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম :
Logo নিরাপত্তার স্বার্থে শাবি শিক্ষার্থীদের আইডিকার্ড সাথে রাখার আহবান বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের Logo জনস্বাস্থ্যের প্রধান সাধুর যত অসাধু কর্ম: দুর্নীতি ও অর্থ পাচারের অভিযোগ! Logo বিআইডব্লিউটিএ বন্দর শাখা যুগ্ম পরিচালক আলমগীরের দুর্নীতি ও ঘুষ বাণিজ্য  Logo রাজশাহীতে এটিএন বাংলার সাংবাদিক সুজাউদ্দিন ছোটনকে হয়রানিমূলক মামলায় বএিমইউজরে নিন্দা ও প্রতিবাদ Logo শিক্ষার্থীদের তথ্য প্রযুক্তিতে দক্ষ হয়ে স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ায় অবদান রাখতে হবেঃ ড. তৌফিক রহমান চৌধুরী Logo ‘কানামাছি শিশুসাহিত্য পুরস্কার ২০২৪’ পেলেন লেখক Logo মধ্যরাতে শাবি ছাত্রলীগের ‘ তুমি কে, আমি কে- বাঙ্গালী, বাঙ্গালী’ শ্লোগানে উত্তাল ক্যাম্পাস Logo আম নিয়ে কষ্টগাঁথা Logo ঘুমান্ত বিবেক মাতাল আবেগ’ – আকাশমণি Logo পুলিশের হামলার পরও ৬ ঘন্টা ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক অবরোধে কুবি শিক্ষার্থীর




৫ হাজার টাকায় সদ্য ভূমিষ্ঠ সন্তানকে বিক্রি করে দিলেন মা

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ১১:০১:১৯ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০১৯ ৭০ বার পড়া হয়েছে

জেলা প্রতিনিধি পিরোজপুর; 
দরিদ্রতার নির্মম কষাঘাতে জর্জরিত এক মা তার সদ্য ভূমিষ্ঠ কন্যা শিশুকে মাত্র পাঁচ হাজার টাকায় বিক্রি করে দিয়েছেন। গতকাল সোমবার সকালে পিরোজপুর সদর হাসপাতালে নিজের নবজাতক কন্যা সন্তানকে টাকার বিনিময়ে অপরের কোলে তুলে দিয়ে বিদায় নেন মা সেলিনা বেগম।

হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, বাগেরহাট জেলার গর্ভাবস্থায় স্বামী পরিত্যক্তা ছয় সন্তানের জননী সেলিনা বেগম প্রসব বেদনা নিয়ে গতকাল রোববার পিরোজপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি হন। ওইদিন রাতে হাসপাতালে তিনি একটি কন্য সন্তান প্রসব করেন। এ সময় সেলিনা বেগমের সঙ্গে পরিচয় হয় হাসপাতালে তার পাশের বেডে চিকিৎসাধীন এক রোগীর পরিবারের। চরম দরিদ্রতার মধ্যে বাস করা সেলিনা বেগম তার ছয় কন্যা সন্তান নিয়ে অনাহারে অর্ধাহারে জীবন পার করার মধ্যে নবজাতক সন্তান নিয়ে তার সমস্যার কথা তুলে ধরেন ওই পরিবাবের কাছে। ওই পরিবারের এক মেয়ে নিঃসন্তান থাকায় তারা পাঁচ হাজার টাকার বিনিময় রেখে দেন সেলিনা বেগমের নবজাতক সন্তানকে। সন্তানকে তাদের কাছে দিয়ে টাকা নিয়ে হাসপাতাল থেকে চলে যান সেলিনা বেগম।

নবজাতক কিনে নেয়া পরিবারের সদস্যরা জানান, সেলিনা বেগমের অসহায় অবস্থার কথা শুনে নিঃসন্তান মেয়ের জন্য তারা বাচ্চাটি রেখে দেন।

পিরোজপুরের সিভিল সার্জন মো. ফারুক আলম জানান, হাসপাতালে বাচ্চা ফেলে গেছে এক মা- এমন খবর পেয়ে আমি পুলিশ ও সমাজসেবা কর্মকর্তাকে বিষয়টি অবহিত করি। বাচ্চাটিকে তাদের দায়িত্বে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

পিরোজপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোল্লা আজাদ হোসেন জানান, বাচ্চা বিক্রি হওয়ার অভিযোগ শুনে পুলিশ হাসপাতালে গিয়ে বাচ্চাটিকে হেফাজতে নেয়। পরবর্তীতে আদালতের মাধ্যমে বিষয়টি সুরাহা করা হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :




৫ হাজার টাকায় সদ্য ভূমিষ্ঠ সন্তানকে বিক্রি করে দিলেন মা

আপডেট সময় : ১১:০১:১৯ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০১৯

জেলা প্রতিনিধি পিরোজপুর; 
দরিদ্রতার নির্মম কষাঘাতে জর্জরিত এক মা তার সদ্য ভূমিষ্ঠ কন্যা শিশুকে মাত্র পাঁচ হাজার টাকায় বিক্রি করে দিয়েছেন। গতকাল সোমবার সকালে পিরোজপুর সদর হাসপাতালে নিজের নবজাতক কন্যা সন্তানকে টাকার বিনিময়ে অপরের কোলে তুলে দিয়ে বিদায় নেন মা সেলিনা বেগম।

হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, বাগেরহাট জেলার গর্ভাবস্থায় স্বামী পরিত্যক্তা ছয় সন্তানের জননী সেলিনা বেগম প্রসব বেদনা নিয়ে গতকাল রোববার পিরোজপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি হন। ওইদিন রাতে হাসপাতালে তিনি একটি কন্য সন্তান প্রসব করেন। এ সময় সেলিনা বেগমের সঙ্গে পরিচয় হয় হাসপাতালে তার পাশের বেডে চিকিৎসাধীন এক রোগীর পরিবারের। চরম দরিদ্রতার মধ্যে বাস করা সেলিনা বেগম তার ছয় কন্যা সন্তান নিয়ে অনাহারে অর্ধাহারে জীবন পার করার মধ্যে নবজাতক সন্তান নিয়ে তার সমস্যার কথা তুলে ধরেন ওই পরিবাবের কাছে। ওই পরিবারের এক মেয়ে নিঃসন্তান থাকায় তারা পাঁচ হাজার টাকার বিনিময় রেখে দেন সেলিনা বেগমের নবজাতক সন্তানকে। সন্তানকে তাদের কাছে দিয়ে টাকা নিয়ে হাসপাতাল থেকে চলে যান সেলিনা বেগম।

নবজাতক কিনে নেয়া পরিবারের সদস্যরা জানান, সেলিনা বেগমের অসহায় অবস্থার কথা শুনে নিঃসন্তান মেয়ের জন্য তারা বাচ্চাটি রেখে দেন।

পিরোজপুরের সিভিল সার্জন মো. ফারুক আলম জানান, হাসপাতালে বাচ্চা ফেলে গেছে এক মা- এমন খবর পেয়ে আমি পুলিশ ও সমাজসেবা কর্মকর্তাকে বিষয়টি অবহিত করি। বাচ্চাটিকে তাদের দায়িত্বে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

পিরোজপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোল্লা আজাদ হোসেন জানান, বাচ্চা বিক্রি হওয়ার অভিযোগ শুনে পুলিশ হাসপাতালে গিয়ে বাচ্চাটিকে হেফাজতে নেয়। পরবর্তীতে আদালতের মাধ্যমে বিষয়টি সুরাহা করা হবে।