ঢাকা ১১:১৫ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ০৩ মার্চ ২০২৪, ২০ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম :
Logo ১৭ মার্চ ও ২৬ মার্চের আহ্বায়কসহ তিনজনকে প্রত্যাহারের আহ্বান কুবি শিক্ষক সমিতির Logo সিলেটে সাইবার ট্রাইব্যুনালে ছাত্রদল ও ছাত্রশিবির সদস্যের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের Logo ড. ইউনূসের মামলা পর্যবেক্ষণ করছে জাতিসংঘ Logo কাভার্ডভ্যান ও অটোরিকশার সংঘর্ষে ছাত্র নিহত, আহত ৩ Logo রাজশাহীতে যুবলীগ কর্মীকে কুপিয়ে হত্যার ঘটনায় গ্রেপ্তার ৫ Logo এবার ঢাবি অধ্যাপক নাদিরের বিরুদ্ধে যৌন নিপীড়নের অভিযোগ  Logo সন্দ্বীপ থানার ওসির পিপিএম পদক লাভ Logo মালয়েশিয়ায় ১৩৪ বাংলাদেশি গ্রেফতার Logo শাবির ছাত্রীহলে ফিঙ্গারপ্রিন্ট স্থাপন, কমবে চুরি ও বহিরাগত প্রবেশ, বাড়বে নিরাপত্তা Logo গণতন্ত্র মঞ্চের কর্মসূচিতে হামলার নিন্দা ১২ দলীয় জোটের




আগুনের ঝুঁকিতে নিউমার্কেট এলাকার বেশির ভাগ শপিং কমপ্লেক্স

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৪:২২:৩০ অপরাহ্ন, শনিবার, ৬ এপ্রিল ২০১৯ ১০৪ বার পড়া হয়েছে

রাজধানীর কয়েক দশকের পুরোনো গাউছিয়া, নূর ম্যানসন, চাঁদনীচকের মতো পুরনো জনপ্রিয় মার্কেটগুলো আগুনের ভয়াবহ ঝুঁকিতে। ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স অধিদপ্তর বলছে, আগুন নেভানোর পর্যাপ্ত সরঞ্জাম এবং নিরাপদে বেরিয়ে আসার ব্যবস্থা নেই নিউমার্কেট এলাকার এসব শপিং সেন্টারে। ফলে আগুনে সম্পদহানির পাশাপাশি রয়েছে জীবনের ঝুঁকি। -ইনডিপেনডেন্ট টেলিভিশন।

মার্কেট নূর ম্যানশন শপিং কমপ্লেক্সর প্রতিটি দোকান ও হাঁটার সরু গলি কাপড়ে ঠাসা। মাথার ঠিক তিন ফুট উপরেই ঝুলছে বৈদ্যুতিক তার। এসির তারগুলোও সুরক্ষিত নয়। এছাড়া মার্কেটের পঞ্চম ও ষষ্ঠ তলায় অপরিকল্পিতভাবে গড়ে উঠেছে মিনি গার্মেন্টস। শুক্রবার মার্কেটটিকে অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ বলে চিহ্নিত করে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স অধিদপ্তর।

একই অবস্থা চাঁদনি চক, গাউছিয়া, ধানমন্ডি হকার্সসহ এই এলাকার অন্যান্য মার্কেটগুলোর। আগুন লাগলে পথ খুঁজে বের হওয়া কঠিন, তার ওপর বেশিরভাগই জানেন না দুর্ঘটনা ঘটলে কি করতে হবে।
ঝুঁকির কথা স্বীকার করে নূর ম্যানসন শপিং কমপ্লেক্সের উপদেষ্টা শাহাদাত হোসেন খান বলেন, সম্পদ আমাদের তাই এটি রক্ষা করার দায়িত্বও আমাদেরওই। এখানে কোটি কোটি টাকার সম্পদ আছে তাই ফায়ার সার্ভিসের দেয়া সুপারিশ অনুযায়ী ব্যবস্থা নিতে হবে।

তবে গাউছিয়া সুপার মার্কেটের বিদ্যুৎ সম্পাদক মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ বলেন, মার্কেটে আগুন নেভানোর পর্যাপ্ত ব্যবস্থা আছে। সম্পূর্ণ নিরাপদ, এখানো ঝুঁকির কোনো আশঙ্কা নেই।

আগুনের ঝুঁকি এড়াতে মার্কেটে ছাদে ওঠার সিঁড়ি ও দরজা খোলা রাখা, বের হওয়ার একাধিক দরজা, আন্ডারগ্রাউন্ডে ৫০ হাজার গ্যালন পানি মজুদ এবং মার্কেটে নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় আগুন নেভানোর কর্মী থাকার কথা। কিন্তু এই আইন মানেনি এসব শপিং সেন্টার।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :




আগুনের ঝুঁকিতে নিউমার্কেট এলাকার বেশির ভাগ শপিং কমপ্লেক্স

আপডেট সময় : ০৪:২২:৩০ অপরাহ্ন, শনিবার, ৬ এপ্রিল ২০১৯

রাজধানীর কয়েক দশকের পুরোনো গাউছিয়া, নূর ম্যানসন, চাঁদনীচকের মতো পুরনো জনপ্রিয় মার্কেটগুলো আগুনের ভয়াবহ ঝুঁকিতে। ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স অধিদপ্তর বলছে, আগুন নেভানোর পর্যাপ্ত সরঞ্জাম এবং নিরাপদে বেরিয়ে আসার ব্যবস্থা নেই নিউমার্কেট এলাকার এসব শপিং সেন্টারে। ফলে আগুনে সম্পদহানির পাশাপাশি রয়েছে জীবনের ঝুঁকি। -ইনডিপেনডেন্ট টেলিভিশন।

মার্কেট নূর ম্যানশন শপিং কমপ্লেক্সর প্রতিটি দোকান ও হাঁটার সরু গলি কাপড়ে ঠাসা। মাথার ঠিক তিন ফুট উপরেই ঝুলছে বৈদ্যুতিক তার। এসির তারগুলোও সুরক্ষিত নয়। এছাড়া মার্কেটের পঞ্চম ও ষষ্ঠ তলায় অপরিকল্পিতভাবে গড়ে উঠেছে মিনি গার্মেন্টস। শুক্রবার মার্কেটটিকে অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ বলে চিহ্নিত করে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স অধিদপ্তর।

একই অবস্থা চাঁদনি চক, গাউছিয়া, ধানমন্ডি হকার্সসহ এই এলাকার অন্যান্য মার্কেটগুলোর। আগুন লাগলে পথ খুঁজে বের হওয়া কঠিন, তার ওপর বেশিরভাগই জানেন না দুর্ঘটনা ঘটলে কি করতে হবে।
ঝুঁকির কথা স্বীকার করে নূর ম্যানসন শপিং কমপ্লেক্সের উপদেষ্টা শাহাদাত হোসেন খান বলেন, সম্পদ আমাদের তাই এটি রক্ষা করার দায়িত্বও আমাদেরওই। এখানে কোটি কোটি টাকার সম্পদ আছে তাই ফায়ার সার্ভিসের দেয়া সুপারিশ অনুযায়ী ব্যবস্থা নিতে হবে।

তবে গাউছিয়া সুপার মার্কেটের বিদ্যুৎ সম্পাদক মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ বলেন, মার্কেটে আগুন নেভানোর পর্যাপ্ত ব্যবস্থা আছে। সম্পূর্ণ নিরাপদ, এখানো ঝুঁকির কোনো আশঙ্কা নেই।

আগুনের ঝুঁকি এড়াতে মার্কেটে ছাদে ওঠার সিঁড়ি ও দরজা খোলা রাখা, বের হওয়ার একাধিক দরজা, আন্ডারগ্রাউন্ডে ৫০ হাজার গ্যালন পানি মজুদ এবং মার্কেটে নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় আগুন নেভানোর কর্মী থাকার কথা। কিন্তু এই আইন মানেনি এসব শপিং সেন্টার।