ঢাকা ০৭:২৯ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম :
Logo এমপি আনার খুন: রহস্যময় রূপে শীর্ষ দুই ব্যবসায়ী Logo রূপালী ব্যাংকের ডিজিএম কর্তৃক সহকর্মী নারীকে যৌন হয়রানি: ধামাচাপা দিতে মরিয়া তদন্ত কমিটি Logo প্রতিবন্ধী ভাতার টাকা হাতিয়ে বহাল তবিয়তে মাদারীপুরের দুই সহকারী সমাজসেবা অফিসারl Logo যমুনা লাইফের গ্রাহক প্রতারণায় ‘জড়িতরা’ কে কোথায় Logo ঢাকাস্থ ভোলা সাংবাদিক ফোরামের সভাপতি আহসান কামরুল, সম্পাদক জিয়াউর রহমান Logo টাটা মটরস বাংলাদেশে উদ্বোধন করলো টাটা যোদ্ধা Logo আশা শিক্ষা কর্মসূচী কর্তৃক অভিভাবক মতবিনিময় সভা Logo গণপূর্ত প্রধান প্রকৌশলীর গাড়ি চাপায় পিষ্ট সহকারী প্রকৌশলী -উত্তাল গণপূর্ত Logo শাবিপ্রবির বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের উদ্যোগে বৃক্ষরোপণ Logo সওজের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী নাহিনুরের সীমাহীন সম্পদ ও অনিয়ম -পর্ব-০১




নির্বাসিত তিব্বতীদের সাথে সংহতি প্রকাশ করে ঢাকায় ‘তিব্বতের স্বাধীনতা দিবস’ উদযাপন

অনলাইন ডেস্ক:
  • আপডেট সময় : ০৮:০৯:৪৫ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ ১৩৯ বার পড়া হয়েছে

তিব্বতিদের স্বাধিনতার ১১৪ তম দিবস উপলক্ষে আজ সোমবার দিবসটি পালন করেছে বিবিএসএস ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন।

দিবসটি উপলক্ষে বিবিএসএস ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশনের উদ্যোগে এক শান্তি ম্যারাথন নিকুঞ্জের পুলিশ প্লাজা থেকে হাতিরঝিলের রামপুরা, মহানগর ও মধুবাগ হয়ে বড় ব্রিজের সামনে গিয়ে শেষ হয়। পরে সংক্ষিপ্ত প্রতিবাদ সভা অনুষ্টিত হয়। এতে বিভিন্ন স্কুল কলেজের ছাত্র – ছাত্রী, সাংবাদিক, রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মীরা অংশ নেন।
প্রতিবাদ সভায় সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের সভাপতি টি এ তফছির। উক্ত কর্মসূচিতে সংগঠনের মহাসচিব ও গাজী টিভির প্রযোজক শফিকুল ইসলামের পরিচালনায় সংক্ষিপ্ত আলোচনায় অংশ নেন জাতীয় স্বেচ্ছাসেবক পার্টির কেন্দ্রীয় নেতা এমদাদুল হক ছালেক, বাংলাদেশ জাসদের কেন্দ্রীয় নেতা মহিউদ্দিন,বিশিষ্ট সাংবাদিক মুস্তাফিজুর রহমান , জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় নেতা নাসির উদ্দিন মুন্সী, যুব সংগঠক এম এইস মিল্টন, সোস্যাল এক্টিভিস্ট হাফিজ সম্ভুসহ আরো অনেকে।

সভাপতির বক্তব্যে টি এ তফছির বলেন,১৯১৩ সালের ১৩ ফেব্রুয়ারি ১৩ তম দালাই লামা তিব্বতিদের “স্বাধীনতার ঘোষণা” করেন।তারপর থেকে তিব্বতিরা ১৩ ফেব্রুয়ারীকে তিব্বতের ইতিহাসে একটি গুরুত্বপূর্ণ দিন হিসাবে চিহ্নিত করে তিব্বতের ইতিহাসের তাৎপর্য সম্পর্কে মানুষকে শিক্ষিত করার চেষ্টা করেন ।
তিব্বতি আন্দোলনকারীরা বলছেন যে ১৯৫৯ সালের মার্চ মাসে তিব্বত চীনের দখলে ছিল। অ্যাক্টিভিস্টরা চীনকে একটি স্পষ্ট বার্তা পাঠাতে তাদের আওয়াজ তুলেছিল যে “তিব্বতের ভূমিতে তিব্বতিরা সুখী হবে এবং চীনারা চীনের ভূমিতে সুখী হবে”।
১৯১৩ সালের ১৩ ফেব্রুয়ারি মহান ১৩ তম দালাই লামা এবং তিব্বতের জনগণ তিব্বতকে একটি সার্বভৌম জাতি হিসাবে পুনরুদ্ধার করেন এবং মাঞ্চু সেনাবাহিনীর ব্যর্থ আক্রমণের পরে তিব্বতের স্বাধীনতা ঘোষণা করেন। এই ঐতিহাসিক দিনটিকে চিহ্নিত করার জন্য, ১৩ই ফেব্রুয়ারী, ২০২৩ তারিখে, বিবিএসএস ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন মহামহিম ১৩ তম দালাই লামার তিব্বতের স্বাধীনতার ঘোষণার শতবর্ষ উদযাপন করেছে। অধিকৃত দেশগুলিতে, স্বাধীনতা দিবস পালন করা স্বাধীনতার জন্য জনগণের আকাঙ্ক্ষার একটি শক্তিশালী অভিব্যক্তি।
তারপর থেকে, ১৩ ফেব্রুয়ারী তিব্বতের স্বাধীন অতীতের উপর আলোকপাত করার জন্য ক্রীড়া সভা, পতাকা উত্তোলন অনুষ্ঠান, প্রদর্শনী, লবিং ইভেন্ট এবং অন্যান্য সৃজনশীল কর্মের আয়োজন করে ঢাকা সহ বিশ্বের ৩০ টিরও বেশি শহরে পালিত হয়েছে। ছাত্র, সাংবাদিক এবং বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ এই দিনটির সম্মানে অংশ নিয়েছিলেন এবং তিব্বতের তিব্বতিদের সাথে সংহতি প্রকাশ করেছেন।
চীনের ক্রমবর্ধমান প্রচারণার মুখে যা তিব্বতের ইতিহাসকে বিকৃত করে এবং এর ভূমি ও জনগণের কাছে অবৈধ দাবি করে, তিব্বতের অভ্যন্তরে তিব্বতবাসীরা চীনা শাসনের বিরুদ্ধে তাদের প্রতিবাদের মাধ্যমে তিব্বতকে পুনরুদ্ধার করে চলেছে। তিব্বতের মহৎ অতীতকে সম্মান জানাতে এবং এর ভবিষ্যৎ গঠনের জন্য এই প্রচারণাকে একটি প্ল্যাটফর্ম হিসেবে ব্যবহার করে আমরা এই প্রচেষ্টায় যোগ দেব। এই ক্ষমতায়ন ইতিহাসের একটি বিশ্বব্যাপী স্মৃতিচারণ আত্মাকে পুনর্নবীকরণ করতে সাহায্য করবে এবং ১৪ তম দালাই লামার প্রত্যাবর্তনের সাথে একটি ভবিষ্যত স্বাধীন তিব্বতের বৈশ্বিক দৃষ্টিভঙ্গি পুনঃনিশ্চিত করবে৷
এই বছর তিব্বতের স্বাধীনতা দিবস ঘোষণার ১১০তম বছর হবে। ১৩ ফেব্রুয়ারি তিব্বতের স্বাধীনতা দিবসে তাদের স্বাধীকার এবং স্বাধীনতা সফল করতে চীনের প্রতি আহবান জানায়।

Loading

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :




নির্বাসিত তিব্বতীদের সাথে সংহতি প্রকাশ করে ঢাকায় ‘তিব্বতের স্বাধীনতা দিবস’ উদযাপন

আপডেট সময় : ০৮:০৯:৪৫ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৩

তিব্বতিদের স্বাধিনতার ১১৪ তম দিবস উপলক্ষে আজ সোমবার দিবসটি পালন করেছে বিবিএসএস ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন।

দিবসটি উপলক্ষে বিবিএসএস ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশনের উদ্যোগে এক শান্তি ম্যারাথন নিকুঞ্জের পুলিশ প্লাজা থেকে হাতিরঝিলের রামপুরা, মহানগর ও মধুবাগ হয়ে বড় ব্রিজের সামনে গিয়ে শেষ হয়। পরে সংক্ষিপ্ত প্রতিবাদ সভা অনুষ্টিত হয়। এতে বিভিন্ন স্কুল কলেজের ছাত্র – ছাত্রী, সাংবাদিক, রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মীরা অংশ নেন।
প্রতিবাদ সভায় সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের সভাপতি টি এ তফছির। উক্ত কর্মসূচিতে সংগঠনের মহাসচিব ও গাজী টিভির প্রযোজক শফিকুল ইসলামের পরিচালনায় সংক্ষিপ্ত আলোচনায় অংশ নেন জাতীয় স্বেচ্ছাসেবক পার্টির কেন্দ্রীয় নেতা এমদাদুল হক ছালেক, বাংলাদেশ জাসদের কেন্দ্রীয় নেতা মহিউদ্দিন,বিশিষ্ট সাংবাদিক মুস্তাফিজুর রহমান , জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় নেতা নাসির উদ্দিন মুন্সী, যুব সংগঠক এম এইস মিল্টন, সোস্যাল এক্টিভিস্ট হাফিজ সম্ভুসহ আরো অনেকে।

সভাপতির বক্তব্যে টি এ তফছির বলেন,১৯১৩ সালের ১৩ ফেব্রুয়ারি ১৩ তম দালাই লামা তিব্বতিদের “স্বাধীনতার ঘোষণা” করেন।তারপর থেকে তিব্বতিরা ১৩ ফেব্রুয়ারীকে তিব্বতের ইতিহাসে একটি গুরুত্বপূর্ণ দিন হিসাবে চিহ্নিত করে তিব্বতের ইতিহাসের তাৎপর্য সম্পর্কে মানুষকে শিক্ষিত করার চেষ্টা করেন ।
তিব্বতি আন্দোলনকারীরা বলছেন যে ১৯৫৯ সালের মার্চ মাসে তিব্বত চীনের দখলে ছিল। অ্যাক্টিভিস্টরা চীনকে একটি স্পষ্ট বার্তা পাঠাতে তাদের আওয়াজ তুলেছিল যে “তিব্বতের ভূমিতে তিব্বতিরা সুখী হবে এবং চীনারা চীনের ভূমিতে সুখী হবে”।
১৯১৩ সালের ১৩ ফেব্রুয়ারি মহান ১৩ তম দালাই লামা এবং তিব্বতের জনগণ তিব্বতকে একটি সার্বভৌম জাতি হিসাবে পুনরুদ্ধার করেন এবং মাঞ্চু সেনাবাহিনীর ব্যর্থ আক্রমণের পরে তিব্বতের স্বাধীনতা ঘোষণা করেন। এই ঐতিহাসিক দিনটিকে চিহ্নিত করার জন্য, ১৩ই ফেব্রুয়ারী, ২০২৩ তারিখে, বিবিএসএস ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন মহামহিম ১৩ তম দালাই লামার তিব্বতের স্বাধীনতার ঘোষণার শতবর্ষ উদযাপন করেছে। অধিকৃত দেশগুলিতে, স্বাধীনতা দিবস পালন করা স্বাধীনতার জন্য জনগণের আকাঙ্ক্ষার একটি শক্তিশালী অভিব্যক্তি।
তারপর থেকে, ১৩ ফেব্রুয়ারী তিব্বতের স্বাধীন অতীতের উপর আলোকপাত করার জন্য ক্রীড়া সভা, পতাকা উত্তোলন অনুষ্ঠান, প্রদর্শনী, লবিং ইভেন্ট এবং অন্যান্য সৃজনশীল কর্মের আয়োজন করে ঢাকা সহ বিশ্বের ৩০ টিরও বেশি শহরে পালিত হয়েছে। ছাত্র, সাংবাদিক এবং বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ এই দিনটির সম্মানে অংশ নিয়েছিলেন এবং তিব্বতের তিব্বতিদের সাথে সংহতি প্রকাশ করেছেন।
চীনের ক্রমবর্ধমান প্রচারণার মুখে যা তিব্বতের ইতিহাসকে বিকৃত করে এবং এর ভূমি ও জনগণের কাছে অবৈধ দাবি করে, তিব্বতের অভ্যন্তরে তিব্বতবাসীরা চীনা শাসনের বিরুদ্ধে তাদের প্রতিবাদের মাধ্যমে তিব্বতকে পুনরুদ্ধার করে চলেছে। তিব্বতের মহৎ অতীতকে সম্মান জানাতে এবং এর ভবিষ্যৎ গঠনের জন্য এই প্রচারণাকে একটি প্ল্যাটফর্ম হিসেবে ব্যবহার করে আমরা এই প্রচেষ্টায় যোগ দেব। এই ক্ষমতায়ন ইতিহাসের একটি বিশ্বব্যাপী স্মৃতিচারণ আত্মাকে পুনর্নবীকরণ করতে সাহায্য করবে এবং ১৪ তম দালাই লামার প্রত্যাবর্তনের সাথে একটি ভবিষ্যত স্বাধীন তিব্বতের বৈশ্বিক দৃষ্টিভঙ্গি পুনঃনিশ্চিত করবে৷
এই বছর তিব্বতের স্বাধীনতা দিবস ঘোষণার ১১০তম বছর হবে। ১৩ ফেব্রুয়ারি তিব্বতের স্বাধীনতা দিবসে তাদের স্বাধীকার এবং স্বাধীনতা সফল করতে চীনের প্রতি আহবান জানায়।

Loading