ঢাকা ১০:০৮ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২২, ১৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ




বিএফইউজের সভাপতির উপর ছাত্রদলের হামলা শীর্ষক মিথ্যা সংবাদের প্রতিবাদ

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৭:১৬:৫৭ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৭ জুন ২০২২ ২১ বার পড়া হয়েছে

প্রেস বিজ্ঞপ্তি:

‘জাতীয় প্রেস ক্লাব প্রাঙ্গণে ছাত্রদল নেতা-কর্মীদের হামলার শিকার হয়েছেন বিএফইউজে-বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের (একাংশ) সভাপতি ওমর ফারুক’ শীর্ষক প্রকাশিত সংবাদের তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানিয়েছেন বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের সভাপতি কাজী রওনকুল ইসলাম শ্রাবণ ও সাধারণ সম্পাদক সাইফ মাহমুদ জুয়েল।

 

প্রতিবাদলিপিতে নেতৃদ্বয় বলেন, মহান স্বাধীনতার ঘোষক, শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান বীরউত্তম’র ৪১তম শহাদাৎবার্ষিকী উপলক্ষে গত ৫ই জুন জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের আয়োজনে জাতীয় প্রেসক্লাব অডিটোরিয়ামে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। জাতীয় প্রেসক্লাবের সকল নিয়মনীতি অনুসরণ পূর্বক ছাত্রদল এই অনুষ্ঠান আয়োজন ও সফলভাবে সম্পন্ন করে। কিন্তু দূর্ভাগ্যজনকভাবে আমরা ৬ই জুন প্রকাশিত বিভিন্ন পত্রিকায় দেখতে পাই সাংবাদিক নেতা ওমর ফারুকের উপর ছাত্রদল হামলা করেছে। এই সংবাদ আমাদের বিস্মিত ও হতবাক করেছে।

 

ছাত্রদলের আলোচনা সভায় এমন কোন ঘটনাই ঘটেনি এবং এই সংবাদ অসত্য, বানোয়াট ও উদ্দেশ্যপ্রণোদিত হিসেবে উল্লেখ করে নেতৃদ্বয় বলেন, গণতান্ত্রিক শাসনব্যবস্থায় গণমাধ্যম গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। সংবাদমাধ্যমকে রাষ্ট্রের চতুর্থ স্তম্ভ বলা হয়। কিন্তু সেই গণমাধ্যমকর্মীরা যখন এরকম কাল্পনিক ঘটনা সাজিয়ে দেশের অন্যতম শীর্ষ ও জনপ্রিয় ছাত্র সংগঠনকে বিতর্কিত করার অপচেষ্টা চালান তা দুঃখজনক বটে।

 

বাংলাদেশে জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল একটি সুশৃঙ্খল ও জনপ্রিয় ছাত্র সংগঠন। এই সংগঠনের নেতাকর্মীরা গণমাধ্যমবান্ধব ও সাংবাদিকদের প্রতি শ্রদ্ধাশীল উল্লেখ করে সভাপতি কাজী রওনকুল ইসলাম শ্রাবণ ও সাধারণ সম্পাদক সাইফ মাহমুদ জুয়েল প্রতিবাদ লিপিতে উল্লেখ করেন, জাতীয় প্রেসক্লাব একটি জাতীয় গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠান। এখানে সবসময় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীসহ বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার লোকজন উপস্থিত থাকেন। সিসি ক্যামেরায় নিরাপত্তা ব্যাবস্থা পর্যবেক্ষণ করা হয়। সাংবাদিক নেতার উপর হামলার ঘটনার অপপ্রচার নিশ্চয় ক্লাব আঙ্গিনায় কর্তব্যরতদের বিস্মিত করেছে। কোন প্রত্যক্ষদর্শীর বরাত ও প্রমান ছাড়া সাংবাদিক নেতা ওমর ফারুক তাঁর গায়ে একটি খন্ড মিছিলের লোকজনের ধাক্কা লেগেছে বলে অভিযোগ করেন। যেহেতু ছাত্রদলের সভা চলাকালে একটি অভিযোগ উঠেছে, সেজন্যে ছাত্রদল সভাপতি সৌজন্যতার স্বার্থে তাঁর সঙ্গে দেখা করে কোন অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা ঘটে থাকলে তার জন্যে দুঃখ প্রকাশ করেন। তখনও তিনি হামলার কথা সুস্পষ্টভাবে বলেননি।

 

 

ছাত্রদল নেতৃদ্বয় কথিত হামলার অসত্য ও বানোয়াট সংবাদের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান এবং এহেন মিথ্যাচারে বিভ্রান্ত না হওয়ার জন্য সংশ্লিষ্টদের প্রতি আহবান জানান।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :




বিএফইউজের সভাপতির উপর ছাত্রদলের হামলা শীর্ষক মিথ্যা সংবাদের প্রতিবাদ

আপডেট সময় : ০৭:১৬:৫৭ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৭ জুন ২০২২

প্রেস বিজ্ঞপ্তি:

‘জাতীয় প্রেস ক্লাব প্রাঙ্গণে ছাত্রদল নেতা-কর্মীদের হামলার শিকার হয়েছেন বিএফইউজে-বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের (একাংশ) সভাপতি ওমর ফারুক’ শীর্ষক প্রকাশিত সংবাদের তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানিয়েছেন বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের সভাপতি কাজী রওনকুল ইসলাম শ্রাবণ ও সাধারণ সম্পাদক সাইফ মাহমুদ জুয়েল।

 

প্রতিবাদলিপিতে নেতৃদ্বয় বলেন, মহান স্বাধীনতার ঘোষক, শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান বীরউত্তম’র ৪১তম শহাদাৎবার্ষিকী উপলক্ষে গত ৫ই জুন জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের আয়োজনে জাতীয় প্রেসক্লাব অডিটোরিয়ামে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। জাতীয় প্রেসক্লাবের সকল নিয়মনীতি অনুসরণ পূর্বক ছাত্রদল এই অনুষ্ঠান আয়োজন ও সফলভাবে সম্পন্ন করে। কিন্তু দূর্ভাগ্যজনকভাবে আমরা ৬ই জুন প্রকাশিত বিভিন্ন পত্রিকায় দেখতে পাই সাংবাদিক নেতা ওমর ফারুকের উপর ছাত্রদল হামলা করেছে। এই সংবাদ আমাদের বিস্মিত ও হতবাক করেছে।

 

ছাত্রদলের আলোচনা সভায় এমন কোন ঘটনাই ঘটেনি এবং এই সংবাদ অসত্য, বানোয়াট ও উদ্দেশ্যপ্রণোদিত হিসেবে উল্লেখ করে নেতৃদ্বয় বলেন, গণতান্ত্রিক শাসনব্যবস্থায় গণমাধ্যম গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। সংবাদমাধ্যমকে রাষ্ট্রের চতুর্থ স্তম্ভ বলা হয়। কিন্তু সেই গণমাধ্যমকর্মীরা যখন এরকম কাল্পনিক ঘটনা সাজিয়ে দেশের অন্যতম শীর্ষ ও জনপ্রিয় ছাত্র সংগঠনকে বিতর্কিত করার অপচেষ্টা চালান তা দুঃখজনক বটে।

 

বাংলাদেশে জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল একটি সুশৃঙ্খল ও জনপ্রিয় ছাত্র সংগঠন। এই সংগঠনের নেতাকর্মীরা গণমাধ্যমবান্ধব ও সাংবাদিকদের প্রতি শ্রদ্ধাশীল উল্লেখ করে সভাপতি কাজী রওনকুল ইসলাম শ্রাবণ ও সাধারণ সম্পাদক সাইফ মাহমুদ জুয়েল প্রতিবাদ লিপিতে উল্লেখ করেন, জাতীয় প্রেসক্লাব একটি জাতীয় গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠান। এখানে সবসময় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীসহ বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার লোকজন উপস্থিত থাকেন। সিসি ক্যামেরায় নিরাপত্তা ব্যাবস্থা পর্যবেক্ষণ করা হয়। সাংবাদিক নেতার উপর হামলার ঘটনার অপপ্রচার নিশ্চয় ক্লাব আঙ্গিনায় কর্তব্যরতদের বিস্মিত করেছে। কোন প্রত্যক্ষদর্শীর বরাত ও প্রমান ছাড়া সাংবাদিক নেতা ওমর ফারুক তাঁর গায়ে একটি খন্ড মিছিলের লোকজনের ধাক্কা লেগেছে বলে অভিযোগ করেন। যেহেতু ছাত্রদলের সভা চলাকালে একটি অভিযোগ উঠেছে, সেজন্যে ছাত্রদল সভাপতি সৌজন্যতার স্বার্থে তাঁর সঙ্গে দেখা করে কোন অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা ঘটে থাকলে তার জন্যে দুঃখ প্রকাশ করেন। তখনও তিনি হামলার কথা সুস্পষ্টভাবে বলেননি।

 

 

ছাত্রদল নেতৃদ্বয় কথিত হামলার অসত্য ও বানোয়াট সংবাদের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান এবং এহেন মিথ্যাচারে বিভ্রান্ত না হওয়ার জন্য সংশ্লিষ্টদের প্রতি আহবান জানান।