ঢাকা ০৯:৩৫ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪, ৪ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম :
Logo মঙ্গল শোভাযাত্রা – তাসফিয়া ফারহানা ঐশী Logo সাস্টিয়ান ব্রাহ্মণবাড়িয়া এর ইফতার মাহফিল সম্পন্ন Logo কুবির চট্টগ্রাম স্টুডেন্টস ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশনের ইফতার ও পূর্নমিলনী Logo অধ্যাপক জহীর উদ্দিন আহমেদের মায়ের মৃত্যুতে শাবির মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও মুক্ত চিন্তা চর্চায় ঐক্যবদ্ধ শিক্ষকবৃন্দ পরিষদের শোক প্রকাশ Logo শাবির অধ্যাপক জহীর উদ্দিনের মায়ের মৃত্যুতে উপাচার্যের শোক প্রকাশ Logo বিশ কোটিতে গণপূর্তের প্রধান হওয়ার মিশনে ‘ছাত্রদল ক্যাডার প্রকৌশলী’! Logo দূর্নীতির রাক্ষস ফায়ার সার্ভিসের এডি আনোয়ার! Logo ঝড় ও শিলাবৃষ্টিতে ক্ষতি হওয়া শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়ে অবকাঠামোর সংস্কার শুরু Logo বুয়েটে নিয়মতান্ত্রিক ছাত্র রাজনীতির দাবিতে শাবিপ্রবি ছাত্রলীগের মানববন্ধন Logo কুবি উপাচার্যের বক্তব্যের প্রমাণ দিতে শিক্ষক সমিতির সাত দিনের আল্টিমেটাম




কনডেম সেলে স্বাধীনতা নিয়ে কি ভাবতেন বঙ্গবন্ধু?

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৯:০৫:৩৮ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ১০ জানুয়ারী ২০২১ ৯৬ বার পড়া হয়েছে

কনডেম সেলে মৃত্যুর মুখে দাঁড়িয়ে জীবন ফিরে পাওয়ার নিশ্চয়তা না থাকলেও বাংলাদেশ যে স্বাধীন হবে – সে ব্যাপারে নিশ্চিত ছিলেন বঙ্গবন্ধু। স্বাধীন বাংলাদেশে প্রত্যাবর্তনের আগে লন্ডনে প্রথম প্রেস কনফারেন্সে সেই আত্মবিশ্বাসের কথা জানান জাতির পিতা। বলেন- শতশত বছর ধরে বিদেশিদের শোষণের শিকার বাংলাদেশের প্রতি ব্রিটিশ নাগরিকদেরও দায়-দায়িত্ব আছে। ১০ জানুয়ারী দেশে ফেরার আগে সেই প্রেস কনফারেন্সে আর কী বলেছিলেন বঙ্গবন্ধু?

জানুয়ারী ১৯৭২। কনকনে ঠান্ডা আর মেঘ-বৃষ্টির দখলে লন্ডন। যেখানে ক’দিন ধরেই সর্বোচ্চ তাপমাত্রা উঠছে মাত্র ৬ ডিগ্রি। এমন হাড় কাঁপানো শীতে ৮ জানুয়ারি সকালে হিথরো বিমানবন্দরের পৌঁছান বঙ্গবন্ধু। ২৯০ দিনের জেলজীবন থেকে মুক্তি পাওয়া বঙ্গবন্ধুকে এক নজর দেখার জন্য বিমান বন্দরের ভেতরে বাইরে সে কি উচ্ছাস!

দুপুরেই ক্ল্যারিজ হোটেলে আয়োজন করা হয় এক সংবাদ সম্মেলনের। বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর এটিই ছিলো বঙ্গবন্ধুর প্রথম সংবাদ সম্মেলন। এতে আবেগঘন ভাষায় প্রবল আত্মবিশ্বাসী হয়ে তিনি বলেছিলেন, কনডেম সেলে থেকেও আমি জানতাম বাংলাদেশ স্বাধীন হবেই।

সংবাদ সম্মেলনে এক সাংবাদিক বঙ্গবন্ধুর কাছে জানতে চাইলেন এই মুহুর্তে বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সমস্যা কী? বঙ্গবন্ধু বললেন- রাস্তাঘাট লাখ লাখ মানুষ শহীদ হয়েছেন, রাস্তাঘাট-ব্রিজ ভেঙে পড়ার পাশাপাশি ভেঙে পড়েছে দেশের অর্থনীতিও।

দৃঢ়চিত্তে বঙ্গবন্ধু বললেন বিদেশি শক্তির শোষণের শিকার বাংলাদেশের প্রতি ব্রিটিশ নাগরিকদেরও দায়িত্ব আছে। কারণ, তাদের অর্থনীতি গড়তে বাংলাদেশিদেরও অবদান আছে।

শুধু বাংলাদেশ রাষ্ট্রের জন্য না, মানবতার স্বার্থে লাখ লাখ ক্ষুধার্ত মানুষকে বাঁচাতে বিশ্ব সম্প্রদায়কে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান বাংলাদেশের স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :




কনডেম সেলে স্বাধীনতা নিয়ে কি ভাবতেন বঙ্গবন্ধু?

আপডেট সময় : ০৯:০৫:৩৮ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ১০ জানুয়ারী ২০২১

কনডেম সেলে মৃত্যুর মুখে দাঁড়িয়ে জীবন ফিরে পাওয়ার নিশ্চয়তা না থাকলেও বাংলাদেশ যে স্বাধীন হবে – সে ব্যাপারে নিশ্চিত ছিলেন বঙ্গবন্ধু। স্বাধীন বাংলাদেশে প্রত্যাবর্তনের আগে লন্ডনে প্রথম প্রেস কনফারেন্সে সেই আত্মবিশ্বাসের কথা জানান জাতির পিতা। বলেন- শতশত বছর ধরে বিদেশিদের শোষণের শিকার বাংলাদেশের প্রতি ব্রিটিশ নাগরিকদেরও দায়-দায়িত্ব আছে। ১০ জানুয়ারী দেশে ফেরার আগে সেই প্রেস কনফারেন্সে আর কী বলেছিলেন বঙ্গবন্ধু?

জানুয়ারী ১৯৭২। কনকনে ঠান্ডা আর মেঘ-বৃষ্টির দখলে লন্ডন। যেখানে ক’দিন ধরেই সর্বোচ্চ তাপমাত্রা উঠছে মাত্র ৬ ডিগ্রি। এমন হাড় কাঁপানো শীতে ৮ জানুয়ারি সকালে হিথরো বিমানবন্দরের পৌঁছান বঙ্গবন্ধু। ২৯০ দিনের জেলজীবন থেকে মুক্তি পাওয়া বঙ্গবন্ধুকে এক নজর দেখার জন্য বিমান বন্দরের ভেতরে বাইরে সে কি উচ্ছাস!

দুপুরেই ক্ল্যারিজ হোটেলে আয়োজন করা হয় এক সংবাদ সম্মেলনের। বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর এটিই ছিলো বঙ্গবন্ধুর প্রথম সংবাদ সম্মেলন। এতে আবেগঘন ভাষায় প্রবল আত্মবিশ্বাসী হয়ে তিনি বলেছিলেন, কনডেম সেলে থেকেও আমি জানতাম বাংলাদেশ স্বাধীন হবেই।

সংবাদ সম্মেলনে এক সাংবাদিক বঙ্গবন্ধুর কাছে জানতে চাইলেন এই মুহুর্তে বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সমস্যা কী? বঙ্গবন্ধু বললেন- রাস্তাঘাট লাখ লাখ মানুষ শহীদ হয়েছেন, রাস্তাঘাট-ব্রিজ ভেঙে পড়ার পাশাপাশি ভেঙে পড়েছে দেশের অর্থনীতিও।

দৃঢ়চিত্তে বঙ্গবন্ধু বললেন বিদেশি শক্তির শোষণের শিকার বাংলাদেশের প্রতি ব্রিটিশ নাগরিকদেরও দায়িত্ব আছে। কারণ, তাদের অর্থনীতি গড়তে বাংলাদেশিদেরও অবদান আছে।

শুধু বাংলাদেশ রাষ্ট্রের জন্য না, মানবতার স্বার্থে লাখ লাখ ক্ষুধার্ত মানুষকে বাঁচাতে বিশ্ব সম্প্রদায়কে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান বাংলাদেশের স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান।