ঢাকা ০২:০৭ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪, ৩ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম :
Logo জবিতে আজীবন ছাত্ররাজনীতি নিষিদ্ধ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ Logo শাবিতে হল প্রশাসনকে ভয়-ভীতি দেখিয়ে নোটিসে জোর পূর্বক সাইন আদায় Logo এবার সামনে আসছে ছাত্রলীগ কর্তৃক আন্দোলনকারীদের মারধরের আরো ঘটনা Logo আবাসিক হল ছাড়ছে শাবি শিক্ষার্থীরা Logo নিরাপত্তার স্বার্থে শাবি শিক্ষার্থীদের আইডিকার্ড সাথে রাখার আহবান বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের Logo জনস্বাস্থ্যের প্রধান সাধুর যত অসাধু কর্ম: দুর্নীতি ও অর্থ পাচারের অভিযোগ! Logo বিআইডব্লিউটিএ বন্দর শাখা যুগ্ম পরিচালক আলমগীরের দুর্নীতি ও ঘুষ বাণিজ্য  Logo রাজশাহীতে এটিএন বাংলার সাংবাদিক সুজাউদ্দিন ছোটনকে হয়রানিমূলক মামলায় বএিমইউজরে নিন্দা ও প্রতিবাদ Logo শিক্ষার্থীদের তথ্য প্রযুক্তিতে দক্ষ হয়ে স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ায় অবদান রাখতে হবেঃ ড. তৌফিক রহমান চৌধুরী Logo ‘কানামাছি শিশুসাহিত্য পুরস্কার ২০২৪’ পেলেন লেখক




গণমাধ্যমকে মির্জা ফখরুলের ধন্যবাদ

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৭:২৬:৫৫ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৩০ জুলাই ২০১৯ ৯৮ বার পড়া হয়েছে

নিজস্ব প্রতিবেদক;

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর গণমাধ্যমকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেছেন, আমরা আমাদের দলের চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা নিয়ে সংবাদ সম্মেলন করে উদ্বেগ জানিয়েছিলাম। আপনারা (গণমাধ্যম) তা অত্যন্ত গুরুত্ব দিয়ে প্রকাশ করেছেন। সে কারণে সংবাদ সম্মেলনের পরদিন সরকার ম্যাডামের (খালেদা জিয়া) দাঁতের চিকিৎসা করিয়েছে। যদিও এখনও উনার শারীরিক অবস্থা খুবই খারাপ। অনেক চিকিৎসা বাকি। আমরা দ্রুত সেসব চিকিৎসার উদ্যোগ নিতে দাবি জানাচ্ছি।

সোমবার (২৪ জুলাই) রাতে গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে দলের স্থায়ী কমিটির বৈঠক শেষে সংবাদ ব্রিফিংয়ে তিনি গণমাধ্যমকে এ ধন্যবাদ জানান। বৈঠক সন্ধ্যা সোয়া ৭টায় শুরু হয়ে শেষ হয় রাত সোয়া ৯টার পর।

মির্জা ফখরুল বলেন, আজকের বৈঠকে আমাদের প্রধান আলোচনার বিষয় ছিল খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা নিয়ে পর্যালোচনা। দাঁতের চিকিৎসাটা হয়েছে। আমাদের দ্বিতীয় এজেন্ডা ছিল বিভিন্ন বিভাগীয় শহরে আমাদের নেত্রীর মুক্তির জন্য সমাবেশ। ইতোমধ্যেই তিনটি বিভাগে আমাদের সমাবেশ শেষ হয়েছে। বাকিগুলো দেশের বন্যা ও ডেঙ্গু পরিস্থিতির কারণে কিছুটা বিলম্ব ঘটছে। আশাকরি বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি হলে বাকি সমাবেশগুলোও আমরা শিগগিরিই শেষ করবো।

তিনি বলেন, দেশের বন্যাদুর্গত অঞ্চলে আমাদের ত্রাণ তৎপরতা জোরদারভাবে চলছে। স্থায়ী কমিটির সদস্য ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকুর নেতৃত্বে ত্রাণ কমিটি কাজ করে যাচ্ছে। দলের সিনিয়র নেতারা বিভিন্ন বন্যাপীড়িত জেলায় ত্রাণ কার্যক্রম পরিচালনা করছেন।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, বন্যায় সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে আমার দেশের কৃষকগণ। বন্যায় কৃষকদের ফসলের মাঠ একেবারে ধ্বংস হয়ে গেছে। সেজন্য আমরা সরকারের কাছে জোর দাবি জানাচ্ছি, কৃষকদের ক্ষতি পুষিয়ে উঠতে খুব দ্রুত সহজভাবে বিনা সুদে তাদের ঋণ দিতে হবে। এছাড়া, একটি নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত কৃষকদের কাছ থেকে এনজিওরা যেন ঋণের টাকা আদায় করতে না পারে, সেজন্য সরকারকে ব্যবস্থা নিতে হবে।

তিনি বলেন, আমরা অত্যন্ত ক্ষোভের সঙ্গে, হতাশার সঙ্গে লক্ষ করেছি সরকার ডেঙ্গু নিয়ে অবহেলা করেছে। একদিকে মেয়ররা কখনও বলছে যে, ডেঙ্গু নিয়ে বাড়িয়ে বলা হচ্ছে। আবার বলছে, তারা পেরে উঠছে না। অর্থাৎ সরকার ডেঙ্গু নিয়ে সম্পূর্ণ ব্যর্থ হয়েছে। দুই সিটি করপোরেশন ডেঙ্গু নির্মূলে যে ওষুধগুলো ব্যবহার করছে তা কোনো কাজে আসছে না। কিন্তু ইতোমধ্যেই তারা ৫০ কোটি টাকা ব্যয় করে ফেলেছে। অথচ আমার এলাকায় মশা আগের মতোই আছে। দিনদিন হাসপাতালগুলোয় ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগীতে ভরে যাচ্ছে। আমাদের দলের সিনিয়র নেতা ব্যারিস্টার শাহজাহান ওমর বীরউত্তম, যুবদলের সাধারণ সম্পাদক সুলতান সালাহউদ্দিন টুকুর ছোট সন্তানসহ অসংখ্য মানুষ ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন।

ফখরুল বলেন, সরকার সম্পূর্ণ ব্যর্থ হয়ে বিএনপির বিরুদ্ধে প্রতিদিন মিথ্যা প্রলাপ বকছে। তারা বলছে, ডেঙ্গু নিয়ে বিএনপি মিথ্যা গুজব ছড়াচ্ছে। আমরা তাদের এ মিথ্যা বক্তব্যের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। এ সরকার সব ক্ষেত্রে সম্পূর্ণভাবে ব্যর্থ হয়ে তাদের ব্যর্থতা ঢাকতেই মিথ্যা প্রপাগান্ডা চালিয়ে যাচ্ছে।

জানা গেছে, কারাবন্দি বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি, ছাত্রদলের চলমান সংকট নিরসন ও বর্তমান রাজনীতির সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে রুদ্ধদ্বার বৈঠক করেন দলের সর্বোচ্চ নীতি নির্ধারণী ফোরাম জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্যরা। বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন- বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, ড. আবদুল মঈন খান, নজরুল ইসলাম খান, বেগম সেলিমা রহমান, ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু।
লন্ডন থেকে স্কাইপির মাধ্যমে বৈঠকে যুক্ত হয়েছিলেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :




গণমাধ্যমকে মির্জা ফখরুলের ধন্যবাদ

আপডেট সময় : ০৭:২৬:৫৫ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৩০ জুলাই ২০১৯

নিজস্ব প্রতিবেদক;

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর গণমাধ্যমকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেছেন, আমরা আমাদের দলের চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা নিয়ে সংবাদ সম্মেলন করে উদ্বেগ জানিয়েছিলাম। আপনারা (গণমাধ্যম) তা অত্যন্ত গুরুত্ব দিয়ে প্রকাশ করেছেন। সে কারণে সংবাদ সম্মেলনের পরদিন সরকার ম্যাডামের (খালেদা জিয়া) দাঁতের চিকিৎসা করিয়েছে। যদিও এখনও উনার শারীরিক অবস্থা খুবই খারাপ। অনেক চিকিৎসা বাকি। আমরা দ্রুত সেসব চিকিৎসার উদ্যোগ নিতে দাবি জানাচ্ছি।

সোমবার (২৪ জুলাই) রাতে গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে দলের স্থায়ী কমিটির বৈঠক শেষে সংবাদ ব্রিফিংয়ে তিনি গণমাধ্যমকে এ ধন্যবাদ জানান। বৈঠক সন্ধ্যা সোয়া ৭টায় শুরু হয়ে শেষ হয় রাত সোয়া ৯টার পর।

মির্জা ফখরুল বলেন, আজকের বৈঠকে আমাদের প্রধান আলোচনার বিষয় ছিল খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা নিয়ে পর্যালোচনা। দাঁতের চিকিৎসাটা হয়েছে। আমাদের দ্বিতীয় এজেন্ডা ছিল বিভিন্ন বিভাগীয় শহরে আমাদের নেত্রীর মুক্তির জন্য সমাবেশ। ইতোমধ্যেই তিনটি বিভাগে আমাদের সমাবেশ শেষ হয়েছে। বাকিগুলো দেশের বন্যা ও ডেঙ্গু পরিস্থিতির কারণে কিছুটা বিলম্ব ঘটছে। আশাকরি বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি হলে বাকি সমাবেশগুলোও আমরা শিগগিরিই শেষ করবো।

তিনি বলেন, দেশের বন্যাদুর্গত অঞ্চলে আমাদের ত্রাণ তৎপরতা জোরদারভাবে চলছে। স্থায়ী কমিটির সদস্য ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকুর নেতৃত্বে ত্রাণ কমিটি কাজ করে যাচ্ছে। দলের সিনিয়র নেতারা বিভিন্ন বন্যাপীড়িত জেলায় ত্রাণ কার্যক্রম পরিচালনা করছেন।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, বন্যায় সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে আমার দেশের কৃষকগণ। বন্যায় কৃষকদের ফসলের মাঠ একেবারে ধ্বংস হয়ে গেছে। সেজন্য আমরা সরকারের কাছে জোর দাবি জানাচ্ছি, কৃষকদের ক্ষতি পুষিয়ে উঠতে খুব দ্রুত সহজভাবে বিনা সুদে তাদের ঋণ দিতে হবে। এছাড়া, একটি নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত কৃষকদের কাছ থেকে এনজিওরা যেন ঋণের টাকা আদায় করতে না পারে, সেজন্য সরকারকে ব্যবস্থা নিতে হবে।

তিনি বলেন, আমরা অত্যন্ত ক্ষোভের সঙ্গে, হতাশার সঙ্গে লক্ষ করেছি সরকার ডেঙ্গু নিয়ে অবহেলা করেছে। একদিকে মেয়ররা কখনও বলছে যে, ডেঙ্গু নিয়ে বাড়িয়ে বলা হচ্ছে। আবার বলছে, তারা পেরে উঠছে না। অর্থাৎ সরকার ডেঙ্গু নিয়ে সম্পূর্ণ ব্যর্থ হয়েছে। দুই সিটি করপোরেশন ডেঙ্গু নির্মূলে যে ওষুধগুলো ব্যবহার করছে তা কোনো কাজে আসছে না। কিন্তু ইতোমধ্যেই তারা ৫০ কোটি টাকা ব্যয় করে ফেলেছে। অথচ আমার এলাকায় মশা আগের মতোই আছে। দিনদিন হাসপাতালগুলোয় ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগীতে ভরে যাচ্ছে। আমাদের দলের সিনিয়র নেতা ব্যারিস্টার শাহজাহান ওমর বীরউত্তম, যুবদলের সাধারণ সম্পাদক সুলতান সালাহউদ্দিন টুকুর ছোট সন্তানসহ অসংখ্য মানুষ ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন।

ফখরুল বলেন, সরকার সম্পূর্ণ ব্যর্থ হয়ে বিএনপির বিরুদ্ধে প্রতিদিন মিথ্যা প্রলাপ বকছে। তারা বলছে, ডেঙ্গু নিয়ে বিএনপি মিথ্যা গুজব ছড়াচ্ছে। আমরা তাদের এ মিথ্যা বক্তব্যের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। এ সরকার সব ক্ষেত্রে সম্পূর্ণভাবে ব্যর্থ হয়ে তাদের ব্যর্থতা ঢাকতেই মিথ্যা প্রপাগান্ডা চালিয়ে যাচ্ছে।

জানা গেছে, কারাবন্দি বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি, ছাত্রদলের চলমান সংকট নিরসন ও বর্তমান রাজনীতির সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে রুদ্ধদ্বার বৈঠক করেন দলের সর্বোচ্চ নীতি নির্ধারণী ফোরাম জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্যরা। বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন- বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, ড. আবদুল মঈন খান, নজরুল ইসলাম খান, বেগম সেলিমা রহমান, ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু।
লন্ডন থেকে স্কাইপির মাধ্যমে বৈঠকে যুক্ত হয়েছিলেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান।