ঢাকা ০৯:৫৮ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম :
Logo যমুনা লাইফের গ্রাহক প্রতারণায় ‘জড়িতরা’ কে কোথায় Logo ঢাকাস্থ ভোলা সাংবাদিক ফোরামের সভাপতি আহসান কামরুল, সম্পাদক জিয়াউর রহমান Logo টাটা মটরস বাংলাদেশে উদ্বোধন করলো টাটা যোদ্ধা Logo আশা শিক্ষা কর্মসূচী কর্তৃক অভিভাবক মতবিনিময় সভা Logo গণপূর্ত প্রধান প্রকৌশলীর গাড়ি চাপায় পিষ্ট সহকারী প্রকৌশলী -উত্তাল গণপূর্ত Logo শাবিপ্রবির বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের উদ্যোগে বৃক্ষরোপণ Logo সওজের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী নাহিনুরের সীমাহীন সম্পদ ও অনিয়ম -পর্ব-০১ Logo তামাক সেবনের আলাদা কক্ষ বানালেন গণপূর্তের নির্বাহী প্রকৌশলী: রয়েছে দুর্নীতির পাহাড়সম অভিযোগ! Logo দেশের সর্বোচ্চ আদালতকে বৃদ্ধাঙ্গুলি: কালবে সর্বোচ্চ পদ দখলে রেখেছে আগস্টিন! Logo আইআইএফসি ও মার্কটেল বাংলাদেশ’র মধ্যে কৌশলগত সহযোগিতা ও সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর




২০ বছর পর হাঁটতে শিখেছে শিশু চম্পা !

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৮:৫৭:৩৭ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২১ জুন ২০১৯ ৬৬ বার পড়া হয়েছে

জেলা প্রতিনিধি;
২০ বছর বয়স হলেও শিশুই রয়ে গেছে চম্পা। চার মাস আগেও চম্পার একমাত্র আশ্রয় ছিল বড় বোন ময়না ও মা মিনুয়ারার কোল। এখন সে হাঁটতে পারে। ঝিনাইদহ শহরের আলফালাহ হাসপাতালে ডা. অলোক কুমার সাহার চেম্বারে গিয়ে দেখা যায় চম্পা দুষ্টামি করাসহ মেঝেজুড়ে হাঁটাহাঁটি আর অন্য শিশুদের সঙ্গে খুনসুটি করে বেড়াচ্ছে।

চার মাস আগে গণমাধ্যম ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ২০ বছর বয়সী শিশু চম্পার দুর্বিষহ জীবন কাটানোর খবর প্রকাশিত হলে চিকিৎসার দায়িত্ব নেন শিশু বিশেষজ্ঞ প্রফেসর ডা. অলোক কুমার সাহা। ডাক্তারের ওষুধ সেবন করে চার মাসের মধ্যে কোল থেকে নেমে কেবল হাঁটা শিখেছে চম্পা।

২০ বছর বয়সী চম্পা খাতুন ‘শিশু’ কেবল হাসতে আর কাঁদতে পারতো। বয়স বাড়লেও বাড়েনি অঙ্গ প্রত্যঙ্গ। নেই শরীরের কোনো পরিবর্তন। যে বয়সে পড়ালেখা বা বিয়ের রঙ্গিন স্বপ্ন থাকার কথা সেই বয়সে চম্পা মায়ের কোলে চেপে বসে থাকে।

এখন তার শারীরিক বৃদ্ধির অপেক্ষা। চম্পা ঝিনাইদহ সদর উপজেলার বংকিরা গ্রামের হাসেম আলী মোল্লার মেয়ে। বহুমাত্রিক প্রতিবন্ধী হিসেবে সমাজসেবা থেকে তার নাম নিবন্ধিত করা হয়েছে। সে থাইরয়েডিজম রোগে আক্রান্ত।

চম্পার মা মিনুয়ারা বেগম জানান, ১৯৯৯ সালের ২৮ এপ্রিল চম্পা খাতুনের জন্ম। জন্মের পর থেকে সে প্রতিবন্ধী। আচরণ করে শিশুর মতো। কোনো কথা বলতে পারে না। কেবল হাসতে আর কাঁদতে পারে। সারাক্ষণ মানুষের কোলে কোলেই তার দিন কাটাতো। চার মাস চিকিৎসার পর এখন সে হাঁটতে পারছে।

শিশু রোগ বিশেষজ্ঞ প্রফেসর ডা. অলোক কুমার সাহা জানান, এ রোগটিকে বলে থাইরয়েডিজম। শিশুকাল থেকে চিকিৎসা করা হলে রোগটি ভালো হতো। কিন্তু এখন তার শারীরিক বৃদ্ধির বিষয়টি রয়েছে ঝুঁকির মধ্যে।

তিনি বলেন, থাইরয়েড পরীক্ষার পর এ রোগের চিকিৎসা শুরু করে চার মাসে চম্পা হাটতে শিখেছে। তিনি আরও বলেন, ২০ বছরের শিশু চম্পা আরও বড় হবে। তার বুদ্ধি বাড়বে। নিজের কাজ নিজে করতে পারবে বলে তিনি আশা করছেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :




২০ বছর পর হাঁটতে শিখেছে শিশু চম্পা !

আপডেট সময় : ০৮:৫৭:৩৭ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২১ জুন ২০১৯

জেলা প্রতিনিধি;
২০ বছর বয়স হলেও শিশুই রয়ে গেছে চম্পা। চার মাস আগেও চম্পার একমাত্র আশ্রয় ছিল বড় বোন ময়না ও মা মিনুয়ারার কোল। এখন সে হাঁটতে পারে। ঝিনাইদহ শহরের আলফালাহ হাসপাতালে ডা. অলোক কুমার সাহার চেম্বারে গিয়ে দেখা যায় চম্পা দুষ্টামি করাসহ মেঝেজুড়ে হাঁটাহাঁটি আর অন্য শিশুদের সঙ্গে খুনসুটি করে বেড়াচ্ছে।

চার মাস আগে গণমাধ্যম ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ২০ বছর বয়সী শিশু চম্পার দুর্বিষহ জীবন কাটানোর খবর প্রকাশিত হলে চিকিৎসার দায়িত্ব নেন শিশু বিশেষজ্ঞ প্রফেসর ডা. অলোক কুমার সাহা। ডাক্তারের ওষুধ সেবন করে চার মাসের মধ্যে কোল থেকে নেমে কেবল হাঁটা শিখেছে চম্পা।

২০ বছর বয়সী চম্পা খাতুন ‘শিশু’ কেবল হাসতে আর কাঁদতে পারতো। বয়স বাড়লেও বাড়েনি অঙ্গ প্রত্যঙ্গ। নেই শরীরের কোনো পরিবর্তন। যে বয়সে পড়ালেখা বা বিয়ের রঙ্গিন স্বপ্ন থাকার কথা সেই বয়সে চম্পা মায়ের কোলে চেপে বসে থাকে।

এখন তার শারীরিক বৃদ্ধির অপেক্ষা। চম্পা ঝিনাইদহ সদর উপজেলার বংকিরা গ্রামের হাসেম আলী মোল্লার মেয়ে। বহুমাত্রিক প্রতিবন্ধী হিসেবে সমাজসেবা থেকে তার নাম নিবন্ধিত করা হয়েছে। সে থাইরয়েডিজম রোগে আক্রান্ত।

চম্পার মা মিনুয়ারা বেগম জানান, ১৯৯৯ সালের ২৮ এপ্রিল চম্পা খাতুনের জন্ম। জন্মের পর থেকে সে প্রতিবন্ধী। আচরণ করে শিশুর মতো। কোনো কথা বলতে পারে না। কেবল হাসতে আর কাঁদতে পারে। সারাক্ষণ মানুষের কোলে কোলেই তার দিন কাটাতো। চার মাস চিকিৎসার পর এখন সে হাঁটতে পারছে।

শিশু রোগ বিশেষজ্ঞ প্রফেসর ডা. অলোক কুমার সাহা জানান, এ রোগটিকে বলে থাইরয়েডিজম। শিশুকাল থেকে চিকিৎসা করা হলে রোগটি ভালো হতো। কিন্তু এখন তার শারীরিক বৃদ্ধির বিষয়টি রয়েছে ঝুঁকির মধ্যে।

তিনি বলেন, থাইরয়েড পরীক্ষার পর এ রোগের চিকিৎসা শুরু করে চার মাসে চম্পা হাটতে শিখেছে। তিনি আরও বলেন, ২০ বছরের শিশু চম্পা আরও বড় হবে। তার বুদ্ধি বাড়বে। নিজের কাজ নিজে করতে পারবে বলে তিনি আশা করছেন।