ঢাকা ০৬:৩০ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৮ মে ২০২৪, ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম :
Logo গণপূর্ত প্রধান প্রকৌশলীর গাড়ি চাপায় পিষ্ট সহকারী প্রকৌশলী -উত্তাল গণপূর্ত Logo শাবিপ্রবির বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের উদ্যোগে বৃক্ষরোপণ Logo সওজের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী নাহিনুরের সীমাহীন সম্পদ ও অনিয়ম -পর্ব-০১ Logo তামাক সেবনের আলাদা কক্ষ বানালেন গণপূর্তের নির্বাহী প্রকৌশলী: রয়েছে দুর্নীতির পাহাড়সম অভিযোগ! Logo দেশের সর্বোচ্চ আদালতকে বৃদ্ধাঙ্গুলি: কালবে সর্বোচ্চ পদ দখলে রেখেছে আগস্টিন! Logo আইআইএফসি ও মার্কটেল বাংলাদেশ’র মধ্যে কৌশলগত সহযোগিতা ও সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর Logo ফায়ার সার্ভিস সদর দপ্তর পরিদর্শনে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী Logo সর্বজনীন পেনশন প্রত্যাহারে শাবি শিক্ষক সমিতি মৌন মিছিল ও কালোব্যাজ ধারণ Logo শাবিপ্রবিতে কুমিল্লা স্টুডেন্টস এসোসিয়েশনের নবীনবরণ অনুষ্ঠিত Logo শাবিপ্রবি কেন্দ্রে সুষ্ঠভাবে গুচ্ছভর্তির তিন ইউনিটের পরীক্ষা সম্পন্ন




মঠবাড়িয়ায় নৌকা সমর্থকদের ওপর হামলা, মা-মেয়ে আহত

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৮:২০:৪৫ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২১ জুন ২০১৯ ৬২ বার পড়া হয়েছে

মঠবাড়িয়া (পিরোজপুর) প্রতিনিধিঃ
পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় সদ্য সমাপ্ত উপজেলা নির্বাচনে পরাজিত নৌকা সমর্থক ও নেতাকর্মীদের ওপর বিজয়ী স্বতন্ত্র প্রার্থীর সমর্থকদের হামলা থামছেই না।

নির্বাচন পরবর্তী গত তিন দিনে পৌরশহর ও উপজেলার ১১ ইউনিয়নে বিভিন্ন এলাকায় পরাজিত নৌকা প্রার্থীর নেতাকর্মী ও সমর্থকদের ওপরসহ তাদের বসত বাড়িতে একাধিক হামলার ঘটনা ঘটেছে।

শুক্রবার সকালে নৌকা প্রার্থী হোসাইন মোশারফ সাকুর সমর্থক উপজেলার মিরুখালীর কাটাখালী গ্রামের কৃষক হাসান (৪৫) ঘর থেকে মাঠে কৃষি কাজে যাবার পথে বিজয়ী চেয়ারম্যান রিয়াজ উদ্দিনের সমর্থক নবী হোসেন, বাদশা ও শাজাহান দলবল নিয়ে হামলা করে আহত করে।

এ সময় তার ছোট ভাই নির্মাণ শ্রমিক নুর মোহাম্মদ (৩৫) বড় ভাইকে বাঁচাতে এলে তাকেও পিটিয়ে আহত করা হয়। আহত দুই ভাইকে স্থানীয়রা উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।

অপরদিকে শুক্রবার সকালে নৌকার কর্মী মিরুখালী বাজারের ফল ব্যবসায়ী ও ওয়ার্ড যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. মোস্তফার ছোটহারজী গ্রামে তার বাড়িতে না পেয়ে বিজয়ী প্রার্থীর কর্মী রাজু, জসিম ও হানিফসহ দলবলসহ মোস্তফার স্ত্রী জাহানারা বেগম (৩৫) ও কলেজ পড়ুয়া মেয়ে নাদিরাকে (১৮) লাঞ্ছিত ও পিটিয়ে জখম করে। আহত মা-মেয়েকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

আহত মা-মেয়ে অভিযোগ করে বলেন, ওই হামলাকারীরা মিরুখালী বাজারে আমাদের ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানে হামলা ও লুটপাট করে বন্ধ করে দেয়। তারা আরও বলেন, মোস্তফা নির্বাচনী ফলাফল ঘোষণার পর থেকে হামলার ভয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন।

এ ছাড়া গত বৃহস্পতিবার সকালে উপজেলার রাজারহাট গ্রামে নৌকা সমর্থক নারী ইউপি সদস্য খাদিজা ইলিয়াসের বসতঘরে হামলা ও লুটপাটের ঘটনায় ওই দিন রাতে মঠবাড়িয়া থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।

ওই মামলায় বিজয়ী প্রার্থীর সমর্থক দাউদখালী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি রজলুর রহমান সরদারসহ ১৪ জনকে আসামি করা হয়। পুলিশ ইদ্রিস নামে একজনকে গ্রেফতার করে।

এদিকে বৃহস্পতিবার রাতে উপজেলার ছোট শিংগা গ্রামে গভীর রাতে শংকর হালদার, চিত্তরঞ্জন গাইন, চঞ্চল গাইন, বিশ্বজিৎ গাইন, অমৃত গাইন, স্বপন মিস্ত্রি, পারুলেরসহ এক সঙ্গে ৭টি কুটারকুট (খড়ের) গাদায় আগুন দেয় দুর্বৃত্তরা। এ ঘটনার পর এলাকায় আতংক বিরাজ করছে। ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলো বলছে, উপজেলা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে ব্যক্তিগত শত্রুতা মেটানোর জন্য এ হামলা করছে।

উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও পৌর মেয়র রফিউদ্দিন আহমেদ ফেরদৌস অভিযোগ করেন, নৌকা প্রার্থীর পক্ষে কাজ করায় স্বতন্ত্র বিজয়ী প্রার্থীর কর্মী-সমর্থকরা আমাদের অগনিত নেতাকর্মীর ওপর হামলা করছে।

তিনি আরও বলেন, নৌকার কর্মী-সমর্থকদের বসতঘরেও হামলার ঘটনা ঘটছে। এমনকি সংখ্যালঘুরা হামলার শিকার হয়ে বাড়িঘর ছেড়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন।

বিজয়ী স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. রিয়াজ উদ্দিন বলেন, মা ও মেয়ের ওপর হামলার ঘটনাটি আমার জানা নেই। নির্বাচনের আগে হামলার জের ধরে দুই একটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা ঘটেছে। যা আমি কঠোর হস্তে দমন করার চেষ্টা করছি।

মঠবাড়িয়া থানার ওসি সৈয়দ আবদুল্লাহ বলেন, নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতা ঠেকাতে পুলিশ তৎপর রয়েছে। মা ও মেয়ের ওপর হামলার ঘটনায় লিখিত অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :




মঠবাড়িয়ায় নৌকা সমর্থকদের ওপর হামলা, মা-মেয়ে আহত

আপডেট সময় : ০৮:২০:৪৫ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২১ জুন ২০১৯

মঠবাড়িয়া (পিরোজপুর) প্রতিনিধিঃ
পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় সদ্য সমাপ্ত উপজেলা নির্বাচনে পরাজিত নৌকা সমর্থক ও নেতাকর্মীদের ওপর বিজয়ী স্বতন্ত্র প্রার্থীর সমর্থকদের হামলা থামছেই না।

নির্বাচন পরবর্তী গত তিন দিনে পৌরশহর ও উপজেলার ১১ ইউনিয়নে বিভিন্ন এলাকায় পরাজিত নৌকা প্রার্থীর নেতাকর্মী ও সমর্থকদের ওপরসহ তাদের বসত বাড়িতে একাধিক হামলার ঘটনা ঘটেছে।

শুক্রবার সকালে নৌকা প্রার্থী হোসাইন মোশারফ সাকুর সমর্থক উপজেলার মিরুখালীর কাটাখালী গ্রামের কৃষক হাসান (৪৫) ঘর থেকে মাঠে কৃষি কাজে যাবার পথে বিজয়ী চেয়ারম্যান রিয়াজ উদ্দিনের সমর্থক নবী হোসেন, বাদশা ও শাজাহান দলবল নিয়ে হামলা করে আহত করে।

এ সময় তার ছোট ভাই নির্মাণ শ্রমিক নুর মোহাম্মদ (৩৫) বড় ভাইকে বাঁচাতে এলে তাকেও পিটিয়ে আহত করা হয়। আহত দুই ভাইকে স্থানীয়রা উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।

অপরদিকে শুক্রবার সকালে নৌকার কর্মী মিরুখালী বাজারের ফল ব্যবসায়ী ও ওয়ার্ড যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. মোস্তফার ছোটহারজী গ্রামে তার বাড়িতে না পেয়ে বিজয়ী প্রার্থীর কর্মী রাজু, জসিম ও হানিফসহ দলবলসহ মোস্তফার স্ত্রী জাহানারা বেগম (৩৫) ও কলেজ পড়ুয়া মেয়ে নাদিরাকে (১৮) লাঞ্ছিত ও পিটিয়ে জখম করে। আহত মা-মেয়েকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

আহত মা-মেয়ে অভিযোগ করে বলেন, ওই হামলাকারীরা মিরুখালী বাজারে আমাদের ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানে হামলা ও লুটপাট করে বন্ধ করে দেয়। তারা আরও বলেন, মোস্তফা নির্বাচনী ফলাফল ঘোষণার পর থেকে হামলার ভয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন।

এ ছাড়া গত বৃহস্পতিবার সকালে উপজেলার রাজারহাট গ্রামে নৌকা সমর্থক নারী ইউপি সদস্য খাদিজা ইলিয়াসের বসতঘরে হামলা ও লুটপাটের ঘটনায় ওই দিন রাতে মঠবাড়িয়া থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।

ওই মামলায় বিজয়ী প্রার্থীর সমর্থক দাউদখালী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি রজলুর রহমান সরদারসহ ১৪ জনকে আসামি করা হয়। পুলিশ ইদ্রিস নামে একজনকে গ্রেফতার করে।

এদিকে বৃহস্পতিবার রাতে উপজেলার ছোট শিংগা গ্রামে গভীর রাতে শংকর হালদার, চিত্তরঞ্জন গাইন, চঞ্চল গাইন, বিশ্বজিৎ গাইন, অমৃত গাইন, স্বপন মিস্ত্রি, পারুলেরসহ এক সঙ্গে ৭টি কুটারকুট (খড়ের) গাদায় আগুন দেয় দুর্বৃত্তরা। এ ঘটনার পর এলাকায় আতংক বিরাজ করছে। ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলো বলছে, উপজেলা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে ব্যক্তিগত শত্রুতা মেটানোর জন্য এ হামলা করছে।

উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও পৌর মেয়র রফিউদ্দিন আহমেদ ফেরদৌস অভিযোগ করেন, নৌকা প্রার্থীর পক্ষে কাজ করায় স্বতন্ত্র বিজয়ী প্রার্থীর কর্মী-সমর্থকরা আমাদের অগনিত নেতাকর্মীর ওপর হামলা করছে।

তিনি আরও বলেন, নৌকার কর্মী-সমর্থকদের বসতঘরেও হামলার ঘটনা ঘটছে। এমনকি সংখ্যালঘুরা হামলার শিকার হয়ে বাড়িঘর ছেড়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন।

বিজয়ী স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. রিয়াজ উদ্দিন বলেন, মা ও মেয়ের ওপর হামলার ঘটনাটি আমার জানা নেই। নির্বাচনের আগে হামলার জের ধরে দুই একটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা ঘটেছে। যা আমি কঠোর হস্তে দমন করার চেষ্টা করছি।

মঠবাড়িয়া থানার ওসি সৈয়দ আবদুল্লাহ বলেন, নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতা ঠেকাতে পুলিশ তৎপর রয়েছে। মা ও মেয়ের ওপর হামলার ঘটনায় লিখিত অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।