ঢাকা ০১:৩৯ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৯ মে ২০২৩, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩০ বঙ্গাব্দ




শতাধিক পলাতক কয়েদিকে ধরতে পুলিশি অভিযান

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০২:০০:১৪ অপরাহ্ন, শনিবার, ১১ মে ২০১৯ ৪৪ বার পড়া হয়েছে

অনলাইন ডেস্ক;
ইন্দোনেশিয়ার সুমাত্রা দ্বীপের কারাগার থেকে পালানো শতাধিক কয়েদিকে ধরতে শনিবার পুলিশ ব্যাপক অভিযান শুরু করেছে। খবর বার্তা সংস্থা এএফপি’র।

পুলিশ জানায়, ভোরবেলা সুমাত্রার সিয়াক জেলার ওই কারাগারে দাঙ্গা বেঁধে যায়। এরপর সেখানে আগুন ধরে গেলে কয়েদিরা পালিয়ে যায়।

স্থানীয় একটি টেলিভিশনের ফুটেজে আটক কেন্দ্রটিতে আগুন ছড়িয়ে পড়তে দেখা গেছে।

রিয়াউ প্রদেশের পুলিশ প্রধান উইদোদো একো প্রিহাস্টোপো বলেন, পলাতক কয়েদিকে ধরতে কর্তৃপক্ষ বড় ধরনের অভিযান শুরু করেছে। দুপুর নাগাদ ১শ ১৫ কয়েদিকে পুনরায় আটক করা হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, এখনো বেশ কয়েকজন কয়েদি পলাতক রয়েছে। এই কারাগারে প্রায় ৬৫০ কয়েদিকে আটক রাখা হয়েছিল।

প্রিহাস্টোপো বলেন, ‘পুলিশ সেনাবাহিনী ও আপশাপাশের বাসিন্দাদের সহায়তায় এখনো বাকি পলাতক আসামিদের ধরতে তল্লাশী চালাচ্ছে।’

পুলিশ জানায়, কয়েকজন কয়েদি ড্রাগ ব্যবহার করতে গিয়ে ধরা পড়লে রক্ষিরা তাদের মারধর করার পর দাঙ্গা শুরু হয়।

এ সময় তিন বন্দি ছুরিকাহত ও এক পুলিশ গুলিতে আহত হয়।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :




শতাধিক পলাতক কয়েদিকে ধরতে পুলিশি অভিযান

আপডেট সময় : ০২:০০:১৪ অপরাহ্ন, শনিবার, ১১ মে ২০১৯

অনলাইন ডেস্ক;
ইন্দোনেশিয়ার সুমাত্রা দ্বীপের কারাগার থেকে পালানো শতাধিক কয়েদিকে ধরতে শনিবার পুলিশ ব্যাপক অভিযান শুরু করেছে। খবর বার্তা সংস্থা এএফপি’র।

পুলিশ জানায়, ভোরবেলা সুমাত্রার সিয়াক জেলার ওই কারাগারে দাঙ্গা বেঁধে যায়। এরপর সেখানে আগুন ধরে গেলে কয়েদিরা পালিয়ে যায়।

স্থানীয় একটি টেলিভিশনের ফুটেজে আটক কেন্দ্রটিতে আগুন ছড়িয়ে পড়তে দেখা গেছে।

রিয়াউ প্রদেশের পুলিশ প্রধান উইদোদো একো প্রিহাস্টোপো বলেন, পলাতক কয়েদিকে ধরতে কর্তৃপক্ষ বড় ধরনের অভিযান শুরু করেছে। দুপুর নাগাদ ১শ ১৫ কয়েদিকে পুনরায় আটক করা হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, এখনো বেশ কয়েকজন কয়েদি পলাতক রয়েছে। এই কারাগারে প্রায় ৬৫০ কয়েদিকে আটক রাখা হয়েছিল।

প্রিহাস্টোপো বলেন, ‘পুলিশ সেনাবাহিনী ও আপশাপাশের বাসিন্দাদের সহায়তায় এখনো বাকি পলাতক আসামিদের ধরতে তল্লাশী চালাচ্ছে।’

পুলিশ জানায়, কয়েকজন কয়েদি ড্রাগ ব্যবহার করতে গিয়ে ধরা পড়লে রক্ষিরা তাদের মারধর করার পর দাঙ্গা শুরু হয়।

এ সময় তিন বন্দি ছুরিকাহত ও এক পুলিশ গুলিতে আহত হয়।