ঢাকা ০৮:২৯ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম :
Logo এমপি আনার খুন: রহস্যময় রূপে শীর্ষ দুই ব্যবসায়ী Logo রূপালী ব্যাংকের ডিজিএম কর্তৃক সহকর্মী নারীকে যৌন হয়রানি: ধামাচাপা দিতে মরিয়া তদন্ত কমিটি Logo প্রতিবন্ধী ভাতার টাকা হাতিয়ে বহাল তবিয়তে মাদারীপুরের দুই সহকারী সমাজসেবা অফিসারl Logo যমুনা লাইফের গ্রাহক প্রতারণায় ‘জড়িতরা’ কে কোথায় Logo ঢাকাস্থ ভোলা সাংবাদিক ফোরামের সভাপতি আহসান কামরুল, সম্পাদক জিয়াউর রহমান Logo টাটা মটরস বাংলাদেশে উদ্বোধন করলো টাটা যোদ্ধা Logo আশা শিক্ষা কর্মসূচী কর্তৃক অভিভাবক মতবিনিময় সভা Logo গণপূর্ত প্রধান প্রকৌশলীর গাড়ি চাপায় পিষ্ট সহকারী প্রকৌশলী -উত্তাল গণপূর্ত Logo শাবিপ্রবির বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের উদ্যোগে বৃক্ষরোপণ Logo সওজের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী নাহিনুরের সীমাহীন সম্পদ ও অনিয়ম -পর্ব-০১




চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে নারী ইউপি সদস্যের মানহানি মামলা

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ১২:০৯:০৫ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ৯ এপ্রিল ২০১৯ ৯১ বার পড়া হয়েছে

কলাপাড়া (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি

পটুয়াখালীর কলাপাড়া উপজেলায় নারী ইউপি সদস্যকে দুশ্চরিত্রা বলায় ডালবুগঞ্জ ইউপি চেয়ারম্যান সালাম সিকদারের বিরুদ্ধে ৫০ লাখ টাকার মানহানি মামলা দায়ের করা হয়েছে।

নারী ইউপি সদস্য সাহানারা বেগম বাদী হয়ে সোমবার কলাপাড়া সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে এ মামলা দায়ের করেন।

কলাপাড়া সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট এএইচএম ইমরানুর রহমানের আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে জুডিসিয়াল তদন্তের আদেশ প্রদান করেন।

আদালত ও মামলা সূত্রে জানা যায়, গত ৩ এপ্রিল রাতে ডালবুগঞ্জ ইউপি চেয়ারম্যান সালাম সিকদার নারী ইউপি সদস্য সাহানারার বিরুদ্ধে মান হানিকর তথ্যসংবলিত তার লিখিত বক্তব্য স্বাক্ষর করে স্থানীয় প্রেসক্লাব হলরুমে সাংবাদিকদের সামনে তা উপস্থাপন করেন। এতে সাহানারার মানসম্মান নষ্ট করার উদ্দেশ্যে তাকে ’দুশ্চরিত্র’নারী বলে উল্লেখ করা হয়।

এ সময় একজন সাংবাদিক তার কাছে ওই নারী ইউপি সদস্যকে দুশ্চরিত্র নারী বলার এমন কি তথ্যপ্রমাণ আছে? প্রশ্ন করার পর চেয়ারম্যান প্রশ্নোত্তরে পুনরায় ওই নারী ইউপি সদস্যকে দুশ্চরিত্র নারী ছাড়াও আরও মানহানিকর অপবাদ দেয়।

চেয়ারম্যানের মানহানিকর বক্তব্যসংবলিত সংবাদ সম্মেলনের এ তথ্য গণমাধ্যমে প্রকাশ পেলে ওই নারী ইউপি সদস্য সাহানারর ৫০ লাখ টাকার মানহানি হয় বলে তিনি মামলায় উল্লেখ করেছেন।

সূত্র জানায়, মামলায় আরও ৫-৭ জনকে অজ্ঞাত আসামি করা হয়েছে। অজ্ঞাতনামা ওই সব আসামি ৩ এপ্রিল রাত অনুমান ১০টা থেকে ২টার মধ্যে বাদীর রোপিত ১৫০টি আকাশমনি গাছের চারা ভেঙে, পুকুর ও মাছের ঘেরে বিষ প্রয়োগ করে দুই লাখ টাকার ক্ষতিসাধন করে এবং এক লাখ ২০ হাজার টাকা মূল্যের একটি গাভী গরু চুরি করে। এছাড়া চেয়ারম্যানের হুমকিতে বাদী বর্তমানে নিরাপত্তাহীনতায় রয়েছেন বলে তার মামলায় উল্লেখ করেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :




চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে নারী ইউপি সদস্যের মানহানি মামলা

আপডেট সময় : ১২:০৯:০৫ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ৯ এপ্রিল ২০১৯

কলাপাড়া (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি

পটুয়াখালীর কলাপাড়া উপজেলায় নারী ইউপি সদস্যকে দুশ্চরিত্রা বলায় ডালবুগঞ্জ ইউপি চেয়ারম্যান সালাম সিকদারের বিরুদ্ধে ৫০ লাখ টাকার মানহানি মামলা দায়ের করা হয়েছে।

নারী ইউপি সদস্য সাহানারা বেগম বাদী হয়ে সোমবার কলাপাড়া সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে এ মামলা দায়ের করেন।

কলাপাড়া সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট এএইচএম ইমরানুর রহমানের আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে জুডিসিয়াল তদন্তের আদেশ প্রদান করেন।

আদালত ও মামলা সূত্রে জানা যায়, গত ৩ এপ্রিল রাতে ডালবুগঞ্জ ইউপি চেয়ারম্যান সালাম সিকদার নারী ইউপি সদস্য সাহানারার বিরুদ্ধে মান হানিকর তথ্যসংবলিত তার লিখিত বক্তব্য স্বাক্ষর করে স্থানীয় প্রেসক্লাব হলরুমে সাংবাদিকদের সামনে তা উপস্থাপন করেন। এতে সাহানারার মানসম্মান নষ্ট করার উদ্দেশ্যে তাকে ’দুশ্চরিত্র’নারী বলে উল্লেখ করা হয়।

এ সময় একজন সাংবাদিক তার কাছে ওই নারী ইউপি সদস্যকে দুশ্চরিত্র নারী বলার এমন কি তথ্যপ্রমাণ আছে? প্রশ্ন করার পর চেয়ারম্যান প্রশ্নোত্তরে পুনরায় ওই নারী ইউপি সদস্যকে দুশ্চরিত্র নারী ছাড়াও আরও মানহানিকর অপবাদ দেয়।

চেয়ারম্যানের মানহানিকর বক্তব্যসংবলিত সংবাদ সম্মেলনের এ তথ্য গণমাধ্যমে প্রকাশ পেলে ওই নারী ইউপি সদস্য সাহানারর ৫০ লাখ টাকার মানহানি হয় বলে তিনি মামলায় উল্লেখ করেছেন।

সূত্র জানায়, মামলায় আরও ৫-৭ জনকে অজ্ঞাত আসামি করা হয়েছে। অজ্ঞাতনামা ওই সব আসামি ৩ এপ্রিল রাত অনুমান ১০টা থেকে ২টার মধ্যে বাদীর রোপিত ১৫০টি আকাশমনি গাছের চারা ভেঙে, পুকুর ও মাছের ঘেরে বিষ প্রয়োগ করে দুই লাখ টাকার ক্ষতিসাধন করে এবং এক লাখ ২০ হাজার টাকা মূল্যের একটি গাভী গরু চুরি করে। এছাড়া চেয়ারম্যানের হুমকিতে বাদী বর্তমানে নিরাপত্তাহীনতায় রয়েছেন বলে তার মামলায় উল্লেখ করেন।