ঢাকা ১২:১৯ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২২, ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম :




ব্লগার ওয়াশিকুর রহমান ওরফে বাবু হত্যা মামলা

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০১:৪৮:২৯ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৬ মার্চ ২০১৯ ১৮ বার পড়া হয়েছে

ঘটনার তারিখ ও সময়ঃ ৩০/০৬/২০১৫ খ্রিঃ, সময়ঃ- সকাল ০৯.৩০ টা ।

ঘটনাস্থলঃ তেজগাঁও শিল্পাঞ্চল থানাধীন ৪/২ দক্ষিণ বেগুনবাড়ীস্থ রাস্তার উপর।

বাদীঃ মোঃ মনির হোসেন মাসুদ (ভিকটিমের বোন জামাই)।

মামলা নং ও তারিখ: তেজগাঁও শিল্পাঞ্চল থানার মামলা নং ২৭, তারিখ-৩০/০৩/২০১৫ ইং।

ধারাঃ ৩০২/৩৪ পেনাল কোড।

তদন্তকারী সংস্থাঃ গোয়েন্দা ও অপরাধ তথ্য বিভাগ, ডিএমপি, ঢাকা।

মোট অভিযুক্তঃ ০৮ জন।

মোট সাক্ষীঃ ৪০ জন।

মোট নিহতঃ ০১ জন (ওয়াশিকুর রহমান ওরফে বাবু)।

মোট আলামতঃ ১৮ টি।

ফৌজদারী কার্যবিধি ১৬৪ ধারায় জবানবন্দিঃ ০১ (এক) জন।

এজাহারের সংক্ষিপ্ত বিবরণঃ বাদী মোঃ মনির হোসেন মাসুদ অভিযোগ করেন যে তার শ্যালক ওয়াশিকুর রহমান ওরফে বাবু ইং-৩০/০৩/২০১৮ তারিখ সকাল ০৯.৩০ টায় তার ভাড়া বাসা ৪/৩/এ বিসমিল্লাহ মঞ্জিল থেকে কর্মস্থল মতিঝিলস্থ ৪৯ নং ফারইস্ট এ্যভিয়েশন এর উদ্দেশ্যে রওনা হলে তেজগাঁও শিল্পাঞ্চল থানাধীন ৪/২ দক্ষিণ বেগুনবাড়ীস্থ রাস্তার উপর আসা মাত্র পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী ওৎ পেতে থাকা আসামী ১। জিকরুল্লাহ (১৯), ২। আরিফুল ইসলাম (১৯), ৩। তাহের ও ৪। মাসুদ’গণ তাদের হাতে থাকা চাপাতি দিয়ে হত্যার উদ্দেশ্যে বাদীর শ্যালকের মুখমন্ডল, মাথা ও গলায় এলোপাথারি ভাবে কুপিয়ে গুরুতর জখম করে পালিয়ে যাওয়ার সময় স্থানীয় জনতার ডাক চিৎকারে পার্শ্বে টহলরত পুলিশ জনগণের সহায়তায় জিকরুল্লাহ এবং আরিফুল ইসলামকে রক্তমাখা চাপাতিসহ হাতেনাতে ধৃত করে এবং টহলরত পুলিশ বাদীর শ্যালককে জরুরী ভিত্তিতে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়া যায়। কর্তব্যরত ডাক্তার ওয়াশিকুর রহমান ওরফে বাবুকে মৃত ঘোষণা করেন।

তদন্তঃ চাঞ্চল্যকর এই মামলাটির তদন্তভার গ্রহণ করে গোয়েন্দা ও অপরাধ তথ্য বিভাগ, ডিএমপি, ঢাকা। তাদের নিবিড় তদন্তে সংঘবদ্ধ উগ্রপন্থী জঙ্গি গোষ্ঠী আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের ০৮ সদস্য জড়িত থাকার তথ্য প্রমাণ পায়। তাদের মধ্যে ০৩ জনকে গ্রেফতার করে। গ্রেফতারকৃত ৩ জনের মধ্যে ০১ জন বিজ্ঞ আদালতে ফৌজদারী কার্যবিধি ১৬৪ ধারা মোতাবেক দোষ স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করে। আসামীদের ০৫ জন পলাতক আছে।

গ্রেফতারকৃত ০৩ জন হলোঃ

১। জিকরুল্লাহ ওরফে হাসান (১৯), পিতা-মঈন উদ্দিন, সাং-গজারিয়া কান্দি, থানা-রায়পুরা, জেলা-নরসিংদী। এ/পি বাসা নং-৮৬/এ নয়া নগর দক্ষিন কাজলা. থানা-যাত্রাবাড়ী, ঢাকা।

২। মোঃ আরিফুল ইসলাম ওরফে আরিফ ওরফে এরফান ওরফে মূশফিক (১৯), পিতা-তাজুল ইসলাম, সাং-বারকাউনিয়া, থানা-তিতাস, জেলা-কুমিল্লা, এ/পি কাউনিয়াবাদস্থ লাইন নং-১২, ব্লক-বি, বাসা নং-৩, মিরপুর-১১, থানা-পল্লবী, ডিএমপি, ঢাকা, এবং এ/পি বাসা নং-৮৬/এ নয়া নগর দক্ষিন কাজলা. থানা-যাত্রাবাড়ী, ঢাকা।

৩। মোঃ সাইফুল ইসলাম ওরফে মনসুর (২৩), পিতা-শাহাদৎ হোসেন, সাং-নরহরিপুর, থানা-মনোহরগঞ্জ, জেলা-কুমিল্লা। এ/পি বাসা নং-৮৬/এ নয়া নগর দক্ষিন কাজলা. থানা-যাত্রাবাড়ী, ঢাকা।

মামলার বর্তমান অবস্থাঃ মামলাটি বিজ্ঞ আদালতে বিচারাধীন।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :




ব্লগার ওয়াশিকুর রহমান ওরফে বাবু হত্যা মামলা

আপডেট সময় : ০১:৪৮:২৯ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৬ মার্চ ২০১৯

ঘটনার তারিখ ও সময়ঃ ৩০/০৬/২০১৫ খ্রিঃ, সময়ঃ- সকাল ০৯.৩০ টা ।

ঘটনাস্থলঃ তেজগাঁও শিল্পাঞ্চল থানাধীন ৪/২ দক্ষিণ বেগুনবাড়ীস্থ রাস্তার উপর।

বাদীঃ মোঃ মনির হোসেন মাসুদ (ভিকটিমের বোন জামাই)।

মামলা নং ও তারিখ: তেজগাঁও শিল্পাঞ্চল থানার মামলা নং ২৭, তারিখ-৩০/০৩/২০১৫ ইং।

ধারাঃ ৩০২/৩৪ পেনাল কোড।

তদন্তকারী সংস্থাঃ গোয়েন্দা ও অপরাধ তথ্য বিভাগ, ডিএমপি, ঢাকা।

মোট অভিযুক্তঃ ০৮ জন।

মোট সাক্ষীঃ ৪০ জন।

মোট নিহতঃ ০১ জন (ওয়াশিকুর রহমান ওরফে বাবু)।

মোট আলামতঃ ১৮ টি।

ফৌজদারী কার্যবিধি ১৬৪ ধারায় জবানবন্দিঃ ০১ (এক) জন।

এজাহারের সংক্ষিপ্ত বিবরণঃ বাদী মোঃ মনির হোসেন মাসুদ অভিযোগ করেন যে তার শ্যালক ওয়াশিকুর রহমান ওরফে বাবু ইং-৩০/০৩/২০১৮ তারিখ সকাল ০৯.৩০ টায় তার ভাড়া বাসা ৪/৩/এ বিসমিল্লাহ মঞ্জিল থেকে কর্মস্থল মতিঝিলস্থ ৪৯ নং ফারইস্ট এ্যভিয়েশন এর উদ্দেশ্যে রওনা হলে তেজগাঁও শিল্পাঞ্চল থানাধীন ৪/২ দক্ষিণ বেগুনবাড়ীস্থ রাস্তার উপর আসা মাত্র পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী ওৎ পেতে থাকা আসামী ১। জিকরুল্লাহ (১৯), ২। আরিফুল ইসলাম (১৯), ৩। তাহের ও ৪। মাসুদ’গণ তাদের হাতে থাকা চাপাতি দিয়ে হত্যার উদ্দেশ্যে বাদীর শ্যালকের মুখমন্ডল, মাথা ও গলায় এলোপাথারি ভাবে কুপিয়ে গুরুতর জখম করে পালিয়ে যাওয়ার সময় স্থানীয় জনতার ডাক চিৎকারে পার্শ্বে টহলরত পুলিশ জনগণের সহায়তায় জিকরুল্লাহ এবং আরিফুল ইসলামকে রক্তমাখা চাপাতিসহ হাতেনাতে ধৃত করে এবং টহলরত পুলিশ বাদীর শ্যালককে জরুরী ভিত্তিতে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়া যায়। কর্তব্যরত ডাক্তার ওয়াশিকুর রহমান ওরফে বাবুকে মৃত ঘোষণা করেন।

তদন্তঃ চাঞ্চল্যকর এই মামলাটির তদন্তভার গ্রহণ করে গোয়েন্দা ও অপরাধ তথ্য বিভাগ, ডিএমপি, ঢাকা। তাদের নিবিড় তদন্তে সংঘবদ্ধ উগ্রপন্থী জঙ্গি গোষ্ঠী আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের ০৮ সদস্য জড়িত থাকার তথ্য প্রমাণ পায়। তাদের মধ্যে ০৩ জনকে গ্রেফতার করে। গ্রেফতারকৃত ৩ জনের মধ্যে ০১ জন বিজ্ঞ আদালতে ফৌজদারী কার্যবিধি ১৬৪ ধারা মোতাবেক দোষ স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করে। আসামীদের ০৫ জন পলাতক আছে।

গ্রেফতারকৃত ০৩ জন হলোঃ

১। জিকরুল্লাহ ওরফে হাসান (১৯), পিতা-মঈন উদ্দিন, সাং-গজারিয়া কান্দি, থানা-রায়পুরা, জেলা-নরসিংদী। এ/পি বাসা নং-৮৬/এ নয়া নগর দক্ষিন কাজলা. থানা-যাত্রাবাড়ী, ঢাকা।

২। মোঃ আরিফুল ইসলাম ওরফে আরিফ ওরফে এরফান ওরফে মূশফিক (১৯), পিতা-তাজুল ইসলাম, সাং-বারকাউনিয়া, থানা-তিতাস, জেলা-কুমিল্লা, এ/পি কাউনিয়াবাদস্থ লাইন নং-১২, ব্লক-বি, বাসা নং-৩, মিরপুর-১১, থানা-পল্লবী, ডিএমপি, ঢাকা, এবং এ/পি বাসা নং-৮৬/এ নয়া নগর দক্ষিন কাজলা. থানা-যাত্রাবাড়ী, ঢাকা।

৩। মোঃ সাইফুল ইসলাম ওরফে মনসুর (২৩), পিতা-শাহাদৎ হোসেন, সাং-নরহরিপুর, থানা-মনোহরগঞ্জ, জেলা-কুমিল্লা। এ/পি বাসা নং-৮৬/এ নয়া নগর দক্ষিন কাজলা. থানা-যাত্রাবাড়ী, ঢাকা।

মামলার বর্তমান অবস্থাঃ মামলাটি বিজ্ঞ আদালতে বিচারাধীন।