ঢাকা ০৫:২৯ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৯ মে ২০২৪, ৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম :
Logo গণপূর্ত প্রধান প্রকৌশলীর গাড়ি চাপায় পিষ্ট সহকারী প্রকৌশলী -উত্তাল গণপূর্ত Logo শাবিপ্রবির বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের উদ্যোগে বৃক্ষরোপণ Logo সওজের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী নাহিনুরের সীমাহীন সম্পদ ও অনিয়ম -পর্ব-০১ Logo তামাক সেবনের আলাদা কক্ষ বানালেন গণপূর্তের নির্বাহী প্রকৌশলী: রয়েছে দুর্নীতির পাহাড়সম অভিযোগ! Logo দেশের সর্বোচ্চ আদালতকে বৃদ্ধাঙ্গুলি: কালবে সর্বোচ্চ পদ দখলে রেখেছে আগস্টিন! Logo আইআইএফসি ও মার্কটেল বাংলাদেশ’র মধ্যে কৌশলগত সহযোগিতা ও সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর Logo ফায়ার সার্ভিস সদর দপ্তর পরিদর্শনে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী Logo সর্বজনীন পেনশন প্রত্যাহারে শাবি শিক্ষক সমিতি মৌন মিছিল ও কালোব্যাজ ধারণ Logo শাবিপ্রবিতে কুমিল্লা স্টুডেন্টস এসোসিয়েশনের নবীনবরণ অনুষ্ঠিত Logo শাবিপ্রবি কেন্দ্রে সুষ্ঠভাবে গুচ্ছভর্তির তিন ইউনিটের পরীক্ষা সম্পন্ন




নীতিমালাতেই আটকে আছে জবির ‘ডীনস অ্যাওয়ার্ড’

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৭:০৪:১৩ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৩ অগাস্ট ২০২৩ ২৬৩ বার পড়া হয়েছে

নীতিমালাতেই আটকে আছে জবির ‘ডীনস অ্যাওয়ার্ড’

জবি প্রতিনিধি: নীতিমালা তৈরীর পর প্রায় এক বছর কেটে গেলেও ডীনস অ্যাওয়ার্ড চালু হয়নি জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে (জবি)। ফলে বিশ্ববিদ্যালয়ের সংশ্লিষ্ট অনুষদের ডীন কর্তৃক প্রদত্ত সর্বোচ্চ মেধাভিত্তিক এই পুরস্কারটি কবে নাগাদ চালু হবে সুনির্দিষ্ট করে বলতে পারেনা কেউ।

সংশ্লিষ্টদের দাবি বাজেট স্বল্পতা, সমন্বয়হীনতা, বিভাগগুলো থেকে যথাসময়ে সাড়া না পাওয়াসহ কয়েকটি কারণে অ্যাওয়ার্ডটি প্রদানের ক্ষেত্রে কিছুটা সময় লাগছে।

জানা যায়, ২০২১ সালের নভেম্বর মাসে ডীনস অ্যাওয়ার্ড চালুর নীতিগত সিদ্ধান্ত নেয় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন৷ গঠন করা হয় ডীনস ফোরাম৷ গতবছরের জুন মাসে চূড়ান্ত নীতিমালা প্রস্তুত হওয়ার কথা থাকলেও আগস্ট মাসে ডীনস ফোরামের ১১তম বৈঠকে সেটি চূড়ান্ত হয়।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ৯০তম সিন্ডিকেট সভায় ডীনস অ্যাওয়ার্ড নীতিমালাটি অনুমোদিত হয়। নীতিমালা অনুযায়ী অ্যাওয়ার্ড প্রদানে শিক্ষার্থীদের তালিকা চেয়ে অক্টোবরে রেজিস্ট্রার দপ্তর থেকে প্রতি বিভাগে চিঠি পাঠানো হয়।

তবে বিভাগগুলো থেকে নীতিমালা অনুযায়ী শিক্ষার্থীদের তালিকা সংশ্লিষ্ট অনুষদের ডীনের কাছে বিলম্বে পাঠানোর অভিযোগ রয়েছে৷ কয়েকটি বিভাগ থেকে অসম্পন্ন তালিকা পাঠানো হয়৷ এতে করে যাচাই-বাছাইয়ে জটিলতা তৈরী হয়। এখনও কিছু বিভাগ শিক্ষার্থীদের তালিকাই পাঠায়নি।

নীতিমালা অনুযায়ী, অনুষদের আওতাধীন প্রতিটি বিভাগ থেকে স্নাতক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ সর্বোচ্চ সিজিপিএ অর্জনকারী একজন শিক্ষার্থী অ্যাওয়ার্ডের জন্য মনোনীত হবে। অ্যাওয়ার্ডের জন্য মনোনীত হতে হলে স্নাতক চূড়ান্ত পরীক্ষায় ন্যূনতম সিজিপিএ ৩.৭৫ থাকতে হবে। একই বিভাগে একাধিক শিক্ষার্থী সমান সিজিপিএ অর্জন করলে তাদের প্রথম-অষ্টম সেমিস্টার পর্যন্ত প্রাপ্ত মোট নম্বর বিবেচনা করা হবে। এরপরও যদি সমতা থাকে তবে সেক্ষেত্রে এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার ফলাফল বিবেচনা করে চূড়ান্ত প্রার্থী মনোনয়ন পাবেন।

অ্যাওয়ার্ডের জন্য মনোনয়নের ক্ষেত্রে শিক্ষার্থীদের স্নাতক শ্রেণির কোনো পুন:ভর্তি, কোনো কোর্সে মানোন্নয়ন এবং সাপ্লিমেন্টারি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ থাকতে পারবে না। কোনো সেমিস্টার পরীক্ষায় এক বা একাধিক কোর্সে ‘এফ’ গ্রেড থাকা যাবে না। এছাড়া প্রতিটি সেমিস্টারে শতকরা ৮০ ভাগ উপস্থিতিসহ স্নাতক অধ্যয়নকালে কোনো প্রকার আর্থিক, একাডেমিক অথবা শৃঙ্খলাবিষয়ক শাস্তিপ্রাপ্ত হওয়া যাবে না।

জানা যায়, চলতি বছর ২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষ থেকে (যোগ্যতাসাপেক্ষে প্রতি বিভাগ থেকে ১জন) ডীনস অ্যাওয়ার্ড প্রদান করা হবে৷ অ্যাওয়ার্ডপ্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের মেডেল, সার্টিফিকেট এবং বিশেষ স্যুভিনিয়র দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে৷ শিক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবকদের আমন্ত্রণ জানিয়ে একটি অনুষ্ঠান আয়োজন করে ডীনস অ্যাওয়ার্ড প্রদান করা হবে৷

শিক্ষার্থীরা বলেন, প্রতিভা ও মেধাকে ফুটিয়ে তোলার পাশাপাশি সবার মধ্যেই আগ্রহ তৈরি হবে ডীনস অ্যাওয়ার্ড অনুষ্ঠানের মাধ্যমে৷ ২০২১ সালে অ্যাওয়ার্ড প্রদানের সিদ্ধান্তের কথা জানালেও এখন পর্যন্ত বাস্তবায়ন হয়নি৷ অ্যাওয়ার্ড প্রদানে আর বিলম্ব না করে দ্রুত দেওয়া উচিত।

বিশ্ববিদ্যালয়ের লাইফ এন্ড আর্থ সায়েন্স অনুষদের ডীন অধ্যাপক ড. মো. মনিরুজ্জামান খন্দকার বলেন, কিছু প্রতিবন্ধকতার কারণে ডীনস অ্যাওয়ার্ড প্রদানে দেরি হয়েছে৷ সবকিছুই ঠিক করা আছে৷ দ্রুতই অ্যাওয়ার্ড প্রদান করা হবে।

কলা অনুষদের ডীন অধ্যাপক ড. মো. রইছ উদ্দীন বলেন, আমরা কাজ করে যাচ্ছি৷ শিক্ষার্থীদের তালিকা যাচাই-বাছাই চলছে। আগস্টের মধ্যেই অ্যাওয়ার্ড প্রদান সম্ভব হবে বলে আশা করা যায়।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :




নীতিমালাতেই আটকে আছে জবির ‘ডীনস অ্যাওয়ার্ড’

আপডেট সময় : ০৭:০৪:১৩ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৩ অগাস্ট ২০২৩

নীতিমালাতেই আটকে আছে জবির ‘ডীনস অ্যাওয়ার্ড’

জবি প্রতিনিধি: নীতিমালা তৈরীর পর প্রায় এক বছর কেটে গেলেও ডীনস অ্যাওয়ার্ড চালু হয়নি জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে (জবি)। ফলে বিশ্ববিদ্যালয়ের সংশ্লিষ্ট অনুষদের ডীন কর্তৃক প্রদত্ত সর্বোচ্চ মেধাভিত্তিক এই পুরস্কারটি কবে নাগাদ চালু হবে সুনির্দিষ্ট করে বলতে পারেনা কেউ।

সংশ্লিষ্টদের দাবি বাজেট স্বল্পতা, সমন্বয়হীনতা, বিভাগগুলো থেকে যথাসময়ে সাড়া না পাওয়াসহ কয়েকটি কারণে অ্যাওয়ার্ডটি প্রদানের ক্ষেত্রে কিছুটা সময় লাগছে।

জানা যায়, ২০২১ সালের নভেম্বর মাসে ডীনস অ্যাওয়ার্ড চালুর নীতিগত সিদ্ধান্ত নেয় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন৷ গঠন করা হয় ডীনস ফোরাম৷ গতবছরের জুন মাসে চূড়ান্ত নীতিমালা প্রস্তুত হওয়ার কথা থাকলেও আগস্ট মাসে ডীনস ফোরামের ১১তম বৈঠকে সেটি চূড়ান্ত হয়।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ৯০তম সিন্ডিকেট সভায় ডীনস অ্যাওয়ার্ড নীতিমালাটি অনুমোদিত হয়। নীতিমালা অনুযায়ী অ্যাওয়ার্ড প্রদানে শিক্ষার্থীদের তালিকা চেয়ে অক্টোবরে রেজিস্ট্রার দপ্তর থেকে প্রতি বিভাগে চিঠি পাঠানো হয়।

তবে বিভাগগুলো থেকে নীতিমালা অনুযায়ী শিক্ষার্থীদের তালিকা সংশ্লিষ্ট অনুষদের ডীনের কাছে বিলম্বে পাঠানোর অভিযোগ রয়েছে৷ কয়েকটি বিভাগ থেকে অসম্পন্ন তালিকা পাঠানো হয়৷ এতে করে যাচাই-বাছাইয়ে জটিলতা তৈরী হয়। এখনও কিছু বিভাগ শিক্ষার্থীদের তালিকাই পাঠায়নি।

নীতিমালা অনুযায়ী, অনুষদের আওতাধীন প্রতিটি বিভাগ থেকে স্নাতক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ সর্বোচ্চ সিজিপিএ অর্জনকারী একজন শিক্ষার্থী অ্যাওয়ার্ডের জন্য মনোনীত হবে। অ্যাওয়ার্ডের জন্য মনোনীত হতে হলে স্নাতক চূড়ান্ত পরীক্ষায় ন্যূনতম সিজিপিএ ৩.৭৫ থাকতে হবে। একই বিভাগে একাধিক শিক্ষার্থী সমান সিজিপিএ অর্জন করলে তাদের প্রথম-অষ্টম সেমিস্টার পর্যন্ত প্রাপ্ত মোট নম্বর বিবেচনা করা হবে। এরপরও যদি সমতা থাকে তবে সেক্ষেত্রে এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার ফলাফল বিবেচনা করে চূড়ান্ত প্রার্থী মনোনয়ন পাবেন।

অ্যাওয়ার্ডের জন্য মনোনয়নের ক্ষেত্রে শিক্ষার্থীদের স্নাতক শ্রেণির কোনো পুন:ভর্তি, কোনো কোর্সে মানোন্নয়ন এবং সাপ্লিমেন্টারি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ থাকতে পারবে না। কোনো সেমিস্টার পরীক্ষায় এক বা একাধিক কোর্সে ‘এফ’ গ্রেড থাকা যাবে না। এছাড়া প্রতিটি সেমিস্টারে শতকরা ৮০ ভাগ উপস্থিতিসহ স্নাতক অধ্যয়নকালে কোনো প্রকার আর্থিক, একাডেমিক অথবা শৃঙ্খলাবিষয়ক শাস্তিপ্রাপ্ত হওয়া যাবে না।

জানা যায়, চলতি বছর ২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষ থেকে (যোগ্যতাসাপেক্ষে প্রতি বিভাগ থেকে ১জন) ডীনস অ্যাওয়ার্ড প্রদান করা হবে৷ অ্যাওয়ার্ডপ্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের মেডেল, সার্টিফিকেট এবং বিশেষ স্যুভিনিয়র দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে৷ শিক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবকদের আমন্ত্রণ জানিয়ে একটি অনুষ্ঠান আয়োজন করে ডীনস অ্যাওয়ার্ড প্রদান করা হবে৷

শিক্ষার্থীরা বলেন, প্রতিভা ও মেধাকে ফুটিয়ে তোলার পাশাপাশি সবার মধ্যেই আগ্রহ তৈরি হবে ডীনস অ্যাওয়ার্ড অনুষ্ঠানের মাধ্যমে৷ ২০২১ সালে অ্যাওয়ার্ড প্রদানের সিদ্ধান্তের কথা জানালেও এখন পর্যন্ত বাস্তবায়ন হয়নি৷ অ্যাওয়ার্ড প্রদানে আর বিলম্ব না করে দ্রুত দেওয়া উচিত।

বিশ্ববিদ্যালয়ের লাইফ এন্ড আর্থ সায়েন্স অনুষদের ডীন অধ্যাপক ড. মো. মনিরুজ্জামান খন্দকার বলেন, কিছু প্রতিবন্ধকতার কারণে ডীনস অ্যাওয়ার্ড প্রদানে দেরি হয়েছে৷ সবকিছুই ঠিক করা আছে৷ দ্রুতই অ্যাওয়ার্ড প্রদান করা হবে।

কলা অনুষদের ডীন অধ্যাপক ড. মো. রইছ উদ্দীন বলেন, আমরা কাজ করে যাচ্ছি৷ শিক্ষার্থীদের তালিকা যাচাই-বাছাই চলছে। আগস্টের মধ্যেই অ্যাওয়ার্ড প্রদান সম্ভব হবে বলে আশা করা যায়।