ঢাকা ০৮:৪৫ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ




মান্নানের ডোন্ট কেয়ার ভাব

পরিবার পরিকল্পনার মান্নানের হাতে জিম্মি অধিদপ্তরের হাজারো কর্মচারী পর্ব-২

বিশেষ প্রতিবেদক:
  • আপডেট সময় : ১১:২৩:৫৮ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৮ মার্চ ২০২৩ ৩০৭ বার পড়া হয়েছে

বিশেষ প্রতিবেদক:  পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক মান্নান। তার ভেলকিবাজি, অসম ক্ষমতা, অনিয়মের দূরদর্শিতা সহ নিয়ম-নীতির থোড়াসে তোয়াক্কা না করার সব কান্ড-কারখানা শুনলে যেকারো মনে প্রশ্ন জাগতেই পারে পরিচালকের চেয়েও কি বেশি ক্ষমতাধর সহকারী পরিচালক? যে যাই বলুক যে যাই ভাবুক মান্নান। আরামছে আখের গোছাতে ব্যস্ত নিতি নিজের স্বমহিমায়।

পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের ঘুষখোর দূর্নীতিবাজ এই তথাকথিত মো: মান্নান এর কাছে পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের প্রায় ৬০ হাজার কর্মকর্তা কর্মচারী বন্দী রয়েছেন এমনটাই বলা যায়। এই দূর্নীতিবাজ কর্মকর্তার কোটি কোটি টাকা নিয়োগ বাণিজ্য থেকে শুরু করে বদলী পদায়নসহ পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের মালামাল ক্রয়ের ঘাবলা আকাশসম। অধিদপ্তরে কথিত রয়েছে মন্ত্রণালয়ের সচিবের খুব কাছের মানুষ বলেই তিনি আইনের ঊর্ধ্বে ধরাছোঁয়ার বাইরে।
পদোন্নতি বদলি নিয়োগ এমন বিভিন্ন অজুহাতে মন্ত্রনালয়ের কিছু অসাধু কর্মকর্তার সিন্ডিকেট মিলে ২০ কোটি টাকা আত্মসাৎ করেছে এই মান্নান সিন্ডিকেট।

পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের কর্মকর্তা কর্মচারীদের জিম্মি করে ক্ষমতার দাফট দেখিয়ে বিপুল অর্থের বিনিময়ে যখন যাকে খুশি যেখানে সেখানে বদলী করেন ১-২ লাখ টাকার বিনিময়ে।

পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরে শত শত কর্মচারীদের ওপর মান্নানের পারমাণবিক কসাই আচরণে চাপা ক্ষোভ বিরাজ করছে। চাকুরী অথবা তার খেয়াল খুশি মতো বদলি নামক শাস্তির ভয়ে কেউ মুখ খুলছে না।

চলবে…. একটু ধৈর্য্য ধরুন।

Loading

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :




মান্নানের ডোন্ট কেয়ার ভাব

পরিবার পরিকল্পনার মান্নানের হাতে জিম্মি অধিদপ্তরের হাজারো কর্মচারী পর্ব-২

আপডেট সময় : ১১:২৩:৫৮ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৮ মার্চ ২০২৩

বিশেষ প্রতিবেদক:  পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক মান্নান। তার ভেলকিবাজি, অসম ক্ষমতা, অনিয়মের দূরদর্শিতা সহ নিয়ম-নীতির থোড়াসে তোয়াক্কা না করার সব কান্ড-কারখানা শুনলে যেকারো মনে প্রশ্ন জাগতেই পারে পরিচালকের চেয়েও কি বেশি ক্ষমতাধর সহকারী পরিচালক? যে যাই বলুক যে যাই ভাবুক মান্নান। আরামছে আখের গোছাতে ব্যস্ত নিতি নিজের স্বমহিমায়।

পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের ঘুষখোর দূর্নীতিবাজ এই তথাকথিত মো: মান্নান এর কাছে পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের প্রায় ৬০ হাজার কর্মকর্তা কর্মচারী বন্দী রয়েছেন এমনটাই বলা যায়। এই দূর্নীতিবাজ কর্মকর্তার কোটি কোটি টাকা নিয়োগ বাণিজ্য থেকে শুরু করে বদলী পদায়নসহ পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের মালামাল ক্রয়ের ঘাবলা আকাশসম। অধিদপ্তরে কথিত রয়েছে মন্ত্রণালয়ের সচিবের খুব কাছের মানুষ বলেই তিনি আইনের ঊর্ধ্বে ধরাছোঁয়ার বাইরে।
পদোন্নতি বদলি নিয়োগ এমন বিভিন্ন অজুহাতে মন্ত্রনালয়ের কিছু অসাধু কর্মকর্তার সিন্ডিকেট মিলে ২০ কোটি টাকা আত্মসাৎ করেছে এই মান্নান সিন্ডিকেট।

পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের কর্মকর্তা কর্মচারীদের জিম্মি করে ক্ষমতার দাফট দেখিয়ে বিপুল অর্থের বিনিময়ে যখন যাকে খুশি যেখানে সেখানে বদলী করেন ১-২ লাখ টাকার বিনিময়ে।

পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরে শত শত কর্মচারীদের ওপর মান্নানের পারমাণবিক কসাই আচরণে চাপা ক্ষোভ বিরাজ করছে। চাকুরী অথবা তার খেয়াল খুশি মতো বদলি নামক শাস্তির ভয়ে কেউ মুখ খুলছে না।

চলবে…. একটু ধৈর্য্য ধরুন।

Loading