ঢাকা ০৬:৫৭ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ০৫ মার্চ ২০২৪, ২২ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ




নিহত ৩ নেতার পারিবারকে বিএনপির আর্থিক সহায়তা

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • আপডেট সময় : ১১:৫৫:৩৬ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৪ জানুয়ারী ২০২৩ ১০৮ বার পড়া হয়েছে

 

চলমান আন্দোলনে নিহত তিন নেতার পরিবারকে আর্থিক সহায়তা দিয়েছে বিএনপি। নিহত তিন নেতা হলেন, বাগেরহাট জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক নূরে আলম ভূইয়া তানু, ঢাকা মহানগর পল্লবী থানা ৫ নং ওয়ার্ড স্বেচ্ছাসেবক দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মকবুল হোসেন, পঞ্চগড় জেলার বোদা উপজেলা ময়দানদীঘি বিএনপির যুগ্ম আহবায়ক আব্দুর রশিদ আরেফিন।

শনিবার বিকেলে গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে নিহত তিন নেতার পরিবারের সদস্যদের হাতে আর্থিক সহায়তা তুলে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

এসময় উপস্থিত ছিলেন, বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য জমির উদ্দিন সরকার, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু, চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা আমান উল্লাহ আমান, সাংগঠনিক সম্পাদক আসাদুল হাবিব দুলু,স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি এস এম জিলানী, সাধারণ সম্পাদক রাজিব আহসান, সাংগঠনিক সম্পাদক ইয়াসিন আলী প্রমুখ।

এসময় বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, আমরা যে যুদ্ধে নেমেছি এই যুদ্ধে জয়ী হবোই হবো। সত্যিকার অর্থে একটি গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করবো। আমাদের হাজার হাজার নেতা আটক রয়েছে। কিন্তু কারো মুখে ক্লান্তি, হতাশা দেখিনি। দেখেছি সকলকে উজ্জীবিত। যতই নির্যাতন আসুক, যতই নিপীড়ন আসুক, আমরা শান্তিপূর্ণ আন্দোলনের মধ্য দিয়ে এই ভয়াবহ দানবকে পরাজিত করবো।

তিনি বলেন, গত ২২ আগস্ট থেকে গণতন্ত্রকে মুক্ত করার জন্য আমরা যে কর্মসূচি শুরু করেছি তাতে আমাদের ১৫ জন নেতাকর্মী প্রাণ দিয়েছেন। এই ভয়াবহ অগণতান্ত্রিক, একনায়কতন্ত্র সরকার টিকে থাকার জন্য তারা অত্যাচার নির্যাতন চালিয়ে যাচ্ছে। পুলিশের গুলিতে ও আওয়ামী লীগ সন্ত্রাসীদের নির্যাতনে প্রায় ১৫ জন ভাই মৃত্যুবরণ করেছেন। তারা বীরের মত, তারা কেউ পেছনে পালাতে গিয়ে শহীদ হননি; সামনে দাঁড়িয়ে বুক পেতে দিয়ে তারা চলে গেছেন। আমাদের নেতা কর্মীদের উজ্জীবিত করেছেন। আরও ত্যাগ স্বীকার করার জন্য আমাদের সহকর্মীরা শপথ গ্রহণ করেছেন।

ফখরুল বলেন, তাদের এই শাহাদাত তাদের পরিবারকে অসহায়ত্বের মধ্যে ফেলে দিয়েছে। তারা দেশের জন্য, দেশপ্রেমের জন্য যে আত্মত্যাগ করেছে তা ইতিহাসে স্বর্ণাক্ষরে লেখা থাকবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :




নিহত ৩ নেতার পারিবারকে বিএনপির আর্থিক সহায়তা

আপডেট সময় : ১১:৫৫:৩৬ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৪ জানুয়ারী ২০২৩

 

চলমান আন্দোলনে নিহত তিন নেতার পরিবারকে আর্থিক সহায়তা দিয়েছে বিএনপি। নিহত তিন নেতা হলেন, বাগেরহাট জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক নূরে আলম ভূইয়া তানু, ঢাকা মহানগর পল্লবী থানা ৫ নং ওয়ার্ড স্বেচ্ছাসেবক দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মকবুল হোসেন, পঞ্চগড় জেলার বোদা উপজেলা ময়দানদীঘি বিএনপির যুগ্ম আহবায়ক আব্দুর রশিদ আরেফিন।

শনিবার বিকেলে গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে নিহত তিন নেতার পরিবারের সদস্যদের হাতে আর্থিক সহায়তা তুলে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

এসময় উপস্থিত ছিলেন, বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য জমির উদ্দিন সরকার, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু, চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা আমান উল্লাহ আমান, সাংগঠনিক সম্পাদক আসাদুল হাবিব দুলু,স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি এস এম জিলানী, সাধারণ সম্পাদক রাজিব আহসান, সাংগঠনিক সম্পাদক ইয়াসিন আলী প্রমুখ।

এসময় বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, আমরা যে যুদ্ধে নেমেছি এই যুদ্ধে জয়ী হবোই হবো। সত্যিকার অর্থে একটি গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করবো। আমাদের হাজার হাজার নেতা আটক রয়েছে। কিন্তু কারো মুখে ক্লান্তি, হতাশা দেখিনি। দেখেছি সকলকে উজ্জীবিত। যতই নির্যাতন আসুক, যতই নিপীড়ন আসুক, আমরা শান্তিপূর্ণ আন্দোলনের মধ্য দিয়ে এই ভয়াবহ দানবকে পরাজিত করবো।

তিনি বলেন, গত ২২ আগস্ট থেকে গণতন্ত্রকে মুক্ত করার জন্য আমরা যে কর্মসূচি শুরু করেছি তাতে আমাদের ১৫ জন নেতাকর্মী প্রাণ দিয়েছেন। এই ভয়াবহ অগণতান্ত্রিক, একনায়কতন্ত্র সরকার টিকে থাকার জন্য তারা অত্যাচার নির্যাতন চালিয়ে যাচ্ছে। পুলিশের গুলিতে ও আওয়ামী লীগ সন্ত্রাসীদের নির্যাতনে প্রায় ১৫ জন ভাই মৃত্যুবরণ করেছেন। তারা বীরের মত, তারা কেউ পেছনে পালাতে গিয়ে শহীদ হননি; সামনে দাঁড়িয়ে বুক পেতে দিয়ে তারা চলে গেছেন। আমাদের নেতা কর্মীদের উজ্জীবিত করেছেন। আরও ত্যাগ স্বীকার করার জন্য আমাদের সহকর্মীরা শপথ গ্রহণ করেছেন।

ফখরুল বলেন, তাদের এই শাহাদাত তাদের পরিবারকে অসহায়ত্বের মধ্যে ফেলে দিয়েছে। তারা দেশের জন্য, দেশপ্রেমের জন্য যে আত্মত্যাগ করেছে তা ইতিহাসে স্বর্ণাক্ষরে লেখা থাকবে।