ঢাকা ০৮:৩৪ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১০ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ




জাতীয় গ্রিডে যুক্ত হল বাঁশখালীর এসএস পাওয়ার প্ল্যান্টের ১২২৪ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ

প্রতিনিধি, চট্টগ্রাম
  • আপডেট সময় : ১১:৫৭:৪৬ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৪ জানুয়ারী ২০২৩ ১৩৯ বার পড়া হয়েছে

চট্টগ্রামের বাঁশখালীতে বেসরকারি খাতে নির্মিত দেশের সবচেয়ে বড় কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ প্রকল্প এসএস পাওয়ার প্ল্যান্টের নতুন বিদ্যুৎকেন্দ্রের বাণিজ্যিক উৎপাদন শুরু হয়েছে। এর মাধ্যমে দেশের জাতীয় গ্রিডে যুক্ত হল ১২২৪ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ।

আজ শনিবার (১৪ জানুয়ারি) এসএস পাওয়ার ওয়ান লিমিটেড প্রকল্পে আয়োজিত এক সভা ও অনুষ্ঠানের মাধ্যমে এ বিদ্যুৎ সরবরাহ শুরু হয়। এ সময় অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন এস আলম গ্রুপের পরিচালক (টেকনিক্যাল) প্রকৌশলী শহীদুল ইসলাম, প্রধান ফাইনান্সিয়াল অফিসার ইবাদত হোসেন, ডেপুটি প্রজেক্ট ডিরেক্টর মোস্তাফিজুর রহমান, ডিপিডিই ফাইজুর রহমান, ডিজিএম (মেকানিক্যাল) মো. আশরাফুল হক, ডিপিডিবি আতিকুল হক, প্রকল্প সমন্বয়কারী ফারুক আহমেদ, বাঁশখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামাল উদ্দীন, পিজিসিবি সিস্টেম অপারেশন এসবি ফয়জুল কবিরসহ বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

এসময় বাংলাদেশ পাওয়ার গ্রিড কোম্পানি (পিজিসিবি)'র মোরশেদ আলম খান বলেন, ১৩২০ মেগাওয়াট (গ্রস) ক্যাপাসিটির কয়লা ভিত্তিক সুপারক্রিটিক্যাল থার্মাল পাওয়ার প্ল্যান্টের ৪০০ কেভি গ্যাস ইনসুলেটেড সুইচইয়ার্ডকে এনারজাইজ করেছে এবং বাংলাদেশ পাওয়ার গ্রিড কোম্পানি (পিজিসিবি) থেকে ব্যাক-ফিড পাওয়ার গ্রহণ করেছে। এতে করে দুপুর ১টা ৫৬ মিনিটে ১২২৪ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ জাতীয় গ্রিডে সংযুক্ত হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, এই বিদ্যুৎকেন্দ্রের নির্মাণকাজ ইতোমধ্যে ৯৪ শতাংশেরও বেশি অগ্রগতি অর্জন করেছে। প্ল্যান্টের প্রধান নির্মাণ কার্যক্রম ইতোমধ্যে সম্পন্ন হয়েছে। বাংলাদেশ এস আলম গ্রুপের জন্য এটি একটি বিশাল অর্জন ও মাইলফলক। এসএস পাওয়ার ওয়ান লিমিটেড পিজিসিবি থেকে ব্যাক- ফিড পাওয়ার গ্রহণের পরে সম্পূর্ণ স্কেলে কমিশনিং কার্যক্রম শুরু করেছে এবং আশা করা যায় বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের সাথে বাস্তবায়িত পাওয়ার পারচেজ এগ্রিমেন্ট (পিপিএ) এবং বাংলাদেশ সরকার ও পিজিসিবির সঙ্গে বাস্তবায়িত ইমপ্লিমেন্টেশন এগ্রিমেন্ট (আইএ) এর নির্ধারিত সময়ের মধ্যে বিদ্যুৎ উৎপাদন ও জাতীয় গ্রিডের সঙ্গে সংযোগ স্থাপন করতে সক্ষম হবে। তবে কয়লাভিত্তিকে হলেও এই বিদ্যুৎ প্রকল্পটিতে পরিবেশের কোনো ক্ষতি হবে না।

উল্লেখ্য, ২০১৬ সালে বেসরকারি খাতের সবচেয়ে বড় এই বিদ্যুৎ প্রকল্প বাস্তবায়নে বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড (পিডিবি) ও এসএস পাওয়ারের মধ্যে চুক্তি সই হয়। এসময় বিদ্যুৎ কেনাবেচা সংক্রান্ত চুক্তিও সই হয়। চুক্তিতে বলা হয়- ২৫ বছর ধরে পিডিবি এই কেন্দ্রে উৎপাদিত সব বিদ্যুৎ কিনবে। আগামী ৩১ মে ২৩ইং প্রত্যাশিত বাণিজ্যিক উৎপাদন হবে। এই প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয়েছে ২.৫০৬ বিলিয়ন ইউএস ডলার, ঋণের পরিমাণ দেখানো হয়েছে ১.৭৮২ বিলিয়ন ইউএস ডলার, ইকুইটির পরিমাণ দেখানো হয়েছে ৭২৪.৬৭৮ মিলিয়ন ইউএস ডলার, এস আলম গ্রুপের (৭০% শেয়ারহোল্ডিং) এবং চীনের সেপকো থ্রি (৩০% শেয়ারহোল্ডিং)-এর একটি যৌথ উদ্যোগে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :




জাতীয় গ্রিডে যুক্ত হল বাঁশখালীর এসএস পাওয়ার প্ল্যান্টের ১২২৪ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ

আপডেট সময় : ১১:৫৭:৪৬ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৪ জানুয়ারী ২০২৩

চট্টগ্রামের বাঁশখালীতে বেসরকারি খাতে নির্মিত দেশের সবচেয়ে বড় কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ প্রকল্প এসএস পাওয়ার প্ল্যান্টের নতুন বিদ্যুৎকেন্দ্রের বাণিজ্যিক উৎপাদন শুরু হয়েছে। এর মাধ্যমে দেশের জাতীয় গ্রিডে যুক্ত হল ১২২৪ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ।

আজ শনিবার (১৪ জানুয়ারি) এসএস পাওয়ার ওয়ান লিমিটেড প্রকল্পে আয়োজিত এক সভা ও অনুষ্ঠানের মাধ্যমে এ বিদ্যুৎ সরবরাহ শুরু হয়। এ সময় অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন এস আলম গ্রুপের পরিচালক (টেকনিক্যাল) প্রকৌশলী শহীদুল ইসলাম, প্রধান ফাইনান্সিয়াল অফিসার ইবাদত হোসেন, ডেপুটি প্রজেক্ট ডিরেক্টর মোস্তাফিজুর রহমান, ডিপিডিই ফাইজুর রহমান, ডিজিএম (মেকানিক্যাল) মো. আশরাফুল হক, ডিপিডিবি আতিকুল হক, প্রকল্প সমন্বয়কারী ফারুক আহমেদ, বাঁশখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামাল উদ্দীন, পিজিসিবি সিস্টেম অপারেশন এসবি ফয়জুল কবিরসহ বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

এসময় বাংলাদেশ পাওয়ার গ্রিড কোম্পানি (পিজিসিবি)'র মোরশেদ আলম খান বলেন, ১৩২০ মেগাওয়াট (গ্রস) ক্যাপাসিটির কয়লা ভিত্তিক সুপারক্রিটিক্যাল থার্মাল পাওয়ার প্ল্যান্টের ৪০০ কেভি গ্যাস ইনসুলেটেড সুইচইয়ার্ডকে এনারজাইজ করেছে এবং বাংলাদেশ পাওয়ার গ্রিড কোম্পানি (পিজিসিবি) থেকে ব্যাক-ফিড পাওয়ার গ্রহণ করেছে। এতে করে দুপুর ১টা ৫৬ মিনিটে ১২২৪ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ জাতীয় গ্রিডে সংযুক্ত হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, এই বিদ্যুৎকেন্দ্রের নির্মাণকাজ ইতোমধ্যে ৯৪ শতাংশেরও বেশি অগ্রগতি অর্জন করেছে। প্ল্যান্টের প্রধান নির্মাণ কার্যক্রম ইতোমধ্যে সম্পন্ন হয়েছে। বাংলাদেশ এস আলম গ্রুপের জন্য এটি একটি বিশাল অর্জন ও মাইলফলক। এসএস পাওয়ার ওয়ান লিমিটেড পিজিসিবি থেকে ব্যাক- ফিড পাওয়ার গ্রহণের পরে সম্পূর্ণ স্কেলে কমিশনিং কার্যক্রম শুরু করেছে এবং আশা করা যায় বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের সাথে বাস্তবায়িত পাওয়ার পারচেজ এগ্রিমেন্ট (পিপিএ) এবং বাংলাদেশ সরকার ও পিজিসিবির সঙ্গে বাস্তবায়িত ইমপ্লিমেন্টেশন এগ্রিমেন্ট (আইএ) এর নির্ধারিত সময়ের মধ্যে বিদ্যুৎ উৎপাদন ও জাতীয় গ্রিডের সঙ্গে সংযোগ স্থাপন করতে সক্ষম হবে। তবে কয়লাভিত্তিকে হলেও এই বিদ্যুৎ প্রকল্পটিতে পরিবেশের কোনো ক্ষতি হবে না।

উল্লেখ্য, ২০১৬ সালে বেসরকারি খাতের সবচেয়ে বড় এই বিদ্যুৎ প্রকল্প বাস্তবায়নে বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড (পিডিবি) ও এসএস পাওয়ারের মধ্যে চুক্তি সই হয়। এসময় বিদ্যুৎ কেনাবেচা সংক্রান্ত চুক্তিও সই হয়। চুক্তিতে বলা হয়- ২৫ বছর ধরে পিডিবি এই কেন্দ্রে উৎপাদিত সব বিদ্যুৎ কিনবে। আগামী ৩১ মে ২৩ইং প্রত্যাশিত বাণিজ্যিক উৎপাদন হবে। এই প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয়েছে ২.৫০৬ বিলিয়ন ইউএস ডলার, ঋণের পরিমাণ দেখানো হয়েছে ১.৭৮২ বিলিয়ন ইউএস ডলার, ইকুইটির পরিমাণ দেখানো হয়েছে ৭২৪.৬৭৮ মিলিয়ন ইউএস ডলার, এস আলম গ্রুপের (৭০% শেয়ারহোল্ডিং) এবং চীনের সেপকো থ্রি (৩০% শেয়ারহোল্ডিং)-এর একটি যৌথ উদ্যোগে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে।