ঢাকা ০৮:২০ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম :
Logo এমপি আনার খুন: রহস্যময় রূপে শীর্ষ দুই ব্যবসায়ী Logo রূপালী ব্যাংকের ডিজিএম কর্তৃক সহকর্মী নারীকে যৌন হয়রানি: ধামাচাপা দিতে মরিয়া তদন্ত কমিটি Logo প্রতিবন্ধী ভাতার টাকা হাতিয়ে বহাল তবিয়তে মাদারীপুরের দুই সহকারী সমাজসেবা অফিসারl Logo যমুনা লাইফের গ্রাহক প্রতারণায় ‘জড়িতরা’ কে কোথায় Logo ঢাকাস্থ ভোলা সাংবাদিক ফোরামের সভাপতি আহসান কামরুল, সম্পাদক জিয়াউর রহমান Logo টাটা মটরস বাংলাদেশে উদ্বোধন করলো টাটা যোদ্ধা Logo আশা শিক্ষা কর্মসূচী কর্তৃক অভিভাবক মতবিনিময় সভা Logo গণপূর্ত প্রধান প্রকৌশলীর গাড়ি চাপায় পিষ্ট সহকারী প্রকৌশলী -উত্তাল গণপূর্ত Logo শাবিপ্রবির বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের উদ্যোগে বৃক্ষরোপণ Logo সওজের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী নাহিনুরের সীমাহীন সম্পদ ও অনিয়ম -পর্ব-০১




লাখো জনতার ঢলে স্বরণীয় পলোগ্রাউন্ড

জেলা প্রতিনিধি:
  • আপডেট সময় : ১০:৪৬:৫৫ অপরাহ্ন, রবিবার, ৪ ডিসেম্বর ২০২২ ১৭০ বার পড়া হয়েছে

চট্টগ্রাম নগরে পলোগ্রাউন্ড মাঠে আওয়ামী লীগের জনসভায় লাখো জনতার ঢলে স্বরণীয় পলোগ্রাউন্ড।দীর্ঘ ১যুগ পরে সবচেয়ে বড় দলীয় জমকালো আয়োজনের উৎসব উচ্চাসে মহাসমারোহে জনতার ঢলে পরিণত হয়। সর্বস্তরের নেতাকর্মীদের মিলন মেলায় পরিণত হয়। যা দলীয় জনসভার স্বরণকালের স্বরণীয় ঐতিহাসিক জনসভা হিসেবে আলোচিত সোশ্যাল মিডিয়া,গণমাধ্যমসহ সারা দেশজুড়ে।দলীয় ও সরকার প্রিয় নেতা কর্মীদের মনেপ্রাণে মুখে মুখে।সভার প্রধান আকর্ষণ ও বরেণ্য প্রধান অতিথি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী,
জননেত্রী আওয়ামীলীগ সভাপতি শেখ হাসিনা।

রবিবার (৪ ডিসেম্বর) বেলা সকাল ৯টা হতে নেতাকর্মীদের দুরদুরান্ত হতে নগরের বিভিন্ন সড়কে অবস্থান স্লোগান নিয়ে দফায় দফায় আসতে শুরু করে। ১১টা বাজতেই মাঠ কানায় কানায় পরিপূর্ণ হয়ে যায়। এভাবে নগরী ও জেলার বিভিন্ন স্থান থেকে খণ্ডখণ্ড মিছিল নিয়ে দফায় দফায় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা যুক্ত হশ জনসভায়।

দুপুর সোয়া ১২টায় স্থানীয় নেতাদের বক্তব্যের মাধ্যমে আওয়ামী লীগের জনসভা শুরু হয়। সভামঞ্চে চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগ, উত্তর ও দক্ষিণ জেলা নেতৃবৃন্দরা উপস্থিতে আনুষ্ঠানিকভাবে জনসভা শুরু হয়।

প্রয়াত আওয়ামী লীগ নেতাদের আত্মার মাগফিরাত কামনা করে জনসভার শুরুতে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়। মঞ্চে দেশাত্মবোধক গান পরিবেশনের আনুষ্ঠানিকতার মধ্যদিয়ে স্থানীয় এবং ঢাকা থেকে আসা শিল্পীবৃন্দের বেলা ১১টা থেকে মঞ্চে শুরু হয় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।

সভার প্রধান আকর্ষণ ও বরেণ্য প্রধান অতিথি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী,জননেত্রী আওয়ামীলীগ সভাপতি শেখ হাসিনা। জনসভায় বিকেল ৩টা ৫ মিনিটে উপস্থিত হয়ে জনসভায় হাজার হাজার নেতাকর্মীদের অপেক্ষার প্রহর শেষে জনসভায় বক্তব্য দেন।প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জনসভা মঞ্চ থেকে চট্টগ্রামের ২৯টি উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধন ও ৬টি প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন। চট্টগ্রাম নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর হাজার হাজার কোটি টাকার প্রকল্প ও উন্নয়ন নিয়ে কথা বলার পাশাপাশি নির্বাচন ভবিষ্যত উন্নয়ন পরিকল্পনা নিয়েও কথা বলেন।

জনসভা মঞ্চে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরসহ দলটির কেন্দ্রীয় ও চট্টগ্রামের স্থানীয় নেতারা উপস্থিত ছিলেন।জনসভায় সভাপতিত্ব করেন নগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী। জনসভা সঞ্চালনা করছেন চট্টগ্রাম নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আ জ ম নাছির উদ্দীন।

নিরাপত্তার জন্য বাঁশের বেরিকেড দিয়ে কয়েক স্তরে ভাগ করা হয়েছে জনসভা মাঠকে। মঞ্চ ও মঞ্চের আশপাশের ব্লকগুলোতে নেওয়া হয়েছে বাড়তি নিরাপত্তা ব্যবস্থা।

ঢাক-ঢোল, বাজনার তালে তালে নেচে গেয়ে জনসভা মাঠে আসেন তারা। বিভিন্ন ইউনিটের নেতাকর্মীরা গায়ে নানা রঙের রঙিন জামা, মাথায় ক্যাপ পরে আসেন। বিভিন্ন ইউনিটের রঙিন পোশাকের বর্ণিল রঙে সেজেছে পুরো মাঠ ও আশপাশের বিভিন্ন সড়ক।

পলোগ্রাউন্ড ময়দানের পশ্চিম প্রান্তে ১৬০ ফুট দৈর্ঘ্যের নৌকা প্রতিকৃতির ওপর নির্মাণ করা হয়েছে বিরাট মঞ্চ। লাল-নীল, সবুজ,সাদা, হলুদসহ নানা রঙের বেলুনে বর্ণিল সাজে সাজানো হয়েছে পুরো মাঠ।

নিরাপত্তার জন্য বাঁশের বেরিকেড দিয়ে কয়েক স্তরে ভাগ করা হয়েছে জনসভা মাঠকে। মঞ্চ ও মঞ্চের আশপাশের ব্লকগুলোতে নেওয়া হয়েছে বাড়তি নিরাপত্তা ব্যবস্থা।

এর আগে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে সেনাবাহিনীর একটি অনুষ্ঠান ও আওয়ামী লীগের জনসভায় যোগ দিতে ঢাকা থেকে হেলিকপ্টারে চট্টগ্রামে চট্টগ্রামের ভাটিয়ারীতে আসেন প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা।

হাজার হাজার নেতাকর্মীদের অপেক্ষার প্রহর শেষে পলোগ্রাউন্ড মাঠের জনসভায় বক্তব্য দিচ্ছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। চট্টগ্রাম নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর হাজার হাজার কোটি টাকার প্রকল্প ও উন্নয়ন নিয়ে কথা বলার পাশাপাশি ভবিষ্যত পরিকল্পনা নিয়েও কথা বলবেন বলে ধারণা করা হচ্ছে।

ঢাক-ঢোল, বাজনার তালে তালে নেচে গেয়ে জনসভা মাঠে আসেন তারা। বিভিন্ন ইউনিটের নেতাকর্মীরা গায়ে নানা রঙের রঙিন জামা, মাথায় ক্যাপ পরে আসেন। বিভিন্ন ইউনিটের রঙিন পোশাকের বর্ণিল রঙে সেজেছে পুরো মাঠ ও আশপাশের বিভিন্ন সড়ক।

উল্লেখ্যঃ সভার প্রধান আকর্ষণ ছিল বরেণ্য প্রধান অতিথি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী,জননেত্রী আওয়ামীলীগ সভাপতি শেখ হাসিনা।নগরের মোড়ে মোড়ে রাস্তায় রাস্তায় তোরনসহ বিল্ডিংয়ে অসংখ্য বিলবোর্ড আকৃতির বড় ব্যানার দেখা যায়।সেইসাথে ছোট বড় বিভিন্ন সাইজের লক্ষাধিক ফ্যাস্টুন ব্যানারে নেতাকর্মীদের ছবিসহ প্রধানমন্ত্রীর ছবিতে শ্লোগানে রং বেরঙ্গের পোস্টারে সাজানো হয়।সমাবেশে ছিল দলীয়নেতা-কর্মীদের সমাগমে ভীড়।এর আগে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে সেনাবাহিনীর একটি অনুষ্ঠান ও আওয়ামী লীগের জনসভায় যোগ দিতে ঢাকা থেকে হেলিকপ্টারে চট্টগ্রামে চট্টগ্রামের ভাটিয়ারীতে আসেন প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা।
পলোগ্রাউন্ড ময়দানের পশ্চিম প্রান্তে ১৬০ ফুট দৈর্ঘ্যের নৌকা প্রতিকৃতির ওপর নির্মাণ করা হয়েছে বিরাট মঞ্চ। লাল-নীল, সবুজ,সাদা,হলুদসহ নানা রঙ্গের বেলুনে বর্ণিল সাজে সাজানো হয়েছে পুরো মাঠ।জনতার ঢলে জনস্রোতে ময়দানসহ আশপাশের এলাকাসহ ময়দানের বাইরে আশাপাশের সড়কগুলোতেও বিপুলসংখ্যক নেতাকর্মী অবস্থান করে। সমাবেশ শুরুর আগেই চট্টগ্রামের বিভিন্ন এলাকা থেকে পলোগ্রাউন্ডে জড়ো হতে থাকেন আওয়ামী লীগ ও এর বিভিন্ন সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে কানায় কানায় পূর্ণ হয়ে যায় পুরো ময়দান। ময়দানের বাইরে আশাপাশের সড়কগুলোতেও বিপুলসংখ্যক নেতাকর্মী অবস্থান করছেন। সমাবেশ শুরুর আগেই চট্টগ্রামের বিভিন্ন এলাকা থেকে পলোগ্রাউন্ডে জড়ো হতে থাকেন আওয়ামীলীগ ও এর বিভিন্ন সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে কানায় কানায় পূর্ণ হয়ে যায় পুরো ময়দান। ময়দানের বাইরে আশাপাশের সড়কগুলোতেও বিপুলসংখ্যক নেতাকর্মী অবস্থান করছেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :




লাখো জনতার ঢলে স্বরণীয় পলোগ্রাউন্ড

আপডেট সময় : ১০:৪৬:৫৫ অপরাহ্ন, রবিবার, ৪ ডিসেম্বর ২০২২

চট্টগ্রাম নগরে পলোগ্রাউন্ড মাঠে আওয়ামী লীগের জনসভায় লাখো জনতার ঢলে স্বরণীয় পলোগ্রাউন্ড।দীর্ঘ ১যুগ পরে সবচেয়ে বড় দলীয় জমকালো আয়োজনের উৎসব উচ্চাসে মহাসমারোহে জনতার ঢলে পরিণত হয়। সর্বস্তরের নেতাকর্মীদের মিলন মেলায় পরিণত হয়। যা দলীয় জনসভার স্বরণকালের স্বরণীয় ঐতিহাসিক জনসভা হিসেবে আলোচিত সোশ্যাল মিডিয়া,গণমাধ্যমসহ সারা দেশজুড়ে।দলীয় ও সরকার প্রিয় নেতা কর্মীদের মনেপ্রাণে মুখে মুখে।সভার প্রধান আকর্ষণ ও বরেণ্য প্রধান অতিথি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী,
জননেত্রী আওয়ামীলীগ সভাপতি শেখ হাসিনা।

রবিবার (৪ ডিসেম্বর) বেলা সকাল ৯টা হতে নেতাকর্মীদের দুরদুরান্ত হতে নগরের বিভিন্ন সড়কে অবস্থান স্লোগান নিয়ে দফায় দফায় আসতে শুরু করে। ১১টা বাজতেই মাঠ কানায় কানায় পরিপূর্ণ হয়ে যায়। এভাবে নগরী ও জেলার বিভিন্ন স্থান থেকে খণ্ডখণ্ড মিছিল নিয়ে দফায় দফায় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা যুক্ত হশ জনসভায়।

দুপুর সোয়া ১২টায় স্থানীয় নেতাদের বক্তব্যের মাধ্যমে আওয়ামী লীগের জনসভা শুরু হয়। সভামঞ্চে চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগ, উত্তর ও দক্ষিণ জেলা নেতৃবৃন্দরা উপস্থিতে আনুষ্ঠানিকভাবে জনসভা শুরু হয়।

প্রয়াত আওয়ামী লীগ নেতাদের আত্মার মাগফিরাত কামনা করে জনসভার শুরুতে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়। মঞ্চে দেশাত্মবোধক গান পরিবেশনের আনুষ্ঠানিকতার মধ্যদিয়ে স্থানীয় এবং ঢাকা থেকে আসা শিল্পীবৃন্দের বেলা ১১টা থেকে মঞ্চে শুরু হয় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।

সভার প্রধান আকর্ষণ ও বরেণ্য প্রধান অতিথি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী,জননেত্রী আওয়ামীলীগ সভাপতি শেখ হাসিনা। জনসভায় বিকেল ৩টা ৫ মিনিটে উপস্থিত হয়ে জনসভায় হাজার হাজার নেতাকর্মীদের অপেক্ষার প্রহর শেষে জনসভায় বক্তব্য দেন।প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জনসভা মঞ্চ থেকে চট্টগ্রামের ২৯টি উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধন ও ৬টি প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন। চট্টগ্রাম নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর হাজার হাজার কোটি টাকার প্রকল্প ও উন্নয়ন নিয়ে কথা বলার পাশাপাশি নির্বাচন ভবিষ্যত উন্নয়ন পরিকল্পনা নিয়েও কথা বলেন।

জনসভা মঞ্চে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরসহ দলটির কেন্দ্রীয় ও চট্টগ্রামের স্থানীয় নেতারা উপস্থিত ছিলেন।জনসভায় সভাপতিত্ব করেন নগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী। জনসভা সঞ্চালনা করছেন চট্টগ্রাম নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আ জ ম নাছির উদ্দীন।

নিরাপত্তার জন্য বাঁশের বেরিকেড দিয়ে কয়েক স্তরে ভাগ করা হয়েছে জনসভা মাঠকে। মঞ্চ ও মঞ্চের আশপাশের ব্লকগুলোতে নেওয়া হয়েছে বাড়তি নিরাপত্তা ব্যবস্থা।

ঢাক-ঢোল, বাজনার তালে তালে নেচে গেয়ে জনসভা মাঠে আসেন তারা। বিভিন্ন ইউনিটের নেতাকর্মীরা গায়ে নানা রঙের রঙিন জামা, মাথায় ক্যাপ পরে আসেন। বিভিন্ন ইউনিটের রঙিন পোশাকের বর্ণিল রঙে সেজেছে পুরো মাঠ ও আশপাশের বিভিন্ন সড়ক।

পলোগ্রাউন্ড ময়দানের পশ্চিম প্রান্তে ১৬০ ফুট দৈর্ঘ্যের নৌকা প্রতিকৃতির ওপর নির্মাণ করা হয়েছে বিরাট মঞ্চ। লাল-নীল, সবুজ,সাদা, হলুদসহ নানা রঙের বেলুনে বর্ণিল সাজে সাজানো হয়েছে পুরো মাঠ।

নিরাপত্তার জন্য বাঁশের বেরিকেড দিয়ে কয়েক স্তরে ভাগ করা হয়েছে জনসভা মাঠকে। মঞ্চ ও মঞ্চের আশপাশের ব্লকগুলোতে নেওয়া হয়েছে বাড়তি নিরাপত্তা ব্যবস্থা।

এর আগে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে সেনাবাহিনীর একটি অনুষ্ঠান ও আওয়ামী লীগের জনসভায় যোগ দিতে ঢাকা থেকে হেলিকপ্টারে চট্টগ্রামে চট্টগ্রামের ভাটিয়ারীতে আসেন প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা।

হাজার হাজার নেতাকর্মীদের অপেক্ষার প্রহর শেষে পলোগ্রাউন্ড মাঠের জনসভায় বক্তব্য দিচ্ছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। চট্টগ্রাম নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর হাজার হাজার কোটি টাকার প্রকল্প ও উন্নয়ন নিয়ে কথা বলার পাশাপাশি ভবিষ্যত পরিকল্পনা নিয়েও কথা বলবেন বলে ধারণা করা হচ্ছে।

ঢাক-ঢোল, বাজনার তালে তালে নেচে গেয়ে জনসভা মাঠে আসেন তারা। বিভিন্ন ইউনিটের নেতাকর্মীরা গায়ে নানা রঙের রঙিন জামা, মাথায় ক্যাপ পরে আসেন। বিভিন্ন ইউনিটের রঙিন পোশাকের বর্ণিল রঙে সেজেছে পুরো মাঠ ও আশপাশের বিভিন্ন সড়ক।

উল্লেখ্যঃ সভার প্রধান আকর্ষণ ছিল বরেণ্য প্রধান অতিথি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী,জননেত্রী আওয়ামীলীগ সভাপতি শেখ হাসিনা।নগরের মোড়ে মোড়ে রাস্তায় রাস্তায় তোরনসহ বিল্ডিংয়ে অসংখ্য বিলবোর্ড আকৃতির বড় ব্যানার দেখা যায়।সেইসাথে ছোট বড় বিভিন্ন সাইজের লক্ষাধিক ফ্যাস্টুন ব্যানারে নেতাকর্মীদের ছবিসহ প্রধানমন্ত্রীর ছবিতে শ্লোগানে রং বেরঙ্গের পোস্টারে সাজানো হয়।সমাবেশে ছিল দলীয়নেতা-কর্মীদের সমাগমে ভীড়।এর আগে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে সেনাবাহিনীর একটি অনুষ্ঠান ও আওয়ামী লীগের জনসভায় যোগ দিতে ঢাকা থেকে হেলিকপ্টারে চট্টগ্রামে চট্টগ্রামের ভাটিয়ারীতে আসেন প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা।
পলোগ্রাউন্ড ময়দানের পশ্চিম প্রান্তে ১৬০ ফুট দৈর্ঘ্যের নৌকা প্রতিকৃতির ওপর নির্মাণ করা হয়েছে বিরাট মঞ্চ। লাল-নীল, সবুজ,সাদা,হলুদসহ নানা রঙ্গের বেলুনে বর্ণিল সাজে সাজানো হয়েছে পুরো মাঠ।জনতার ঢলে জনস্রোতে ময়দানসহ আশপাশের এলাকাসহ ময়দানের বাইরে আশাপাশের সড়কগুলোতেও বিপুলসংখ্যক নেতাকর্মী অবস্থান করে। সমাবেশ শুরুর আগেই চট্টগ্রামের বিভিন্ন এলাকা থেকে পলোগ্রাউন্ডে জড়ো হতে থাকেন আওয়ামী লীগ ও এর বিভিন্ন সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে কানায় কানায় পূর্ণ হয়ে যায় পুরো ময়দান। ময়দানের বাইরে আশাপাশের সড়কগুলোতেও বিপুলসংখ্যক নেতাকর্মী অবস্থান করছেন। সমাবেশ শুরুর আগেই চট্টগ্রামের বিভিন্ন এলাকা থেকে পলোগ্রাউন্ডে জড়ো হতে থাকেন আওয়ামীলীগ ও এর বিভিন্ন সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে কানায় কানায় পূর্ণ হয়ে যায় পুরো ময়দান। ময়দানের বাইরে আশাপাশের সড়কগুলোতেও বিপুলসংখ্যক নেতাকর্মী অবস্থান করছেন।