ঢাকা ০৮:৪০ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪, ৪ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম :
Logo মঙ্গল শোভাযাত্রা – তাসফিয়া ফারহানা ঐশী Logo সাস্টিয়ান ব্রাহ্মণবাড়িয়া এর ইফতার মাহফিল সম্পন্ন Logo কুবির চট্টগ্রাম স্টুডেন্টস ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশনের ইফতার ও পূর্নমিলনী Logo অধ্যাপক জহীর উদ্দিন আহমেদের মায়ের মৃত্যুতে শাবির মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও মুক্ত চিন্তা চর্চায় ঐক্যবদ্ধ শিক্ষকবৃন্দ পরিষদের শোক প্রকাশ Logo শাবির অধ্যাপক জহীর উদ্দিনের মায়ের মৃত্যুতে উপাচার্যের শোক প্রকাশ Logo বিশ কোটিতে গণপূর্তের প্রধান হওয়ার মিশনে ‘ছাত্রদল ক্যাডার প্রকৌশলী’! Logo দূর্নীতির রাক্ষস ফায়ার সার্ভিসের এডি আনোয়ার! Logo ঝড় ও শিলাবৃষ্টিতে ক্ষতি হওয়া শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়ে অবকাঠামোর সংস্কার শুরু Logo বুয়েটে নিয়মতান্ত্রিক ছাত্র রাজনীতির দাবিতে শাবিপ্রবি ছাত্রলীগের মানববন্ধন Logo কুবি উপাচার্যের বক্তব্যের প্রমাণ দিতে শিক্ষক সমিতির সাত দিনের আল্টিমেটাম




স্বর্ণেরবার ছিনতাইকারী ৬ পুলিশকে বাঁচাতে এজহার পাল্টে গেল!

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৭:২২:২৮ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২৮ অগাস্ট ২০২১ ১০৩ বার পড়া হয়েছে

রায়হান হোসাইন, বিশেষ প্রতিনিধি:-

চট্টগ্রামের স্বর্ণব্যবসায়ী গোপাল কান্তি দাসের কাছ থেকে ২০টি সোনার বার ছিনতাইয়ের ঘটনায় অভিযুক্ত ফেনী গোয়েন্দা পুলিশের ৬ কর্মকর্তাকে অভিযোগ থেকে রেহাই পাইয়ে দেওয়ার পথ তৈরি করা হচ্ছে— এমন অভিযোগ উঠেছে। এমনকি মামলার এজাহার পরিবর্তন করে ওই পুলিশ কর্মকর্তাদের ‘সুবিধা’ করে দেওয়ারও অভিযোগ পাওয়া গেছে।

গত ৮ আগস্ট বিকেল সোয়া ৫টার দিকে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের ফতেহপুর রেলওয়ে ওভারব্রিজের সামনে ফেনী গোয়েন্দা পুলিশের ৬ কর্মকর্তা চট্টগ্রামের স্বর্ণব্যবসায়ী গোপাল কান্তি দাসের কাছ থেকে ২০টি সোনার বার ছিনতাই করেন। এই ২০টি স্বর্ণের বারের মোট ওজন ২ কেজি ৩৩০ গ্রাম। যার বাজারমূল্য প্রায় ১ কোটি ২৭ লাখ ৮৪ হাজার ৬৩৬ টাকা।
অভিযুক্ত এই ছয় পুলিশ সদস্য হলেন— ফেনী জেলা গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) ওসি সাইফুল ইসলাম, এসআই মোতাহার হোসেন, নুরুল হক ও মিজানুর রহমান এবং এএসআই অভিজিৎ বড়ুয়া ও মাসুদ রানা। ঘটনার পর তাদের সবাইকে গ্রেপ্তার করার পর চাকরি থেকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। ফেনী মডেল থানা পুলিশ ঘটনার পর পরই ছিনতাই হওয়া ২০টি বারের মধ্যে ১৫টি বার উদ্ধার করে ওসি সাইফুল ইসলামের বাসার আলমারি থেকে। ১৭ দিন রিমান্ডে থাকার পরেও কোন তথ্য পাওয়া যায়নি।

গোপাল কান্তি দাস অভিযোগ করেছেন, পুলিশ তার এজাহার পরিবর্তন করে দিয়েছে। তিনি যে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন সেটা এজাহার হিসেবে গ্রহণ করা হয়নি বলেও দাবি করেন তিনি। পুলিশ ঘটনার সময় আরও কয়েকটি কাগজে সই নিয়েছিল— এই দাবি করে গোপাল বলেন, ‘সেখানে পুলিশের নিজের লেখা একটি এজাহার ছিল। থানা সেটাই রেকর্ড করেছে। তাতে অনেক তথ্যের গরমিল রয়েছে। অনেক অভিযোগ বাদ দেওয়া হয়েছে। আমি এখন আশঙ্কা করছি মামলাটি দুর্বল করে অভিযুক্ত পুলিশ সদস্যদের সুবিধা দিতেই অন্য পুলিশ সদস্যরা এই কাজ করেছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :




স্বর্ণেরবার ছিনতাইকারী ৬ পুলিশকে বাঁচাতে এজহার পাল্টে গেল!

আপডেট সময় : ০৭:২২:২৮ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২৮ অগাস্ট ২০২১

রায়হান হোসাইন, বিশেষ প্রতিনিধি:-

চট্টগ্রামের স্বর্ণব্যবসায়ী গোপাল কান্তি দাসের কাছ থেকে ২০টি সোনার বার ছিনতাইয়ের ঘটনায় অভিযুক্ত ফেনী গোয়েন্দা পুলিশের ৬ কর্মকর্তাকে অভিযোগ থেকে রেহাই পাইয়ে দেওয়ার পথ তৈরি করা হচ্ছে— এমন অভিযোগ উঠেছে। এমনকি মামলার এজাহার পরিবর্তন করে ওই পুলিশ কর্মকর্তাদের ‘সুবিধা’ করে দেওয়ারও অভিযোগ পাওয়া গেছে।

গত ৮ আগস্ট বিকেল সোয়া ৫টার দিকে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের ফতেহপুর রেলওয়ে ওভারব্রিজের সামনে ফেনী গোয়েন্দা পুলিশের ৬ কর্মকর্তা চট্টগ্রামের স্বর্ণব্যবসায়ী গোপাল কান্তি দাসের কাছ থেকে ২০টি সোনার বার ছিনতাই করেন। এই ২০টি স্বর্ণের বারের মোট ওজন ২ কেজি ৩৩০ গ্রাম। যার বাজারমূল্য প্রায় ১ কোটি ২৭ লাখ ৮৪ হাজার ৬৩৬ টাকা।
অভিযুক্ত এই ছয় পুলিশ সদস্য হলেন— ফেনী জেলা গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) ওসি সাইফুল ইসলাম, এসআই মোতাহার হোসেন, নুরুল হক ও মিজানুর রহমান এবং এএসআই অভিজিৎ বড়ুয়া ও মাসুদ রানা। ঘটনার পর তাদের সবাইকে গ্রেপ্তার করার পর চাকরি থেকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। ফেনী মডেল থানা পুলিশ ঘটনার পর পরই ছিনতাই হওয়া ২০টি বারের মধ্যে ১৫টি বার উদ্ধার করে ওসি সাইফুল ইসলামের বাসার আলমারি থেকে। ১৭ দিন রিমান্ডে থাকার পরেও কোন তথ্য পাওয়া যায়নি।

গোপাল কান্তি দাস অভিযোগ করেছেন, পুলিশ তার এজাহার পরিবর্তন করে দিয়েছে। তিনি যে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন সেটা এজাহার হিসেবে গ্রহণ করা হয়নি বলেও দাবি করেন তিনি। পুলিশ ঘটনার সময় আরও কয়েকটি কাগজে সই নিয়েছিল— এই দাবি করে গোপাল বলেন, ‘সেখানে পুলিশের নিজের লেখা একটি এজাহার ছিল। থানা সেটাই রেকর্ড করেছে। তাতে অনেক তথ্যের গরমিল রয়েছে। অনেক অভিযোগ বাদ দেওয়া হয়েছে। আমি এখন আশঙ্কা করছি মামলাটি দুর্বল করে অভিযুক্ত পুলিশ সদস্যদের সুবিধা দিতেই অন্য পুলিশ সদস্যরা এই কাজ করেছে।