ঢাকা ০৩:১৭ অপরাহ্ন, শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ৭ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম :
Logo মঙ্গল শোভাযাত্রা – তাসফিয়া ফারহানা ঐশী Logo সাস্টিয়ান ব্রাহ্মণবাড়িয়া এর ইফতার মাহফিল সম্পন্ন Logo কুবির চট্টগ্রাম স্টুডেন্টস ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশনের ইফতার ও পূর্নমিলনী Logo অধ্যাপক জহীর উদ্দিন আহমেদের মায়ের মৃত্যুতে শাবির মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও মুক্ত চিন্তা চর্চায় ঐক্যবদ্ধ শিক্ষকবৃন্দ পরিষদের শোক প্রকাশ Logo শাবির অধ্যাপক জহীর উদ্দিনের মায়ের মৃত্যুতে উপাচার্যের শোক প্রকাশ Logo বিশ কোটিতে গণপূর্তের প্রধান হওয়ার মিশনে ‘ছাত্রদল ক্যাডার প্রকৌশলী’! Logo দূর্নীতির রাক্ষস ফায়ার সার্ভিসের এডি আনোয়ার! Logo ঝড় ও শিলাবৃষ্টিতে ক্ষতি হওয়া শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়ে অবকাঠামোর সংস্কার শুরু Logo বুয়েটে নিয়মতান্ত্রিক ছাত্র রাজনীতির দাবিতে শাবিপ্রবি ছাত্রলীগের মানববন্ধন Logo কুবি উপাচার্যের বক্তব্যের প্রমাণ দিতে শিক্ষক সমিতির সাত দিনের আল্টিমেটাম




ভাইয়াকে চিনতে কষ্ট হচ্ছে: মগবাজার বিস্ফোরণে আহতের বোনের আহাজারি

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ১১:১১:২২ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৭ জুন ২০২১ ৮৬ বার পড়া হয়েছে

নিজস্ব প্রতিবেদক: পুরোদস্তুর সুস্থ ইমরান প্রতিদিন সকালেই বেরিয়ে পড়ে বাসা থেকে। কর্মস্থলে কাজ শেষে প্রায়ই ফেরেন রাত সাড়ে ৭টা-৮টার মধ্যে। কিন্তু আজ আর ফিরতে পারেননি ইমরান। নিজ কর্মস্থল বেঙ্গল মিটের ঠিক বিপরীত পাশের ভবনের নিচতলা থেকে সন্ধ্যায় আকস্মিক বিস্ফোরণে পুড়ে গেছে তার পুরো শরীর। আজ তার ঠাঁই হয়েছে ঢাকা মেডিকেল বার্ন ইউনিটে।

রোববার (২৭ জুন) সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে রাজধানীর মগবাজার ওয়্যারলেস গেট এলাকার আড়ং শো রুমের ঠিক বিপরীতের একটি ভবনের নিচতলা থেকে বিকট শব্দে বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। ওই বিস্ফোরণের পর অন্তত ছয়জন নিহত হয়েছেন বলে জানিয়েছে ফায়ার সার্ভিস।

একই ঘটনায় অর্ধশতাধিক ব্যক্তি আহত ও দগ্ধ হয়েছেন। তাদের মধ্যে ১৫ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। আহতদের ঢাকা মেডিকেলের বার্ন ইউনিট এবং আশপাশের বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। কেবল ঢাকা মেডিকেলের জরুরি বিভাগেই নেওয়া হয়েছে ৩৯ জনকে।

একই ঘটনার নির্মম শিকার বেঙ্গল মিটের সেলসম্যান মো. ইমরান হোসেন। ঢামেক বার্ন ইউনিটের সামনে থেকে কথা হয় বোন আইরিনের সঙ্গে। তিনি ঢাকা পোস্টকে বলেন, মগবাজারের বেঙ্গল মিটে দুই বছর ধরে সেলসম্যান হিসেবে কর্মরত। ভাইয়া মাত্র তিন বছর আগে বিয়ে করেছেন। আমরা মগবাজারেই থাকি। ভাইয়া থাকেন শান্তিনগরে।

প্রতিদিনের মতো আজও ভাই সকালেই বেরিয়ে পড়েছিল। হয়ত তিনি ফিরতেন একটু পরেই। আমরা আজ শান্তিনগরের বাসাতেই ছিলাম। কিন্তু তার আর ফেরা হলো না। খবর পেলাম ভাই দগ্ধ হয়েছেন। ঢামেক বার্ন ইউনিটে ভর্তির খবরে ভাবি তামান্না ও মা’সহ ছুটে আসি।

বোন আইরিন ও স্ত্রী তামান্না আহাজারি করে বলেন, ভাইয়াকে চিনেছি, কিন্তু চিনতে খুব কষ্ট হয়েছে। এভাবে আজ ভাইয়াকে দেখতে হবে ভাবিনি। ভাইয়ের পুরো শরীর রক্তাক্ত ও পোড়া। ভাইয়ার কষ্ট হচ্ছে। সবার দোয়া কামনা করেন তিনি।

পাশেই স্ত্রী তামান্না বার বার মুর্ছা যাচ্ছেন। তিনি শুধু বলছেন, আমার সুস্থ সবল স্বামীকে তোমরা ফিরাইয়া দাও।

এ ব্যাপারে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের আবাসিক সার্জন পার্থ শংকর পাল বলেন, ইমরানের শরীরের ৯০ শতাংশ পুড়ে গেছে। তার অবস্থা অনেক বেশি আশঙ্কাজনক। তার অবস্থা যেকোনো সময় অবনতি ঘটতে পারে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :




ভাইয়াকে চিনতে কষ্ট হচ্ছে: মগবাজার বিস্ফোরণে আহতের বোনের আহাজারি

আপডেট সময় : ১১:১১:২২ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৭ জুন ২০২১

নিজস্ব প্রতিবেদক: পুরোদস্তুর সুস্থ ইমরান প্রতিদিন সকালেই বেরিয়ে পড়ে বাসা থেকে। কর্মস্থলে কাজ শেষে প্রায়ই ফেরেন রাত সাড়ে ৭টা-৮টার মধ্যে। কিন্তু আজ আর ফিরতে পারেননি ইমরান। নিজ কর্মস্থল বেঙ্গল মিটের ঠিক বিপরীত পাশের ভবনের নিচতলা থেকে সন্ধ্যায় আকস্মিক বিস্ফোরণে পুড়ে গেছে তার পুরো শরীর। আজ তার ঠাঁই হয়েছে ঢাকা মেডিকেল বার্ন ইউনিটে।

রোববার (২৭ জুন) সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে রাজধানীর মগবাজার ওয়্যারলেস গেট এলাকার আড়ং শো রুমের ঠিক বিপরীতের একটি ভবনের নিচতলা থেকে বিকট শব্দে বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। ওই বিস্ফোরণের পর অন্তত ছয়জন নিহত হয়েছেন বলে জানিয়েছে ফায়ার সার্ভিস।

একই ঘটনায় অর্ধশতাধিক ব্যক্তি আহত ও দগ্ধ হয়েছেন। তাদের মধ্যে ১৫ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। আহতদের ঢাকা মেডিকেলের বার্ন ইউনিট এবং আশপাশের বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। কেবল ঢাকা মেডিকেলের জরুরি বিভাগেই নেওয়া হয়েছে ৩৯ জনকে।

একই ঘটনার নির্মম শিকার বেঙ্গল মিটের সেলসম্যান মো. ইমরান হোসেন। ঢামেক বার্ন ইউনিটের সামনে থেকে কথা হয় বোন আইরিনের সঙ্গে। তিনি ঢাকা পোস্টকে বলেন, মগবাজারের বেঙ্গল মিটে দুই বছর ধরে সেলসম্যান হিসেবে কর্মরত। ভাইয়া মাত্র তিন বছর আগে বিয়ে করেছেন। আমরা মগবাজারেই থাকি। ভাইয়া থাকেন শান্তিনগরে।

প্রতিদিনের মতো আজও ভাই সকালেই বেরিয়ে পড়েছিল। হয়ত তিনি ফিরতেন একটু পরেই। আমরা আজ শান্তিনগরের বাসাতেই ছিলাম। কিন্তু তার আর ফেরা হলো না। খবর পেলাম ভাই দগ্ধ হয়েছেন। ঢামেক বার্ন ইউনিটে ভর্তির খবরে ভাবি তামান্না ও মা’সহ ছুটে আসি।

বোন আইরিন ও স্ত্রী তামান্না আহাজারি করে বলেন, ভাইয়াকে চিনেছি, কিন্তু চিনতে খুব কষ্ট হয়েছে। এভাবে আজ ভাইয়াকে দেখতে হবে ভাবিনি। ভাইয়ের পুরো শরীর রক্তাক্ত ও পোড়া। ভাইয়ার কষ্ট হচ্ছে। সবার দোয়া কামনা করেন তিনি।

পাশেই স্ত্রী তামান্না বার বার মুর্ছা যাচ্ছেন। তিনি শুধু বলছেন, আমার সুস্থ সবল স্বামীকে তোমরা ফিরাইয়া দাও।

এ ব্যাপারে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের আবাসিক সার্জন পার্থ শংকর পাল বলেন, ইমরানের শরীরের ৯০ শতাংশ পুড়ে গেছে। তার অবস্থা অনেক বেশি আশঙ্কাজনক। তার অবস্থা যেকোনো সময় অবনতি ঘটতে পারে।