ঢাকা ০৩:৫১ অপরাহ্ন, শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ৭ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম :
Logo মঙ্গল শোভাযাত্রা – তাসফিয়া ফারহানা ঐশী Logo সাস্টিয়ান ব্রাহ্মণবাড়িয়া এর ইফতার মাহফিল সম্পন্ন Logo কুবির চট্টগ্রাম স্টুডেন্টস ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশনের ইফতার ও পূর্নমিলনী Logo অধ্যাপক জহীর উদ্দিন আহমেদের মায়ের মৃত্যুতে শাবির মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও মুক্ত চিন্তা চর্চায় ঐক্যবদ্ধ শিক্ষকবৃন্দ পরিষদের শোক প্রকাশ Logo শাবির অধ্যাপক জহীর উদ্দিনের মায়ের মৃত্যুতে উপাচার্যের শোক প্রকাশ Logo বিশ কোটিতে গণপূর্তের প্রধান হওয়ার মিশনে ‘ছাত্রদল ক্যাডার প্রকৌশলী’! Logo দূর্নীতির রাক্ষস ফায়ার সার্ভিসের এডি আনোয়ার! Logo ঝড় ও শিলাবৃষ্টিতে ক্ষতি হওয়া শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়ে অবকাঠামোর সংস্কার শুরু Logo বুয়েটে নিয়মতান্ত্রিক ছাত্র রাজনীতির দাবিতে শাবিপ্রবি ছাত্রলীগের মানববন্ধন Logo কুবি উপাচার্যের বক্তব্যের প্রমাণ দিতে শিক্ষক সমিতির সাত দিনের আল্টিমেটাম




আপনাদের জন্য আমি জীবন দিতেও প্রস্তুত : ইশরাক

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০২:২৭:৫২ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৭ জানুয়ারী ২০২০ ৮৫ বার পড়া হয়েছে

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক;  কোনো বাধা বিপত্তি না মেনে আগামী ৩০ তারিখে নগরবাসীকে ভোটকেন্দ্রে যাওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে বিএনপি মনোনীত মেয়র প্রার্থী প্রকৌশলী ইশরাক হোসেন।

তিনি বলেন, ‘আমার বাবা শিখিয়েছে কোনো মানব সন্তান অন্য মানুষের কাছে মাথা নত করবে না। আল্লাহ তায়ালা বানিয়েছে উনাকে ভয় করবে, এ ছাড়া দুনিয়াতে কোনো মানুষকে ভয় করবে না। আমরা কারো জমিদারি মানবো না। জনগণকে সামনে নিয়ে জনগণের মালিকানা ফিরিয়ে দেব। আপনারা বিএনপি-সমর্থিত সকল কাউন্সিলরদের ভোট দেবেন। কারণ তারা আমাদের সঙ্গে সংগ্রামে যুক্ত। ইনশাআল্লাহ রাজপথে দেখা হবে। আপনাদের জন্য আমি জীবন দিতেও প্রস্তুত।

শুক্রবার (১৭ জানুয়ারি) নির্বাচনী প্রচারণার অষ্টম দিনের শুরুতে রাজধানীর কদমতলী থানার ৬১নং ওয়ার্ডের দনিয়া বর্ণমালা স্কুলের সামনে তিনি এসব কথা বলেন।

আওয়ামী লীগ সরকারের কঠোর সমালোচনা করে ইশরাক বলেন, গত ১৩ বছর এই সরকার ক্ষমতায়, গত ৯ বছর তাদের অধীনে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন এবং দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন পরিচালিত হচ্ছে। আমি এই এলাকার দুর্দশার কথা জানতে পেরেছি, আমি নিজেও এই এলাকা ঘুরে দেখেছি, আপনাদের যে সমস্যাগুলো রয়েছে। আসার সময় দেখলাম বড় একটা নর্দমা। সেই নর্দমার মধ্যে দিয়ে ময়লা পচা আবর্জনা যুক্ত পানি বয়ে যাচ্ছে। তার ঠিক পাশেই ঘনবসতি। কাঁচা বাজার এবং অন্যান্য সামগ্রী দোকানপাট রয়েছে। এই যে দূষিত পরিবেশ বিরাজমান এইটা পুরো ঢাকা শহরের চিত্র।

তিনি বলেন, আপনারা জানেন বিশ্বে বসবাসের সবচেয়ে অযোগ্য শহরের তালিকায় ঢাকা এক নম্বরে। আপনারা জানেন বিশ্বের সবচেয়ে বায়ু দূষণের তালিকায় গত তিন দিন যাবত ঢাকার অবস্থান এক নম্বরে রয়েছে। নারী এবং শিশুদের জন্য সবচেয়ে অনিরাপদ শহরের একটি তালিকা হয়েছিল মাস দুয়েক আগে, সেখানেও ঢাকার তালিকা এক নম্বরে রয়েছে।

ইশরাক বলেন, প্রাণপ্রিয় ঢাকা নগরীকে এ সরকারের আমলে তিলে তিলে ধ্বংস করা হয়েছে। তারা দেখাচ্ছে অনেক উন্নয়ন হয়েছে। খালি বলছে উন্নয়নের জোয়ার কিন্তু বৃষ্টি আসলে আমরা দেখি এই এলাকায় পানির জোয়ারে রাস্তাঘাট ভেসে যায়। আপনারা খালি একটু চিন্তা করে দেখেন গত ১৩ বছরে এমন কোনো অপকর্ম নেই যে সেটা এ সরকার করেনি। শেয়ার মার্কেট লুট, বাংলাদেশ ব্যাংক লুট, ব্যাংকের ভল্ট থেকে সোনা লুট, সরকারি ব্যাংক লুট, ধর্ষণ, হত্যা, গুম, খুন, ভোটের অধিকার হরণ, জনগণের কথা বলার অধিকার হরণ, ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধ করে দেশ স্বাধীন করা হয়েছিল এই বাংলাদেশের জন্য? এরা এমনই উন্নয়ন করে যে পদ্মা সেতুর একটা করে পিলার বসিয়ে হেডলাইন করে। এমন আজব উন্নয়ন আমরা দেখিনি। একটা করে স্প্যান বসায় আর উদ্বোধন করা হয়। এই ব্রিজ কবে খুলবে? কবে আমরা ব্যবহার করতে পারব? সেটা আমরা জানি না। এক টাকার জিনিস ২০ টাকা হয়েছে। জনগণের টাকার অপচয় করা হয়েছে। আর তারা হাজার কোটি টাকা বিদেশে সিঙ্গাপুর, সুইজারল্যান্ড, যুক্তরাষ্ট্র, কানাডায় পাচার করা হয়েছে। এরা ২০০ টাকার বালিশ সাত হাজার টাকায় কিনেছে।

ইশরাক আরও বলেন, বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল জনগণের রাজনীতি করে। আমরা কোনো পরিবার কেন্দ্রিক রাজনীতি করি না। আমরা জনগণের অধিকার জনগণকে ফিরিয়ে দেব, বাংলাদেশকে আবারো স্বাধীন করবো। আগামী ৩০ তারিখে আপনারা ভোট কেন্দ্রে যাবেন। আপনারা কোনো বাধা বিপত্তি মানবেন না। আপনাদেরকে সঙ্গে নিয়ে বিএনপি যে আন্দোলনের সূচনা করেছে আগামী ৩০ তারিখে আপনারা ভোট দিয়ে ধানের শীষকে জয়যুক্ত করবেন।

তিনি বলেন, আমি নির্বাচিত হলে প্রথমে এই এলাকার জলাবদ্ধতা দূর করব। ঢাকা ওয়াসাকে সঙ্গে নিয়ে এলাকা আধুনিক ড্রেনেজ সিস্টেমের আওতায় নিয়ে আসব। বিশুদ্ধ পানির সঞ্চালনের জন্য ওয়াসার সঙ্গে বসে আমরা সেই সঞ্চালন লাইন প্রতিস্থাপন করব। ডেঙ্গুর বিষয়ে পুরো ঢাকার ওপর আমাদের একটা কার্যক্রম রয়েছে। এই এলাকা সেই একই কার্যক্রমের আওতায় আসবে। আমরা যথা সময়ে, যথা পরিমাণে, যথাযোগ্য মানের ওষুধ প্রয়োগ করে আমরা এডিস মশার প্রজনন নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে ডেঙ্গু মহামারী আকার ধারণের বিস্তার রোধ করব।
এ সময় বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, কেন্দ্রীয় নেতা সালাউদ্দিন, তানভীর রবিনসহ স্থানীয় পর্যায়ের নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :




আপনাদের জন্য আমি জীবন দিতেও প্রস্তুত : ইশরাক

আপডেট সময় : ০২:২৭:৫২ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৭ জানুয়ারী ২০২০

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক;  কোনো বাধা বিপত্তি না মেনে আগামী ৩০ তারিখে নগরবাসীকে ভোটকেন্দ্রে যাওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে বিএনপি মনোনীত মেয়র প্রার্থী প্রকৌশলী ইশরাক হোসেন।

তিনি বলেন, ‘আমার বাবা শিখিয়েছে কোনো মানব সন্তান অন্য মানুষের কাছে মাথা নত করবে না। আল্লাহ তায়ালা বানিয়েছে উনাকে ভয় করবে, এ ছাড়া দুনিয়াতে কোনো মানুষকে ভয় করবে না। আমরা কারো জমিদারি মানবো না। জনগণকে সামনে নিয়ে জনগণের মালিকানা ফিরিয়ে দেব। আপনারা বিএনপি-সমর্থিত সকল কাউন্সিলরদের ভোট দেবেন। কারণ তারা আমাদের সঙ্গে সংগ্রামে যুক্ত। ইনশাআল্লাহ রাজপথে দেখা হবে। আপনাদের জন্য আমি জীবন দিতেও প্রস্তুত।

শুক্রবার (১৭ জানুয়ারি) নির্বাচনী প্রচারণার অষ্টম দিনের শুরুতে রাজধানীর কদমতলী থানার ৬১নং ওয়ার্ডের দনিয়া বর্ণমালা স্কুলের সামনে তিনি এসব কথা বলেন।

আওয়ামী লীগ সরকারের কঠোর সমালোচনা করে ইশরাক বলেন, গত ১৩ বছর এই সরকার ক্ষমতায়, গত ৯ বছর তাদের অধীনে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন এবং দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন পরিচালিত হচ্ছে। আমি এই এলাকার দুর্দশার কথা জানতে পেরেছি, আমি নিজেও এই এলাকা ঘুরে দেখেছি, আপনাদের যে সমস্যাগুলো রয়েছে। আসার সময় দেখলাম বড় একটা নর্দমা। সেই নর্দমার মধ্যে দিয়ে ময়লা পচা আবর্জনা যুক্ত পানি বয়ে যাচ্ছে। তার ঠিক পাশেই ঘনবসতি। কাঁচা বাজার এবং অন্যান্য সামগ্রী দোকানপাট রয়েছে। এই যে দূষিত পরিবেশ বিরাজমান এইটা পুরো ঢাকা শহরের চিত্র।

তিনি বলেন, আপনারা জানেন বিশ্বে বসবাসের সবচেয়ে অযোগ্য শহরের তালিকায় ঢাকা এক নম্বরে। আপনারা জানেন বিশ্বের সবচেয়ে বায়ু দূষণের তালিকায় গত তিন দিন যাবত ঢাকার অবস্থান এক নম্বরে রয়েছে। নারী এবং শিশুদের জন্য সবচেয়ে অনিরাপদ শহরের একটি তালিকা হয়েছিল মাস দুয়েক আগে, সেখানেও ঢাকার তালিকা এক নম্বরে রয়েছে।

ইশরাক বলেন, প্রাণপ্রিয় ঢাকা নগরীকে এ সরকারের আমলে তিলে তিলে ধ্বংস করা হয়েছে। তারা দেখাচ্ছে অনেক উন্নয়ন হয়েছে। খালি বলছে উন্নয়নের জোয়ার কিন্তু বৃষ্টি আসলে আমরা দেখি এই এলাকায় পানির জোয়ারে রাস্তাঘাট ভেসে যায়। আপনারা খালি একটু চিন্তা করে দেখেন গত ১৩ বছরে এমন কোনো অপকর্ম নেই যে সেটা এ সরকার করেনি। শেয়ার মার্কেট লুট, বাংলাদেশ ব্যাংক লুট, ব্যাংকের ভল্ট থেকে সোনা লুট, সরকারি ব্যাংক লুট, ধর্ষণ, হত্যা, গুম, খুন, ভোটের অধিকার হরণ, জনগণের কথা বলার অধিকার হরণ, ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধ করে দেশ স্বাধীন করা হয়েছিল এই বাংলাদেশের জন্য? এরা এমনই উন্নয়ন করে যে পদ্মা সেতুর একটা করে পিলার বসিয়ে হেডলাইন করে। এমন আজব উন্নয়ন আমরা দেখিনি। একটা করে স্প্যান বসায় আর উদ্বোধন করা হয়। এই ব্রিজ কবে খুলবে? কবে আমরা ব্যবহার করতে পারব? সেটা আমরা জানি না। এক টাকার জিনিস ২০ টাকা হয়েছে। জনগণের টাকার অপচয় করা হয়েছে। আর তারা হাজার কোটি টাকা বিদেশে সিঙ্গাপুর, সুইজারল্যান্ড, যুক্তরাষ্ট্র, কানাডায় পাচার করা হয়েছে। এরা ২০০ টাকার বালিশ সাত হাজার টাকায় কিনেছে।

ইশরাক আরও বলেন, বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল জনগণের রাজনীতি করে। আমরা কোনো পরিবার কেন্দ্রিক রাজনীতি করি না। আমরা জনগণের অধিকার জনগণকে ফিরিয়ে দেব, বাংলাদেশকে আবারো স্বাধীন করবো। আগামী ৩০ তারিখে আপনারা ভোট কেন্দ্রে যাবেন। আপনারা কোনো বাধা বিপত্তি মানবেন না। আপনাদেরকে সঙ্গে নিয়ে বিএনপি যে আন্দোলনের সূচনা করেছে আগামী ৩০ তারিখে আপনারা ভোট দিয়ে ধানের শীষকে জয়যুক্ত করবেন।

তিনি বলেন, আমি নির্বাচিত হলে প্রথমে এই এলাকার জলাবদ্ধতা দূর করব। ঢাকা ওয়াসাকে সঙ্গে নিয়ে এলাকা আধুনিক ড্রেনেজ সিস্টেমের আওতায় নিয়ে আসব। বিশুদ্ধ পানির সঞ্চালনের জন্য ওয়াসার সঙ্গে বসে আমরা সেই সঞ্চালন লাইন প্রতিস্থাপন করব। ডেঙ্গুর বিষয়ে পুরো ঢাকার ওপর আমাদের একটা কার্যক্রম রয়েছে। এই এলাকা সেই একই কার্যক্রমের আওতায় আসবে। আমরা যথা সময়ে, যথা পরিমাণে, যথাযোগ্য মানের ওষুধ প্রয়োগ করে আমরা এডিস মশার প্রজনন নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে ডেঙ্গু মহামারী আকার ধারণের বিস্তার রোধ করব।
এ সময় বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, কেন্দ্রীয় নেতা সালাউদ্দিন, তানভীর রবিনসহ স্থানীয় পর্যায়ের নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।