ঢাকা ০৯:২৪ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১২ এপ্রিল ২০২৪, ২৯ চৈত্র ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম :
Logo সাস্টিয়ান ব্রাহ্মণবাড়িয়া এর ইফতার মাহফিল সম্পন্ন Logo কুবির চট্টগ্রাম স্টুডেন্টস ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশনের ইফতার ও পূর্নমিলনী Logo অধ্যাপক জহীর উদ্দিন আহমেদের মায়ের মৃত্যুতে শাবির মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও মুক্ত চিন্তা চর্চায় ঐক্যবদ্ধ শিক্ষকবৃন্দ পরিষদের শোক প্রকাশ Logo শাবির অধ্যাপক জহীর উদ্দিনের মায়ের মৃত্যুতে উপাচার্যের শোক প্রকাশ Logo বিশ কোটিতে গণপূর্তের প্রধান হওয়ার মিশনে ‘ছাত্রদল ক্যাডার প্রকৌশলী’! Logo দূর্নীতির রাক্ষস ফায়ার সার্ভিসের এডি আনোয়ার! Logo ঝড় ও শিলাবৃষ্টিতে ক্ষতি হওয়া শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়ে অবকাঠামোর সংস্কার শুরু Logo বুয়েটে নিয়মতান্ত্রিক ছাত্র রাজনীতির দাবিতে শাবিপ্রবি ছাত্রলীগের মানববন্ধন Logo কুবি উপাচার্যের বক্তব্যের প্রমাণ দিতে শিক্ষক সমিতির সাত দিনের আল্টিমেটাম Logo কুবি বাংলা বিভাগের অ্যালামনাইদের ইফতার ও দোয়া মাহফিল




সিজারের সময় ভুয়া ডাক্তারের পলাতক, প্রসূতির মৃত্যু

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ১২:৪৫:৫৩ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১২ নভেম্বর ২০১৯ ৭০ বার পড়া হয়েছে

চাটমোহর (পাবনা) প্রতিনিধি
পাবনার চাটমোহর পৌর সদরের ইসলামিক হাসপাতাল নামের একটি প্রাইভেট ক্লিনিকে এক প্রসূতি মায়ের সিজার করার সময় রোগীকে ফেলে পালালেন সাদ্দাম হোসেন নিবির নামের কথিত ডাক্তার। এ সময় রোগীর স্বজনদের চিৎকারে স্থানীয়রা এসে খোঁজ করে ওই ডাক্তারকে আটক করলেও ক্লিনিকের মালিক বাবলু হোসেন ও সেখানকার সকল স্টাফ পালিয়ে যায়। পরে স্থানীয়রা রোগীকে মুমূর্ষু অবস্থায় পাবনা মেডিক্যালে পাঠালে রাত সাড়ে ৯টায় প্রসূতি তাসলিমা খাতুন (২৫) মারা যায়।

নিহত প্রসূতি তাসলিমা খাতুন উপজেলার বিলচলন ইউনিয়নের কুমারগারা গ্রামের ইসমাইল হোসেনের স্ত্রী ও একই গ্রামের কৃষক মজনুর রহমানের মেয়ে। তবে ওই প্রসূতির জন্ম দেওয়া মেয়ে শিশুটি বেঁচে আছে।

নিহতের পরিবার ও স্থানীয়রা জানান, সোমবার দুপুরে প্রসব বেদনা নিয়ে প্রসূতি তাসলিমাকে তার স্বজনরা পৌর শহরের পূর্বের অর্পণ সিনেমা হলের সামনে ইসলামিক হাসপাতাল নামের ক্লিনিকে ভর্তি করেন। ভর্তি করার পরে ওই হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ রোগীর স্বজনদের জানায় রাতেই প্রসূতির সিজার করতে হবে ডাক্তার বাইরে আছেন সন্ধায় চলে আসবেন। সন্ধ্যার পরে কথিত ডাক্তার নিবির আসলে ক্লিনিকে আসলে রোগীর অপারেশন শুরু করেন তিনি।

অপারেশনের এক পর্যায়ে রোগীর অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ শুরু হলে সে সহ সকল স্টাফ রোগীকে ওটিতে ফেলে পালিয়ে যায়। পরে এই কথিত ডাক্তার নিরবের বিষয়ে জানা যায় সে আসলে কোনো ডাক্তারই না। পার্শ্ববর্তী নাটোর বনপাড়ায় নিজস্ব একটি ক্লিনিক পরিচালনা করেন তিনি। পরে পুলিশ এসে তাকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়। তবে এই প্রতিষ্ঠানের মালিক বাবলুসহ সকল স্টাফ এখনো পলাতক রয়েছে।

ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে সহকারী পুলিশ সুপার (চাটমোহর সার্কেল) সজীব শাহরীন জানান, কথিত ওই ভুয়া ডাক্তারকে আটক করে থানায় আনা হয়েছে। ক্লিনিক মালিক বাবলুকে আটকের জন্য পুলিশ অভিযানে নেমেছে। অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :




সিজারের সময় ভুয়া ডাক্তারের পলাতক, প্রসূতির মৃত্যু

আপডেট সময় : ১২:৪৫:৫৩ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১২ নভেম্বর ২০১৯

চাটমোহর (পাবনা) প্রতিনিধি
পাবনার চাটমোহর পৌর সদরের ইসলামিক হাসপাতাল নামের একটি প্রাইভেট ক্লিনিকে এক প্রসূতি মায়ের সিজার করার সময় রোগীকে ফেলে পালালেন সাদ্দাম হোসেন নিবির নামের কথিত ডাক্তার। এ সময় রোগীর স্বজনদের চিৎকারে স্থানীয়রা এসে খোঁজ করে ওই ডাক্তারকে আটক করলেও ক্লিনিকের মালিক বাবলু হোসেন ও সেখানকার সকল স্টাফ পালিয়ে যায়। পরে স্থানীয়রা রোগীকে মুমূর্ষু অবস্থায় পাবনা মেডিক্যালে পাঠালে রাত সাড়ে ৯টায় প্রসূতি তাসলিমা খাতুন (২৫) মারা যায়।

নিহত প্রসূতি তাসলিমা খাতুন উপজেলার বিলচলন ইউনিয়নের কুমারগারা গ্রামের ইসমাইল হোসেনের স্ত্রী ও একই গ্রামের কৃষক মজনুর রহমানের মেয়ে। তবে ওই প্রসূতির জন্ম দেওয়া মেয়ে শিশুটি বেঁচে আছে।

নিহতের পরিবার ও স্থানীয়রা জানান, সোমবার দুপুরে প্রসব বেদনা নিয়ে প্রসূতি তাসলিমাকে তার স্বজনরা পৌর শহরের পূর্বের অর্পণ সিনেমা হলের সামনে ইসলামিক হাসপাতাল নামের ক্লিনিকে ভর্তি করেন। ভর্তি করার পরে ওই হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ রোগীর স্বজনদের জানায় রাতেই প্রসূতির সিজার করতে হবে ডাক্তার বাইরে আছেন সন্ধায় চলে আসবেন। সন্ধ্যার পরে কথিত ডাক্তার নিবির আসলে ক্লিনিকে আসলে রোগীর অপারেশন শুরু করেন তিনি।

অপারেশনের এক পর্যায়ে রোগীর অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ শুরু হলে সে সহ সকল স্টাফ রোগীকে ওটিতে ফেলে পালিয়ে যায়। পরে এই কথিত ডাক্তার নিরবের বিষয়ে জানা যায় সে আসলে কোনো ডাক্তারই না। পার্শ্ববর্তী নাটোর বনপাড়ায় নিজস্ব একটি ক্লিনিক পরিচালনা করেন তিনি। পরে পুলিশ এসে তাকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়। তবে এই প্রতিষ্ঠানের মালিক বাবলুসহ সকল স্টাফ এখনো পলাতক রয়েছে।

ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে সহকারী পুলিশ সুপার (চাটমোহর সার্কেল) সজীব শাহরীন জানান, কথিত ওই ভুয়া ডাক্তারকে আটক করে থানায় আনা হয়েছে। ক্লিনিক মালিক বাবলুকে আটকের জন্য পুলিশ অভিযানে নেমেছে। অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।