ঢাকা ০৩:৪১ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ৩০ চৈত্র ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম :
Logo সাস্টিয়ান ব্রাহ্মণবাড়িয়া এর ইফতার মাহফিল সম্পন্ন Logo কুবির চট্টগ্রাম স্টুডেন্টস ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশনের ইফতার ও পূর্নমিলনী Logo অধ্যাপক জহীর উদ্দিন আহমেদের মায়ের মৃত্যুতে শাবির মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও মুক্ত চিন্তা চর্চায় ঐক্যবদ্ধ শিক্ষকবৃন্দ পরিষদের শোক প্রকাশ Logo শাবির অধ্যাপক জহীর উদ্দিনের মায়ের মৃত্যুতে উপাচার্যের শোক প্রকাশ Logo বিশ কোটিতে গণপূর্তের প্রধান হওয়ার মিশনে ‘ছাত্রদল ক্যাডার প্রকৌশলী’! Logo দূর্নীতির রাক্ষস ফায়ার সার্ভিসের এডি আনোয়ার! Logo ঝড় ও শিলাবৃষ্টিতে ক্ষতি হওয়া শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়ে অবকাঠামোর সংস্কার শুরু Logo বুয়েটে নিয়মতান্ত্রিক ছাত্র রাজনীতির দাবিতে শাবিপ্রবি ছাত্রলীগের মানববন্ধন Logo কুবি উপাচার্যের বক্তব্যের প্রমাণ দিতে শিক্ষক সমিতির সাত দিনের আল্টিমেটাম Logo কুবি বাংলা বিভাগের অ্যালামনাইদের ইফতার ও দোয়া মাহফিল




ফিল্মের ডনকেও হার মানায়, মানুষ খুন করাই এরশাদের নেশা! 

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৯:০৮:০৩ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৭ নভেম্বর ২০১৯ ৮০ বার পড়া হয়েছে

চট্টগ্রাম ব্যুরো; 

চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়ার ত্রাস জেলার তালিকাভুক্ত শীর্ষ সন্ত্রাসী এরশাদুর রহমান গ্রেফতার হওয়ার পর তার নানা কাহিনী বেরিয়ে আসছে। মুখ খুলছেন স্থানীয়রাও। দিন মজুরের সন্তান এরশাদুরের বৈধ আয় না থাকলেও তিনি এখন বাড়ি, ফ্ল্যাট, গাড়ি, ইটভাটার মালিক।

এলাকায় রয়েছে তার বিঘায় বিঘায় জমি। তার আয়ের মূল উৎসই হচ্ছে চাঁদাবাজি, অবৈধ বালু উত্তোলন, দখল ও কন্ট্রাক্ট কিলিং। কথায় কথায় মানুষ খুন করা তার নেশা। ত্রাসের রাজত্ব বজায় রাখতে ’৮০-এর দশক থেকেই দলবদল করে আসা এরশাদুর রহমানের গ্রেফতারের পর এলাকায় স্বস্তি ফিরে এসেছে।

যখন যে দল ক্ষমতায় আসেন এরশাদ তখন সেই দলে ভিড়েছেন বিনা বাধায়। ২৯ অক্টোবর রাতে অক্সিজেন এলাকা থেকে র‌্যাব গ্রেফতার করার আগে তিনি আওয়ামী লীগ করতেন। রাঙ্গুনিয়া থানা পুলিশ চার মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে তাকে আদালতে সোপর্দ করার আগে তিনি ছিলেন রাঙ্গুনিয়ার ত্রাস। অভিযোগ আছে, থানা পুলিশকে ‘ম্যানেজ’ করে চলায় গ্রেফতার এড়িয়ে যাচ্ছিলেন রাঙ্গুনিয়ার ইসলামপুর ইউনিয়নের ৭ নম্বর ওয়ার্ডের আল আমীন পাড়ার মৃত তাজুল ইসলামের ছেলে এরশাদ।

যেভাবে উত্থান : জেলার শীর্ষ সন্ত্রাসী আইয়ুব বাহিনীর প্রধান আইয়ুবের হাত ধরে ’৮০-এর দশকের মাঝামাঝি এরশাদ সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে পা বাড়ান। পরে আইয়ুবের সেকেন্ড ইন কমান্ড হন এরশাদ। আইয়ুবের সঙ্গে তিনি যোগ দেন সালাউদ্দিন কাদের (সাকা) চৌধুরীর এনডিপিতে। সাকা চৌধুরী পরে বিএনপিতে যোগ দিলে এরশাদও বিএনপিতে ভেড়েন।

আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় এলে এরশাদও বাহিনীর প্রধান আইয়ুবের সঙ্গে আওয়ামী লীগে যোগ দেন। ৫ অক্টোবর আততায়ীর গুলিতে গুরুতর আহত হয়ে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ভর্তি হন আইয়ুব। চিকিৎসাধীন অবস্থায় ১৯ অক্টোবর মারা যান। স্থানীয়রা বলছেন, এরশাদ জাত সন্ত্রাসী। শুধু সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড ধরে রাখতেই সরকার বদলের সঙ্গে সঙ্গে তিনি বদল করেন দল। ফলে সরকর বদল হলেও তার রাজত্বের বদল হয় না।

অপকর্ম : রাঙ্গুনিয়ার আশপাশের লোকজনের কাছে এরশাদ মূর্তিমান আতঙ্কের নাম। মানুষ খুন করা তার নেশায় পরিণত হয়েছে। তার বিরুদ্ধে রাঙ্গুনিয়ার দক্ষিণ রাজানগর এলাকায় ১৯৯১ সালে মুক্তিযোদ্ধা আবদুস সোবহানকে জীবিত কবর দিয়ে হত্যা, ১৯৮৯ সালে ইসলামপুরে মেহেরুজ্জামান ও ২০০২ সালে তার ছেলে ননাইয়াকে হত্যা, ১৯৯১ সালের ইসমাইল ও গফুরকে হত্যা, ২০১৪ সালে আ’লীগ কর্মী মাহাবুব আলমকে হত্যার অভিযোগে মামলা হয়েছে।

এছাড়া রাঙ্গুনিয়ার মোহাম্মদ আমীনকে পিটিয়ে পঙ্গু করা ছাড়াও বেশ কয়েকটি ডাকাতি মামলা আছে তার বিরুদ্ধে। এরমধ্যে মুক্তিযোদ্ধা সোবহান হত্যা মামলায় যাবজ্জীবন এবং রাজারহাট বাজার ডাকাতি মামলায় ১০ বছরের দণ্ড দিয়েছেন আদালত।

সম্পদ : সন্ত্রাসী ও চাঁদাবাজিই তার আয়ের অন্যতম উৎস। উপজেলার ইসলামপুর ইউনিয়নের রানীরহাট বাজারসংলগ্ন এক আত্মীয়ের জমি দখল করে গড়ে তুলেছেন অন্তত ২০টি ঘর। সেখান থেকে প্রতি মাসে লাখ টাকা ভাড়া পান।

তার ইসলামপুর ছাদেক নগর এলাকায় ‘বিবিএম-২’ ও রুইস্যা বিল এলাকায় ‘বিআরবি’ নামে দুটি ইটভাটা, দুটি ট্রাক, নগরীর অক্সিজেন এলাকায় আছে দুটি ফ্ল্যাট। এলাকায় তার বিঘায় বিঘায় জমি আছে। এছাড়া জানা গেছে, ব্যাংকেও আছে তার তার বিপুল অংকের টাকা।

আয়ের উৎস : রাঙ্গুনিয়া উপজেলার ইছামতি খালের বগারবিল, গোদারপাড়, বেথছড়ি, রানীরহাট, রাজারহাট, পাড়–য়াসহ উত্তর রাঙ্গুনিয়ার বেশ কয়েকটি এলাকা থেকে ড্রেজার দিয়ে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করে তা বিক্রি, ইটভাটা থেকে চাঁদা আদায়, রাঙ্গামাটি সড়কসহ বিভিন্ন সড়কের যানবাহন থেকে চাঁদা আদায়, গাছ পাচার, অস্ত্র বেচাকেনা ও মাদক ব্যবসা।

কথা হয় ২০১৪ সালে এরশাদের বর্বরতার শিকার উপজেলার ইসলামপুরের ফয়েজ আহমেদের ছেলে মোহাম্মদ আমীনের সঙ্গে। আমীন বলেন, এরশাদ নিজেই লোহার রড দিয়ে আমাকে পেটান।

তিনি বলেন, নির্যাতনে আমার সঙ্গে থাকা মাহাবুব নিহত হলেও আমি মরতে মরতে বেঁচে যাই। এরশাদের কারণে আমি এলাকায় যেতে পারিনি। নিহত মুক্তিযোদ্ধা আবদুস সোবাহানের ছেলে উকিল আহমেদ বলেন, ‘সন্ত্রাসী এরশাদ এলাকার একজন মূর্তিমান আতঙ্ক। আমার বাবাকে এরশাদসহ অন্য আসামিরা নৃশংসভাবে হত্যা করেছে। এ মামলায় এরশাদের যাবজ্জীবন সাজা হলেও তিনি এলাকায় বহাল তবিয়তে।’

রাঙ্গুনিয়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মাহাবুব মিল্কি বলেন, ‘এরশাদ রাঙ্গুনিয়া থানার তালিকাভুক্ত একজন সন্ত্রাসী। র‌্যাব নগরী থেকে তাকে গ্রেফতারের পর তার বিরুদ্ধে থাকা ৪টি মামলায় গ্রেফতারি পরোয়ানা দেখিয়ে আদালতে সোপর্দ করা হয়।’

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :




ফিল্মের ডনকেও হার মানায়, মানুষ খুন করাই এরশাদের নেশা! 

আপডেট সময় : ০৯:০৮:০৩ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৭ নভেম্বর ২০১৯

চট্টগ্রাম ব্যুরো; 

চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়ার ত্রাস জেলার তালিকাভুক্ত শীর্ষ সন্ত্রাসী এরশাদুর রহমান গ্রেফতার হওয়ার পর তার নানা কাহিনী বেরিয়ে আসছে। মুখ খুলছেন স্থানীয়রাও। দিন মজুরের সন্তান এরশাদুরের বৈধ আয় না থাকলেও তিনি এখন বাড়ি, ফ্ল্যাট, গাড়ি, ইটভাটার মালিক।

এলাকায় রয়েছে তার বিঘায় বিঘায় জমি। তার আয়ের মূল উৎসই হচ্ছে চাঁদাবাজি, অবৈধ বালু উত্তোলন, দখল ও কন্ট্রাক্ট কিলিং। কথায় কথায় মানুষ খুন করা তার নেশা। ত্রাসের রাজত্ব বজায় রাখতে ’৮০-এর দশক থেকেই দলবদল করে আসা এরশাদুর রহমানের গ্রেফতারের পর এলাকায় স্বস্তি ফিরে এসেছে।

যখন যে দল ক্ষমতায় আসেন এরশাদ তখন সেই দলে ভিড়েছেন বিনা বাধায়। ২৯ অক্টোবর রাতে অক্সিজেন এলাকা থেকে র‌্যাব গ্রেফতার করার আগে তিনি আওয়ামী লীগ করতেন। রাঙ্গুনিয়া থানা পুলিশ চার মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে তাকে আদালতে সোপর্দ করার আগে তিনি ছিলেন রাঙ্গুনিয়ার ত্রাস। অভিযোগ আছে, থানা পুলিশকে ‘ম্যানেজ’ করে চলায় গ্রেফতার এড়িয়ে যাচ্ছিলেন রাঙ্গুনিয়ার ইসলামপুর ইউনিয়নের ৭ নম্বর ওয়ার্ডের আল আমীন পাড়ার মৃত তাজুল ইসলামের ছেলে এরশাদ।

যেভাবে উত্থান : জেলার শীর্ষ সন্ত্রাসী আইয়ুব বাহিনীর প্রধান আইয়ুবের হাত ধরে ’৮০-এর দশকের মাঝামাঝি এরশাদ সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে পা বাড়ান। পরে আইয়ুবের সেকেন্ড ইন কমান্ড হন এরশাদ। আইয়ুবের সঙ্গে তিনি যোগ দেন সালাউদ্দিন কাদের (সাকা) চৌধুরীর এনডিপিতে। সাকা চৌধুরী পরে বিএনপিতে যোগ দিলে এরশাদও বিএনপিতে ভেড়েন।

আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় এলে এরশাদও বাহিনীর প্রধান আইয়ুবের সঙ্গে আওয়ামী লীগে যোগ দেন। ৫ অক্টোবর আততায়ীর গুলিতে গুরুতর আহত হয়ে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ভর্তি হন আইয়ুব। চিকিৎসাধীন অবস্থায় ১৯ অক্টোবর মারা যান। স্থানীয়রা বলছেন, এরশাদ জাত সন্ত্রাসী। শুধু সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড ধরে রাখতেই সরকার বদলের সঙ্গে সঙ্গে তিনি বদল করেন দল। ফলে সরকর বদল হলেও তার রাজত্বের বদল হয় না।

অপকর্ম : রাঙ্গুনিয়ার আশপাশের লোকজনের কাছে এরশাদ মূর্তিমান আতঙ্কের নাম। মানুষ খুন করা তার নেশায় পরিণত হয়েছে। তার বিরুদ্ধে রাঙ্গুনিয়ার দক্ষিণ রাজানগর এলাকায় ১৯৯১ সালে মুক্তিযোদ্ধা আবদুস সোবহানকে জীবিত কবর দিয়ে হত্যা, ১৯৮৯ সালে ইসলামপুরে মেহেরুজ্জামান ও ২০০২ সালে তার ছেলে ননাইয়াকে হত্যা, ১৯৯১ সালের ইসমাইল ও গফুরকে হত্যা, ২০১৪ সালে আ’লীগ কর্মী মাহাবুব আলমকে হত্যার অভিযোগে মামলা হয়েছে।

এছাড়া রাঙ্গুনিয়ার মোহাম্মদ আমীনকে পিটিয়ে পঙ্গু করা ছাড়াও বেশ কয়েকটি ডাকাতি মামলা আছে তার বিরুদ্ধে। এরমধ্যে মুক্তিযোদ্ধা সোবহান হত্যা মামলায় যাবজ্জীবন এবং রাজারহাট বাজার ডাকাতি মামলায় ১০ বছরের দণ্ড দিয়েছেন আদালত।

সম্পদ : সন্ত্রাসী ও চাঁদাবাজিই তার আয়ের অন্যতম উৎস। উপজেলার ইসলামপুর ইউনিয়নের রানীরহাট বাজারসংলগ্ন এক আত্মীয়ের জমি দখল করে গড়ে তুলেছেন অন্তত ২০টি ঘর। সেখান থেকে প্রতি মাসে লাখ টাকা ভাড়া পান।

তার ইসলামপুর ছাদেক নগর এলাকায় ‘বিবিএম-২’ ও রুইস্যা বিল এলাকায় ‘বিআরবি’ নামে দুটি ইটভাটা, দুটি ট্রাক, নগরীর অক্সিজেন এলাকায় আছে দুটি ফ্ল্যাট। এলাকায় তার বিঘায় বিঘায় জমি আছে। এছাড়া জানা গেছে, ব্যাংকেও আছে তার তার বিপুল অংকের টাকা।

আয়ের উৎস : রাঙ্গুনিয়া উপজেলার ইছামতি খালের বগারবিল, গোদারপাড়, বেথছড়ি, রানীরহাট, রাজারহাট, পাড়–য়াসহ উত্তর রাঙ্গুনিয়ার বেশ কয়েকটি এলাকা থেকে ড্রেজার দিয়ে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করে তা বিক্রি, ইটভাটা থেকে চাঁদা আদায়, রাঙ্গামাটি সড়কসহ বিভিন্ন সড়কের যানবাহন থেকে চাঁদা আদায়, গাছ পাচার, অস্ত্র বেচাকেনা ও মাদক ব্যবসা।

কথা হয় ২০১৪ সালে এরশাদের বর্বরতার শিকার উপজেলার ইসলামপুরের ফয়েজ আহমেদের ছেলে মোহাম্মদ আমীনের সঙ্গে। আমীন বলেন, এরশাদ নিজেই লোহার রড দিয়ে আমাকে পেটান।

তিনি বলেন, নির্যাতনে আমার সঙ্গে থাকা মাহাবুব নিহত হলেও আমি মরতে মরতে বেঁচে যাই। এরশাদের কারণে আমি এলাকায় যেতে পারিনি। নিহত মুক্তিযোদ্ধা আবদুস সোবাহানের ছেলে উকিল আহমেদ বলেন, ‘সন্ত্রাসী এরশাদ এলাকার একজন মূর্তিমান আতঙ্ক। আমার বাবাকে এরশাদসহ অন্য আসামিরা নৃশংসভাবে হত্যা করেছে। এ মামলায় এরশাদের যাবজ্জীবন সাজা হলেও তিনি এলাকায় বহাল তবিয়তে।’

রাঙ্গুনিয়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মাহাবুব মিল্কি বলেন, ‘এরশাদ রাঙ্গুনিয়া থানার তালিকাভুক্ত একজন সন্ত্রাসী। র‌্যাব নগরী থেকে তাকে গ্রেফতারের পর তার বিরুদ্ধে থাকা ৪টি মামলায় গ্রেফতারি পরোয়ানা দেখিয়ে আদালতে সোপর্দ করা হয়।’