ঢাকা ০৬:৪৮ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২৪ জুলাই ২০২৪, ৯ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম :
Logo শাবি ক্যাম্পাসে আন্দোলনকারীদের ছড়ানো গুজবে সয়লাব Logo সিলেট-সুনামগঞ্জ মহাসড়কে আন্দোলনকারীরা পুলিশের উপর হামলা চালালে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে Logo জবিতে আজীবন ছাত্ররাজনীতি নিষিদ্ধ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ Logo শাবিতে হল প্রশাসনকে ভয়-ভীতি দেখিয়ে নোটিসে জোর পূর্বক সাইন আদায় Logo এবার সামনে আসছে ছাত্রলীগ কর্তৃক আন্দোলনকারীদের মারধরের আরো ঘটনা Logo আবাসিক হল ছাড়ছে শাবি শিক্ষার্থীরা Logo নিরাপত্তার স্বার্থে শাবি শিক্ষার্থীদের আইডিকার্ড সাথে রাখার আহবান বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের Logo জনস্বাস্থ্যের প্রধান সাধুর যত অসাধু কর্ম: দুর্নীতি ও অর্থ পাচারের অভিযোগ! Logo বিআইডব্লিউটিএ বন্দর শাখা যুগ্ম পরিচালক আলমগীরের দুর্নীতি ও ঘুষ বাণিজ্য  Logo রাজশাহীতে এটিএন বাংলার সাংবাদিক সুজাউদ্দিন ছোটনকে হয়রানিমূলক মামলায় বএিমইউজরে নিন্দা ও প্রতিবাদ




অতীত – তারিফুল ইসলাম

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৪:৫২:০১ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২০ ডিসেম্বর ২০১৮ ১৭১ বার পড়া হয়েছে

তোমাকে শেষ কবে দেখেছি ঠিক মনে নেই,তবে  প্রথম কবে দেখেছিলাম মনে আছে ২৭.০১.০৫।প্রথম কবে দেখেছিলাম স্বরণ করতে গিয়ে মনে হলো সময়টা খুব অল্প নয় বিশাল এক টা লম্বা অতীত। আচ্ছা অতীত কি আসলেই ভুলা সম্ভব সেটা দুঃখের কিংবা হোক না সুখের?

অতীত একটা আত্মজীবনী মূলক গ্রন্থ,যা শুধু নিজে পড়া যায়। পড়ে কখনো কাঁদতে হয়, কখনো হাসতে হয়, আবার কখনো বা লজ্জা পেতে হয়। কিছু অতীত-তো এমন আছে,যা কেবল-ই নিজের ভেতর লালান করা হয়।

শত চেষ্টা করে -ও অন্য কারো কাছে প্রকাশ করা সম্ভব হয় না। এই চির গোপন অতীতগুলো-ই লালনকর্তাকে কুড়ে কুড়ে খায়, পথ চলতে সহায়তা করে,আত্মার শক্তিকে আরো সানিত করে, লক্ষ পানে ছুটে চলতে উৎসাহিত করে,স্বার্থপর ও নিষ্ঠুর করে তোলে, সপ্ন দেখতে শেখায়, সবচেয়ে বড় কথা হল অন্য সবার থেকে লালনকারিকে আলাদা করে রাখে।

অতীত অবশ্যই অভিজ্ঞতা কে সমৃদ্ধ করে,শিক্ষাকে বাস্তবতায় পরিনত করতে বাধ্য করে।

জীবনের কোন একটা সময়ে এসে সবার মনে-ই প্রশ্ন জাগে,আসলে জীবনটা কি? তখন কিন্তু উত্তর একটা-ই, আমার অতীত-ই হল আমার জীবন।

যদি-ও অতীত,বর্তমান,ভবিষ্যৎ এই নিয়েই এক একজন মানুষের জীবন। একটু গভীর ভাবে চিন্তা করলে বুঝবেন যে,বর্তমানটা কত ছোট। জীবনের প্রতি মুহূর্ত-ই এক পলকে অতীত হয়ে যাচ্ছে।। সেই সূত্র ধরে বলতে পারি অতীত আপন ক্ষমতা বলে বর্তমান এবং ভবিষ্যতকে প্রতি নিঃশ্বাসের সাথে সাথে গ্রাস করে নিচ্ছে। অতীতের কাছে প্রতিনিয়ত পরাজিত হচ্ছে ভবিষ্যৎ এবং অতিক্ষুদ্র বর্তমান।

অতিতকে ভুলে থাকার প্রচেষ্টা অনেকে করে থাকেন। জানি না ভুলতে পারেন কি না। ক্ষণিকের জন্য ভুলে থাকা গেলে-ও মুছে ফেলা সম্ভব না। কোন না কোন ভাবে অতীত সামনে এসে আপনাকে ডাকবে। চোখ বন্ধ করে তাকে একটু ভাবতে বলবে। তার এঁকেবেঁকে ছুটে চলা পথ ধরে আপনাকে ঘুরে আসতে-ই হবে।

এভাবে-ই অতীত একদিন হয়ে উঠবে আপন মহিমায় কালের জলন্ত সাক্ষি অথবা ইতিহাসের অংশ। উপমা হয়ে ঘুরেফিরবে মানুষের মুখে মুখে।

চলবে………

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :




অতীত – তারিফুল ইসলাম

আপডেট সময় : ০৪:৫২:০১ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২০ ডিসেম্বর ২০১৮

তোমাকে শেষ কবে দেখেছি ঠিক মনে নেই,তবে  প্রথম কবে দেখেছিলাম মনে আছে ২৭.০১.০৫।প্রথম কবে দেখেছিলাম স্বরণ করতে গিয়ে মনে হলো সময়টা খুব অল্প নয় বিশাল এক টা লম্বা অতীত। আচ্ছা অতীত কি আসলেই ভুলা সম্ভব সেটা দুঃখের কিংবা হোক না সুখের?

অতীত একটা আত্মজীবনী মূলক গ্রন্থ,যা শুধু নিজে পড়া যায়। পড়ে কখনো কাঁদতে হয়, কখনো হাসতে হয়, আবার কখনো বা লজ্জা পেতে হয়। কিছু অতীত-তো এমন আছে,যা কেবল-ই নিজের ভেতর লালান করা হয়।

শত চেষ্টা করে -ও অন্য কারো কাছে প্রকাশ করা সম্ভব হয় না। এই চির গোপন অতীতগুলো-ই লালনকর্তাকে কুড়ে কুড়ে খায়, পথ চলতে সহায়তা করে,আত্মার শক্তিকে আরো সানিত করে, লক্ষ পানে ছুটে চলতে উৎসাহিত করে,স্বার্থপর ও নিষ্ঠুর করে তোলে, সপ্ন দেখতে শেখায়, সবচেয়ে বড় কথা হল অন্য সবার থেকে লালনকারিকে আলাদা করে রাখে।

অতীত অবশ্যই অভিজ্ঞতা কে সমৃদ্ধ করে,শিক্ষাকে বাস্তবতায় পরিনত করতে বাধ্য করে।

জীবনের কোন একটা সময়ে এসে সবার মনে-ই প্রশ্ন জাগে,আসলে জীবনটা কি? তখন কিন্তু উত্তর একটা-ই, আমার অতীত-ই হল আমার জীবন।

যদি-ও অতীত,বর্তমান,ভবিষ্যৎ এই নিয়েই এক একজন মানুষের জীবন। একটু গভীর ভাবে চিন্তা করলে বুঝবেন যে,বর্তমানটা কত ছোট। জীবনের প্রতি মুহূর্ত-ই এক পলকে অতীত হয়ে যাচ্ছে।। সেই সূত্র ধরে বলতে পারি অতীত আপন ক্ষমতা বলে বর্তমান এবং ভবিষ্যতকে প্রতি নিঃশ্বাসের সাথে সাথে গ্রাস করে নিচ্ছে। অতীতের কাছে প্রতিনিয়ত পরাজিত হচ্ছে ভবিষ্যৎ এবং অতিক্ষুদ্র বর্তমান।

অতিতকে ভুলে থাকার প্রচেষ্টা অনেকে করে থাকেন। জানি না ভুলতে পারেন কি না। ক্ষণিকের জন্য ভুলে থাকা গেলে-ও মুছে ফেলা সম্ভব না। কোন না কোন ভাবে অতীত সামনে এসে আপনাকে ডাকবে। চোখ বন্ধ করে তাকে একটু ভাবতে বলবে। তার এঁকেবেঁকে ছুটে চলা পথ ধরে আপনাকে ঘুরে আসতে-ই হবে।

এভাবে-ই অতীত একদিন হয়ে উঠবে আপন মহিমায় কালের জলন্ত সাক্ষি অথবা ইতিহাসের অংশ। উপমা হয়ে ঘুরেফিরবে মানুষের মুখে মুখে।

চলবে………