ঢাকা ১২:৩০ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১৩ জুলাই ২০২৪, ২৮ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম :
Logo পুলিশের হামলার পরও ৬ ঘন্টা ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক অবরোধে কুবি শিক্ষার্থীর Logo শাবিপ্রবির প্রো-ভিসি অধ্যাপক ড. কবির হোসেনের সফলতার একবছর পূর্তি Logo এবার আলোচনায় আওয়ামী লীগের থানা ওয়ার্ড কমিটিতে পদ বাণিজ্যে! Logo প্রত্যয় স্কিম প্রত্যাহার দাবি Logo শাবি উপাচার্যের কৃতিত্ব; মাত্র ৪বছরেই আয়োজন করছেন ২ বার কনভোকেশন Logo কুবিতে সমাপ্ত হলো আন্তর্জাতিক নাট্য উৎসব Logo পর্দা নামলো থিয়েটার কুবি আয়োজিত দুই দিনের আন্তর্জাতিক নাট্য উৎসব Logo রেলওয়ের নিরাপত্তা বাহিনীর কমান্ড্যান্ট শহীদ উল্লাহর সম্পদের খনি  Logo সাবরেজিস্ট্রার অফিসের হিসেবে ৬৭৭ কোটি টাকার নয় ছয় Logo সাংবাদিকদের নিয়ে মতিউরের স্ত্রীর বিতর্কিত বক্তব্যের প্রতিবাদ: হাজার কোটি টাকা মানহানী মামলার হুমকি বিএমইউজে’ র




ইবি শাখা ছাত্রলীগ সম্পাদককে ক্যাম্পাস ছাড়া করল বিদ্রোহীরা

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ১১:৪২:৪০ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ১২৩ বার পড়া হয়েছে

ইবি প্রতিনিধি

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রাকিবুল ইসলাম রাকিবকে ধাওয়া দিয়ে ক্যাম্পাস ছাড়া করেছে বিদ্রোহী গ্রুপের নেতাকর্মীরা। শুক্রবার বিকাল সাড়ে ৫ টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। প্রধানমন্ত্রীকে হত্যার হুমকির প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিলের আয়োজনের বিষয়ে ক্যাম্পাসে এসেছিলেন রাকিব। এ সময় তার সঙ্গে ক্যাম্পাসের সাবেক ছাত্রলীগ নেতারা ছিলেন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, প্রধানমন্ত্রীকে হত্যার হুমকির প্রতিবাদে শনিবার সকালে বিক্ষোভ মিছিলের আয়োজন করতে বিকালে ক্যাম্পাসে আসেন রাকিব। এ সময় তার সঙ্গে সাবেক ছাত্রলীগ নেতা ও স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতারা ছিলেন। তিনি জিয়া হল মোড়ে অবস্থান নিলে অনুসারীরা দেখা করতে আসেন। রাকিবের ক্যাম্পাসে ঢোকার বিষয়টি ছাত্রলীগের বিদ্র্রোহী গ্রুপের কর্মীদের মধ্যে ছড়িয়ে পড়ে।

এ সময় দেশীয় অস্ত্র, লাঠিসোঠা নিয়ে প্রত্যেক হলের সামনে অবস্থান নেয় তারা। একপর্যায়ে রাকিবও অল্প সংখ্যক কর্মী নিয়ে জিয়া হল মোড়ে অবস্থান নেন। শিশির ইসলাম বাবু, তৌকির মাহফুজ মাসুদ, মিজানুর রহমান লালন, ফয়সাল সিদ্দীকি আরাফাতের নেতৃত্বে বিদ্রোহীরা বঙ্গবন্ধু হলের সামনে থেকে মিছিল শুরু করে। এ সময় তাদের হাতে চাপাতি, রড, লাঠিসহ বিভিন্ন ধারালো অস্ত্র দেখা যায়। রাকিব প্রধান ফটকের বাইরে গিয়ে অবস্থান নেন। পরে তাদের তোপের মুখে সাবেক নেতারাসহ তিনি ক্যাম্পাস ছাড়তে বাধ্য হন।

পরে বিদ্রোহীরা সাদ্দাম হোসেন হল, লালন শাহ হল, শেখ রাসেল হলে ঢুকে সভাপতি ও সম্পাদকের নেতাকর্মীদের খোঁজ করেন এবং বিভিন্ন ভাবে হুমকি ধমকি দেন। তাদের বিরুদ্ধে স্লোগান দিতে থাকেন বিদ্রোহীরা। এ সময় সাধারণ শিক্ষার্থী ও দর্শনার্থীদের মধ্য আতঙ্ক সৃষ্টি হয়। ক্যাম্পাসে থমথমে অবস্থা বিরাজ করে।

এ বিষয়ে মিজানুর রহমান লালন বলেন, ‘রাকিব বহিরাগতদের নিয়ে ক্যাম্পাসে প্রবেশ করে। আমরা বহিরাগত মুক্ত ক্যাম্পাস চাই। তাই প্রতিরোধ করেছি। আমরা তাদের অবাঞ্চিত ঘোষণা করেছি। তাদের ক্যাম্পাসে ঢুকতে দেয়া হবে না।’

এদিকে শনিবার ক্যাম্পাসে পাল্টাপাল্টি বিক্ষোভ মিছিলের ঘোষণা দিয়েছে কমিটির নেতৃবৃন্দ এবং বিদ্রোহীরা। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যার হুমকি দেওয়া বিএনপি নেতা শামসুজ্জামান দুদুকে গ্রেফতার এবং তার শাস্তির দাবিতে সকাল ১১ টায় বিক্ষোভ মিছিলের ঘোষণা দিয়েছে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপ। এতে শিক্ষার্থীদের মধ্য চরম আতঙ্ক বিরাজ করছে।

এ বিষয়ে সম্পাদক রাকিবুল ইসলাম রাকিব বলেন, প্রধানমন্ত্রীকে হত্যার হুমকির প্রতিবাদে শনিবার বিক্ষোভ মিছিলের আয়োজন করতে কর্মীদের সঙ্গে দেখা করতে গিয়েছিলাম। এ সময় তারা আমার উপরে হামলার উদ্দেশ্যে বিভিন্ন অস্ত্রসস্ত্র নিয়ে তেড়ে আসে। পরে ক্যাম্পাস থেকে চলে আসি।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :




ইবি শাখা ছাত্রলীগ সম্পাদককে ক্যাম্পাস ছাড়া করল বিদ্রোহীরা

আপডেট সময় : ১১:৪২:৪০ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯

ইবি প্রতিনিধি

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রাকিবুল ইসলাম রাকিবকে ধাওয়া দিয়ে ক্যাম্পাস ছাড়া করেছে বিদ্রোহী গ্রুপের নেতাকর্মীরা। শুক্রবার বিকাল সাড়ে ৫ টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। প্রধানমন্ত্রীকে হত্যার হুমকির প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিলের আয়োজনের বিষয়ে ক্যাম্পাসে এসেছিলেন রাকিব। এ সময় তার সঙ্গে ক্যাম্পাসের সাবেক ছাত্রলীগ নেতারা ছিলেন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, প্রধানমন্ত্রীকে হত্যার হুমকির প্রতিবাদে শনিবার সকালে বিক্ষোভ মিছিলের আয়োজন করতে বিকালে ক্যাম্পাসে আসেন রাকিব। এ সময় তার সঙ্গে সাবেক ছাত্রলীগ নেতা ও স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতারা ছিলেন। তিনি জিয়া হল মোড়ে অবস্থান নিলে অনুসারীরা দেখা করতে আসেন। রাকিবের ক্যাম্পাসে ঢোকার বিষয়টি ছাত্রলীগের বিদ্র্রোহী গ্রুপের কর্মীদের মধ্যে ছড়িয়ে পড়ে।

এ সময় দেশীয় অস্ত্র, লাঠিসোঠা নিয়ে প্রত্যেক হলের সামনে অবস্থান নেয় তারা। একপর্যায়ে রাকিবও অল্প সংখ্যক কর্মী নিয়ে জিয়া হল মোড়ে অবস্থান নেন। শিশির ইসলাম বাবু, তৌকির মাহফুজ মাসুদ, মিজানুর রহমান লালন, ফয়সাল সিদ্দীকি আরাফাতের নেতৃত্বে বিদ্রোহীরা বঙ্গবন্ধু হলের সামনে থেকে মিছিল শুরু করে। এ সময় তাদের হাতে চাপাতি, রড, লাঠিসহ বিভিন্ন ধারালো অস্ত্র দেখা যায়। রাকিব প্রধান ফটকের বাইরে গিয়ে অবস্থান নেন। পরে তাদের তোপের মুখে সাবেক নেতারাসহ তিনি ক্যাম্পাস ছাড়তে বাধ্য হন।

পরে বিদ্রোহীরা সাদ্দাম হোসেন হল, লালন শাহ হল, শেখ রাসেল হলে ঢুকে সভাপতি ও সম্পাদকের নেতাকর্মীদের খোঁজ করেন এবং বিভিন্ন ভাবে হুমকি ধমকি দেন। তাদের বিরুদ্ধে স্লোগান দিতে থাকেন বিদ্রোহীরা। এ সময় সাধারণ শিক্ষার্থী ও দর্শনার্থীদের মধ্য আতঙ্ক সৃষ্টি হয়। ক্যাম্পাসে থমথমে অবস্থা বিরাজ করে।

এ বিষয়ে মিজানুর রহমান লালন বলেন, ‘রাকিব বহিরাগতদের নিয়ে ক্যাম্পাসে প্রবেশ করে। আমরা বহিরাগত মুক্ত ক্যাম্পাস চাই। তাই প্রতিরোধ করেছি। আমরা তাদের অবাঞ্চিত ঘোষণা করেছি। তাদের ক্যাম্পাসে ঢুকতে দেয়া হবে না।’

এদিকে শনিবার ক্যাম্পাসে পাল্টাপাল্টি বিক্ষোভ মিছিলের ঘোষণা দিয়েছে কমিটির নেতৃবৃন্দ এবং বিদ্রোহীরা। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যার হুমকি দেওয়া বিএনপি নেতা শামসুজ্জামান দুদুকে গ্রেফতার এবং তার শাস্তির দাবিতে সকাল ১১ টায় বিক্ষোভ মিছিলের ঘোষণা দিয়েছে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপ। এতে শিক্ষার্থীদের মধ্য চরম আতঙ্ক বিরাজ করছে।

এ বিষয়ে সম্পাদক রাকিবুল ইসলাম রাকিব বলেন, প্রধানমন্ত্রীকে হত্যার হুমকির প্রতিবাদে শনিবার বিক্ষোভ মিছিলের আয়োজন করতে কর্মীদের সঙ্গে দেখা করতে গিয়েছিলাম। এ সময় তারা আমার উপরে হামলার উদ্দেশ্যে বিভিন্ন অস্ত্রসস্ত্র নিয়ে তেড়ে আসে। পরে ক্যাম্পাস থেকে চলে আসি।