• ১৬ই এপ্রিল ২০২১ খ্রিস্টাব্দ , ৩রা বৈশাখ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

বরিশালের টিকটক শিরীনের আটক হওয়ায় মুসুল্লীরাদের স্বস্তি প্রকাশ 

সকালের সংবাদ ডেস্ক;
প্রকাশিত সেপ্টেম্বর ১২, ২০১৯, ০০:১৫ পূর্বাহ্ণ
বরিশালের টিকটক শিরীনের আটক হওয়ায় মুসুল্লীরাদের স্বস্তি প্রকাশ 

নিজস্ব প্রতিবেদক।।
সুন্দরী মধ্য বয়স্ক নারীর প্রেমের জালে ফেঁসে নিঃস্ব হয়েছে অনেক পুরুষ বলেও অভিযোগ রয়েছে। জানা গেছে, রাঙ্গাবালী দ্বীপ থেকে ঘটিবাটি হীন এ নারী বরিশালে পারি জমায় বেশ কয়েক বছর আগে৷ স্বল্প সময়ের ব্যবধানে ধনসম্পত্তি বৃদ্ধি পেলেও এর উৎস কোথায় তার খোঁজ মেলেনি।

তবে অনুসন্ধানে জানা গেছে, বেশ কয়েক বছর পূর্বে লঞ্চঘাট এলাকার ফল ব্যবসায়ীর সাথে সম্পর্ক হবার পরে গোপন মেলামেশা করে বিয়ের জন্য চাপ দিয়ে ৪ লক্ষ টাকা আদায় করে। অল্প সময়ে অভিনব এ ছলনার পেশাটাটি বেশ আয়ত্বে আনায় দক্ষ হওয়ায় বহু সংসারের ভাঙনের কারণ হিসেবে মূখ্য ভূমিকায় রয়েছে এই নারী শিরীন খানম।

এমন ধারাবাহিক ভাবে একের পর এক ব্যবসায়ী থেকে শুরু করে সরকারি কর্মকর্তা কর্মচারীদের তার রুপে কাবু করে প্রেমের জালে ফাসিয়ে ব্লাকমেইল করে লাখ লাখ টাকা অনৈতিক উপায়ে উপার্জন করেছে বলেও একাধিক সূত্রে জানা গেছে। সম্প্রতি স্টিমারঘাট এলাকায় মোবাইল ফোন ব্যবসায়ী মারুফের সাথে গোপন মেলামেশার এক পর্যায়ে ব্লাকমেইলিং করে মটর সাইকেল সহ কয়েক লাখ টাকা আত্মসাৎ করে এলাকা ছাড়তে বাধ্য করে শিরীন।

নগরীর ভিআইপি গেট এলাকায় একটি বাসা নিয়ে সেখানে রাত দুপুরে আসর বসায় আর অনৈতিক কর্মকান্ড করে আসতে থাকায় এ এলাকার লোকজনও শিরীন খানমের এ অত্যাচারের শিকার হয়ে অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে। এ এলাকার একাধিক নারীরা শিরীনের অনৈতিক কর্মকান্ডের বিষয় মূখ খুললেও পুরুষরা অদৃশ্যকারনে তার বিরুদ্ধে অভিযোগ করছে না।

এ এলাকার সরকারি এক কর্মকর্তার সাথেও তার গভীর গোপন মেলামেশার সম্পর্ক রয়েছে বলে এলাকার সূত্রে জানা গেছে।

নগরীর স্টিমারঘাট জামে মসজিদ এলাকায় একটি ফার্মেসীর দোকান দিয়ে বেপর্দায় বসে এলাকার ব্যবসায়ীদের অতিষ্ঠ করে তুলছে। লঞ্চঘাট এলাকার একাধিক ব্যবসায়ীরা জানায় ইদানীং ফেইসবুক টিকটকে বেপর্দায় থেকে ভিডিও করে এলাকারআউঠতি বয়সী ছেলেদের উম্মাদ করে রেখেছে।

মাঝে মধ্যেই মধ্যরাতে ঘুমের ঔষধ খেয়ে মাতলামি করে রাতে বাড়ী পৌছে দিতে একেক ব্যবসায়ীদের ধরনা ধরে তাদের প্রেমের ফাদে ফেলার কৌশলে। শিরীন খানমের এহেনো বেহায়াপনায় অনৈতিক কাজে এক প্রকার অতিষ্ঠ হয়ে মুসুল্লিরা অভিযোগ করে।

কিন্তু তার রুপের বাহারে ব্যবস্থা গ্রহন আর হয়নি এ পর্যন্ত। শিরীন খানমের ১৭ বছরের একটি ছেলে সন্তান থাকলেও আদৌ কোন স্বামীর এ সন্তান তা শিরীন খানম নিজেই গুলিয়ে ফেলেছে। হেলাল নামের এক ব্যক্তিকে প্রেমের জালে ফাসিয়ে বিয়ের জন্য চাপ দিয়ে অর্ধ আত্মসাৎ করে তার বৈবাহিক সম্পর্কও ছিন্ন হয়েছে এ নারীর কারনে বলেও জানা গেছে ।

বর্তমানে এতোটাই উশ্রীংখল ভাবে নোংরা ভিডিওর মাধ্যমে যুব সমাজ ধ্বংস করছে তা আইনশৃঙ্খলা বাহিনী জোড়ালো কোন পদক্ষেপ গ্রহণ না করলে তা মহামারী আকারে বিস্তার করে অনেক সোনার সংসার ভাংবে বলেও আশংকা করে এলাকাবাসী।

তারা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কাছে এ বেপর্দা নারীর ছলনাময়ী ছোবলের হাত থেকে রক্ষা করার জন্য প্রয়োজনীয় সকল ব্যবস্থা গ্রহনের জোর দাবী জানায়।
সম্প্রতি Rab এর হাতে আটক হওয়ায় মুসুল্লীরা স্বস্তি প্রকাশ করেছে।