ঢাকা ০৭:০৭ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম :
Logo এমপি আনার খুন: রহস্যময় রূপে শীর্ষ দুই ব্যবসায়ী Logo রূপালী ব্যাংকের ডিজিএম কর্তৃক সহকর্মী নারীকে যৌন হয়রানি: ধামাচাপা দিতে মরিয়া তদন্ত কমিটি Logo প্রতিবন্ধী ভাতার টাকা হাতিয়ে বহাল তবিয়তে মাদারীপুরের দুই সহকারী সমাজসেবা অফিসারl Logo যমুনা লাইফের গ্রাহক প্রতারণায় ‘জড়িতরা’ কে কোথায় Logo ঢাকাস্থ ভোলা সাংবাদিক ফোরামের সভাপতি আহসান কামরুল, সম্পাদক জিয়াউর রহমান Logo টাটা মটরস বাংলাদেশে উদ্বোধন করলো টাটা যোদ্ধা Logo আশা শিক্ষা কর্মসূচী কর্তৃক অভিভাবক মতবিনিময় সভা Logo গণপূর্ত প্রধান প্রকৌশলীর গাড়ি চাপায় পিষ্ট সহকারী প্রকৌশলী -উত্তাল গণপূর্ত Logo শাবিপ্রবির বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের উদ্যোগে বৃক্ষরোপণ Logo সওজের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী নাহিনুরের সীমাহীন সম্পদ ও অনিয়ম -পর্ব-০১




উপজেলা উপস্বাস্থ্যকেন্দ্রে এক বছর অফিস সহকারীই চিকিৎসক!

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ১২:০১:৪২ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৩ জুলাই ২০১৯ ১২৩ বার পড়া হয়েছে

রংপুর প্রতিনিধি;

রংপুরের বদরগঞ্জ উপজেলার রাধানগর উপস্বাস্থ্যকেন্দ্রে শিশু থেকে শুরু করে সব রোগীর সর্বরোগের চিকিৎসা দিচ্ছেন এক অফিস সহকারী। বাইরে থেকে ওষুধ কেনার ব্যবস্থাপত্রও লিখে দেন তিনি। গত এক বছর ধরে উপস্বাস্থ্যকেন্দ্রটিতে ওই অফিস সহকারী চিকিৎসা দিচ্ছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

অভিযুক্ত অফিস সহকারীর নাম মিনজুর রহমান। তিনি অকপটে এ প্রতিবেদককে বলেন, ‘এখানে চিকিৎসক ও ফার্মাসিস্ট কেউ নেই। তাই আমি চিকিৎসা দিয়ে আসছি। এখানে থাকতে থাকতে আমার অভিজ্ঞতা হয়েছে। তা ছাড়া স্বাস্থ্যসেবা দেওয়ার প্রশিক্ষণও আমার আছে। আমার দেওয়া চিকিৎসায় রোগীরা ভালো হচ্ছেন।’

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সূত্রে জানা গেছে, ওই ইউনিয়ন উপস্বাস্থ্যকেন্দ্রটি ১৯৬৫ সালে উপজেলার তৃতীয় বৃহত্তম হাটবাজার লালদিঘীহাটে স্থাপন করা হয়। প্রতিদিন গড়ে ৮০-৯০ জন রোগী সেখানে চিকিৎসা নেন। উপস্বাস্থ্যকেন্দ্রে একজন এমবিবিএস চিকিৎসক, উপসহকারী কমিউনিটি মেডিকেল কর্মকর্তা, ফার্মাসিস্ট ও এমএলএসএস বা অফিস সহকারীর (পিয়ন) চারটি পদ আছে।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সূত্র অনুযায়ী, এমবিবিএস চিকিৎসকের পদ চার বছর, উপসহকারী কমিউনিটি মেডিকেল কর্মকর্তার পদ তিন বছর এবং ফার্মাসিস্টের পদ দুই বছর ধরে শূন্য আছে। চিকিৎসক না থাকায় দুই বছর আগে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে ওই উপস্বাস্থ্যকেন্দ্রে চিকিৎসা দেওয়ার অতিরিক্ত দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে উপজেলার লোহানীপাড়া ইউনিয়ন উপস্বাস্থ্যকেন্দ্রের উপসহকারী কমিউনিটি মেডিকেল কর্মকর্তা মনিরুজ্জামানকে। বিধিমোতাবেক কোনো রোগী দেখার এখতিয়ারও উপসহকারী মেডিকেল কর্মকর্তার নেই। তবুও তিনি রোগী দেখেন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে।

গত সোমবার বেলা ১১টার দিকে ওই উপস্বাস্থ্যকেন্দ্রে গিয়ে দেখা যায়, কেন্দ্রটির এমএলএসএস মিনজুর রহমান চিকিৎসকের চেয়ারে বসে চিকিৎসা দিচ্ছেন। এ সময় ছয় বছর বয়সের অসুস্থ সন্তানকে কোলে নিয়ে রাধানগর ইউনিয়নের দফাদারপাড়া গ্রামের আরশি বেগম (৩০) ওই অফিস সহকারীকে চিকিৎসক ভেবে বলেন, ‘স্যার, আমার ছেলের তিন দিন ধরে সর্দি জ্বর। আমার পেট ব্যথা করে মোচড় দিয়ে উঠছে।’ মিনজুর রহমান চিকিৎসা হিসেবে ওই শিশুকে চারটি প্যারাসিটামল ট্যাবলেট এবং মা আরশি বেগমকে চারটি মেট্রোনিডাজোল ট্যাবলেট দিলেন। ওই ট্যাবলেট দিনে দুবার করে শিশু ও মাকে খাওয়ার পরামর্শ দেন তিনি।

লালদীঘি পীরপাল কলেজের এইচএসসি দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র ফারুক হোসেনও (১৮) ওই স্বাস্থ্যকেন্দ্রে ওই সময় চিকিৎসা নিতে গিয়েছিলেন। তাঁর মুখ থেকে রোগের বর্ণনা শুনে চারটি করে প্যারাসিটামল, অ্যান্টাসিড ও বি কমপ্লেক্স ট্যাবলেট দিয়ে ওই পিয়ন বলেন, ‘এগুলো খাও, ঠিক হয়ে যাবে।’

ওই দিন দুপুর ১২টা পর্যন্ত ওই উপস্বাস্থ্যকেন্দ্রের চিকিৎসা রেজিস্ট্রারে দেখা যায়, মিনজুর ওই সময় পর্যন্ত ৬৫ জন রোগীর চিকিৎসা দিয়েছেন।

রাধানগর ইউনিয়নের দক্ষিণ খামারপাড়া গ্রামের জালাল উদ্দিন (৩৮) অভিযোগ করে বলেন, ‘এখানে এক বছর ধরে চিকিৎসক বসে না। অফিস সহকারী হাসপাতালটি খুলে চিকিৎসকের চেয়ারে বসে বিভিন্ন রোগের চিকিৎসা দিচ্ছেন। হাসপাতালে ওষুধ না থাকলে ব্যবস্থাপত্র লিখে দেন। রোগীরা ওষুধের দোকান থেকে তা কিনে খাচ্ছেন। কিন্তু গ্রামগঞ্জের রোগীরা আজও জানেন না তিনি চিকিৎসক নন।’

একজন অফিস সহকারী হয়েও চিকিৎসকের চেয়ারে বসে চিকিৎসা দেওয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে মিনজুর রহমান বলেন, ‘ভাই, চিকিৎসা দেওয়ার এখতিয়ার তো আমার নেই। চিকিৎসক না থাকায় এবং কিছুটা অভিজ্ঞতা থাকার কারণে আমাকে এখানে (উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রে) রোগী দেখার অনুমতি দেওয়া হয়েছে।’ কে দিয়েছেন অনুমতি—জানতে চাইলে তিনি বলেন, এখানকার দায়িত্বপ্রাপ্ত উপসহকারী কমিউনিটি মেডিকেল কর্মকর্তা মনিরুজ্জামান তাঁকে এ অনুমতি দেন।

মুঠোফোনে জানতে চাইলে মনিরুজ্জামান বলেন, ‘আমি তাঁকে চিকিৎসা দেওয়ার কোনো অনুমতি দিইনি।’ মনিরুজ্জামান দাবি করেন, কেন্দ্রটিতে তিনি গিয়ে চিকিৎসা দেন। কিন্তু রোববার রাতে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে দায়িত্ব পালন করায় সোমবার ওই উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রে তিনি যেতে পারেননি।

পরদিন মঙ্গলবার সরেজমিনে গিয়েও ওই উপস্বাস্থ্যকেন্দ্রে পিয়ন মিনজুর রহমানকে চিকিৎসা দিতে দেখা গেছে। এ প্রসঙ্গে মনিরুজ্জামান বলেন, ‘ভাই, আজ দিনে (মঙ্গলবার) উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে রোগী দেখছি। এত রোগী রেখে কীভাবে সেখানে যাব?’

এ ব্যাপারে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আরশাদ হোসেন বলেন, ‘আমি দুই দিন আগে এখানে যোগদান করেছি। ওই উপস্বাস্থ্যকেন্দ্রের কী অবস্থা তা জানি না।’ এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘অফিস সহকারীর চিকিৎসা দেওয়ার কোনো এখতিয়ার নেই। বিষয়টি দেখে ব্যবস্থা নেব।’

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :




উপজেলা উপস্বাস্থ্যকেন্দ্রে এক বছর অফিস সহকারীই চিকিৎসক!

আপডেট সময় : ১২:০১:৪২ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৩ জুলাই ২০১৯

রংপুর প্রতিনিধি;

রংপুরের বদরগঞ্জ উপজেলার রাধানগর উপস্বাস্থ্যকেন্দ্রে শিশু থেকে শুরু করে সব রোগীর সর্বরোগের চিকিৎসা দিচ্ছেন এক অফিস সহকারী। বাইরে থেকে ওষুধ কেনার ব্যবস্থাপত্রও লিখে দেন তিনি। গত এক বছর ধরে উপস্বাস্থ্যকেন্দ্রটিতে ওই অফিস সহকারী চিকিৎসা দিচ্ছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

অভিযুক্ত অফিস সহকারীর নাম মিনজুর রহমান। তিনি অকপটে এ প্রতিবেদককে বলেন, ‘এখানে চিকিৎসক ও ফার্মাসিস্ট কেউ নেই। তাই আমি চিকিৎসা দিয়ে আসছি। এখানে থাকতে থাকতে আমার অভিজ্ঞতা হয়েছে। তা ছাড়া স্বাস্থ্যসেবা দেওয়ার প্রশিক্ষণও আমার আছে। আমার দেওয়া চিকিৎসায় রোগীরা ভালো হচ্ছেন।’

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সূত্রে জানা গেছে, ওই ইউনিয়ন উপস্বাস্থ্যকেন্দ্রটি ১৯৬৫ সালে উপজেলার তৃতীয় বৃহত্তম হাটবাজার লালদিঘীহাটে স্থাপন করা হয়। প্রতিদিন গড়ে ৮০-৯০ জন রোগী সেখানে চিকিৎসা নেন। উপস্বাস্থ্যকেন্দ্রে একজন এমবিবিএস চিকিৎসক, উপসহকারী কমিউনিটি মেডিকেল কর্মকর্তা, ফার্মাসিস্ট ও এমএলএসএস বা অফিস সহকারীর (পিয়ন) চারটি পদ আছে।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সূত্র অনুযায়ী, এমবিবিএস চিকিৎসকের পদ চার বছর, উপসহকারী কমিউনিটি মেডিকেল কর্মকর্তার পদ তিন বছর এবং ফার্মাসিস্টের পদ দুই বছর ধরে শূন্য আছে। চিকিৎসক না থাকায় দুই বছর আগে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে ওই উপস্বাস্থ্যকেন্দ্রে চিকিৎসা দেওয়ার অতিরিক্ত দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে উপজেলার লোহানীপাড়া ইউনিয়ন উপস্বাস্থ্যকেন্দ্রের উপসহকারী কমিউনিটি মেডিকেল কর্মকর্তা মনিরুজ্জামানকে। বিধিমোতাবেক কোনো রোগী দেখার এখতিয়ারও উপসহকারী মেডিকেল কর্মকর্তার নেই। তবুও তিনি রোগী দেখেন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে।

গত সোমবার বেলা ১১টার দিকে ওই উপস্বাস্থ্যকেন্দ্রে গিয়ে দেখা যায়, কেন্দ্রটির এমএলএসএস মিনজুর রহমান চিকিৎসকের চেয়ারে বসে চিকিৎসা দিচ্ছেন। এ সময় ছয় বছর বয়সের অসুস্থ সন্তানকে কোলে নিয়ে রাধানগর ইউনিয়নের দফাদারপাড়া গ্রামের আরশি বেগম (৩০) ওই অফিস সহকারীকে চিকিৎসক ভেবে বলেন, ‘স্যার, আমার ছেলের তিন দিন ধরে সর্দি জ্বর। আমার পেট ব্যথা করে মোচড় দিয়ে উঠছে।’ মিনজুর রহমান চিকিৎসা হিসেবে ওই শিশুকে চারটি প্যারাসিটামল ট্যাবলেট এবং মা আরশি বেগমকে চারটি মেট্রোনিডাজোল ট্যাবলেট দিলেন। ওই ট্যাবলেট দিনে দুবার করে শিশু ও মাকে খাওয়ার পরামর্শ দেন তিনি।

লালদীঘি পীরপাল কলেজের এইচএসসি দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র ফারুক হোসেনও (১৮) ওই স্বাস্থ্যকেন্দ্রে ওই সময় চিকিৎসা নিতে গিয়েছিলেন। তাঁর মুখ থেকে রোগের বর্ণনা শুনে চারটি করে প্যারাসিটামল, অ্যান্টাসিড ও বি কমপ্লেক্স ট্যাবলেট দিয়ে ওই পিয়ন বলেন, ‘এগুলো খাও, ঠিক হয়ে যাবে।’

ওই দিন দুপুর ১২টা পর্যন্ত ওই উপস্বাস্থ্যকেন্দ্রের চিকিৎসা রেজিস্ট্রারে দেখা যায়, মিনজুর ওই সময় পর্যন্ত ৬৫ জন রোগীর চিকিৎসা দিয়েছেন।

রাধানগর ইউনিয়নের দক্ষিণ খামারপাড়া গ্রামের জালাল উদ্দিন (৩৮) অভিযোগ করে বলেন, ‘এখানে এক বছর ধরে চিকিৎসক বসে না। অফিস সহকারী হাসপাতালটি খুলে চিকিৎসকের চেয়ারে বসে বিভিন্ন রোগের চিকিৎসা দিচ্ছেন। হাসপাতালে ওষুধ না থাকলে ব্যবস্থাপত্র লিখে দেন। রোগীরা ওষুধের দোকান থেকে তা কিনে খাচ্ছেন। কিন্তু গ্রামগঞ্জের রোগীরা আজও জানেন না তিনি চিকিৎসক নন।’

একজন অফিস সহকারী হয়েও চিকিৎসকের চেয়ারে বসে চিকিৎসা দেওয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে মিনজুর রহমান বলেন, ‘ভাই, চিকিৎসা দেওয়ার এখতিয়ার তো আমার নেই। চিকিৎসক না থাকায় এবং কিছুটা অভিজ্ঞতা থাকার কারণে আমাকে এখানে (উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রে) রোগী দেখার অনুমতি দেওয়া হয়েছে।’ কে দিয়েছেন অনুমতি—জানতে চাইলে তিনি বলেন, এখানকার দায়িত্বপ্রাপ্ত উপসহকারী কমিউনিটি মেডিকেল কর্মকর্তা মনিরুজ্জামান তাঁকে এ অনুমতি দেন।

মুঠোফোনে জানতে চাইলে মনিরুজ্জামান বলেন, ‘আমি তাঁকে চিকিৎসা দেওয়ার কোনো অনুমতি দিইনি।’ মনিরুজ্জামান দাবি করেন, কেন্দ্রটিতে তিনি গিয়ে চিকিৎসা দেন। কিন্তু রোববার রাতে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে দায়িত্ব পালন করায় সোমবার ওই উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রে তিনি যেতে পারেননি।

পরদিন মঙ্গলবার সরেজমিনে গিয়েও ওই উপস্বাস্থ্যকেন্দ্রে পিয়ন মিনজুর রহমানকে চিকিৎসা দিতে দেখা গেছে। এ প্রসঙ্গে মনিরুজ্জামান বলেন, ‘ভাই, আজ দিনে (মঙ্গলবার) উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে রোগী দেখছি। এত রোগী রেখে কীভাবে সেখানে যাব?’

এ ব্যাপারে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আরশাদ হোসেন বলেন, ‘আমি দুই দিন আগে এখানে যোগদান করেছি। ওই উপস্বাস্থ্যকেন্দ্রের কী অবস্থা তা জানি না।’ এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘অফিস সহকারীর চিকিৎসা দেওয়ার কোনো এখতিয়ার নেই। বিষয়টি দেখে ব্যবস্থা নেব।’