ঢাকা ০২:১৬ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ০৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ২৫ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম :
Logo মির্জাগঞ্জ এলজিইডি প্রকৌশলী আশিকুরের ঘুস-দুর্নীতি! Logo দ্রব্যমূল্যের ক্রমাগত ঊর্ধ্বগতি ; বিপাকে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা Logo পরিবেশের জন্য ই-বর্জ্য হুমকি স্বরূপ ; তা উত্তরণের উপায় Logo বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় বাংলাদেশ Logo ঐতিহ্যবাহী সোহরাওয়ার্দী কলেজ সাংবাদিক সমিতির কমিটি গঠন Logo চেয়ারম্যানের আহ্লাদে বেপরোয়া বিআইডব্লিউটিএ‘র কর্মচারি পান্না বিশ্বাস! Logo রাজউকে বদলী ও পদায়নে ভয়ংকর দুর্নীতি ফাঁস: নেপথ্য নায়ক প্রধান প্রকৌশলী  Logo কুবির শেখ হাসিনা হলের গ্যাস লিক, আতঙ্কে শিক্ষার্থীরা Logo ইন্টার্ন চিকিৎসকের হাত-পা ভেঙে দিলেন সহকর্মীরা Logo ঐতিহ্যবাহী শহীদ সোহরাওয়ার্দী কলেজে অফিসার্স কাউন্সিল নির্বাচন অনুষ্ঠিত 




মসজিদের ভেতর হেফাজতের আমির লাঞ্ছিত

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৩:৩৮:৫২ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২ নভেম্বর ২০১৮ ৪৬ বার পড়া হয়েছে

জেলা প্রতিনিধি;নারায়ণগঞ্জে একটি মসজিদে তাবলীগ জামায়াতের কর্তৃত্ব নিয়ে দুই গ্রুপের বিরোধের জের ধরে হাতাহাতির ঘটনাসহ জেলা হেফাজতের আমির মাওলানা আব্দুল আউয়ালকে লাঞ্ছিতের ঘটনা ঘটেছে। এ সময় হেফাজতের অন্য নেতাদের উপরও হামলার ঘটনা ঘটে।

বৃহস্পতিবার রাতে শহরের আমলাপাড়া মসজিদে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় হেফাজতের পক্ষে মুফতি আনিস আনসারি বাদী হয়ে নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানায় সাধারণ ডায়রি (জিডি) করেছেন।

সূত্রমতে জানা গেছে, গত এক বছর ধরে তাবলীগ জামায়াতের ভেতরে অস্থিরতা বিরাজ করছিল। একটি গ্রুপ মার্কাজপন্থী ভারতের আলোচিত বির্তকিত সাদ কান্ধলভীকে অনুসরণ করছেন। আরেকটি গ্রুপে তার বিরোধিতা করেছিলেন বাংলাদেশে হেফাজতের নেতৃত্বদানকারী আলেমরা। আর নারায়ণগঞ্জের হেফাজতপন্থীরা সাদকে বিরোধিতা করে মার্কাজ দখল করতে চাচ্ছেন।

এসবের জেরে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় ছোট মার্কাজ হিসেবে পরিচিত শহরের আমলাপাড়া মসজিদে দুই গ্রুপ অবস্থান নেয়। আর মাগরিবের নামাজের সময় অবস্থান নেন জেলা হেফাজতের আমির মাওলানা আব্দুল আউয়ালসহ অন্যরা। মসজিদে মাওলানা আউয়াল সাপ্তাহিক বয়ান করতে চাইলে সাদ পন্থীরা বাধা দেন। এতে সাদ পন্থী ও হেফাজত পন্থীদের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দেয়।

পরে পূর্ব নির্ধারিত কর্মসূচি অনুযায়ী সাপ্তাহিক বয়ান শুরু করেন আমলাপাড়া মসজিদের ইমাম মাওলানা খোরশেদ। তিনি এশার নামাজের আগ পর্যন্ত বয়ান করেন। মাওলানা আউয়ালকে বয়ান করতে দেয়া হয়নি।

এক পর্যায়ে মাওলানা আউয়াল ফের বয়ান করতে চাইলে সাদ পন্থীরা উত্তেজিত হয়ে পড়েন। মাওলানা আউয়ালের সঙ্গে বাকবিতণ্ডায় জড়ান তারা। এসময় দুই গ্রুপের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। এতে সাদ পন্থীদের হাতে মাওলানা আউয়াল লাঞ্ছিত হন।

এদিকে এশার নামাজ শেষ হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে সাদ পন্থীদের কথামতো পুলিশ মসজিদের ভেতরে প্রবেশ করে মাওলানা আউয়ালসহ তার সঙ্গীদের বের করে দেয় বলেও জানা গেছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :




মসজিদের ভেতর হেফাজতের আমির লাঞ্ছিত

আপডেট সময় : ০৩:৩৮:৫২ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২ নভেম্বর ২০১৮

জেলা প্রতিনিধি;নারায়ণগঞ্জে একটি মসজিদে তাবলীগ জামায়াতের কর্তৃত্ব নিয়ে দুই গ্রুপের বিরোধের জের ধরে হাতাহাতির ঘটনাসহ জেলা হেফাজতের আমির মাওলানা আব্দুল আউয়ালকে লাঞ্ছিতের ঘটনা ঘটেছে। এ সময় হেফাজতের অন্য নেতাদের উপরও হামলার ঘটনা ঘটে।

বৃহস্পতিবার রাতে শহরের আমলাপাড়া মসজিদে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় হেফাজতের পক্ষে মুফতি আনিস আনসারি বাদী হয়ে নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানায় সাধারণ ডায়রি (জিডি) করেছেন।

সূত্রমতে জানা গেছে, গত এক বছর ধরে তাবলীগ জামায়াতের ভেতরে অস্থিরতা বিরাজ করছিল। একটি গ্রুপ মার্কাজপন্থী ভারতের আলোচিত বির্তকিত সাদ কান্ধলভীকে অনুসরণ করছেন। আরেকটি গ্রুপে তার বিরোধিতা করেছিলেন বাংলাদেশে হেফাজতের নেতৃত্বদানকারী আলেমরা। আর নারায়ণগঞ্জের হেফাজতপন্থীরা সাদকে বিরোধিতা করে মার্কাজ দখল করতে চাচ্ছেন।

এসবের জেরে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় ছোট মার্কাজ হিসেবে পরিচিত শহরের আমলাপাড়া মসজিদে দুই গ্রুপ অবস্থান নেয়। আর মাগরিবের নামাজের সময় অবস্থান নেন জেলা হেফাজতের আমির মাওলানা আব্দুল আউয়ালসহ অন্যরা। মসজিদে মাওলানা আউয়াল সাপ্তাহিক বয়ান করতে চাইলে সাদ পন্থীরা বাধা দেন। এতে সাদ পন্থী ও হেফাজত পন্থীদের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দেয়।

পরে পূর্ব নির্ধারিত কর্মসূচি অনুযায়ী সাপ্তাহিক বয়ান শুরু করেন আমলাপাড়া মসজিদের ইমাম মাওলানা খোরশেদ। তিনি এশার নামাজের আগ পর্যন্ত বয়ান করেন। মাওলানা আউয়ালকে বয়ান করতে দেয়া হয়নি।

এক পর্যায়ে মাওলানা আউয়াল ফের বয়ান করতে চাইলে সাদ পন্থীরা উত্তেজিত হয়ে পড়েন। মাওলানা আউয়ালের সঙ্গে বাকবিতণ্ডায় জড়ান তারা। এসময় দুই গ্রুপের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। এতে সাদ পন্থীদের হাতে মাওলানা আউয়াল লাঞ্ছিত হন।

এদিকে এশার নামাজ শেষ হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে সাদ পন্থীদের কথামতো পুলিশ মসজিদের ভেতরে প্রবেশ করে মাওলানা আউয়ালসহ তার সঙ্গীদের বের করে দেয় বলেও জানা গেছে।